ফোরজি নিয়ে তারা যা বলছেন

  এম. মিজানুর রহমান সোহেল ১৩ মার্চ ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

ফোরজি নিয়ে তারা যা বলছেন

কচ্ছপ গতির ইন্টারনেট নিয়ে যন্ত্রনায় আছেন সাধারণ গ্রাহক। এরই মধ্যে চালু হয়েছে ফোরজি। কিন্তু ফোরজি সেবা কতটা গ্রাহবান্ধব? এর ভবিষ্যতই বা কী? এ সব বিষয়ে কথা বলেছেন খাত সংশ্লিষ্টরা।

ফোরজি নতুন দিগন্ত উন্মোচন করবে

মাইকেল ফোলিও, সিইও, গ্রামীণফোন

ফোরজি মানুষের লাইফস্টাইল পাল্টে দেবে। দেশে আরও আগেই ফোরজি আসা উচিত ছিল। তাহলে দেশের মানুষের জীবনমান আরও উন্নত হতো। ফোরজিতে গ্রাহকদের চাহিদা খুবই বেশি। সেটি আমরা পূরণ করার সর্বোচ্চ চেষ্টা করব। সারা দেশে থ্রিজি সেবা চালু করতে আমরা যতটুকু সময় নিয়েছি, তারচেয়ে অনেক কম সময়েই ফোরজি সেবা চালু করতে পারব। এর অংশ হিসেবে আমরা ফোরজি লাইসেন্সপ্রাপ্তির পরপরই এ সেবাটি বাংলাদেশের মানুষের জন্য উš§ুক্ত করেছি। শুরুতে এ সেবা কেবল ঢাকায় পাওয়া যাবে। পর্যায়ক্রমে ঢাকার বাইরেও ফোরজি নেটওয়ার্ক বিস্তৃত করা হবে। আমাদের লক্ষ্য হচ্ছে গ্রাহকদের সুলভ হ্যান্ডসেটের মাধ্যমে সেরা ফোরজি সেবা দেয়া। এজন্য সুলভে ফোরজি হ্যান্ডসেট বিক্রির পদক্ষেপ নিয়েছে গ্রামীণফোন। আমার বিশ্বাস ফোরজি অনেক ডাটা ব্যবহারকারীর জন্য নতুন দিগন্ত উšে§াচন করবে। তবে এ সেবা পেতে হলে অবশ্যই ফোরজি হ্যান্ডসেট থাকতে হবে। ফোরজির মাধ্যমে ফোনগুলোতে পাওয়া যাবে ফুল এইচডি ভিডিও স্ট্রিমিং, নিখুঁত ভিডিওকলিং, সুপার ফাস্ট ডাউনলোডিং, মিউজিক স্ট্রিমিং এবং বিনামূল্যে বাফারমুক্ত লাইভ টিভি।

ফোরজি ডিভাইস ও অবকাঠামো পণ্যের ওপর শুল্ক কমানো উচিত

মাহতাব উদ্দিন আহমেদ, ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও সিইও, রবি আজিয়াটা

দীর্ঘ প্রতীক্ষার পর দেশে ফোরজি সেবা চালু করতে পেরে আমরা আনন্দিত। ২০ ফেব্রুয়ারি একটি ঐতিহাসিক দিন এবং এ দিনটির তাৎপর্য সবার মাঝে ছড়িয়ে দিতে একযোগে দেশের ৬৪টি জেলায় ফোরজি সেবা চালুর সিদ্ধান্ত নিয়েছি আমরা। ফোরজি সেবা চালুর মধ্য দিয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে চতুর্থ শিল্পবিপ্লবের যুগে পা রাখল বাংলাদেশ। প্রতিযোগীদের তুলনায় অনেক বেশি তরঙ্গ নিয়ে গ্রাহকদের সেরা ফোরজি সেবা প্রদানের জন্য প্রস্তুত রবি। দেশে ফোরজি সেবা চালু করতে সহায়তার জন্য সরকারকে ধন্যবাদ। সরকারের সহায়তা নিয়ে ফোরজির অদম্য গতি কাজে লাগিয়ে ২০২১ সালের মধ্যে আমরা ডিজিটাল বাংলদেশের স্বপ্ন বাস্তবায়ন করতে পারব বলে আমাদের বিশ্বাস। বাংলাদেশে ফোরজি সেবা সফল করতে ফোরজি ডিভাইসের ওপর কর কমানো, ফোরজি অবকাঠামো পণ্যের ওপর শুল্ক কমানো, গ্রামীণ এলাকায় ফোরজি সেবা চালুর ক্ষেত্রে বিশেষ প্রণোদনা প্রদান, ভ্যাট নিয়ে সব ধরনের বিরোধ নিষ্পত্তি এবং প্রতিবেশী দেশগুলোর মতো একক লাইসেন্সিং প্রক্রিয়ার বিষয়গুলো সরকারের বিবেচনা করা উচিত।

ফোরজি তরঙ্গ বিতর্কিত

মহিউদ্দীন আহমেদ, সভাপতি, বাংলাদেশ মুঠোফোন গ্রাহক অ্যাসোসিয়েশন

যে তরঙ্গের মাধ্যমে ফোরজি সেবা দেয়া হবে সেটার মান নিয়েও প্রশ্ন রয়েছে এবং আমাদের দেশে চালু হওয়া ফোরজি তরঙ্গ বিতর্কিত। আমাদের প্রশ্ন এতদিন ধরে রবি ৩৬.৪ মেগাহার্টজ দিয়ে যে থ্রিজি সেবা গ্রাহকদের দিয়েছে সেটার মান কি থ্রিজি পর্যায়ে ছিল? এ পরিমাণ তরঙ্গ ইন্টারনেটের গতি ছিল সর্বোচ্চ ৫ এমবিপিএস। ফোরজির জন্য গতি নির্ধারণ করা হয়েছে ২০ এমবিপিএস। যেখানে এতদিন এ তরঙ্গ দিয়ে গড়ে ৬ এমবিপিএস গতিই আনা গেল না, সেখানে একই পরিমাণ তরঙ্গ দিয়ে বর্তমান বিটিএস ব্যবহার করে কীভাবে ইন্টারনেটের মান বাড়াবে ফোরজি? তরঙ্গ বিক্রি করে সরকার হয়তো বা ৫৪২৩ কোটি টাকা রাজস্ব আয় করেছে; যা কিনা জনগণের কাছ থেকেই পরোক্ষভাবে আদায় করা হয়েছে।

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter