করোনার উপসর্গ লুকাবেন না
jugantor
করোনার উপসর্গ লুকাবেন না

  অধ্যাপক ডা. মোস্তাক হাসান সাত্তার পিনু  

১৭ অক্টোবর ২০২০, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

করোনার জন্য লকডাউনে হু হু করে কমছে বায়ুদূষণের মাত্রা! চীন, ইটালি বা ব্রিটেনের আকাশে অবিশ্বাস্য গতিতে কমছে নাইট্রোজেন ডাই-অক্সাইড, সালফার ডাই-অক্সাইড আর কার্বন মনোক্সাইডের মাত্রা!

পরিবেশবিদদের হতবাক করে নিউইয়র্কের আকাশে দূষণের মাত্রা কমেছে ৫০ শতাংশেরও বেশি! স্রেফ উপগ্রহ ছবিতে নয়, ঘরবন্দি ইউরোপের মানুষ খালি চোখেও দেখতে পাচ্ছে ঝকঝকে নির্মল আকাশ!

করোনা ঢেউ এই এক-দু’মাসের গল্প নয়। একটা ভ্যাকসিন আবিষ্কার হয়ে বাজারে আসতে সময় নেবে কমপক্ষে ১২ থেকে ১৬ মাস। এর মধ্যে পৃথিবীর অন্তত দুই-তৃতীয়াংশ মানুষ আক্রান্ত হবে দফায় দফায় যতদিন ভ্যাকসিন না আসবে।

কী অদ্ভুত না? আমরা আমাদের ইমিউন সিস্টেমের কথা জানি। কিন্তু এ পৃথিবীরও যে একটা ইমিউন সিস্টেম আছে, তা ভাবিনি কখনও! যেন তিক্তবিরক্ত পৃথিবী আর সইতে না পেরে সেই সিস্টেমকে activate করে দিয়েছে!

বিজ্ঞানীদের মতে আগামী এক বছরে করোনা-বিপর্যস্ত মানুষ, দফায় দফায় ঘরবন্দি থাকা মানুষ পৃথিবীর দূষণ কমিয়ে ফেলবে প্রায় ৪৫ শতাংশ! পরিবেশ ফিরে যাবে ৫০০ বছর আগে, বিশুদ্ধতার নিরিখে। মাস’ছয়েকের মধ্যে কমতে থাকবে হিমবাহের গলন, বন্ধ হয়ে যাবে বছরখানেকের মধ্যে। কমবে ক্যান্সার, কিডনি, শ্বাসযন্ত্র ও অন্যান্য দূষণজনিত রোগ।

নতুন পৃথিবীতে নতুনভাবে নামবে মানুষ, ভাঙাচোরা অর্থনীতি, থমকে যাওয়া শিল্প, আমূল বদলে যাওয়া জীবনকে নতুন করে বাঁধতে। ধুলো-ধোঁয়া-অন্ধকার পেরিয়ে সেই নতুন পৃথিবীর সোনালি আলোর রেখা হয়তো দেখা যাচ্ছে এখন থেকেই!

কীভাবে ঘর পরিষ্কার করতে হবে

তিন উপায় আপনি আপনার বাসা নিরাপদ করতে পারেন

* ২০ লিটার পানির সঙ্গে ৬ টেবিল চামচ ব্লিচিং পাউডার মিশিয়ে মেঝে পরিষ্কার করতে পারেন। ২০ লিটার পানিতে ২ টেবিল চামচ ব্লিচিং পাউডার মিশিয়ে আপনার বাড়িতে প্রবেশের আগে জুতা, গাড়ি, আসবাবের জন্য স্প্রে ব্যবহার করুন।

* সাবান পানি, দেড় লিটার পানিতে ৬ চা চামচ যে কোনো ডিটারজেন্ট মিশিয়ে হাত, কাপড়, ইত্যাদিতে ব্যবহার করতে পারেন। হাতে স্যানিটাইজার ব্যবহারের প্রয়োজন হবে না। গবেষণাটি আইসিডিডিআরবির WHO অনুমোদিত পদ্ধতি।

* ফ্লোর পরিষ্কারের জন্য ২ লিটার পানিতে ২০০ মিলি ক্লোরক্স / ক্লোটেক/ ৫.২৫% সোডিয়াম হাইপো ক্লোরাইড (কাপড়ের হোয়াইটনার হিসেবে বাজারে পাওয়া যায়)।

করোনা প্রতিরোধে কী করতে হবে

* নিয়মিত বিরতিতে সাবান পানি/ ৭০% এলকোহলে হাত ধোয়া/মোছা।

* জরুরি প্রয়োজন ছাড়া নিজের ইচ্ছায় বাসায় থাকা।

* হাঁচি/কাশি দিলে হাতের তালুতে না নিয়ে কনুইয়ে নিন এবং হাত ধুয়ে ফেলুন।

* কাঁচা খাবার সালাদ ইত্যাদি না খেয়ে সিদ্ধ খাবার খান।

* ভিটামিন সিযুক্ত খাবার হলুদ, আদা, রসুন খান।

* মাস্কের সামনে ধরবেন না। মোটা কাপডের তৈরি মাস্ক প্রতি বেলায় ইস্ত্রি করে ব্যবহার করুন। কাপড়ের মাস্ক সিডিসি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে সুপারিশ করা হয় বাংলাদেশেও তাই ব্যবহার করা উচিত। আগামী এক বছর যানবাহন, পাবলিক প্লেস, স্কুল কলেজ, সব স্থানে ফেস মাস্ক ব্যবহার বাধ্যতামূলক করা।

* সন্দেহ হলেই করোনাভাইরাসের পরীক্ষা করুন।

* উপসর্গ লুকাবেন না সঠিক সময়ে ধরা পড়লে মৃত্যুর হার নেই বললেই চলে।

* নিজে বাঁচুন, পরিবারকে বাঁচান, দেশ ও বিশ্বকে বাঁচান।

লেখক : সাবেক অধ্যক্ষ, অবসরপ্রাপ্ত সরকারি কর্মকর্তা

করোনার উপসর্গ লুকাবেন না

 অধ্যাপক ডা. মোস্তাক হাসান সাত্তার পিনু 
১৭ অক্টোবর ২০২০, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

করোনার জন্য লকডাউনে হু হু করে কমছে বায়ুদূষণের মাত্রা! চীন, ইটালি বা ব্রিটেনের আকাশে অবিশ্বাস্য গতিতে কমছে নাইট্রোজেন ডাই-অক্সাইড, সালফার ডাই-অক্সাইড আর কার্বন মনোক্সাইডের মাত্রা!

পরিবেশবিদদের হতবাক করে নিউইয়র্কের আকাশে দূষণের মাত্রা কমেছে ৫০ শতাংশেরও বেশি! স্রেফ উপগ্রহ ছবিতে নয়, ঘরবন্দি ইউরোপের মানুষ খালি চোখেও দেখতে পাচ্ছে ঝকঝকে নির্মল আকাশ!

করোনা ঢেউ এই এক-দু’মাসের গল্প নয়। একটা ভ্যাকসিন আবিষ্কার হয়ে বাজারে আসতে সময় নেবে কমপক্ষে ১২ থেকে ১৬ মাস। এর মধ্যে পৃথিবীর অন্তত দুই-তৃতীয়াংশ মানুষ আক্রান্ত হবে দফায় দফায় যতদিন ভ্যাকসিন না আসবে।

কী অদ্ভুত না? আমরা আমাদের ইমিউন সিস্টেমের কথা জানি। কিন্তু এ পৃথিবীরও যে একটা ইমিউন সিস্টেম আছে, তা ভাবিনি কখনও! যেন তিক্তবিরক্ত পৃথিবী আর সইতে না পেরে সেই সিস্টেমকে activate করে দিয়েছে!

বিজ্ঞানীদের মতে আগামী এক বছরে করোনা-বিপর্যস্ত মানুষ, দফায় দফায় ঘরবন্দি থাকা মানুষ পৃথিবীর দূষণ কমিয়ে ফেলবে প্রায় ৪৫ শতাংশ! পরিবেশ ফিরে যাবে ৫০০ বছর আগে, বিশুদ্ধতার নিরিখে। মাস’ছয়েকের মধ্যে কমতে থাকবে হিমবাহের গলন, বন্ধ হয়ে যাবে বছরখানেকের মধ্যে। কমবে ক্যান্সার, কিডনি, শ্বাসযন্ত্র ও অন্যান্য দূষণজনিত রোগ।

নতুন পৃথিবীতে নতুনভাবে নামবে মানুষ, ভাঙাচোরা অর্থনীতি, থমকে যাওয়া শিল্প, আমূল বদলে যাওয়া জীবনকে নতুন করে বাঁধতে। ধুলো-ধোঁয়া-অন্ধকার পেরিয়ে সেই নতুন পৃথিবীর সোনালি আলোর রেখা হয়তো দেখা যাচ্ছে এখন থেকেই!

কীভাবে ঘর পরিষ্কার করতে হবে

তিন উপায় আপনি আপনার বাসা নিরাপদ করতে পারেন

* ২০ লিটার পানির সঙ্গে ৬ টেবিল চামচ ব্লিচিং পাউডার মিশিয়ে মেঝে পরিষ্কার করতে পারেন। ২০ লিটার পানিতে ২ টেবিল চামচ ব্লিচিং পাউডার মিশিয়ে আপনার বাড়িতে প্রবেশের আগে জুতা, গাড়ি, আসবাবের জন্য স্প্রে ব্যবহার করুন।

* সাবান পানি, দেড় লিটার পানিতে ৬ চা চামচ যে কোনো ডিটারজেন্ট মিশিয়ে হাত, কাপড়, ইত্যাদিতে ব্যবহার করতে পারেন। হাতে স্যানিটাইজার ব্যবহারের প্রয়োজন হবে না। গবেষণাটি আইসিডিডিআরবির WHO অনুমোদিত পদ্ধতি।

* ফ্লোর পরিষ্কারের জন্য ২ লিটার পানিতে ২০০ মিলি ক্লোরক্স / ক্লোটেক/ ৫.২৫% সোডিয়াম হাইপো ক্লোরাইড (কাপড়ের হোয়াইটনার হিসেবে বাজারে পাওয়া যায়)।

করোনা প্রতিরোধে কী করতে হবে

* নিয়মিত বিরতিতে সাবান পানি/ ৭০% এলকোহলে হাত ধোয়া/মোছা।

* জরুরি প্রয়োজন ছাড়া নিজের ইচ্ছায় বাসায় থাকা।

* হাঁচি/কাশি দিলে হাতের তালুতে না নিয়ে কনুইয়ে নিন এবং হাত ধুয়ে ফেলুন।

* কাঁচা খাবার সালাদ ইত্যাদি না খেয়ে সিদ্ধ খাবার খান।

* ভিটামিন সিযুক্ত খাবার হলুদ, আদা, রসুন খান।

* মাস্কের সামনে ধরবেন না। মোটা কাপডের তৈরি মাস্ক প্রতি বেলায় ইস্ত্রি করে ব্যবহার করুন। কাপড়ের মাস্ক সিডিসি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে সুপারিশ করা হয় বাংলাদেশেও তাই ব্যবহার করা উচিত। আগামী এক বছর যানবাহন, পাবলিক প্লেস, স্কুল কলেজ, সব স্থানে ফেস মাস্ক ব্যবহার বাধ্যতামূলক করা।

* সন্দেহ হলেই করোনাভাইরাসের পরীক্ষা করুন।

* উপসর্গ লুকাবেন না সঠিক সময়ে ধরা পড়লে মৃত্যুর হার নেই বললেই চলে।

* নিজে বাঁচুন, পরিবারকে বাঁচান, দেশ ও বিশ্বকে বাঁচান।

লেখক : সাবেক অধ্যক্ষ, অবসরপ্রাপ্ত সরকারি কর্মকর্তা