কর্ণফুলী টানেল বদলে দেবে পারকি সৈকতের চেহারা

  শহীদুল্লাহ শাহরিয়ার, চট্টগ্রাম ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

কক্সবাজারের বিকল্প সমুদ্রসৈকত হতে যাচ্ছে চট্টগ্রামের আনোয়ারার পারকির চর বা পারকি সমুদ্রসৈকত। কর্ণফুলীর মোহনা থেকে বাঁশখালীর বাহারছড়া পর্যন্ত দীর্ঘ ১৩ কিলোমিটার সমুদ্র সৈকতের বালিয়ারি, ঝাউবাগান, বন্দরের বহির্নোঙ্গরে সারি সারি জাহাজ, রাতের আলোকচ্ছটা যেন প্রতিনিয়তই আহ্বান করে পর্যটকদের। কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতে বসে দেখা যায় বড় বড় ঢেউ। শোনা যায় সাগরের গর্জন। কিন্তু পারকি সমুদ্রে বসে দেখা যাবে ছোট ছোট ঢেউ। কক্সবাজার থেকে যেমন দেখা যায় সাগর জলে টুপ করে সূর্য ডুব দেয়ার দৃশ্য তেমনি পারকি সমুদ্র সৈকতেও দেখা যায় সেই দৃশ্য। কক্সবাজারে হোটেল- মোটেল আছে। থাকার ব্যবস্থা আছে। পারকিতে নেই। অথচ চট্টগ্রাম শহর থেকে মাত্র সড়ক পথে ২০ কিলোমিটার দূরত্ব আর নদী পথে কর্ণফুলীর ১৫ নম্বর ঘাট থেকে ১৫ মিনিটের দূরত্ব। কর্ণফুলী নদীর তলদেশে যে টানেল হচ্ছে সেই টানেল নির্মাণ শেষ হলে শহর থেকে এই সৈকতের দূরত্ব হয়ে যাবে ৫-১০ মিনিটের। কর্ণফুলী টানেল পারকি সমুদ্র সৈকতের চেহারা বদলে দেবে। এমনটাই বলছেন পর্যটন সংশ্লিষ্টরা।

ভূমি প্রতিমন্ত্রী ও আনোয়ারার আওয়ামী লীগ দলীয় এমপি সাইফুজ্জামান চৌধুরী জাবেদ যুগান্তরকে বলেন, অফুরন্ত সম্ভাবনার পারকি সমুদ্রসৈকতকে নিয়ে তার পিতা প্রয়াত আওয়ামী লীগ নেতা আক্তারুজ্জামান চৌধুরী বাবু এমপি স্বপ্ন দেখেছিলেন। সেই স্বপ্ন তিনি বাস্তবায়নের চেষ্টা করছেন। পারকি সমুদ্রসৈকতকে ঘিরে পুরো আনোয়ারার মানুষের জীবন-মান উন্নয়নে কাজ করছেন তিনি। পারকি বিচের অবকাঠামো উন্নয়ন, রাস্তাঘাট উন্নয়ন, হোটেল-মোটেল নির্মাণসহ বিভিন্ন প্রকল্প গ্রহণ করেছে সরকার। প্রকল্পগুলো বাস্তবায়নও শুরু হয়েছে। বিশেষ করে কর্ণফুলীর তলদেশে যে টানেল নির্মাণ হচ্ছে সেই টানেলের মুখ বের হবে পারকির অদূরে সিইউএফএল এলাকায়। কক্সবাজার যেতে পর্যটকদের যোগাযোগের যে ভোগান্তি পোহাতে হয় আনোয়ারার পারকিতে সেই ভোগান্তি পোহাতে হবে না। শাহ আমানত আন্তর্জাতিক বিমান বন্দরে নেমেই টানেল হয়ে পর্যটকরা ১৫-২০ মিনিটের মধ্যে পৌঁছে যেতে পারবেন পারকিতে।

আনোয়ারা উপজেলা চেয়ারম্যান ও পারকি বিচ ম্যানেজমেন্ট কমিটির সদস্য তৌহিদুল হক চৌধুরী যুগান্তরকে বলেন, ২০২১ সালের মধ্যেই পারকি বিচে লক্ষণীয় এবং দর্শনীয় পরিবর্তন হবে। পারকিকে এক্সক্লুসিভ ট্যুরিস্ট জোন করার স্বপ্ন দেখেছিলেন প্রয়াত আওয়ামী লীগ আক্তারুজ্জামান চৌধুরী বাবু। তিনি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে প্রস্তাব করেছিলেন। সেই প্রস্তাব সাদরে গ্রহণ করে আজ থেকে ৮ বছর আগে প্রধানমন্ত্রী নিজেই চট্টগ্রামে একটি জনসভায় এসে আক্তারুজ্জামান চৌধুরী বাবুর উপস্থিতিতে আনোয়ারার পারকিকে এক্সক্লুসিভ ট্যুরিস্ট জোন ঘোষণা করেন। এলাকার অবকাঠামো উন্নয়নে সরকার এরই মধ্যে একনেকে ৫০ কোটি টাকা বরাদ্দ দিয়েছে। শিগগির উন্নয়ন কাজ শুরু হবে। ‘ওয়ান সিটি টু টাউন’ এই লক্ষ্য নিয়েই গড়ে তোলা হচ্ছে কর্ণফুলী নদীর তলদেশের টানেল। এই টানেলের সুফল হিসেবেই আনোয়ারা ও পারকি হবে অন্যতম আরেকটি আধুনিক শহর।

শহরের কাছেই লুকিয়ে থাকা পারকি বিচকে পাদপ্রদীপের আলোয় আনতে যে মানুষটি অন্তত ২০ বছর ধরে কাজ করছেন তার নাম নুরুল আনোয়ার। পারকি এলাকার বাসিন্দা সমাজ সচেতন এই মানুষটি যুগান্তরকে জানান, এক সময় এখানে কোনো বিদ্যুৎ ছিল না। সন্ধ্যা নামলেই ভুতুড়ে এলাকায় পরিণত হতো। উপকূল হওয়ায় চোরাকারবারিরা মাদক পাচারে লিপ্ত হতো। চোরাই পণ্য উঠত এই উপকূল দিয়ে। ছিল না বিদ্যুৎ। ছিল না রাস্তাঘাট। রাস্তাঘাটের উন্নয়নে প্রশাসনের কাছে ধরনা দেয়া, বিদ্যুতের জন্য আন্দোলন করাসহ এলাকাবাসীকে সঙ্গে নিয়ে অনেক কাজ করেছেন। জেলা পরিষদের মাধ্যমে আদায় করেছেন গণশৌচাগার। যার কারণে পারকি বিচ এখনই অনেকটা জমজমাট। পারকির বেড়িবাঁধ তথা মূল সড়ক থেকে বিচে নামার চারটি রাস্তা থাকলেও একটি মাত্র রাস্তা এখন উপযুক্ত। তাও আবার ইট বিছানো। বাকি তিনটি কাঁচা রাস্তা। একটি রাস্তা দিয়ে পর্যটকরা নামতে গিয়ে ভোগান্তিতে পড়েন। দুটি গাড়ি পাস হতে পারে না। বিচকে পরিচ্ছন্ন রাখতে নিতে হবে উদ্যোগ। ঝাউবাগানের খোপে খোপে দখল করে গড়ে তোলা ঝুপড়ি অসামাজিক কার্যকলাপের আখড়ায় পরিণত হয়েছে। ভয়াল মাদক ইয়াবার বিস্তার রোধ করতে হবে। এসব ঝুপড়ি উচ্ছেদ করে পরিকল্পিত দোকান-পাট বসাতে হবে। হোটেল-মোটেল না থাকায় অনেকে এই বিচে গিয়ে রাত যাপনের ইচ্ছা থাকলেও পারেন না।

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter