রাইড শেয়ারিংয়ে নীতিমালা হচ্ছে

  প্রকৌশলী মো. রফিকুল ইসলাম ২৫ জুন ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

নীতিমালা

সহকারী পরিচালক, রেজিস্ট্রেশন শাখা, বাংলাদেশ রোড ট্রান্সফার অথরিটি (বিআরটিএ), মিরপুর-১, ঢাকা।

রাজধানীজুড়ে বাইকদৌরাত্ম্যে কথা আমাদের জানার বাইরে নয়। আগে এমনটা ছিল না। যখনই রাইড শেয়ার অ্যাপস এলো, হু হু করে বাইকের সংখ্যা বাড়তে লাগল। এখন তো পুরো ঢাকায় দৈনিক ২৫০টির মতো বাইক রেজিস্ট্রেশন হচ্ছে। এটা আমাদের চোখে স্বাভাবিক। মাঝে ৫শ’ এমনকি ৬শ’ বাইকও একদিনে রেজিস্ট্রেশন হয়েছে! মানুষ হুমড়ি খেয়ে পড়ত বাইক রেজিস্ট্রেশরে জন্য। পরে বিষয়টি নিয়ে আমরা সজাগ হয়েছি। বাইক রেজিস্ট্রেশনের ক্ষেত্রে ভালোভাবে যাচাইবাচাই করতে শুরু করি।

আগে যেসব বিষয়ে ছাড় দিতাম ওই ছাড়গুলো দেয়া বন্ধ করে দিই। যেমন, কারও স্থায়ী ঠিকানা ঢাকা না হলেও আমাদের এখানে রেজিস্ট্রেশনের সুযোগ দিতাম। পরে এটা বন্ধ করে দেয়া হয়। আরও নানা শর্ত জুড়ে দিই যাতে করে এভাবে মাত্রাতিরিক্ত বাইক রেজিস্ট্রেশন নিয়ন্ত্রণে আনতে পারি। আমরা সফল হয়েছি, রাজধানীতে বাইক রেজিস্ট্রেশন এখন নিয়ন্ত্রণের মধ্যেই আছে।

আরেকটি বিষয় হল, বাইক দৌরাত্ম্য বেড়ে যাওয়ার পেছনে অবশ্যই রাইড শেয়ারিং প্রতিষ্ঠানগুলোর বড় ভূমিকা আছে। এ বিষয়টি নিয়ে মন্ত্রণালয়ে আলোচনা হয়েছে। ইতিমধ্যে প্রাথমিকভাবে কিছু নিয়মকানুনসহ একটি গেজেটও প্রকাশ হয়েছে। গেজেটে বলা আছে, রাইড শেয়ারিং সার্ভিস পরিচালনার জন্য বিআরটিএ এর কাছ থেকে এ সেবাদানকারি প্রতিষ্ঠানকে এনলিস্টমেন্ট সনদ নিতে হবে। মোটরযানের মালিক যিনি তিনি এই সনদ নেবেন। তাছাড়া রাইড শেয়ারিং সেবাদানকারি প্রতিষ্ঠানের টিন ও ভ্যাট সার্টিফিকেট থাকতে হবে। আর যদি ওই সেবাদানকারি প্রতিষ্ঠান কোম্পানি হয় তাহলে প্রাইভেট লিমিটেড কোম্পানির সব শর্তাবলি মেনে চলবে। রাইড শেয়ারিং সার্ভিস এলাকায় নিজস্ব অফিস থাকতে হবে, কোনো রাইড শেয়ারিং সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠান রাইড শেয়ারিং সেবার সঙ্গে যুক্ত হতে বিআরটিএ কর্তৃক নির্ধারিত সব মোটরযান নিজস্বভাবে থাকতে হবে।

রাইড শেয়ারিংয়ে ব্যবহৃত সব মোটরযানের সংশ্লিষ্ট কাগজপত্র যেমন রেজিস্ট্রেশন সার্টিফিকেট, ফিটনেস, ইন্সুরেন্স এনলিস্টমেন্ট সার্টিফিকেটের হালনাগাদ থাকতে হবে, রাইড শেয়ারিং সেবাদানকারি প্রতিষ্ঠানের এনলিস্টমেন্ট সার্টিফিকেট প্রাপ্তির পর রাইড শেয়ারিং সেবাদানকারি ও চালকের মধ্যে একটি সমঝোতা চুক্তি স্বাক্ষর করতে হবে। যেখানে সব পক্ষের অধিকার এবং দায় দায়িত্বের বিষয়গুলো পরিষ্কার লেখা থাকবে, নির্ধারিত স্ট্যান্ড বা অনুমোদিত স্থান ব্যতিত যেখানে-সেখানে কোনো রাইড শেয়ারিং মোটরযান যাত্রী নিতে রাস্তায় অপেক্ষা করতে পারবে না। এই নীতিমালার অধীন একজন মালিকের মাত্র একটি মোটরযান রাইড শেয়ারিং সার্ভিসে পরিচালনা করতে পারবে, ব্যক্তিগত মোটরযান রেজিস্ট্রেশন গ্রহণের পর প্রথম এক বছর সময় তার ব্যক্তিগত কাজে ব্যবহারের পর উক্ত মোটরযান রাইড শেয়ারিংয়ে দিতে পারবেন এবং বিআরটিএর ওয়েব পোর্টালে রাইড শেয়ারিংয়ে নিয়োজিত মোটরযানের তালিকা দিতে হবে। সেখানে যাত্রীর অভিযোগ জানানোর সুযোগ থাকতে হবে।

নীতিমালাটির অনুচ্ছেদ ‘গ’ এ বলা হয়েছে, রাইড শেয়ারিংয়ে নিয়োজিত হতে হলে তাকে অবশ্যই এনলিস্টমেন্ট সার্টিফিকেট নিতে হবে। সনদ ছাড়া কেউ এ ধরনের সেবামূলক কাজ করতে পারবে না। এ ধরনের সার্টিফিকেট নিতে ওই কোম্পানি বা প্রতিষ্ঠানকে বিআরটিএ অনলাইনের মাধ্যমে আবেদন করতে হবে। আবেদনের সঙ্গে ১ লাখ টাকা এনলিস্টমেন্ট ফি বাবদ সরকারি কোষাগারে জমা দিতে হবে। এর সঙ্গে ট্রেড লাইসেন্স, ই-টিআইএন ও ভ্যাট সার্টিফিকেটসহ নানা প্রয়োজনীয় কাগজপত্র জমা দিতে হবে।

তিনি আরও বলেন, এনলিস্টমেন্ট ফি সরকার প্রয়োজনে কম-বেশি করতে পারবে। লাইসেন্স পেতে আবেদনপত্র পাওয়ার বিআরটিএ কর্তৃপক্ষ যাচাই বাছাই করার পর এক বছরের জন্য এনলিস্টমেন্ট সার্টিফিকেট প্রদান করবে। এর মেয়াদ শেষ হওয়ার তিন মাস আগে রিনিউ করতে আবেদন করতে হবে। এক্ষেত্রে নবায়ন ফি বাবাদ প্রতি বছর ১০ হাজার টাকা প্রদান করতে হবে। নীতিমালার ‘ঙ’ অনুচ্ছেদে বলা হয়েছে, ট্যাক্সিক্যাব সার্ভিস গাইডলাইন ২০১০ অনুসারে ভাড়ার বিষয়টি নির্ধারিত হবে। এর চেয়ে বেশি ভাড়া গ্রহণ করা যাবে না। তাছাড়া নীতিমালা লঙ্ঘন করলে এনলিস্ট সার্টিফিকেট বাতিল বলে গণ্য হবে এবং প্রচলিত আইনের মাধ্যমে শাস্তি প্রদান করা যাবে।

খুব দ্রুত রাইড শেয়ারিং প্রতিষ্ঠানগুলোকে এভাবে একটি পূর্ণাঙ্গ নীতিমালার আওতায় আনতে পারলে আশা করি অনেক সমস্যারই সমাধান হয়ে যাবে।

সাক্ষাৎকার নিয়েছেন- আল ফাতাহ মামুন

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×