ধূমপান ছাড়তে হলে

  অধ্যাপক ডা. মো. রাশিদুল হাসান ১২ জানুয়ারি ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

ধূমপান ছাড়তে হলে
প্রতীকী ছবি

আপনার এ কথা মনে হতে পারে যে সিওপিডি, ফুসফুসের ক্যান্সার, হার্টের সমস্যা ইত্যাদি যা হওয়ার তা তো হয়েই গেছে তাহলে ধূমপান বন্ধ করে লাভ কি? ধূমপান বন্ধ করার প্রধান কারণ হল যেটুকু ফুসফুস বা হার্ট ভালো আছে সেটুকুকে আর নষ্ট না করা।

আপনি যে মুহূর্তে ধূমপান ছেড়ে দেবেন সে মুহূর্ত থেকে ফুসফুসের স্বাস্থ্য ভালো হতে শুরু করবে। ধূমপান বর্জন করা সহজ নয়, তবে দুনিয়াতে লাখ লাখ মানুষ ধূমপান বর্জন করেছেন এবং তা আপনিও পারবেন।

আপনি যদি ধূমপান বর্জন করে থাকেন তাহলে আপনাকে এই পরিকল্পনা ধূমপান বর্জন অবস্থায় থাকতে সাহায্য করবে।

ডাক্তারের সঙ্গে কথা বলুন

আপনি যদি অতিরিক্ত ধূমপায়ী হোন তাহলে ধূমপান ছাড়ার জন্য আপনার অতিরিক্ত কিছু ওষুধ লাগতে পারে। তাছাড়া ধূমপান ছাড়ার বিষয়ে কোনো সাহায্যকারী দলের সঙ্গে আপনাকে পরিচয় করিয়ে দিতে পারে। ধূমপান বর্জনের ক্লাসে অংশগ্রহণ আপনাকে সাহায্য করতে পারে।

ধূমপান ছাড়ার কারণ

ধূমপান বর্জন করা আপনার জন্য সহজ হয়ে যাবে যখন আপনি মনে রাখবেন যে কী কী কারণে আপনি ধূমপান ছাড়ছেন। নিচের কারণগুলোর মধ্যে যেগুলো আপনার জন্য প্রযোজ্য সেই বিষয়গুলোতে টিক দিন। প্রতিদিন এ তালিকা পড়–ন এবং নিজ থেকে নতুন কিছু যোগ করুন। বারবার নিচের কারণগুলো পড়ার কারণে আপনাকে ধূমপান ছাড়তে এবং সুস্থ জীবন যাপন করতে এ তালিকা আপনাকে সাহায্য করবে।

* আমি আরও ভালোভাবে শ্বাস নিতে পারব।

* আমার ফুসফুসের ক্যান্সার, হার্ট অ্যাটাক এবং স্ট্রোকের ঝঁ–কি কমে যাবে।

* আমার অর্থ অপচয় বন্ধ হবে।

* আমার ফুসফুসের দীর্ঘস্থায়ী রোগটি ক্রমশ খারাপ হতে থাকা বন্ধ হবে।

* আমি আরও পরিষ্কার ধোঁয়ামুক্ত সজীব শ্বাস নিতে পারব।

* আমার কাপড়-চোপড়, গাড়ি এবং ঘরে আর আগের মতো দুর্গন্ধ হবে না।

* আমার ধূমপানের ফলে আমার পরিবার ও বন্ধুবান্ধব আর ধোঁয়া পান করতে হবে না।

* ধীরে ধীরে আমার শ্বাসকষ্ট, কফ তৈরি হওয়া এবং বুকের ভেতর বাঁশির মতো শব্দ হওয়া আগের তুলনায় কমে যাবে।

ধূমপানের কারণ খুঁজে বের করুন

কিছু আবেগ, উৎকণ্ঠা এবং হতাশাকে দমন করার জন্য অনেক সময় মানুষ ধূমপান চালিয়ে যায়। দৈনন্দিন কিছু কারণ আছে যখন আপনার ধূমপান করতে ইচ্ছা করে। এ কারণ খুঁজে বের করুন। নিচে একটা তালিকা দেয়া হল-

সময় ধূমপানের সময় আমি কি করছিলাম

সকাল ৮.৩০ নাস্তা করার পর চা খাচ্ছিলাম

সকাল ১১.০০ গাড়ি চালাচ্ছিলাম

বিকাল ৫.০০ টেলিভিশন দেখছিলাম

রাত ৮.০০ টয়লেটে গিয়েছিলাম

রাত ৯.০০ রাতের খাবার শেষ করলাম

কোন বিষয়গুলো আপনার ধূমপান করতে আগ্রহ বাড়ায় সেগুলো উপরের তালিকায় লিপিবদ্ধ করুন।

ধূমপান বর্জনের পরিকল্পনা করুন

ধূমপান বর্জনের জন্য প্রয়োজন ধৈর্য এবং পরিকল্পনা। আপনার বর্জন পরিকল্পনার সফলতার জন্য আগে থেকে সিদ্ধান্ত নিন। পরিকল্পনা নিন কবে কখন কীভাবে আপনি ধূমপান ছাড়বেন।

ধূমপান ত্যাগের পর উপরের তালিকার কাজগুলোর সময় ধূমপান করার ইচ্ছা হবে। সে বিষয়গুলো কিভাবে নিয়ন্ত্রণ করবেন তা নিয়ে আপনার ফুসফুস পুনর্বাসন কার্যক্রমের প্রশিক্ষকের সঙ্গে কথা বলুন। আপনার প্রশিক্ষক টিম আপনার পরিকল্পনা তৈরিতে সাহায্য করবে। এমনকি আপনি যদি ধূমপান ছাড়ার পর আবার শুরু করেন তখনও এই পরিকল্পনা কাজে লাগবে। ধূমপান ত্যাগের জন্য এবং ত্যাগ করার পর টিকে থাকার জন্য পরিকল্পনা খুবই জরুরি।

ধূমপান বর্জনের চুক্তিনামা

যখন আপনি সম্পূর্ণ প্রস্তুত ধূমপান বর্জনের জন্য তখন ধূমপান বর্জনের চুক্তিনামা আপনাকে সাহায্য করবে। চুক্তিনামা প্রমাণ করে যে আপনার ধূমপান ত্যাগের ইচ্ছা খুবই প্রবল। এই চুক্তিনামায় আপনার পরিবারের সদস্য ও বন্ধু-বান্ধবদের স্বাক্ষর করতে বলুন। সবসময় নিশ্চিত হোন যে ‘কেউ একজন বিশ্বাস করছে আপনাকে’ যে আপনি ধূমপান ছাড়তে পারেন।

কাজের মধ্যদিয়ে ধূমপান বর্জন

এটা আশ্চর্যের কিছুই নয়, ধূমপান ছাড়ার পর কারও কারও কাশি বেশি হয় এবং কফ তৈরি বাড়ে। তার কারণ ধূমপান বন্ধ করার পর ফুসফুস চেষ্টা করে তাদেরকে পরিষ্কার করতে। আপনার বেশ কদিন খারাপ লাগবে ধূমপান ছাড়ার কারণে। হয়তো মাথাব্যথা করবে, ঘুম আসবে না, মেজাজ খিটখিট করবে, পায়খানাতে অনিয়ম হবে।

মনে রাখতে হবে কয়েক সপ্তাহের মধ্যে আপনার ধূমপান না করা আপনার শরীরের সঙ্গে মানিয়ে যাবে, তখন আর খারাপ লাগবে না। বিভিন্ন কাজের মধ্য দিয়ে এ ধূমপান বর্জনের কষ্টটাকে ভুলে থাকতে হবে।

যেমন- হাঁটা, বাগানে কাজ করা, নিয়মিত দৈনিক কয়েকবার গোসল করা, উৎকণ্ঠা বা হতাশার কোনো ওষুধ ডাক্তারের পরামর্শে সেবন করা, বেড়াতে যাওয়া, অধূমপায়ী বন্ধুদের সঙ্গে গল্প করা, ধূমপায়ী বন্ধুদের সঙ্গে গল্প বা আড্ডা দেয়া পরিহার করা ইত্যাদি।

প্রস্তুতি নিন

মনে রাখবেন তামাকের নিকোটিন খুব শক্তিশালী নেশার বস্তু। এতদিন পর্যন্ত আপনার শরীর নিকোটিন দ্বারা অভ্যস্ত হয়ে গেছে। নিকোটিনের অভাবে যে সমস্যাগুলো দেখা দেয় তাকে ‘ধূমপান পরিহারের উপসর্গ’ বলে।

এই ধূমপান পরিহারের উপসর্গ হিসেবে আপনার চিন্তাশক্তি সাময়িকভাবে কমে যেতে পারে অথবা খুব অবসাদ লাগতে পারে। কখনও দুঃশ্চিন্তা আবার কখনও হতাশা লাগতে পারে। কখনও দুঃশ্চিন্তা করবেন না। এটা একটি সাময়িক ঘটনা। ধৈর্যের সঙ্গে এ কষ্ট থেকে পরিত্রাণ পেতেই হবে।

লেখক : মেডিসিন ও বক্ষব্যাধি বিশেষজ্ঞ, ইনজিনিয়াস পালমোফিট, মোহাম্মদপুর, ঢাকা

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter
×