শীতে ফ্লোর ম্যাট
jugantor
খোঁজখবর
শীতে ফ্লোর ম্যাট

  ফারিন সুমাইয়া  

২৯ নভেম্বর ২০২২, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

ঘর সাজাতে ভালোবাসেন সবাই। দিন শেষে এ ঘরেই সব প্রশান্তি। তাই মনের মতো করে যতদূর সম্ভব গুছিয়ে রাখতে চেষ্টার কমতি থাকে না। এ ছাড়া ছোট ছোট বিষয়ে রাখতে হয় আলাদাভাবে নজর। ঘরের সৌন্দর্যে বাড়ানো যেমন জরুরি তেমনি নিজেদের আরামের বিষয়টিও। শীতের এ সময়ে আরও ভালোভাবে মাথায় রাখতে হয় বিষয়গুলো। বাসায় যেমন ছোট শিশুরা আছে তেমনি আছে বয়োবৃদ্ধরাও। শীতের সময় ঠান্ডা সর্দি কাশির প্রবণতা বেড়ে যায়। তাই শীতের এ সময় ফ্লোর ম্যাট একদিকে যেমন ফ্যাশনেবলভাবে ঘরের সৌন্দর্য বাড়ায় তেমনি ঠান্ডা থেকেও সুরক্ষিত রাখে। শীতের এ সময় মোটা ও ভারী ফ্লোরম্যাট সবচেয়ে উপযোগী।

ঘর বাছাই করে ফ্লোরম্যাট বেছে নিতে হয়। এক এক ঘরে এক এক ডিজাইনের এবং কাপড় কিংবা রাবারের তৈরি ফ্লোরম্যাট ব্যবহার করতে হয়। অনেকেই আবার পাপশও ব্যবহার করে থাকেন গোলাকার কিংবা চার কোনাকার। ঘরের ম্যাট বেছে নেওয়ার সময় সবার আগে লক্ষ করা হয় এ ম্যাট কতটুকু ময়লা শোষণ করতে পারবে সঙ্গে পরিষ্কারের উপযোগী কিনা। বসার ঘরে সবচেয়ে আকারে বড় যে ম্যাটগুলো সেগুলো ব্যবহার করা হয়। শীতের সময় অনেকে পুরো ঘরের মেঝেতেই ম্যাট ব্যবহার করে থাকে। এ ধরনের ম্যাট বেশ শক্ত হয়ে থাকে। নানা কারুকাজ করা থাকে আর রঙের ক্ষেত্রে তা দেওয়ালের রঙের সঙ্গে অমিল রেখে বেছে নিতে হয়। হালকা রং যেমন ধূসর, বাদামি এ ধরনের রং এ ক্ষেত্রে সবচেয়ে ভালো। শোবার ঘরের বিছানার সঙ্গে লাগোয়া মাঝারি আকারের ফ্লোরম্যাট রাখতে পারেন। কিছু ক্ষেত্রে ঘরজুড়ে হালকা রঙের ফ্লোরম্যাট আর বিছানার নিচে একটু ডিপ কালারের ম্যাট রাখতে পারেন। এ ছাড়া শিশুদের ঘরের ক্ষেত্রে নানা ফলের কিংবা কার্টুন আদলে ডিজাইন করা ফ্লোরম্যাট দিয়ে সাজিয়ে তুলতে পারেন সোনামণির ঘর। অন্যদিকে হেঁশেলের বেলায় কাপড়ের তৈরি ম্যাট সবচেয়ে ভালো। সহজে পরিষ্কার করতে পারা যায় এবং ময়লা হলেও তা শোষণ করে নিতে পারে। ওয়াশরুম কিংবা বাথরুমের বাইরে কাপড়ে কিংবা উলের তৈরি অর্ধ চন্দ্রাকৃতির কিংবা গোলাকার ফ্লোরম্যাট ব্যবহার করতে পারেন, আর ভেতরে রাবারের তৈরি ফ্লোরম্যাট। এতে পিচ্ছিল জায়গা থেকে আপনি থাকবেন সুরক্ষিত। বাইরে থেকে ঘরে প্রবেশের ক্ষেত্রেও রাখতে পারেন ছোট ফ্লোরম্যাট। এ ধরনের ম্যাটে ওয়েলকাম কিংবা স্বাগতজাতীয় লেখা থাকে। এতে অতিথির কাছে আপনার ফ্যাশন সম্পর্কে ধারণা প্রকাশ পায়।

কোথায় পাবেন

যমুনা ফিউচার পার্ক, নিউমার্কেট, গাউছিয়া, রাজউক কমপ্লেক্স, পিঙ্ক সিটি, ইস্টার্ন প্লাজা, রাজলক্ষ্মী কিংবা আপনার পাশের শপিং মলে।

দাম

ফ্লোরম্যাটের প্রাইজ পড়বে ১৫০ টাকা থেকে শুরু করে ১০৫০ টাকা পর্যন্ত।

খোঁজখবর

শীতে ফ্লোর ম্যাট

 ফারিন সুমাইয়া 
২৯ নভেম্বর ২০২২, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

ঘর সাজাতে ভালোবাসেন সবাই। দিন শেষে এ ঘরেই সব প্রশান্তি। তাই মনের মতো করে যতদূর সম্ভব গুছিয়ে রাখতে চেষ্টার কমতি থাকে না। এ ছাড়া ছোট ছোট বিষয়ে রাখতে হয় আলাদাভাবে নজর। ঘরের সৌন্দর্যে বাড়ানো যেমন জরুরি তেমনি নিজেদের আরামের বিষয়টিও। শীতের এ সময়ে আরও ভালোভাবে মাথায় রাখতে হয় বিষয়গুলো। বাসায় যেমন ছোট শিশুরা আছে তেমনি আছে বয়োবৃদ্ধরাও। শীতের সময় ঠান্ডা সর্দি কাশির প্রবণতা বেড়ে যায়। তাই শীতের এ সময় ফ্লোর ম্যাট একদিকে যেমন ফ্যাশনেবলভাবে ঘরের সৌন্দর্য বাড়ায় তেমনি ঠান্ডা থেকেও সুরক্ষিত রাখে। শীতের এ সময় মোটা ও ভারী ফ্লোরম্যাট সবচেয়ে উপযোগী।

ঘর বাছাই করে ফ্লোরম্যাট বেছে নিতে হয়। এক এক ঘরে এক এক ডিজাইনের এবং কাপড় কিংবা রাবারের তৈরি ফ্লোরম্যাট ব্যবহার করতে হয়। অনেকেই আবার পাপশও ব্যবহার করে থাকেন গোলাকার কিংবা চার কোনাকার। ঘরের ম্যাট বেছে নেওয়ার সময় সবার আগে লক্ষ করা হয় এ ম্যাট কতটুকু ময়লা শোষণ করতে পারবে সঙ্গে পরিষ্কারের উপযোগী কিনা। বসার ঘরে সবচেয়ে আকারে বড় যে ম্যাটগুলো সেগুলো ব্যবহার করা হয়। শীতের সময় অনেকে পুরো ঘরের মেঝেতেই ম্যাট ব্যবহার করে থাকে। এ ধরনের ম্যাট বেশ শক্ত হয়ে থাকে। নানা কারুকাজ করা থাকে আর রঙের ক্ষেত্রে তা দেওয়ালের রঙের সঙ্গে অমিল রেখে বেছে নিতে হয়। হালকা রং যেমন ধূসর, বাদামি এ ধরনের রং এ ক্ষেত্রে সবচেয়ে ভালো। শোবার ঘরের বিছানার সঙ্গে লাগোয়া মাঝারি আকারের ফ্লোরম্যাট রাখতে পারেন। কিছু ক্ষেত্রে ঘরজুড়ে হালকা রঙের ফ্লোরম্যাট আর বিছানার নিচে একটু ডিপ কালারের ম্যাট রাখতে পারেন। এ ছাড়া শিশুদের ঘরের ক্ষেত্রে নানা ফলের কিংবা কার্টুন আদলে ডিজাইন করা ফ্লোরম্যাট দিয়ে সাজিয়ে তুলতে পারেন সোনামণির ঘর। অন্যদিকে হেঁশেলের বেলায় কাপড়ের তৈরি ম্যাট সবচেয়ে ভালো। সহজে পরিষ্কার করতে পারা যায় এবং ময়লা হলেও তা শোষণ করে নিতে পারে। ওয়াশরুম কিংবা বাথরুমের বাইরে কাপড়ে কিংবা উলের তৈরি অর্ধ চন্দ্রাকৃতির কিংবা গোলাকার ফ্লোরম্যাট ব্যবহার করতে পারেন, আর ভেতরে রাবারের তৈরি ফ্লোরম্যাট। এতে পিচ্ছিল জায়গা থেকে আপনি থাকবেন সুরক্ষিত। বাইরে থেকে ঘরে প্রবেশের ক্ষেত্রেও রাখতে পারেন ছোট ফ্লোরম্যাট। এ ধরনের ম্যাটে ওয়েলকাম কিংবা স্বাগতজাতীয় লেখা থাকে। এতে অতিথির কাছে আপনার ফ্যাশন সম্পর্কে ধারণা প্রকাশ পায়।

কোথায় পাবেন

যমুনা ফিউচার পার্ক, নিউমার্কেট, গাউছিয়া, রাজউক কমপ্লেক্স, পিঙ্ক সিটি, ইস্টার্ন প্লাজা, রাজলক্ষ্মী কিংবা আপনার পাশের শপিং মলে।

দাম

ফ্লোরম্যাটের প্রাইজ পড়বে ১৫০ টাকা থেকে শুরু করে ১০৫০ টাকা পর্যন্ত।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন