নারীর প্রতি দৃষ্টিভঙ্গির কোনো পরিবর্তন হয়নি : ড. গোলাম মুরশিদ

  সুরঞ্জনা ডেস্ক ১২ ফেব্রুয়ারি ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

আমরা দুটি আলোর মশাল দেখতে পাই। একটি মশালে দেশের অর্থনীতির ব্যাপক উন্নতি এবং আরেকটি মশালে নারী অন্দোলনের সামনের দিকে এগিয়ে চলা। এরই ফলস্বরূপ নারীরা দেশের গুরুত্বপূর্ণ জায়গাগুলোতে কাজ করছ্। বাংলাদেশে নারীর ক্ষমতায়ন হয়েছে কিন্তু নারীর প্রতি পুরুষতান্ত্রিক দৃষ্টিভঙ্গির কোনো পরিবর্তন হয়নি। কাজেই নারীর যে ক্ষতায়ন হয়েছে তা আংশিক ক্ষমতায়ন। ধর্মের দোহাই দিয়ে, সামাজিক, পারিবারিক সংস্কৃতি বিভিন্ন দোহাই দিয়ে নারীকে আটকে রাখা হচ্ছে। এই বলয় ভেঙে নারীদের এগিয়ে আসতে হবে। নারীদের নিজের অধিকারের কথা চিৎকার করে বলতে হবে তাহলে নারী এগিয়ে যেতে পারবে। বাংলাদেশ মহিলা পরিষদের দু’দিন ব্যাপী জাতীয় পরিষদ সভার উদ্বোধনী অধিবেশনে বিশেষ অতিথির বক্তব্যে বিশিষ্ট লেখক, সাংবাদিক ও গবেষক ড. গোলাম মুরশিদ এ কথা বলেন।

“একুশ শতকের চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করি, শক্তিশালী নারী সংগঠন ও নারী আন্দোলন গড়ে তুলি’’ এই শ্লোগানকে সামনে রেখে ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশন মিলনায়তনে এই সভার আয়োজন করে।

সংগঠনের সভাপতি আয়শা খানম বলেন, যুগ যুগ ধরে নারীদের যে উত্থান, অগ্রগতি আমরা দেখতে পাচ্ছি তা বাংলাদেশের নারী আন্দোলনের অর্জন। নারীরা আজ সমস্ত পেশায় এগিয়ে এসেছে। কিন্তু নারীর প্রতি সহিংসতাও ক্রমাগত চলছে। নারীর প্রতি সহিংসতা কেন হচ্ছে, নারীর অধস্তনতার পিছনে, কোন আইন, কোন সামাজিক দর্শন কাজ করছে সে বিষয়ে মহিলা পরিষদ জানার চেষ্টা করে। নারীর প্রকৃত ক্ষমতায়ন হবে, নারী পূর্ণ অধিকার নিয়ে, ব্যক্তি অধিকার নিয়ে সমাজে প্রতিষ্ঠিত হতে পারবে সেই লক্ষ্যে কাজ করছি। সার্বজনীন মানবাধিকার নীতিমালার আলোকে অভিন্ন পারিবারিক নীতিমালা সরকারের কাছে পেশ করেছি। সমাজ কাঠামোগতভাবে নারীকে অবদমন করে রাখার জন্য যে কৌশল অবলম্বন করছে সে বলয় ভাঙ্গার জন্য সমাজ, সরকার ও রাষ্ট্রকে ক্রমাগত নাড়া দেয়া হচ্ছে। নারীর উন্নয়নের জন্য আত্ম পর্যালোচনা ও আত্ম প্রশিক্ষণ অনেক জরুরি। ২০১৬ হতে ২০১৭ তে নারী এবং মেয়েশিশুদের ওপর সহিংসতার মাত্রা বেড়ে গেছে কয়েকগুণ। একই সাথে সুকৌশলে পাঠসূচির যে বিবর্তন হচ্ছে তা আমাদের প্রত্যাশা ছিল না। নারীর জন্য সরাসরি নির্বাচনের ব্যবস্থা করা সেই বিষয়গুলো এখনো বাস্তবায়িত হয়নি। নারী আজ চ্যালেঞ্জ মোকবেলা করছে গন্ডি ভেঙ্গে সামনের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে।

স্বাগত বক্তব্যে সাধারণ সম্পাদক মালেকা বানু বলেন, বিশ্ব যখন অতি ধীরে ক্রমশ অর্থনৈতিক মন্দার ধাক্কা কাটিয়ে উঠতে শুরু করেছে তখন পূর্ব এবং দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে বাংলাদেশেও অর্থনৈতিক ক্ষেত্রে ইতিবাচক অগ্রগতি দেখা যাচ্ছে। ২০২১ সালের মধ্যে মধ্যম আয়ের দেশে পরিণত হওয়ার লক্ষ্যে পরিকল্পিতভাবে দেশ অগ্রসর হচ্ছে। যেখানে নারীর অবদান উল্লেখযোগ্য। অর্থনৈতিক সামাজিক সূচকে অন্তর্ভুক্তিমূলক উন্নয়নের মাধ্যমে দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার ক্ষেত্রে নারী আন্দোলন, মানবাধিকার আন্দোলন তার প্রচেষ্টা অব্যাহত রেখেছে।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter