রমজানে মুখের যত্নে সচেতনতা

  ডা. মো. আসাফুজ্জোহা রাজ ০৫ মে ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

পবিত্র রমজান মাস সমাগত। ইসলাম ধর্মের সবাই আশা করেন মাসটিতে সর্বোচ্চ ইবাদত করবে। সঠিকভাবে রোজা পালনের জন্য সুস্থতা অপরিহার্য। স্বচ্ছ জ্ঞান না থাকলে দাঁতের ব্যথা, মাঢ়ি দিয়ে রক্ত পড়া অথবা বিভিন্ন ধরনের মুখের আলসার বা ঘাঁ যে কাউকে কষ্ট দিতে পারে। সচেতন হলে মুখের পূর্ণ সুস্থতায় কাটবে এই মাস।

রোজার সময় শারীরিক যে পরিবর্তন হয়-

মুখের শুষ্কতা

দিনের বেশিরভাগ সময় পানি পান থেকে বিরত থাকার কারণে মুখে লালা নিঃসরণ কমে যায়। লালা আল্লাহ্ প্রদত্ত বিশেষ এক উপাদান যেটা আমাদের মুখকে ধুয়ে পরিষ্কার রাখে, জীবাণুমুক্ত রাখতে সাহায্য করে, মুখকে পিচ্ছিল রাখে যাতে কথা বলতে, খাদ্য গ্রহণে, মুখ নাড়াতে ও মুখের মধ্যকার নরম অংশে কোনো ঘর্ষণ যেন না লাগে- তাতে সহায়তা করে। মুখের লালা কমে গেলে জীবাণুর সংক্রমণ বেড়ে যেতে পারে, দাঁতে গর্ত, মাঢ়ি রোগ, বিভিন্ন মাইক্রো আলসার থেকে মুখে জ্বালাপোড়া হতে পারে।

করণীয়

ইফতারি থেকে সেহরি পর্যাপ্ত পানি পান করতে হবে, তরল খাবার বেশি খেতে হবে, মৌসুমি ফল, ফলের জুস, ইসপগুলের ভুসি খেতে হবে।

খাদ্য গ্রহণের সময়ের পরিবর্তন

সারাদিন মুখ অলস থাকে বলে জীবাণুরা সক্রিয় থাকে। এসময় ইফতারিতে আমরা চিনির শরবত, জিলাপি, বিভিন্ন চিনির তৈরি খাবার বেশি খাই যা দাঁতের গর্ত তৈরিতে কাজ করে।

অন্যদিকে অতিরিক্ত ভাজাপোড়া খাবার থেকে গ্যাস্ট্রিক এসিডিটি বেড়ে যাওয়ার আশঙ্কা থাকে, যার ফলে পেটের এসিড ঢেকুরের সঙ্গে মুখে এসে দাঁতের ক্ষতি করতে পারে, তখন ঠাণ্ডা বা মিষ্টি খাওয়ার সময় শিনশিন অনুভূতি হয়।

করণীয়

চিনিমুক্ত খাবার গ্রহণে উৎসাহী হতে হবে, বেশি ভাজাপোড়া ও তৈলাক্ত খাবার পরিত্যাগ করতে হবে। ফলমূল, শাকসবজি, আঁশযুক্ত খাবার তালিকায় রাখতে হবে।

মুখ পরিষ্কারে অনিহা

সারাদিন রোজা পালন, তারাবিহ নামাজ সব মিলিয়ে অনেকেই ক্লান্তির অজুহাতে সঠিকভাবে মুখ পরিষ্কার করে না। রোজার মাসে শরীরের পাশাপাশি মুখের যতেœ কোনো অবহেলা করা যাবে না। পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা ঈমানের অঙ্গ। বিশেষকরে সেহরি গ্রহণের পর সঠিক নিয়মে দাঁতের প্রত্যেক পৃষ্ঠ পরিষ্কার করা, প্রয়োজনে ডেন্টাল ফ্লস ব্যবহার, মাঢ়ি ম্যাসাজ, জিহ্বা পরিষ্কার, যাদের মুখ অতিরিক্ত শুষ্ক থাকে বা ডায়াবেটিস রোগীদের জীবাণুনাশক মাউথ ওয়াস ব্যবহার অতি জরুরি। এরজন্য সেহরি একটু আগে সেরে নিয়ে মুখের যত্নে ৫ থেকে ১০ মিনিট সময় রাখতে হবে। প্রত্যেক ওজুর সময় আঙুল দিয়ে দাঁত পরিষ্কার করা যেতে পারে। সঠিকভাবে মুখ পরিষ্কারের মাধ্যমে অনেকের রোজার সময় যে বিব্রতকর মুখের গন্ধ হয় সেটা রোধ করা সম্ভব। রোজা থাকাকালীন মুখ পরিষ্কার করতে গিয়ে যেন কোনো কিছু গলাধঃকরণ না হয় সেদিকে সতর্ক থাকতে হবে।

অন্যান্য রোগ অনিয়ন্ত্রিত হওয়ার আশঙ্কা

বিভিন্ন রোগ যেমন ডায়াবেটিস, ব্লাড প্রেসার, লিভারের রোগ, এসিডিটি এর জন্য চিকিৎসকের দেয়া ওষুধের সময়ের তারতম্য হওয়ার কারণে সংশ্লিষ্ট রোগের মাত্রা বাড়তে পারে। শরীর ও মুখ ওতপ্রোতভাবে জড়িত, মুখ যেমন শরীরের প্রবেশদ্বার তেমনি প্রতিচ্ছবিও। শরীরের অনেক অনিয়ন্ত্রিত রোগ মুখকে ক্ষতিগ্রস্থ করতে পারে।

করণীয়

রোজার আগেই সংশ্লিষ্ট চিকিৎসকের পরামর্শে ওষুধের নতুন সময় বুঝে নিতে হবে।

রোজার আগেই মুখের কোনো অস্বাভাবিকতা অনুভব করলে চিকিৎসকের পরামর্শ নেয়া, কোনো সমস্যা থাকলে চিকিৎসা নেয়া।

রোজার সময় চিকিৎসা করা যাবে না, এমন ভ্রান্ত ধারণা নিয়ে কষ্ট পুষে রাখা ঠিক নয়। চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া ওষুধ সেবন বড় ধরনের ক্ষতির কারণ হতে পারে। রোজা চলাকালিন কোন ধরনের চিকিৎসা কখন করা যাবে সেটা চিকিৎসক নির্ধারণ করবেন।

লেখক : ডেন্টাল সার্জন, রাজ ডেন্টাল সেন্টার ও রাজ ডেন্টাল ওয়ার্ল্ড

 

 

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter
.