এবার পূজোয় শিশুর পোশাক
jugantor
এবার পূজোয় শিশুর পোশাক

  ফারিন সুমাইয়া  

১৩ অক্টোবর ২০২০, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

ছবি সংগৃহীত

পূজা মানেই নতুন নতুন পোশাক। আর শিশুদের বেলায় পূজার আমেজ মানেই নানা রঙের ছোঁয়ায় বিভিন্ন ধরনের ডিজাইনের জামা-কাপড়। তাই পূজার প্রস্তুতি শিশুদের মাঝে নজর কাড়ে সবার আগে।

অন্যদিকে দুর্গা পূজা মানেই ষষ্ঠী, সপ্তমী, অষ্টমী, নবমী আর দশমীর দিনগুলোকে ঘিরে নানা প্রস্তুতি। তাই একেক দিনকে কেন্দ্র করে ছোট্ট সোনামণিদের সাজিয়ে তুলতে পোশাকের মাঝে ভিন্নতার আমেজ চাই।

অন্যদিকে এবারের দুর্গা পূজা গরম আর সঙ্গে যখন-তখন বৃষ্টির আনাগোনার মাঝে শুরু। কাজেই পোশাকের ক্ষেত্রে ডিজাইনের দিকে লক্ষ রাখা যেমন আবশ্যক, তেমনি কাপড়ের দিকেও লক্ষ রাখতে হবে সমানভাবে। গরমের এ সময় শিশুরা অল্পতেই হাঁপিয়ে ওঠে। তাই সুতি বা সিল্ক কাপড় শিশুদের পোশাক নির্বাচনের সময় নজরে রাখুন। সেক্ষেত্রে সুতি সালোয়ার-কামিজ হতে পারে ষষ্ঠীর জন্য সবচেয়ে ভালো একটি নির্বাচন।

এক্ষেত্রে রঙের বেলায় হালকা রঙ বেছে নিলে গরম থেকে আরও আরাম পাওয়া সম্ভব। তাই হালকা বাদামি, মেজেন্টা, গোলাপি ও বেগুনি রঙ বেছে নিতে পারেন আপনার শিশুর জন্য। ছেলেদের ক্ষেত্রে সুতি কাপড়ের শার্ট কিংবা লিনেনের শার্ট হতে পারে আরামদায়ক পোশাক। সপ্তমীতে সালোয়ার-কামিজ কিংবা টপস সঙ্গে স্কার্ট অথবা জিন্স প্যান্ট বেছে নিতে পারেন।

এতে আরাম যেমন মিলবে, তেমনি শিশু অনায়াসে ঘোরাফেরা করতে পারবে। এছাড়া পূজার বাকি দিনগুলোয় বিশেষ করে নবমী আর দশমীর দিনে শাড়ি বেছে নিতে পারেন। সেক্ষেত্রে জর্জেট কিংবা সুতি শাড়ি হতে পারে এ গরমে আরামদায়ক পোশাক। অন্যদিকে ছেলেদের ক্ষেত্রে পাঞ্জাবির সঙ্গে পায়জামা কিংবা ধুতি বেছে নিতে পারেন দশমীর পোশাকের ক্ষেত্রে।

এছাড়াও শার্ট কিংবা টি-শার্টের মাঝেও একটি বেছে নিতে পারেন আপনার শিশুর জন্য। তবে এক্ষেত্রে অবশ্যই মাথায় রাখবেন, আপনার শিশু আরাম পাচ্ছে কি না, সঙ্গে গরমের এ সময় ঘামাচ্ছে কি না।

অতিরিক্ত ঘামের কারণে শিশু দুর্বল হয়ে পড়তে পারে তাই শিশুকে দিনে অন্তত দু’বার পোশাক পাল্টে দিন আর তুলনামূলক কিছুটা ঢোলা পোশাক পরানোর চেষ্টা করুন। এতে করে শিশু স্বাচ্ছন্দ্যের সঙ্গে পূজার আনন্দ উপভোগ করতে পারবে।

রঙের ক্ষেত্রেও হালকা রং বেছে নিন, যাতে এ গরমের মাঝেও মা দুর্গার আগমনের এ আনন্দ মুহূর্তে আপনার শিশু থাকে সুস্থ আর হাসিখুশি সব সময়।

এবার পূজোয় শিশুর পোশাক

 ফারিন সুমাইয়া 
১৩ অক্টোবর ২০২০, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ
ছবি সংগৃহীত
ছবি সংগৃহীত

পূজা মানেই নতুন নতুন পোশাক। আর শিশুদের বেলায় পূজার আমেজ মানেই নানা রঙের ছোঁয়ায় বিভিন্ন ধরনের ডিজাইনের জামা-কাপড়। তাই পূজার প্রস্তুতি শিশুদের মাঝে নজর কাড়ে সবার আগে।

অন্যদিকে দুর্গা পূজা মানেই ষষ্ঠী, সপ্তমী, অষ্টমী, নবমী আর দশমীর দিনগুলোকে ঘিরে নানা প্রস্তুতি। তাই একেক দিনকে কেন্দ্র করে ছোট্ট সোনামণিদের সাজিয়ে তুলতে পোশাকের মাঝে ভিন্নতার আমেজ চাই।

অন্যদিকে এবারের দুর্গা পূজা গরম আর সঙ্গে যখন-তখন বৃষ্টির আনাগোনার মাঝে শুরু। কাজেই পোশাকের ক্ষেত্রে ডিজাইনের দিকে লক্ষ রাখা যেমন আবশ্যক, তেমনি কাপড়ের দিকেও লক্ষ রাখতে হবে সমানভাবে। গরমের এ সময় শিশুরা অল্পতেই হাঁপিয়ে ওঠে। তাই সুতি বা সিল্ক কাপড় শিশুদের পোশাক নির্বাচনের সময় নজরে রাখুন। সেক্ষেত্রে সুতি সালোয়ার-কামিজ হতে পারে ষষ্ঠীর জন্য সবচেয়ে ভালো একটি নির্বাচন।

এক্ষেত্রে রঙের বেলায় হালকা রঙ বেছে নিলে গরম থেকে আরও আরাম পাওয়া সম্ভব। তাই হালকা বাদামি, মেজেন্টা, গোলাপি ও বেগুনি রঙ বেছে নিতে পারেন আপনার শিশুর জন্য। ছেলেদের ক্ষেত্রে সুতি কাপড়ের শার্ট কিংবা লিনেনের শার্ট হতে পারে আরামদায়ক পোশাক। সপ্তমীতে সালোয়ার-কামিজ কিংবা টপস সঙ্গে স্কার্ট অথবা জিন্স প্যান্ট বেছে নিতে পারেন।

এতে আরাম যেমন মিলবে, তেমনি শিশু অনায়াসে ঘোরাফেরা করতে পারবে। এছাড়া পূজার বাকি দিনগুলোয় বিশেষ করে নবমী আর দশমীর দিনে শাড়ি বেছে নিতে পারেন। সেক্ষেত্রে জর্জেট কিংবা সুতি শাড়ি হতে পারে এ গরমে আরামদায়ক পোশাক। অন্যদিকে ছেলেদের ক্ষেত্রে পাঞ্জাবির সঙ্গে পায়জামা কিংবা ধুতি বেছে নিতে পারেন দশমীর পোশাকের ক্ষেত্রে।

এছাড়াও শার্ট কিংবা টি-শার্টের মাঝেও একটি বেছে নিতে পারেন আপনার শিশুর জন্য। তবে এক্ষেত্রে অবশ্যই মাথায় রাখবেন, আপনার শিশু আরাম পাচ্ছে কি না, সঙ্গে গরমের এ সময় ঘামাচ্ছে কি না।

অতিরিক্ত ঘামের কারণে শিশু দুর্বল হয়ে পড়তে পারে তাই শিশুকে দিনে অন্তত দু’বার পোশাক পাল্টে দিন আর তুলনামূলক কিছুটা ঢোলা পোশাক পরানোর চেষ্টা করুন। এতে করে শিশু স্বাচ্ছন্দ্যের সঙ্গে পূজার আনন্দ উপভোগ করতে পারবে।

রঙের ক্ষেত্রেও হালকা রং বেছে নিন, যাতে এ গরমের মাঝেও মা দুর্গার আগমনের এ আনন্দ মুহূর্তে আপনার শিশু থাকে সুস্থ আর হাসিখুশি সব সময়।