জেনে নিন

নতুন সংসারে ব্যক্তিগত বাজেট

  মৃন্ময়ী হাসান ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

নতুন সংসারে ব্যক্তিগত বাজেট
নতুন সংসারে ব্যক্তিগত বাজেট

‘কাট ইয়োর কোট অ্যাকর্ডিং টু ইয়োর ক্লথ’- আয় বুঝে ব্যয় করার কথা আশৈশব মুখস্থ আমাদের। কিন্তু এই আয় বুঝে ব্যয় করেও কি তাল মেলাতে পারছি আমরা? মাসের যে আয়টুকু হয় বাড়িভাড়া, সন্তানের পড়াশোনা, বাজার খরচ, চিকিৎসাসেবা সব করে সঞ্চয়ের হিসাব তলানিতেই থাকে। নাগরিক জীবনে তাই মানুষের সঞ্চয়ের খাতা ধরতে গেলে শূন্য-ই।

কিন্তু আপনি যদি একটু বুঝে-শুনে চলেন তাহলে দেখবেন খুব সহঝেই কিছু টাকা সঞ্চয় করে ফেলেছেন আপনি। দরকার একটু পরিকল্পনা। মেনে চলতে পারেন নিচের পরামর্শগুলো।

অল্প অল্প শুরু

প্রতিদিন অল্প অল্প করে সঞ্চয় শুরু করুন। এই কাজটি শুরু করতে পারেন মাটির ব্যাংক দিয়ে। প্রতিদিন মাটির ব্যাংকে অল্প অল্প করে টাকা রাখুন। একসময় দেখবেন এই জমানো টাকা একটি বিশাল অঙ্কে পরিণত হয়েছে।

কিছু জিনিস বর্জন

আপনি হয়তো মোবাইলে আনলিমিটেড ইন্টারনেট সার্ভিস চালু রেখেছেন, অথচ সেটি প্রতিদিন ব্যবহার করছেন না। কিংবা প্রতিমাসে এমন একটি ম্যাগাজিন রাখছেন, যা আপনার পড়া হয় না। সেটি বন্ধ করে দিন। এই খরচটি অনেক ছোট মনে হলেও একটা সময়ে গিয়ে এই ছোট খরচটি বড় সঞ্চয় হিসেবে দেখা দেবে।

হুটহাট বাইরে খাওয়া নয়

আপনি হয়তো বাইরে খেতে পছন্দ করেন। এই বাইরে খাওয়াটি কমিয়ে ফেলুন। প্রতি সপ্তাহে বাইরে খেতে যাওয়ার পরিবর্তে মাসে একবার খেতে যান। খুব সহজে টাকা জমানোর একটি উপায় হল বাইরে খাওয়া কমিয়ে দেয়া। বাইরে খাওয়া বন্ধ করে টাকা জমান।

সবজির বাগান

বারান্দা কিংবা ছাদের এককোণে সবজি বাগান করুন। এই ছোট বাগানটি সবজি কেনার খরচ কমিয়ে দেবে।

খরচবিহীন দিন

সপ্তাহের একটি দিন ঠিক করুন, যেদিন কোনো খরচ করবেন না। প্রতি সপ্তাহে এরকম একটি দিন পালন করুন। দেখবেন খরচ অনেকখানি কমে গেছে।

হোক বাজেট

একটি বাজেট নির্ধারণ করুন। যেমন আপনি কত টাকা জমাতে চান সেটি আগে ঠিক করে নিন। তারপর অল্প অল্প করে সঞ্চয় শুরু করুন। প্রতি সপ্তাহে কী কী খরচ আছে তা প্ল্যান করে নিন এবং সে অনুযায়ী টাকা খরচ করুন। পরিকল্পনার বাইরে খরচ না করার চেষ্টা করুন। একটু টাইট বাজেট করুন এতে টাকা সঞ্চয় করা সহজ হবে। না হলে দেখবেন বাড়তি টাকা খরচ হয়ে গেছে।

মনে রাখতে হবে যা

* শপিংয়ে যাওয়ার আগে লিস্ট করুন। জামাকাপড় কেনার আগে দেখে নিন আপনার কী কী আছে এবং কী কী আসলেই কেনা প্রয়োজন।

* আমাদের অনেকেরই অভ্যাস হল রাস্তায় যেতে যেতে কোনো দোকানে কিছু পছন্দ হলে হুট করে কিনে ফেলা। এটা করার ফলে বেশিরভাগ সময়েই আমরা অপ্রয়োজনীয় জিনিসপত্র দিয়ে ঘর বোঝাই করে ফেলি। জিনিস পছন্দ হয়ে গেলেই হুট করে কিনে না ফেলে একটু ভেবে নিন। দরকার হলে ১/২ দিন পরে কিনুন।

* ভবিষ্যতে আপনার বিগ বাজেটের কী কী কিনতে হবে সেটার একটা তালিকা করে সময়সীমাও নির্ধারণ করুন। যেমন, ৫ বছর পর ফ্ল্যাট, ১ বছর পর টিভি আর এক মাস পর ওভেন। এভাবে ঠিক করে কত টাকা করে জমালে এই লক্ষ্য পূরণ করা সম্ভব, সেটি খেয়াল রাখুন ও সে অনুযায়ী পদক্ষেপ নিন।

* সন্তানকে ছোট্ট একটা ব্যাংক কিনে দিন। মাটির বা প্লাস্টিকের। খুব রঙিন বা আকর্ষণীয় পুতুল আকারের ব্যাংক কিনতে পাওয়া যায়। সেগুলোর একটা কিনুন ও তাকে টাকা জমাতে সাহায্য করুন।

* প্রতিদিন কোথায় কত খরচ হল তার হিসাব একটা খাতায় লিখে রাখুন। মাস শেষে সেটি নিয়ে বসুন। এবার দেখুন কোন কোন খাতে খরচ বেশি হয়েছে এবং সেগুলো একটু চেষ্টা করলেই কমানো সম্ভব কিনা!

 

 

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
bestelectronics

 

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter
.