বিশেষজ্ঞের উত্তর
jugantor
আপনার প্রশ্ন
বিশেষজ্ঞের উত্তর

  অধ্যাপক ডা. জাহীর আল-আমিন  

২৫ জুলাই ২০২০, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

নাক কান ও গলা রোগ বিশেষজ্ঞ ও সার্জন

চিফ কনসালটেন্ট

ইমপাল্স হাসপাতাল, তেজগাঁও, ঢাকা

হটলাইন : ১০৬৪৪

বৃষ্টি থেকে ঠাণ্ডা লাগা

বৃষ্টিতে ভিজলেই কিংবা ঠাণ্ডা পড়লে আমার নাক দিয়ে পানি ঝরে, গলা খুসখুস করে ও কাশি হয়। ডাক্তারের পরামর্শে নিয়মিত মন্টিলুকাস্ট খেয়ে যাচ্ছি এবং ঠাণ্ডা এড়িয়ে চলি ও গরম গরম খাবার খেতে চেষ্টা করি, এরপরও সমস্যা থেকে যাচ্ছে।

-বর্ষা, ২৮ বছর, চট্টগ্রাম

আপনি অ্যালার্জিক রাইনাইটিস ও ফ্যারনজাইটিস রোগে ভুগছেন। ঠাণ্ডা, ধোঁয়া, ধুলা থেকে দূরে থাকতে হবে। কুসুম গরম পানি দিয়ে গলা পরিষ্কার রাখতে হবে। এ ওষুধটি চালিয়ে যান, নাকে ব্যবহারের জন্য ফ্লুটিকা বা বেকো স্প্রে প্রতি রাতে ব্যবহার করবেন। সঙ্গে এক কোর্স এন্টিবায়োটিক খাবেন। পরে নাকে কটারি বা নাকের হাড় বাঁকা থাকলে অপারেশন করতে হবে।

গলা ব্যথা ও ঢোক গিলতে সমস্যা

হঠাৎ আমার গলায় ব্যথা ও ঢোক গিলতে কষ্ট হচ্ছে। মাঝে মাঝে কাশি হয়। আমার পরিচিত একজন বলেছেন, বোধহয় টনসিলে সমস্যা। এ সময়ে চেম্বারে কিংবা হাসপাতালে যেতে ভয় হচ্ছে। বাসায় বসে করণীয় কী?

-মুনতাহা, ২৬ বছর, সিরাজগঞ্জ

কোভিড হলে এ লক্ষণ হয়। আপনার অবিলম্বে ১৪ দিনের জন্য আইসোলেশনে যেতে হবে। এন্টিবায়োটিক সেফোরেক্সিম ৫০০ মিলিগ্রাম দুই বেলা করে ৫ দিন খাবেন। প্যারাসিটামল ট্যাবলেট জ্বর থাকলে দিনে ৩/৪ বার ভরা পেটে খাবেন। বুকের সিটি স্ক্যান বা ন্যূনতম একটি এক্সরে করতে পারেন। টনসিলে সমস্যা হলেও এ এন্টিবায়োটিকে সেরে যাবে। ৫-৭ দিনেও অবস্থার উন্নতি না হলে কোভিডের পরীক্ষা করতে হবে।

হাঁ করতে কষ্ট

গত ৫-৭ দিন ধরে আমার মুখে কানের নিচের জয়েন্টে হাঁ করতে পারছি না, ব্যথা হচ্ছে। আমি উচ্চ রক্তচাপের জন্য ওষুধ খাচ্ছি। গলায়ও হালকা ব্যথা ও অস্বস্তিবোধ হচ্ছে। কী করব জানাবেন?

-জেরিন কামাল, ৪৬ বছর, ব্রাহ্মণবাড়িয়া, কুমিল্লা

একে টেম্পেরোম্যান্ডিবুলার নিউরালজিয়া বলে। অর্থাৎ কানের নিচের জয়েন্টে হাড়ের প্রদাহ নার্ভকে আক্রান্ত করে এ সমস্যা হয়েছে। আক্রান্ত জায়গায় ৫-৭ দিন গরম সেঁক দেবেন এবং আগামী ১০ দিন কোনো শক্ত খাবার খাবেন না, জাও ভাত খাবেন। বেকলোফেন ট্যাবলেট ৫ মিলিগ্রাম দিনে ৩ বার ভরা পেটে ৫-৭ দিন খাবেন এবং ব্যথা কমানোর ওষুধ Nasid ভরা পেটে খাবেন। সঙ্গে PPI বা গ্যাস্ট্রিকের ওষুধ খাওয়ার আগে খাবেন। গলা ব্যথার জন্য কুসুম গরম পানিতে লবণ মিশিয়ে গড়গড়া করতে পারেন। নাকে অ্যান্টাজল ড্রপ ৩ বেলা করে ৫-৭ দিন নিতে পারেন।

কানে ব্যথা ও শুনতে সমস্যা

গত ২ সপ্তাহ আগে দুই কানে ব্যথা ও ভার ভার অনুভব করায় কটন বাডে তেল লাগিয়ে কান পরিষ্কার করার চেষ্টা করেছিলাম। এরপর থেকে কানে প্রচণ্ড ব্যথা ও বন্ধ হয়ে আছে বলে মনে হচ্ছে। ডাক্তারের পরামর্শে এন্টিবায়োটিক, ব্যথার ওষুধ ও এন্টিঅ্যালার্জিক জাতীয় ওষুধ খাওয়ার পরও কানে পরিষ্কার শুনতে পাচ্ছি না। এ অবস্থায় করণীয় কী?

-প্রদীপ্ত, ২৩ বছর, ইস্কাটন, ঢাকা

আপনার কানে খৈল বা ময়লা বা WAX জমেছিল এবং তা খোঁচাখুঁচি করার কারণে ফারাং কুলেসিস নামক রোগ সৃষ্টি হয়েছে। এন্টিবায়োটিক ও ব্যথানাশক খাওয়ার কারণে প্রদাহ ও ব্যথা কমে গেছে কিন্তু ময়লা এখনও হয়তো রয়ে গেছে। এজন্য কান বন্ধ ভাব হচ্ছে। সম্পূর্ণ ভালো হতে ২-৩ সপ্তাহ লাগবে। এ সময় কান শুকনো রাখতে হবে। কোনো কিছু দিয়েই কান পরিষ্কার করা যাবে না, ২ সপ্তাহ পরে প্রতি রাতে দুই কানে ৪-৫ ফোঁটা অলিভঅয়েল ৮-১০ দিন দিলে ময়লা বের হয়ে আসবে। এতেও কাজ না হলে ডাক্তারের চেম্বারে সাকশন দিয়ে ময়লা বের করার জন্য যেতে হবে। রক্তের সুগার পরীক্ষা করিয়ে নেয়া ভালো।

আপনার প্রশ্ন

বিশেষজ্ঞের উত্তর

 অধ্যাপক ডা. জাহীর আল-আমিন 
২৫ জুলাই ২০২০, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

নাক কান ও গলা রোগ বিশেষজ্ঞ ও সার্জন

চিফ কনসালটেন্ট

ইমপাল্স হাসপাতাল, তেজগাঁও, ঢাকা

হটলাইন : ১০৬৪৪

বৃষ্টি থেকে ঠাণ্ডা লাগা

বৃষ্টিতে ভিজলেই কিংবা ঠাণ্ডা পড়লে আমার নাক দিয়ে পানি ঝরে, গলা খুসখুস করে ও কাশি হয়। ডাক্তারের পরামর্শে নিয়মিত মন্টিলুকাস্ট খেয়ে যাচ্ছি এবং ঠাণ্ডা এড়িয়ে চলি ও গরম গরম খাবার খেতে চেষ্টা করি, এরপরও সমস্যা থেকে যাচ্ছে।

-বর্ষা, ২৮ বছর, চট্টগ্রাম

আপনি অ্যালার্জিক রাইনাইটিস ও ফ্যারনজাইটিস রোগে ভুগছেন। ঠাণ্ডা, ধোঁয়া, ধুলা থেকে দূরে থাকতে হবে। কুসুম গরম পানি দিয়ে গলা পরিষ্কার রাখতে হবে। এ ওষুধটি চালিয়ে যান, নাকে ব্যবহারের জন্য ফ্লুটিকা বা বেকো স্প্রে প্রতি রাতে ব্যবহার করবেন। সঙ্গে এক কোর্স এন্টিবায়োটিক খাবেন। পরে নাকে কটারি বা নাকের হাড় বাঁকা থাকলে অপারেশন করতে হবে।

গলা ব্যথা ও ঢোক গিলতে সমস্যা

হঠাৎ আমার গলায় ব্যথা ও ঢোক গিলতে কষ্ট হচ্ছে। মাঝে মাঝে কাশি হয়। আমার পরিচিত একজন বলেছেন, বোধহয় টনসিলে সমস্যা। এ সময়ে চেম্বারে কিংবা হাসপাতালে যেতে ভয় হচ্ছে। বাসায় বসে করণীয় কী?

-মুনতাহা, ২৬ বছর, সিরাজগঞ্জ

কোভিড হলে এ লক্ষণ হয়। আপনার অবিলম্বে ১৪ দিনের জন্য আইসোলেশনে যেতে হবে। এন্টিবায়োটিক সেফোরেক্সিম ৫০০ মিলিগ্রাম দুই বেলা করে ৫ দিন খাবেন। প্যারাসিটামল ট্যাবলেট জ্বর থাকলে দিনে ৩/৪ বার ভরা পেটে খাবেন। বুকের সিটি স্ক্যান বা ন্যূনতম একটি এক্সরে করতে পারেন। টনসিলে সমস্যা হলেও এ এন্টিবায়োটিকে সেরে যাবে। ৫-৭ দিনেও অবস্থার উন্নতি না হলে কোভিডের পরীক্ষা করতে হবে।

হাঁ করতে কষ্ট

গত ৫-৭ দিন ধরে আমার মুখে কানের নিচের জয়েন্টে হাঁ করতে পারছি না, ব্যথা হচ্ছে। আমি উচ্চ রক্তচাপের জন্য ওষুধ খাচ্ছি। গলায়ও হালকা ব্যথা ও অস্বস্তিবোধ হচ্ছে। কী করব জানাবেন?

-জেরিন কামাল, ৪৬ বছর, ব্রাহ্মণবাড়িয়া, কুমিল্লা

একে টেম্পেরোম্যান্ডিবুলার নিউরালজিয়া বলে। অর্থাৎ কানের নিচের জয়েন্টে হাড়ের প্রদাহ নার্ভকে আক্রান্ত করে এ সমস্যা হয়েছে। আক্রান্ত জায়গায় ৫-৭ দিন গরম সেঁক দেবেন এবং আগামী ১০ দিন কোনো শক্ত খাবার খাবেন না, জাও ভাত খাবেন। বেকলোফেন ট্যাবলেট ৫ মিলিগ্রাম দিনে ৩ বার ভরা পেটে ৫-৭ দিন খাবেন এবং ব্যথা কমানোর ওষুধ Nasid ভরা পেটে খাবেন। সঙ্গে PPI বা গ্যাস্ট্রিকের ওষুধ খাওয়ার আগে খাবেন। গলা ব্যথার জন্য কুসুম গরম পানিতে লবণ মিশিয়ে গড়গড়া করতে পারেন। নাকে অ্যান্টাজল ড্রপ ৩ বেলা করে ৫-৭ দিন নিতে পারেন।

কানে ব্যথা ও শুনতে সমস্যা

গত ২ সপ্তাহ আগে দুই কানে ব্যথা ও ভার ভার অনুভব করায় কটন বাডে তেল লাগিয়ে কান পরিষ্কার করার চেষ্টা করেছিলাম। এরপর থেকে কানে প্রচণ্ড ব্যথা ও বন্ধ হয়ে আছে বলে মনে হচ্ছে। ডাক্তারের পরামর্শে এন্টিবায়োটিক, ব্যথার ওষুধ ও এন্টিঅ্যালার্জিক জাতীয় ওষুধ খাওয়ার পরও কানে পরিষ্কার শুনতে পাচ্ছি না। এ অবস্থায় করণীয় কী?

-প্রদীপ্ত, ২৩ বছর, ইস্কাটন, ঢাকা

আপনার কানে খৈল বা ময়লা বা WAX জমেছিল এবং তা খোঁচাখুঁচি করার কারণে ফারাং কুলেসিস নামক রোগ সৃষ্টি হয়েছে। এন্টিবায়োটিক ও ব্যথানাশক খাওয়ার কারণে প্রদাহ ও ব্যথা কমে গেছে কিন্তু ময়লা এখনও হয়তো রয়ে গেছে। এজন্য কান বন্ধ ভাব হচ্ছে। সম্পূর্ণ ভালো হতে ২-৩ সপ্তাহ লাগবে। এ সময় কান শুকনো রাখতে হবে। কোনো কিছু দিয়েই কান পরিষ্কার করা যাবে না, ২ সপ্তাহ পরে প্রতি রাতে দুই কানে ৪-৫ ফোঁটা অলিভঅয়েল ৮-১০ দিন দিলে ময়লা বের হয়ে আসবে। এতেও কাজ না হলে ডাক্তারের চেম্বারে সাকশন দিয়ে ময়লা বের করার জন্য যেতে হবে। রক্তের সুগার পরীক্ষা করিয়ে নেয়া ভালো।