যৌন ও প্রজনন স্বাস্থ্য ও অধিকারকে গুরুত্ব দেয়া হয়

  রীতা ভৌমিক ০৫ আগস্ট ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

সম্প্রতি রাজধানীর কৃষিবিদ ইন্সটিটিউশন বাংলাদেশের মিলনায়তনে নারীপক্ষ আয়োজিত ‘বাংলাদেশে যৌন ও প্রজনন স্বাস্থ্য ও অধিকারবিষয়ক অগ্রগতি, আইসিপিডি+২৫’ শীর্ষক মতবিনিময়সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে পরিবার পরিকল্পনা অধিদফতরের লাইন ডাইরেক্টর ডা. মঈনুদ্দিন বলেন, এক সন্তান জন্মের পর দম্পতি দু’বছর পরিবার পরিকল্পনা পদ্ধতি ব্যবহার করলে মাতৃমৃত্যু হার কমানো সম্ভব। তিন বছর পরিবার পরিকল্পনা পদ্ধতি ব্যবহার করলে শিশু মৃত্যু হার কমানো সম্ভব। দেশের ৬৪টি জেলায় প্রসব পরবর্তী স্বাস্থ্যসেবা প্রদান করা হয়। প্রসব পরবর্তী পরিবার পরিকল্পনা পদ্ধতির ৯৫ শতাংশ চাহিদা রয়েছে। তাদের মধ্যে ৪৮ শতাংশ পরিবার পরিকল্পনা পদ্ধতি ব্যবহার করে। এর ফলে অনাকাঙ্ক্ষিত গর্ভবতী হয় ২.৮ মিলিয়ন। অনাকাঙ্ক্ষিত গর্ভধারণের জন্য মা ও শিশু স্বাস্থ্য ঝুঁকির মধ্যে পড়ে। ১৬ লাখ এম আর করে।

‘প্রসবোত্তর পরিবার পরিকল্পনাবিষয়ক গবেষণা’ শীর্ষক প্রতিবেদন উপস্থাপনে নারীপক্ষের সদস্য সামিয়া আফরীন বলেন, ১৯৯৪ সালে আইসিপিডি সম্মেলনে যৌন ও প্রজনন স্বাস্থ্য ও অধিকারকে গুরুত্ব দেয়া হয়। এই সম্মেলনে অংশগ্রহণরত রাষ্ট্রগুলোর মধ্যে বাংলাদেশও দম্পত্তি ও ব্যক্তির প্রজনন স্বাস্থ্য বিষয়ে সহায়তা প্রদান, অপরিকল্পিত গর্ভধারণ রোধ, ঝুঁকিপূর্ণ গর্ভধারণ কমানো, প্রসূতির রোগ-ভোগ ও মৃত্যুর হার কমানো, স্বল্পমূল্য, সহজপ্রাপ্য এবং গ্রহণীয় মানসম্মত পরিবার পরিকল্পনা সেবা প্রদান ও মানসম্মত পরামর্শ, শিক্ষামূলক তথ্য প্রদানে অঙ্গীকার করে। ২০২০ সালের মধ্যে প্রসবোত্তর পরিবার পরিকল্পনা সেবার মান উন্নয়নে সরকারের গৃহীত পদক্ষেপের মধ্যে ইমপ্লান্ট সহজলভ্য এবং সহজপ্রাপ্য করা হবে।

বেসরকারি সংস্থা ব্র্যাকের স্বাস্থ্য এবং পুষ্টি বিভাগের অ্যাসিস্টেন্ট অ্যাসোসিয়েট মোর্শেদা চৌধুরীর মতে, প্রসবোত্তর পরিবার পরিকল্পনা পদ্ধতি যারা নিচ্ছেন এবং যারা পরিবার পরিকল্পনা পদ্ধতি কেন নিচ্ছেন না এর কারণও জানতে হবে। নারীপক্ষের প্রকল্প সমন্বয়কারী ও সদস্য ড. ফজিলা বানু লিলির সঞ্চালনায় বক্তব্য দেন নিপোর্টের সাবেক পরিচালক ড. আহমেদ আল সাবির, পরিবার পরিকল্পনা অধিদফতরের প্রোগ্রাম ম্যানেজার ডা. নুরুন নাহার বেগম। প্রধান অতিথিসহ আলোচকবৃন্দ ‘প্রসবোত্তর পরিবার পরিকল্পনাবিষয়ক গবেষণা’ শীর্ষক প্রতিবেদনের মোড়ক উন্মোচন করেন।

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×