প্রসঙ্গ মানসিক রোগ

  ডা. আহসান উদ্দিন আহমেদ ১১ আগস্ট ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

প্রসঙ্গ মানসিক রোগ
ছবি- সংগৃহীত

সাইকিয়াট্রি (Psychiatry) যার বাংলা অর্থ হল মনোরোগবিদ্যা- সে সম্পর্কে অধিকাংশ মানুষের ধারণা আসলে কি? সাইকিয়াট্রিস্ট (Psychiatrist) যার বাংলা অর্থ করলে দাঁড়ায় মনোরোগ চিকিৎসক তাদের সম্পর্কেই বা মানুষের ধারণা কি?

যদিও এ সম্পর্কে ধারণাগুলো অতীতের চেয়ে বর্তমানে অনেকাংশেই সহনীয় এবং কিছুটা হলেও পরিবর্তিত রূপে বিদ্যমান তথাপিও অধিকাংশ মানুষেরই ধারণা হল সাইকিয়াট্রি বা মানসিক রোগ মানেই হল পাগল এবং পাগলের চিকিৎসা এবং সাইকিয়াট্রিস্ট মানেই হল পাগলের চিকিৎসক।

শুধু সাধারণ মানুষই নয় অনেক শিক্ষিত বিদগ্ধজন এমন কি অনেক চিকিৎসকেরও ধারণা তাই। কিন্তু সত্যিই কি ব্যাপারটা এমন? না, মোটেই তা নয়।

মন এবং শরীর এই দু’য়ে মিলে হচ্ছে পরিপূর্ণ মানুষ। শরীরের অস্তিত্ববিহীন যেমন মানুষের অস্তিত্ব কল্পনা করা যায় না, তেমনি মন ছাড়া মানুষও কল্পনা করা যায় না। ভেবে দেখুন তো মনবিহীন মানুষ কি কখনও সম্ভব। কাজেই আপনি যদি মানুষের অস্তিত্ব স্বীকার করেন তবে মনের অস্তিত্বও আপনাকে পুরোপুরি মেনে নিতে হবে।

প্রশ্ন করতে পারেন, মন আদৌ অস্তিত্বশীল কি-না? মনকে ধরা যায় কি-না? মনকে অবশ্যই ধরা যায়। এ ‘ধরা’ শরীরকে স্পর্শ করার মতো নয়। আমরা আমাদের Sensory Organ বা পঞ্চইন্দ্রিয়ের সাহায্যে কোনো কিছুর শারীরিক অস্তিত্ব বা Physical Existence ব্যাখ্যা করি।

কিন্তু মনকে এ পঞ্চইন্দ্রিয়ের সাহায্যে ব্যাখ্যা করা সম্ভব নয়। মনের বিভিন্ন অবস্থা আমরা অনুভব করতে পারি। এ অনুভব কোনো কল্পনা বা আজগুবি আষাঢ়ে গল্পের উপাখ্যান নয়। মনের গতি প্রকৃতি, পরিবর্তন, সুস্থতা, অসুস্থতা ইত্যাদিও রয়েছে সুনির্দিষ্ট বৈজ্ঞানিক এবং শরীরবৃত্তীয় ভিত্তি এবং ব্যাখ্যা।

শরীর বা শরীরের বিভিন্ন অঙ্গ-প্রত্যঙ্গ যেমন রোগাক্রান্ত হয় তেমনি এই শরীরেরই একটি অঙ্গ হচ্ছে মন যা বিভিন্ন সময় বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত হয়। শরীর এবং মন কখনোই পৃথক বা আলাদাভাবে অবস্থান করতে পারে না। শরীর না থাকলে মনেরও অস্তিত্ব থাকে না।

মনে রাখবেন ধর্মীয় দৃষ্টিকোণ থেকে ব্যাপারটাকে কখনও গুলিয়ে ফেলবেন না। মন আর আত্মা এক জিনিস নয়। যা হোক সেটা ভিন্ন আলোচনার বিষয়। শরীর না থাকলে যদি মন না থাকে তবে স্বভাবতই প্রশ্ন আসে হৃৎপিণ্ড যেমন বুকের মধ্যে থাকে, পাকস্থলি যেমন পেটের মধ্যে থাকে তা হলে মন কোথায় থাকে? সহজ কথায় মন থাকে মাথায়।

আগেই বলেছি শরীর বা শরীরের অন্যান্য অঙ্গ প্রত্যঙ্গের মতো মনও রোগাক্রান্ত হয়। আমরা যদি Neuroscience perspective বা স্নায়ুতান্ত্রিক পরিপ্রেক্ষিত থেকে মন সম্পর্কে জানতে চাই তবে দেখতে পাব মন হচ্ছে কতগুলো neuronal circuit তথা পরস্পর সংযুক্ত কতগুলো স্নায়ুবীয় গতিপথ, কতগুলো নিউরোট্রান্সমিটার, হরমোন, নিউরোমডিউলেটর, মস্তিষ্কে অবস্থিত অসংখ্য নিউরোনাল সাইনেন্সে সম্মিলিত কার্যক্রম।

এসব কার্যক্রমের বিভিন্ন রকম প্রকাশ-ই হচ্ছে মনের বিভিন্ন অবস্থা। পাগলামি বা পাগলের অবস্থাও হচ্ছে মনের একটি অস্বাভাবিক অবস্থা। মনে রাখতে হবে মনের অসুখ হওয়া মানেই পাগল হয়ে যাওয়া নয়, বরং অনেক ধরনের মানসিক রোগের মধ্যে পাগলামি হচ্ছে এক ধরনের মানসিক রোগ।

যদিও আজকাল আমরা পাগল বা পাগলামি শব্দটি ব্যবহার করি না, তার পরিবর্তে আমরা বলি জটিল বা গুরুতর মানসিক রোগ যা আবার বিভিন্ন ধরনের হয়। মনের চিকিৎসক মানেই শুধু পাগলের চিকিৎসক নয়।

সহজ করে বোঝার সুবিধার্থে আমরা মানসিক রোগগুলোকে প্রধানত দু’ভাগে ভাগ করি। সাইকোসিস (Psychosis) বা Major Psychiatric disorder বা জটিল ও গুরুতর মানসিক ব্যাধি এবং নিউরোসিস (Neurosis) বা Minor Psychiatric disorder বা লঘু মানসিক ব্যাধি।

জটিল ও গুরুতর মানসিক ব্যাধিগুলোর মধ্যে রয়েছে সিজোফ্রেনিয়া, বাইপোলার মুড ডিসঅর্ডার, ডিলিউশনাল ডিসঅর্ডারসহ আরও অনেক জটিল মানসিক রোগ।

লঘু মানসিক ব্যাধিগুলোর মধ্যে রয়েছে Depressive disorder বা বিষণ্ণতা, Obsessive compulsive disorder বা শুচিবায়ু, Anxiety disorder বা অতিরিক্ত উদ্বেগ জনিত রোগ, Phobia বা অহেতুক ভীতি, Panic disorder বা হঠাৎ আতঙ্কিত হওয়া, Somatic Symptom disorder বা মানসিক সমস্যার শারীরিক প্রকাশ, যে কোনো ধরনের Addiction বা নেশা (Drug addiction, Internet addiction ইত্যাদি), Personality disorder বা ব্যক্তিত্বের সমস্যা, Relational problem বা সম্পর্কজনিত সমস্যাসহ আরও বহুবিধ লঘু মানসিক রোগ।

এছাড়াও রয়েছে মানসিক বা বুদ্ধি প্রতিবন্ধিতা, অটিজম, Conduct disorder বা আচরণগত সমস্যা, অতিরিক্ত চঞ্চলতা এবং অমনোযোগিতা (ADHD)সহ বাচ্চাদের নানাবিধ মানসিক সমস্যা।

এ ক্ষুদ্র পরিসরে সব মানসিক রোগের নাম এবং তাদের লক্ষণ-কারণ সম্বন্ধে আলোচনা আসলে সম্ভব নয়। তবে ভবিষ্যতে পর্যায়ক্রমে এগুলো সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনার পরিকল্পনা রইল।

এ ধরনের সব মানসিক সমস্যার চিকিৎসা করেন একজন সাইকিয়াট্রিস্ট। তাই সাইকিয়াট্রিস্ট মানেই পাগলের ডাক্তার এ ধরনের অমূলক বিশ্বাস থেকে আমাদের বেরিয়ে আসতে হবে।

সর্বশেষ পরিসংখ্যান অনুযায়ী আমাদের দেশে প্রাপ্তবয়স্কদের মধ্যে শতকরা ১৬.১ ভাগ মানুষ কোনো না কোনো মানসিক সমস্যায় ভুগছে যার মধ্যে মাত্র ১% হল জটিল মানসিক রোগী। বাকিরা লঘু বা Minor psychiatric disorder-এ ভুগছে।

শিশুকিশোরদের মধ্যে মানসিক রোগের প্রকোপ হচ্ছে ১৮.৪% শারীরিক সমস্যা বা অসুখে যেমন আমাদের দৈনন্দিন স্বাভাবিক কাজকর্ম ব্যাহত হয়, তেমনি মানসিক সমস্যাও আমাদের দৈনন্দিন স্বাভাবিক কাজ কর্মকে বাধাগ্রস্ত করে। তাই এর জন্য চিকিৎসা প্রয়োজন।

সুস্থ স্বাভাবিক জীবনযাপনের জন্য শারীরিক সুস্থতার পাশাপাশি প্রয়োজন মানসিক সুস্থতা। মনের অসুখ নিয়ে কখনও সুস্থ জীবনযাপন সম্ভব নয়। আর মনের অসুখ মানেই পাগল নয়। তাই মনের যে কোনো সমস্যা যা আপনার স্বাভাবিক জীবনধারাকে ব্যাহত করে তার চিকিৎসা করুন- সুস্থ, সুন্দর জীবন উপভোগ করুন।

লেখক : সহকারী অধ্যাপক, ডিপার্টমেন্ট অফ সাইকিয়াট্রি, শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, শেরেবাংলা নগর, ঢাকা

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter