মানুষের প্রবল ইচ্ছা শক্তিই সাফল্য এনে দেয় : গীতা গোপীনাথ

  সাব্বিন হাসান ২১ জানুয়ারি ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

নতুন বছরের প্রথম দিনেই গীতা নামটি বিশ্বের অর্থনৈতিক মহলে আলোচনার শীর্ষে উঠে আসে। পুরো নাম গীতা গোপীনাথ। জন্ম ৮ ডিসেম্বর ১৯৭১, কলকাতা শহরে। তিনি ‘ইন্টারন্যাশনাল ফিন্যান্স অ্যান্ড মাইক্রোফাইন্যান্স’ নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে গবেষণা করে আসছেন। ইউনিভার্সিটি অব দিল্লির অধিভুক্ত লেডি শ্রী রাম কলেজ ফর ওমেন থেকে ১৯৯২ সালে বিএ ডিগ্রি অর্জন করেন তিনি। এরপর দিল্লি স্কুল অব ইকোনমিক্স থেকে ১৯৯৪ সালে এমএ ডিগ্রি অর্জন করেন। ১৯৯৬ সালে ইউনিভার্সিটি অব ওয়াশিংটন থেকে এমএ করেন। গীতার স্বামী ইকবাল সিং। তিনি ম্যাচাটুয়েস ইন্সটিটিউট অব টেকনোলজির আবদুল লতিফ জামিল প্রোভার্টি একশন ল্যাবের নির্বাহী পরিচালক। গীতার একমাত্র সন্তান রোহিল। তার বাবা টিভি গোপীনাথ পেশায় একজন কৃষক। মা পিসি বিজয়লক্ষ্মী গৃহবধূ। পরিবারে দুই বোনের মধ্যে গীতাই বড়।

আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলে (আইএমএফ) প্রধান অর্থনীতিবিদ পদে প্রথমবার কোনো নারীকে নিয়োগ দেয়া হয়েছে। নতুন বছরের প্রথম দিনেই এ ঘোষণা আসে। ভারতীয় বংশোদ্ভূত ওই মার্কিন অর্থনীতিবিদের নাম গীতা গোপীনাথ। তিনি অর্থনীতিবিদ মরিস অবসফেল্ডের স্থলাভিষিক্ত হন। সবশেষ গীতা গোপিনাথ হার্ভার্ড ইউনিভার্সিটিতে অধ্যাপক হিসেবে দায়িত্ব পালন করছিলেন। ‘বিনিময় হার’ নিয়ে কাজ করে বিশ্বজুড়ে সুনাম কুড়িয়েছেন গীতা।

ভারতে বেড়ে ওঠেন গীতা। ২০০১ সালে প্রিন্সটন ইউনিভার্সিটি থেকে পিএইচডি করে শিকাগো ইউনিভার্সিটিতে সহযোগী অধ্যাপক হিসেবে যোগ দেন তিনি। এরপর ২০০৫ সালে গীতা হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয়ে যোগ দেন। ভারতে বহুল আলোচিত নোটবন্দির পর নরেন্দ্র মোদি সরকারের তীব্র সমালোচনা করে বেশ আলোচনায় চলে আসেন তিনি। সেই ভারতীয় কন্যা গীতা গোপীনাথই বসলেন আন্তর্জাতিক অর্থ ভাণ্ডার বা আইএমএফ-এর প্রধান পদে। বিশ্বের ইতিহাসে প্রথম নারী হিসেবে এ গুরুত্বপূর্ণ পদে বসার কৃতিত্ব অর্জন করলেন গীতা। শুধু তাই নয়, রিজার্ভ ব্যাংকের সাবেক গর্ভনর রঘুরাম রাজনের পর গীতাই ভারতীয় হিসেবে এ পদ অলঙ্করণ করলেন। গত ১ জানুয়ারি আইএমএফ কর্তৃপক্ষ আনুষ্ঠানিকভাবে প্রতিষ্ঠানটির প্রধান অর্থনীতিবিদ হিসেবে গীতার নাম ঘোষণা করে।

গীতার জন্ম মহিশুরে। সেখানে কিছুদিন লেখাপড়া করেই চলে আসেন দিল্লি শহরে। পরে পাড়ি জমান যুক্তরাষ্ট্রে। প্রসঙ্গত, আইএমএফের প্রধান হিসেবে দায়িত্ব নেয়ার পর থেকেই বড় বড় দায়িত্বে নারীদের নিয়ে আসতে কাজ করছিলেন ক্রিস্টিন লাগার্দে। তিনিই আইএমএফ প্রধান অর্থনীতিবিদ হিসেবে গীতা গোপীনাথের নাম ঘোষণা করে তার ভূয়সী প্রশংসা করেন। গীতাকে অসাধারণ অর্থনীতিবিদ হিসেবে ব্যাখ্যা করেছেন লাগার্দে। গীতার নিয়োগের পরে আইএমএফ, বিশ্বব্যাংক এবং অর্গানাইজেশন ফর কো-অপারেশন ডেভেলপমেন্ট (ওইসিডি) তিন প্রতিষ্ঠানেরই মুখ্য অর্থনীতিবিদ হচ্ছেন একজন নারী।

হার্ভার্ডের ইতিহাসে গীতা হচ্ছেন তৃতীয় নারী, যিনি অর্থনীতি বিভাগের চুক্তিভিত্তিক অধ্যাপক। হার্ভার্ডে ভারতীয় নোবেলজয়ী অর্থনীতিবিদ অমর্ত্য সেনের পর এ ধরনের চুক্তিভিত্তিক নিয়োগ পাওয়া গীতাই প্রথম ভারতীয়। শুধু শিক্ষকতা নয়, জি-২০ এর অর্থ মন্ত্রণালয়ের পরামর্শদাতা কমিটির সদস্য ছিলেন গীতা। তিনি কেরালার পিনারাই বিজয়ন সরকারের আর্থিক উপদেষ্টা হিসেবেও কাজ করেছেন। ২০১৪ সালে বিশ্বের ৪৫ বছরের কম বয়সী ২৫ জন প্রথম সারির অর্থনীতিবিদ হিসেবে আইএমএফের স্বীকৃতি পান গীতা।

এদিকে গীতা গোপীনাথকে অভিনন্দন জানিয়ে আইএমএফ প্রধান ক্রিস্টিন লাগার্দে বলেছেন, গীতা একজন দারুণ অর্থনীতিবিদ। তার নেতৃত্ব বুদ্ধিদীপ্ত। আন্তর্জাতিক পরিসরে অর্থনীতি বিষয়ে অভিজ্ঞ। আইএমএফ প্রধান অর্থনীতিবিদ হিসেবে এমন একজন মনোনীত হওয়ায় আমি খুবই উচ্ছ্বসিত।

জীবনের কঠিন সব পরিস্থিতির মুখোমুখি হয়েই বেড়ে উঠেছেন তিনি। লেখাপড়ার প্রতি অদম্য আগ্রহ ছিল তার। অর্থনীতি তাকে দারুণ টানত। বিনিয়োগ নিয়ে দারুণ কৌশলী পরামর্শ দিতেন তিনি। বৈশ্বিক অর্থনীতি নিয়ে গবেষণা করেছেন দীর্ঘ সময় ধরে। জীবনে থেমে থাকেননি। জীবন মানেই শুধুই চলতে থাকা। আর তা যেন হয় অবিরাম। নিরন্তন ছুটে চলার নামই জীবন। মিষ্টভাষী গীতা সহকর্মীদের কাছে যেমন প্রিয় পারিবারিক আবহেও সবার সঙ্গে মিলেমিশে থাকতেই পছন্দ করেন তিনি। বিশ্ব অর্থনীতিতে গীতা দারুণ এক প্রেরণার নাম। একটি বাস্তবতার নাম। নারীদের জন্য প্রেরণার প্রতীক।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×