রোজায় হৃদরোগীদের জন্য পরামর্শ

  অধ্যাপক ডা. মোহাম্মদ সাইফউল্লাহ ১৯ মে ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

হৃদরোগ

হৃদরোগ এমন একটি জটিল রোগ যার পরিণতি অনেক ক্ষেত্রে ভয়ঙ্কর। হৃদরোগ প্রতিরোধ করতে আগে থেকে সতর্কতা অবলম্বন করতে হবে। হৃদরোগে আক্রান্ত হলে সঠিক চিকিৎসা গ্রহণের মাধ্যমে সুস্থতা লাভের চেষ্টা করা হয়। হৃদরোগীরা দীর্ঘ সময় অনাহারে থাকলে খুব তাড়াতাড়ি আরও বেশি অসুস্থ হয়ে যেতে পারেন।

হৃদরোগীদের হৃদরোগ চিকিৎসার হাতিয়ার হিসেবে আমরা চিকিৎসকরা অনেক ধরনের মেডিসিন ব্যবহার করে থাকি। রোজা রাখার ফলে যদি আমরা বিবেচনা করি যে, এসব মেডিসিন গ্রহণের যে বিচ্যুতি হবে, তাতে রোগীর অসুস্থতা বৃদ্ধি পাবে। সে বিষয়টি খেয়াল রাখতে হবে।

এ ছাড়া হৃদরোগীর বেলায় আরও কিছু বাড়তি সতর্কতা হিসেবে রোগীর রক্তের সুগার কন্ট্রোল, কোলেস্টেরলের মাত্রা নিয়ন্ত্রণ অতীব জরুরি। রোজা রাখার ক্ষেত্রে এ দুটি বিষয়কে আমরা প্রাধান্য দিয়ে থাকি।

যেসব হৃদরোগী এমন ধরনের ঝুঁকিতে আছেন যে রোজা রাখার ফলে রক্তে সুগার-কোলেস্টেরল অনিয়ন্ত্রিত হয়ে যেতে পারে, তাদের জন্য রোজা না রাখাই উচিত। যারা হার্ট ফেইলুরজনিত হৃদরোগে ভুগছেন মানে হৃদরোগের জটিলতা হিসেবে পা ফুলে যায় বা হৃদরোগজনিত শ্বাসকষ্টে আক্রান্ত হয়ে থাকেন, তাদের বেলায় রোজা রাখার ফলে খাদ্য ও মেডিসিন গ্রহণে (অনিয়ন্ত্রিত রক্তচাপ ও হার্টের রক্ত প্রবাহের সমস্যা সৃষ্টি ইত্যাদি বিষয় অবশ্যই বিবেচনায় রাখতে হবে)।

বিচ্যুতির ফলে তাদের অসুস্থতা বৃদ্ধির সমূহ আশঙ্কা থাকে, তাই হার্ট ফেইলুর রোগীদের রোজা না রাখাই উত্তম। বছরে এক মাস এ ধরনের শারীরিক যোগ্যতার মহড়া রোজাদার ব্যক্তির শারীরিক যোগ্যতা বৃদ্ধি করাসহ স্বাস্থ্য রক্ষায় মুখ্য ভূমিকা রাখে।

কারণ ইসলাম সর্বদাই আধুনিক একটি ধর্ম এবং তার প্রতিটি বিধানই মানবকল্যাণে নির্মিত। রোজার সময় অতিভোজন কাম্য নয়। কেননা আমাদের সমাজের অনেকেই রমজানে কাজ কর্মের পরিমাণ কমিয়ে দিয়ে বিশ্রাম গ্রহণ করে একমনে পার করে দেন এবং এ ধরনের ব্যক্তি স্বাস্থ্য ঝুঁকিতে পড়েন।

যারা ওজন আধিক্যে ভুগছেন (মেদভুঁড়ি) তারা অবশ্যই রোজার সময় খাদ্য গ্রহণ নিয়ন্ত্রণের মাধ্যমে শারীরিক ওজন কমানোর কার্যকারী পদক্ষেপ গ্রহণ করবেন। তার মানে গত ১১ মাসে আপনার যা মেদ চর্বি জমা হয়েছে তা কমিয়ে ফেলবেন। রোজা আল্লাহতায়ালার নির্দেশ, এটাকে সঠিকভাবে পালন করে এর থেকে শারীরিক সুস্থতার উপায়গুলো কাজে লাগিয়ে সুস্থ সুন্দর ব্যাধিমুক্ত জীবন লাভ করতে পারি।

লেখক : মেডিসিন ও হৃদরোগ বিশেষজ্ঞ, বিভাগীয় প্রধান, হৃদরোগ বিভাগ, মুন্নু মেডিক্যাল কলেজ অ্যান্ড হাসপাতাল

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter