শার্ট কিংবা টি-শার্ট
jugantor
শার্ট কিংবা টি-শার্ট

  ফারিন সুমাইয়া  

২১ জুন ২০২২, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

গ্রীষ্মের গরম এলেই পোশাক নিয়ে পড়তে হয় বিড়ম্বনায়। ফ্যাশনের দিকে যেমন খেয়াল রাখতে হয় আবার গরম থেকে বাঁচতেও বেছে নিতে হয় আরামদায়ক কাপড়। আর এ দিক থেকে ছেলেদের বেলাতে অফিস, ভার্সিটি কিংবা বাইরে যাতায়াতের ক্ষেত্রে আরামদায়ক সঙ্গে ঘাম শুষে নেয় এমন পোশাক বেছে নিতে হয়। তাই গরমের এ সময়ে টি-শার্ট কিংবা শার্ট হতে পারে আপনার কাজের জায়গা বুঝে উপযুক্ত গরমের সময়ের আউটফিট।

যারা কাজের খাতিরে লম্বা সময় বাইরে থাকেন তাদের ক্ষেত্রে টি-শার্ট হতে পারে গরমের আরামদায়ক পোশাক। এ ক্ষেত্রে সুতি কাপড়ের টি-শার্ট আপনাকে ঘাম থেকে যেমন সুরক্ষিত রাখবে তেমনি হাল ফ্যাশনের সঙ্গেও মানিয়ে নেবে সহজে। টি-শার্টের ক্ষেত্রে পোলো টি-শার্ট সঙ্গে বুক পকেট অনেকেই পছন্দ করে থাকেন। এ ক্ষেত্রে পকেটে টুকিটাকি জিনিস যেমন ভিজিটিং কার্ড কিংবা গুরুত্বপূর্ণ নোট সহজেই রাখতে পারবেন। রঙের ক্ষেত্রেও বেছে নিন হালকা কালার। ধূসর কিংবা বাদামি অথবা হালকা সবুজ, নীল, কমলা রং গরমের তাপ থেকে যেমন সুরক্ষিত রাখবে তেমনি আবার অফিস এনভায়রনমেন্ট-এর সঙ্গে মানিয়েও যাবে সহজে। এ ছাড়া যারা ভার্সিটি কিংবা নিজস্ব কাজে বাইরে থাকেন তারাও অনায়াসে বেছে নিতে পারেন হাফ হাতার এ ভিন্ন রঙের টি-শার্টগুলো।

অন্যদিকে টি-শার্টের পাশাপাশি পাতলা সুতি কাপড়ের শার্টেও মিলবে আরাম। পাতলা শার্ট আপনাকে ঘাম শোষণ করতে যেমন সহায়তা করবে তেমনি আবার অফিসেও স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করবেন। কালারের ক্ষেত্রে যতটা হালকা রং গরমের সময়ের জন্য উপযুক্ত। এ ক্ষেত্রে এক কালারের যেমন হালকা মেরুন, ধূসর, বাদামি, আকাশি কিংবা সাদা রঙের মাঝে ট্রাইপ ভিন্ন রঙের এ ধরনের ডিজাইন বেছে নিতে পারেন। অন্যদিকে এক কালারের শার্ট যাদের পছন্দের তালিকায় পড়ে না তারা ভিন্ন ভিন্ন চেকের মাঝে কাজ করা শার্টও বেছে নিতে পারেন। এ ক্ষেত্রে শার্টের হাতা যেহেতু লম্বা হয়ে থাকে আপনি চাইলে হাতা ভাঁজ করেও হাফ করে পরতে পারেন। এতে গরম আরও একটু কম অনুভব হবে। সুতি কাপড় এই গরমের জন্য সবচেয়ে আরামদায়ক কাপড়। তাই ভিন্ন ভিন্ন ফ্যাশন হাউজগুলো সুতি কাপড়ের ওপরই নানা ডিজাইনে টি-শার্ট এবং শার্টের ডিজাইন নিয়ে কাজ করছেন।

শার্ট কিংবা টি-শার্ট

 ফারিন সুমাইয়া 
২১ জুন ২০২২, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

গ্রীষ্মের গরম এলেই পোশাক নিয়ে পড়তে হয় বিড়ম্বনায়। ফ্যাশনের দিকে যেমন খেয়াল রাখতে হয় আবার গরম থেকে বাঁচতেও বেছে নিতে হয় আরামদায়ক কাপড়। আর এ দিক থেকে ছেলেদের বেলাতে অফিস, ভার্সিটি কিংবা বাইরে যাতায়াতের ক্ষেত্রে আরামদায়ক সঙ্গে ঘাম শুষে নেয় এমন পোশাক বেছে নিতে হয়। তাই গরমের এ সময়ে টি-শার্ট কিংবা শার্ট হতে পারে আপনার কাজের জায়গা বুঝে উপযুক্ত গরমের সময়ের আউটফিট।

যারা কাজের খাতিরে লম্বা সময় বাইরে থাকেন তাদের ক্ষেত্রে টি-শার্ট হতে পারে গরমের আরামদায়ক পোশাক। এ ক্ষেত্রে সুতি কাপড়ের টি-শার্ট আপনাকে ঘাম থেকে যেমন সুরক্ষিত রাখবে তেমনি হাল ফ্যাশনের সঙ্গেও মানিয়ে নেবে সহজে। টি-শার্টের ক্ষেত্রে পোলো টি-শার্ট সঙ্গে বুক পকেট অনেকেই পছন্দ করে থাকেন। এ ক্ষেত্রে পকেটে টুকিটাকি জিনিস যেমন ভিজিটিং কার্ড কিংবা গুরুত্বপূর্ণ নোট সহজেই রাখতে পারবেন। রঙের ক্ষেত্রেও বেছে নিন হালকা কালার। ধূসর কিংবা বাদামি অথবা হালকা সবুজ, নীল, কমলা রং গরমের তাপ থেকে যেমন সুরক্ষিত রাখবে তেমনি আবার অফিস এনভায়রনমেন্ট-এর সঙ্গে মানিয়েও যাবে সহজে। এ ছাড়া যারা ভার্সিটি কিংবা নিজস্ব কাজে বাইরে থাকেন তারাও অনায়াসে বেছে নিতে পারেন হাফ হাতার এ ভিন্ন রঙের টি-শার্টগুলো।

অন্যদিকে টি-শার্টের পাশাপাশি পাতলা সুতি কাপড়ের শার্টেও মিলবে আরাম। পাতলা শার্ট আপনাকে ঘাম শোষণ করতে যেমন সহায়তা করবে তেমনি আবার অফিসেও স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করবেন। কালারের ক্ষেত্রে যতটা হালকা রং গরমের সময়ের জন্য উপযুক্ত। এ ক্ষেত্রে এক কালারের যেমন হালকা মেরুন, ধূসর, বাদামি, আকাশি কিংবা সাদা রঙের মাঝে ট্রাইপ ভিন্ন রঙের এ ধরনের ডিজাইন বেছে নিতে পারেন। অন্যদিকে এক কালারের শার্ট যাদের পছন্দের তালিকায় পড়ে না তারা ভিন্ন ভিন্ন চেকের মাঝে কাজ করা শার্টও বেছে নিতে পারেন। এ ক্ষেত্রে শার্টের হাতা যেহেতু লম্বা হয়ে থাকে আপনি চাইলে হাতা ভাঁজ করেও হাফ করে পরতে পারেন। এতে গরম আরও একটু কম অনুভব হবে। সুতি কাপড় এই গরমের জন্য সবচেয়ে আরামদায়ক কাপড়। তাই ভিন্ন ভিন্ন ফ্যাশন হাউজগুলো সুতি কাপড়ের ওপরই নানা ডিজাইনে টি-শার্ট এবং শার্টের ডিজাইন নিয়ে কাজ করছেন।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন