ছোটদের ঈদের পোশাক

আসছে খুশির ঈদ। নতুন পোশাক ঘিরে ছোটদের ঈদের আনন্দ। আজকাল ছোটরাও অনেক বেশি ফ্যাশন সচেতন। তাদেরও চাই স্টাইলিশ ঈদ পোশাক। বাজার ঘুরে ছোটদের ফ্যাশনেবল ও আরামদায়ক ঈদ পোশাকের খোঁজ জানাচ্ছেন- আফরোজা আক্তার

  যুগান্তর ডেস্ক    ২২ মে ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

ঈদের আনন্দ সবচেয়ে বেশি উপভোগ করে ছোটরা। সময় বদলে পাল্টেছে পছন্দ। আজকাল ছোটরা নিজেরাই তাদের পোশাক পছন্দ করতে স্বচ্ছান্দ্যবোধ করে। যেহেতু তাদের আনন্দটাই বড় বিষয়, তাই ঈদের কেনাকাটায় তাদের পছন্দকে গুরুত্ব দিন। তবে পছন্দের পোশাকটি আরামদায়ক হবে কিনা তা বিবেচনার দায়িত্ব কিন্তু আপনারই।

এবার ঈদ হতে যাচ্ছে ভ্যাপসা গরম আর বৃষ্টিবাদলের মধ্যে। তাই স্টাইলের পাশাপাশি পোশাকে গুরুত্ব পাচ্ছে আরামের বিষয়টিও। তাই এ বছর ছোটদের ঈদের পোশাকে সুতি, লিনেন, ভয়েল কাপড়ের ওপর বেশি গুরুত্ব দেয়া হয়েছে। মোটিভ হিসেবে এলোমেলো নকশার বদলে চলছে সাদাসিধে নকশা। গরম এড়াতে ভারি নকশার চেয়ে প্রিন্টের ওপর বেশি জোর দেয়া হয়েছে। প্রিন্টের মধ্যে বড়দের মতো ছোটদের পোশাকেও প্রাধান্য পাচ্ছে ফ্লাওয়ার মোটিভ। সঙ্গে যোগ হয়েছে লতা-পাতা, পাখি, জীবজন্তুসহ প্রকৃতির নানা অনুষঙ্গ। এছাড়াও থাকছে বর্ণমালা, কার্টুনসহ মজার সব প্রিন্ট।

রঙ বাংলাদেশের কর্ণধার এবং ফ্যাশন ডিজাইনার সৌমিক দাস জানান, ‘গরমের কারণে শিশুদের পোশাকে বেশি ব্যবহার হয়েছে ভয়েল, বেক্সি ভয়েল, কটন, জর্জেট ধরনের কাপড়। আরামদায়ক করে তুলতে মেয়ে শিশুদের পোশাকে বডি এবং হাতার প্যাটার্নে নানা ধরনের কাট এবং লেয়ার ব্যবহার হয়েছে। আরাম তো থাকবেই, তাই বলে ঈদের পোশাক একেবারে সাদামাটা হলে তো ছোটদের মন ভরবে না। তাই সিল্ক, অ্যান্ডি, জর্জেট কাপড়ের গর্জিয়াস নকশার পোশাকও তৈরি করা হয়েছে ছোটদের জন্য। ছেলেরা এক ছাঁটের পাঞ্জাবিতে বেশি স্বচ্ছন্দ্যবোধ করবে। পাঞ্জাবির গলায় আর কাঁধে থাকতে পারে সুতার বাহারি কাজ। জমকালো করতে এর সঙ্গে শিশুকে কটি কিনে দিতে পারেন’।

একটু জমকালো ধাঁচের পোশাক যাদের পছন্দ তাদের কথা চিন্তা করে সিল্ক, অ্যান্ডি সুতি, জর্জেট, নিট কাপড়ের ওপর অ্যামব্রয়ডারি, লেইস, কাপড়ের ফুল, মালা, চেইন ইত্যাদি ব্যবহারে গর্জিয়াস পোশাক তৈরি করা হয়েছে। শিশুদের জন্য অ্যালাইন কাট, হাতাকাটা পোশাক ছাড়াও ঘটি হাতার ফ্রক ও টপসের কালেকশন বেড়েছে। রঙের ক্ষেত্রে উজ্জ্বল রংকেই প্রাধান্য দেয়া হয়েছে।

মেয়ে শিশুদের জন্য দেশীয় পোশাক ফ্রক, স্কার্ট, টু-পিস, থ্রি-পিস, লেহেঙ্গা, সারারা তো আছেই কিনতে পারেন ওয়েস্টার্ন ধাঁচের পোশাক গাউন, টিউনিক, ক্র্যাপ্রি, লেগিংস প্রভৃতিও। পশ্চিমা ধাঁচের এ পোশাকগুলো হালকা পাতলা হওয়ায় শিশুর জন্য আরামদায়ক এবং পরলে দেখতেও আকর্ষণীয় লাগে। ছেলে শিশুদের জন্য ফ্লাওয়ার মোটিভের শার্ট ছাড়াও আছে এক রঙা নকশা করা শার্ট। বড়দের মতো হালকা কাজের পাঞ্জাবি ছাড়াও ব্লক, বাটিক এবং হাতের কাজের ঝলমলে রং নকশার পাঞ্জাবি, অ্যামব্রয়ডারির নকশার কটি, বিভিন্ন ধরনের স্টিকার লাগানো শার্ট পাওয়া যাবে।

অনেক শিশু শার্টের বদলে টি-শার্ট পরতে বেশি পছন্দ করে। টি-শার্ট বেশ আরামদায়ক। প্রচলিত চেক ডিজাইনের টি-শার্টের পাশাপাশি বিভিন্ন রং, নকশার ছবি, কার্টুন এবং ক্ষুদে বার্তায় বাজারে নানা ডিজাইনের টি-শার্ট পাওয়া যাবে। এর সঙ্গে কিনতে পারেন ফুল, হাফ এবং থ্রি-কোয়ার্টার প্যান্ট। শরীরের গড়ন এবং রং বুঝে পোশাক নির্বাচন করুন।

ফ্যাশন হাউস শৈশব এবং ইনফিনিটিতে ছোটদের টপস, ফ্রকের সঙ্গে জুড়ে দেয়া হয়েছে স্টোন, মুক্তার মালা, লহরি চেইন। কে-ক্র্যাফট, রঙ বাংলাদেশ শিশুদের পোশাকে ব্যবহার করেছে ফ্লাওয়ার এবং জিওমেট্রিক মোটিভ, কে-ক্র্যাফটের পোশাকেও গুরুত্ব পেয়েছে ফ্লাওয়ার মোটিভ। শিশুদের নিয়ে শপিংয়ের ঝামেলা এড়াতে বিভিন্ন অনলাইন শপ থেকে ঘরে বসেও পছন্দের পোশাকটি কিনতে পারেন। এক্ষেত্রে নগরদোলা, রঙ বাংলাদেশ, গ্রামীণ উইনিক্লোসহ বিভিন্ন দেশীয় ফ্যাশন হাউসের অনলাইন পেইজ ছাড়াও কটন কিডস, বন্ধনশপ ডট কমসহ বিভিন্ন অনলাইন শপ থেকেও ছোটদের ঈদের পোশাক অর্ডার করতে পারেন।

ছোটদের হালকা নকশার সুতি পাঞ্জাবি পাওয়া যাবে ৪০০-১৫০০ টাকায়, সিনথেটিক কারুকাজ পাঞ্জাবি ৮০০-২০০০ টাকা, শার্ট ও টি-শার্ট ৩০০-১৫০০ টাকা, ফ্রক ৮০০-৩০০০ টাকা, টপস ৪০০-১৮০০ টাকা, স্কার্ট ১০০০-২৫০০ টাকা, গাউন ১০০০-৪০০০ টাকা, ক্র্যাপ্রি ৩০০-৭০০ টাকা। ফ্যাশন হাউস ছাড়াও যমুনা ফিউচার পার্ক, টুইন টাওয়ার, নাভানা টাওয়ার, গাউসিয়া মার্কেটসহ বিভিন্ন মার্কেট এবং শপিং মল থেকেও কিনতে পারেন ফ্যাশনেবল ঈদ পোশাক।

 

 

আরও পড়ুন

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter
.