কেস স্টাডি

নিথর দেহখানি ঝুলে ছিল কদমের ডালে

  যুগান্তর ডেস্ক    ২২ অক্টোবর ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

নিথর দেহখানি ঝুলিয়া ছিল কদমের ডালে, কপোল ভিজিয়া গেল নয়নেরও জলে। সুনামগঞ্জের দিরাই উপজেলার রাজানগর ইউনিয়নের গচিয়া কেজাউড়া গ্রামে শিশু তুহিনের সঙ্গে ঘটে যাওয়া ঘটনা শুনে দেশবাসীর ‘কপোল ভিজিয়া গেল নয়নের জলে’। মাত্র পাঁচ বছরের শিশু তুহিন। কী নিষ্পাপ একটি সন্তান। পাপ ঢাকতে পিতার হাতে সন্তান হত্যার নিমর্মতা যে কোনো মানুষের গায়ে কাঁটা দেবে। যে গলা দিয়ে বাবার কাছে আইসক্রিম কিংবা পুতুলের বায়না ধরার সুর তোলার কথা ছিল শিশু তুহিনের সেই গলা রক্তাক্ত করে দিয়েছে বাবা নিজেই। গত ১৪ অক্টোবর তুহিনকে ঘুমন্ত অবস্থায় তার বাবা আবদুল বাছির ঘর থেকে বাইরে নিয়ে যান। তার কোলে রেখে তুহিনের গলা কেটে দেন চাচা নাছির উদ্দিন ও চাচাতো ভাই শাহরিয়ার। প্রাণহীন ছোট্ট দেহটার বুকে দুটি ছুরি বিদ্ধ করে লাশ কদম গাছের ডালে ঝুলিয়ে দেন তারা। ঝুলানোর আগে ছোট্ট মানুষটার সঙ্গে সভ্যতার নিকৃষ্ট, পাশবিকতা, নিষ্ঠুরতা চালায় খুনিরা। তুহিনের দুটি কান ও লিঙ্গ কেটে দেয় তারা। পরদিন কদমগাছের ডালে তুহিনের নিথর দেহ দেখে শিউরে ওঠে গ্রামবাসী। জানা গেছে, প্রতিপক্ষকে ফাঁসাতে তুহিনের বাবা-চাচা নিষ্ঠুরতার পথ বেঁছে নেয়। তার মরদেহে বিদ্ধ ছোরা দুটির হাতলে লিখে দেয় দুজন প্রতিপক্ষ সোলেমান ও সালাতুলের নাম। শোকে শব্দহীন তুহিনের মা মনিরা বেগমের দায়ের করা মামলায় তাকের গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×