মৌসুমি ফল লটকনের পুষ্টিগুণ

  শওকত আরা সাঈদা (লোপা) ডায়েটিশিয়ান অ্যান্ড ইনচার্জ পারসোনা হেল্থ, ধানমণ্ডি, ঢাকা ৩০ জুন ২০২০, ০০:০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

ষড়ঋতুর দেশ আমাদের এ বাংলাদেশ। যদিও নানা ধরনের বৈশ্বিক কারণে এখন আমাদের দেশের রূপবৈচিত্র্য কিছুটা কমে গেলেও আমরা মনে করি, আশীর্বাদপুষ্ট। আমাদের দেশের প্রতিটি মৌসুমেই নানা রঙের ফুল, ফল ও শাক-সবজির উৎপাদন হয়েই থাকে। যা থেকে আমরা প্রয়োজনীয় খাবারের জোগানসহ পুষ্টিচাহিদা চাইলেই পূরণ করতে পারি। তাই যখন যে মৌসুম থাকে তখন সেই মৌসুমের ফল ও শাক-সবজি খেলে কোনো ভিনদেশি ফল বা সবজির প্রয়োজন আমাদের হয় না।

এ মৌসুমের একটি পরিচিত ফল হচ্ছে লটকন। এ টক-মিষ্টি স্বাদের ফলটি আমাদের দেশে বেশ জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। ফলের আকার দুই থেকে পাঁচ সেমি. হয়, যা থোকায় থোকায় ধরে। যদিও এ দেশে এক সময় অপ্রচলিত ফলের তালিকায় ছিল এ লটকন। তবে লটকনের চাষ বৃদ্ধির সঙ্গে সঙ্গে এর জনপ্রিয়তাও বেশ বেড়েছে। এ দেশের নরসিংদীতেই লটকনের ফলন বেশি। এছাড়া সিলেট, নেত্রকোনা, ময়মনসিংহ, টাঙ্গাইল, কুড়িগ্রাম, লালমনিরহাট, গাজীপুর জেলায়ও লটকনের চাষ হচ্ছে। লটকন ফল সরাসরি খাওয়া যায়, ভর্তা ও আচার ছাড়াও তৈরি করা যায় জুস, জ্যাম আবার অনেকে লটকন দিয়ে ছোট মাছ টকও রান্না করেন। এ ফলটির অনেক পুষ্টিগুণ ও ঔষধি গুণ রয়েছে। ভিটামিন-সি’তে ভরপুর উপকারী এ ফলটি প্রতিদিনের খাবার তালিকায় রাখতে পারেন।

উপকারী এ ফলটি পুষ্টিগুণে অনন্য এবং অনেক ধরনের উপকারিতাও রয়েছে, যা এখানে তুলে ধরার চেষ্টা করলাম-

পুষ্টিমূল্য : ১০০ গ্রাম পাকা লটকনে আছে খাদ্যশক্তি ৯১ কিলোক্যালোরি, যা কাঁঠালের প্রায় দ্বিগুণ, আমিষ ১.৪২ গ্রাম, চর্বি ০.৪৫ গ্রাম, ভিটামিন-সি ৫৫ মিলিগ্রাম, ভিটামিন-বি ১-১০.০৪ মিলিগ্রাম, ভিটামিন-বি ২-০.২০ মিলিগ্রাম, লৌহ ৩.৩ গ্রাম, খনিজ পদার্থ ০.৯ গ্রাম, ক্যালসিয়াম ২ গ্রাম। এছাড়া রয়েছে পটাশিয়াম, ম্যাগনেশিয়াম ও ক্রোমিয়ামসহ নানা উপকারী সব উপাদান। যা আমাদের শরীরে নানাভাবে উপকার করে।

উপকারিতা : লটকনে রয়েছে অ্যামাইনো অ্যাসিড ও এনজাইম, যা দেহ গঠন ও কোষকলার সুস্থতায় কাজে লাগে। এসব উপাদান রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে সাহায্য করে।

* এটি উচ্চমাত্রার ভিটামিনসমৃদ্ধ একটি ফল। বিশেষ করে এতে থাকে অনেক বেশি পরিমাণ ভিটামিন-সি, যা বেশ কিছু পরিমাণ খেলে সারা দিনের চাহিদা পূরণ হয়ে যায়। এটি ত্বক, দাঁত, মাড়ি ও হাড় সুস্থ রাখে। মুখের স্কার্ভি রোগ প্রতিরোধে সাহায্য করে। এতে থাকা ভিটামিন-বি আমাদের চোখের রক্তনালির সংকোচন-প্রসারণ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে।

* এ ফলে ক্যালরি ও ফ্যাট কম থাকায় ডায়াবেটিস রোগীর জন্য বেশ উপকারী।

* দেহের অতিরিক্ত ওজন কমাতেও সাহায্য করে এ লটকন ফলটি। তাই যারা কিছুটা মোটা বা অতিরিক্ত ওজন নিয়ে চিন্তায় আছেন তারা লটকন খেতে পারেন।

* এটি রুচি বাড়াতে সাহায্য করে। এছাড়া বমি বমি ভাব দূর করে সহজেই। তৃষ্ণাও নিবারণ করে। কারণ এতে জলীয় অংশের পরিমাণ বেশি। মানসিক চাপ কমায় এ ফল।

* ফলের পাশাপাশি লটকনের পাতাও ঔষধির কাজ করে। এর পাতা ও শিকড় খেলে পেটের নানা ধরনের অসুখ ও জ্বর ভালো হয়ে যায়। লটকন গাছের শুকনো পাতার গুঁড়া ডায়েরিয়া বেশ দ্রুত ভালো করে। এর গাছের ছাল ও পাতা চর্মরোগ দূর করতে সাহায্য করে।

* এতে থাকা পটাশিয়াম এবং ম্যাগনেশিয়ামের মতো উপকারী খনিজ উপাদান আমাদের রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ করে থাকে। এছাড়া এতে রয়েছে রক্ত ও হাড়ের জন্য বিশেষ উপকারী আয়রন।

আরও খবর

সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত