বংশগত রক্তরোগ থ্যালাসেমিয়া

  ডা. চৌধুরী সাইফুল আলম বেগ পাপন ০২ মার্চ ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

বংশগত রক্তরোগ থ্যালাসেমিয়া
প্রতীকী ছবি

থ্যালাসেমিয়ার কথা আমরা হয়ত শুনে থাকব। হলিউডের অস্কার জয়ী নায়িকা এঞ্জেলিনা জোলিকে কি পরিচয় করিয়ে দেয়ার প্রয়োজন আছে? সব তরুণ যুবার হার্ট থ্রব।

ব্যক্তিগতভাবে আমিও তার অভিনয় প্রতিভার ভক্ত। বহু মানবসেবামূলক কাজের সঙ্গে তিনি সরাসরিভাবে জড়িত। সুন্দরী এ নায়িকার ব্যক্তিগত একটি ঘটনা বিশ্বব্যাপী আলোড়ন তুলেছিল।

জোলির মা ৫৬ বছর বয়সে ১০ বছর ধরে স্তন ক্যান্সারের সঙ্গে যুদ্ধ করে মারা যান। স্তন ক্যান্সার হওয়ার পেছনে অনেক কারণের মাঝে বংশগত কারণ অন্যতম। ৫-১০ ভাগ ক্ষেত্রে বংশগত কারণে এ রোগটি হয়ে থাকে।

ফলে জোলির ভবিষ্যতে ক্যান্সার হওয়ার আশঙ্কা আছে কিনা দেখার জন্য তার রক্তে স্তন ক্যান্সারের জন্য দায়ী ত্রুটিযুক্ত জিন (যেটা তার মায়ের রক্তে পাওয়া গিয়েছিল) উপস্থিতির পরীক্ষা করার অফার দেয়া হয়। দুর্ভাগ্যজনকভাবে জোলির রক্তে ওই ত্রুটিযুক্ত জিন শনাক্ত হয়। এ জিনের বৈশিষ্ট্য হচ্ছে মা-বাবার কাছ থেকে প্রাপ্ত দুটি জিনের একটি ত্রুটিযুক্ত হলেই (autosomal dominant) স্তন ক্যান্সার হওয়ার অবশ্যম্ভাবী ঝুঁকি থাকে।

ফলে ভবিষ্যতে স্তন ক্যান্সার থেকে বাঁচার একমাত্র উপায় অপারেশনের মাধ্যমে স্তনদ্বয় শরীর থেকে কেটে বাদ দেয়া (Mastectomy)। সাহসী এঞ্জেলিনা স্বেচ্ছায় Mastectomy করার সিদ্ধান্ত নেন। কারণ তার বেঁচে থাকার অদম্য ইচ্ছা শুধু নিজের জন্য নয়, মানবকল্যাণের নিমিত্তে।

সিদ্ধান্তটি অবশ্যই ছিল অত্যন্ত জটিল, সাহসী ও অনন্য।

এটি একটি বংশগত রক্তরোগ। হিমোগ্লোবিন তৈরির জন্য যে জিনদ্বয় দায়ী সেগুলো ত্রুটিযুক্ত হওয়ায় শরীরে একেবারেই হিমোগ্লোবিন তৈরি হয় না। অন্যের রক্তের ওপর শতভাগ নির্ভর করে বেঁচে থাকতে হয়।

আপনি রক্ত পরীক্ষা করে যদি দেখেন, আপনার দুটি জিনের একটি ত্রুটিযুক্ত, একটি ভালো, তাহলে আপনি রোগী নন, ওই একটি ভালো জিনই যথেষ্ট হিমোগ্লোবিন তৈরির জন্য। আপনি বাহক হিসেবে শুধু মাত্র ত্রুটিযুক্ত জিনটিকে বহন করছেন। মনে হয়তো প্রশ্ন জাগবে... ভবিষ্যতে কি রোগী হওয়ার আশঙ্কা আছে? না নেই। একবার যে বাহক, সারা জীবনের জন্য সে বাহক।

জোলির তো একটা জিনই ত্রুটিযুক্ত ছিল, তাহলে তিনি কেন চরম সিদ্ধান্তটি নিলেন? এর কারণ হচ্ছে, বংশগত রোগ দুই ধরনের। এক ধরনে শুধু একটি ত্রুটিযুক্ত জিনই যথেষ্ট নির্দিষ্ট রোগটি সৃষ্টির জন্য (Dominant) যেমন স্তন ক্যান্সার। আর আরেক ধরনে অবশ্যই দুটি জিনই ত্রুটিযুক্ত হতে হবে (Recessive), যেমন থ্যালাসেমিয়া। এক্ষেত্রে বাবা ও মায়ের কাছ থেকে একটি করে ত্রুটিযুক্ত জিন প্রাপ্ত হতে হবে।

তাহলে কোন রোগটি প্রতিরোধ করা সহজ? অবশ্যই থ্যালাসেমিয়া। কারণ শুধু বাহকের সঙ্গে বাহকের বিয়ে বন্ধ করলেই পরবর্তী প্রজন্ম মরণঘাতী থ্যালাসেমিয়ার হাত থেকে রক্ষা পাবে।

থ্যালাসেমিয়ার বাহক বা ক্যারিয়ার কী

আমাদের শরীরের সব বৈশিষ্ট্য যেমন চুলের রঙ, গায়ের রঙ, উচ্চতা ইত্যাদি যা দ্বারা নির্ধারিত হয় তার নাম হচ্ছে জিন। প্রতিটা বৈশিষ্ট্যের জন্য একেকটা জিন দায়ী। জিনগুলো জোড়ায় জোড়ায় থাকে। একটা আসে বাবার কাছ থেকে আর অন্যটা মায়ের। এ জিনগুলো যখন ত্রুটিযুক্ত হয় তখনই মানুষের বিভিন্ন জন্মগত রোগ হয়। বাহক হচ্ছে তারাই যারা বাবা-মায়ের একজনের কাছ থেকে ত্রুটিপূর্ণ আর অন্যজনের কাছ থেকে সুস্থ জিন পেয়েছেন।

থ্যালাসেমিয়ার বাহকরা কি রোগী

না থ্যালাসেমিয়ার বাহকরা রোগী নয়। তারা আপনার আমার মতো সুস্থ মানুষ। বাহক ও রোগী এক নয়। আমাদের শরীরে জিন জোড়ায় জোড়ায় আসে। হিমোগ্লোবিনের জন্য নির্ধারিত জিন দুটি। একটি আসে বাবা আর অন্যটি আসে মায়ের কাছ থেকে। যদি একটি সুস্থ জিনের সঙ্গে একটি ত্রুটিযুক্ত জিন থাকে তবে সে বাহক। বাহক আপনার আমার মতো সুস্থ মানুষ।

সুস্থ জিনটা এতই প্রভাবশালী যে ত্রুটিযুক্ত জিনটি এখানে নিষ্ক্রিয় অবস্থায় থাকে। আর যারা রোগী তাদের দুটো জিনই ত্রুটিযুক্ত। শুধু বাহকের সঙ্গে বাহকের বিয়ে ছাড়া সন্তানের রোগী হওয়ার কোনো আশঙ্কা নেই। তাই বাহক অবশ্যই যিনি বাহক নন তাকে বিয়ে করতে পারবেন।

বাহকরা শুধু ত্রুটিযুক্ত জিন বহন করে। একজোড়া জিনের মধ্যে অন্য জিনটি সুস্থ থাকায় ত্রুটিপূর্ণ জিনটি শরীরের কোনো রকম ক্ষতি সাধন করতে পারে না। তাই বাহকদের থ্যালাসেমিয়া রোগের কোনো উপসর্গ থাকে না।

বাহকের সঙ্গে বাহকের বিয়ে হলে কেন শিশুর থ্যালাসেমিয়া রোগ হয়

যেহেতু জিন জোড়ার একটি আসে মা আর অন্যটি আসে বাবার কাছ থেকে। বাহকের সঙ্গে বাহকের বিয়ে হলে বাবা-মা উভয়ের ত্রুটিযুক্ত জিন সন্তানের মধ্যে আসার আশঙ্কা থাকে। ফলে শিশু মরণব্যাধি থ্যালাসেমিয়া রোগ নিয়ে জন্ম নিতে পারে।

বাহক নির্ণয়ের উপায়

হিমোগ্লোবিন ইলেকট্রোফোরেসিস পরীক্ষার মাধ্যমে বাহক নির্ণয় করা হয়।

ধরুন আমি বাহক, আর যাকে পছন্দ করি সেও বাহক। কিন্তু আমরা সিদ্ধান্ত নিয়েছি বিয়ে করব। তাহলে কি কোনোদিনও সন্তান নিতে পারব না

তারও উপায় আছে। গর্ভস্থ শিশু থ্যালাসেমিয়ার ক্যারিয়ার না রোগী তা নির্ণয় করার ব্যবস্থা আছে। সেই তথ্যের ভিত্তিতে গর্ভধারণ বা গর্ভপাতের বিষয় বিবেচনা করা হয়।

থ্যালাসেমিয়া কি ছোঁয়াচে

এটা জিনগত রোগ। কখনই ছোঁয়াচে নয়।

লেখক : জেনারেল প্র্যাকটিশনার, ডাবো মেডিকেল সেন্টার, নিউ সাউথ ওয়েলস, অস্ট্রেলিয়া

[email protected]

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×