বিশ্বসেরা সাত নারী চিন্তাবিদ
jugantor
বিশ্বসেরা সাত নারী চিন্তাবিদ
ব্রিটেনের সাময়িকী প্রসপেক্টাস ৫০ বিশ্বসেরা চিন্তাবিদের তালিকা প্রকাশ করেছে। লিখেছেন-

  রীতা ভৌমিক  

২১ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

হিলারি ম্যানটেল, এস্তের ডুফলো, সারাহ গিলবার্ট

কে কে সাইলাজা

কেরালা স্বাস্থ্যমন্ত্রী

বিশ্বের সেরা ১০ চিন্তাবিদের মধ্যে শীর্ষস্থানে রয়েছেন ভারতের কেরালার স্বাস্থ্যমন্ত্রী কে কে সাইলাজা। তিনি সাইলাজা টিচার হিসেবে বেশি পরিচিত। ভারতের গণ্ডি পেরিয়ে তিনি আন্তর্জাতিকভাবেও ব্যাপক প্রশংসিত। করোনা মোকাবেলায় ভারতের কেরালা এখন বিশ্বে মডেল হিসেবে পরিণত হয়েছে। জানুয়ারির শুরুতে কেরালায় তিন ছাত্রের করোনাভাইরাস সংক্রমণ চিহ্নিত হয়। ওই তিন ছাত্রই চীনের হুবেই প্রদেশের উহানে পড়াশোনা করতে গিয়েছিলেন। সঙ্গে সঙ্গেই চীন থেকে আগত ব্যক্তিদের বাধ্যতামূলক কোয়ারেন্টিনে নিয়ে যাওয়ার ব্যবস্থা করেন তিনি। কেন্দ্রীয় সরকারের আগেই সাইলাজার নেতৃত্বে করোনা মোকাবেলায় সাফল্য অর্জন করেছে কেরালা রাজ্য। এর আগে নিপা এবং জিকা ভাইরাসকেও সফলভাবে আটকাতে পেরেছিল কেরালা সরকার। প্রচুর পরিমাণে পরীক্ষা, সংক্রমিত এবং তার যোগাযোগের ব্যক্তিদের খুঁজে বের করা, দীর্ঘ কোয়ারেন্টিন এবং পরিযায়ী শ্রমিকদের জন্য অস্থায়ী বাসস্থান ইত্যাদি পদক্ষেপ সঠিক সময়ে সঠিকভাবে করেছে রাজ্যটি। যার পেছনে রয়েছে কেরালার স্বাস্থ্যমন্ত্রী কে কে সাইলাজা।

জাসিন্ডা আরডার্ন

প্রধানমন্ত্রী, নিউজিল্যান্ড

বিশ্বের সেরা ১০ চিন্তাবিদের মধ্যে জাসিন্ডা আরর্ডান দ্বিতীয়। পুরো নাম জাসিন্ডা কেট লরেল আরডার্ন। নিউজিল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী থেকে তিনি এখন পরিণত হয়েছেন বিশ্বকে শান্তির পথে নেতৃত্ব দেয়ার দূত হিসেবে। মসজিদে সন্ত্রাসী হামলার পর যে মানুষটি সবচেয়ে বেশি আলোচনায় এসেছেন তিনি নিউজিল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী জাসিন্ডা আরডার্ন। গোটা বিশ্বে শান্তির পথে নেতৃত্ব দেয়ার দূত হিসেবে আলোচিত হচ্ছেন জাসিন্ডা অরডার্ন। জাসিন্ডা ২০১৭ সালের ২৬ অক্টোবর থেকে নিউজিল্যান্ডের ৪০তম এবং প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করছেন। এ ছাড়াও তিনি ২০১৭ সালের ১ আগস্ট থেকে নিউজিল্যান্ড লেবার পার্টির সভাপতির দায়িত্বও পালন করছেন। ২০০১ সালে ওয়াইকাটো বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতক সম্পন্ন করে আরডার্ন তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী হেলেন ক্লার্কের দফতরে গবেষক হিসেবে যোগদান করেন। তিনি পরবর্তীকালে যুক্তরাজ্যে ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী টনি ব্লেয়ারের নীতিনির্ধারণী উপদেষ্টা হিসেবেও কাজ করেছেন।

মেরিনা তাবাসসুম

স্থপতি

বিশ্বের সেরা ১০ চিন্তাবিদের মধ্যে মেরিনা তাবাসসুম তৃতীয়। তিনি বাংলাদেশের প্রাকৃতিক পরিবেশের সঙ্গে মিল রেখে ভবন নির্মাণ এবং পরিবেশের দ্বারা উদ্ভূত চ্যালেঞ্জগুলো গ্রহণ করে নকশা তৈরিতে অবদান রেখেছেন। তার নকশা করা স্থানীয় উপকরণের হালকা ওজনের বাড়িগুলো স্টিলের ওপর দাঁড়িয়ে থাকতে সক্ষম এবং পানির মাত্রা বেড়ে গেলে সেগুলো সরান যায়। বিষয়গুলো আন্তর্জাতিকভাবে ভূয়সী প্রশংসা কুড়িয়েছে। টেরাকোটা ইট দিয়ে নির্মিত রাজধানীর বায়তুর রউফ মসজিদের নকশা করেছেন মেরিনা। মসজিদটির নকশা করে ২০১৬ সালে স্থাপত্যে আগা খান পুরস্কারও পেয়েছেন এ স্থপতি। কাজের স্বীকৃতিস্বরূপ ব্রিটিশ সাময়িকী প্রসপেক্টাসের বিশ্বসেরা ৫০ চিন্তাবিদের তালিকায় স্থান করে নিয়েছেন বাংলাদেশি স্থপতি মেরিনা তাবাসসুম।

হিলারি ম্যানটেল

ঔপন্যাসিক

সাহিত্যিক হিলারি ম্যানটেলের লেখা বই ‘উল্ফ হল’ ২০০৯ সালে প্রকাশিত হয়। এ বইয়ের জন্য তিনি ম্যান বুকার পুরস্কার লাভ করেন। সাহিত্যিক হিলারি মারি ম্যানটেল সেলসম্যান হিসেবে কর্মজীবন শুরু করেন। তিনি একাধারে ঔপন্যাসিক, ছোট গল্প লেখিকা, প্রাবন্ধিক ও সাহিত্য সমালোচক হিসেবে পরিচিত। তার সাহিত্যকর্মগুলো ব্যক্তিগত স্মৃতিচারণমূলক গ্রন্থ থেকে শুরু করে ঐতিহাসিক উপন্যাস পর্যন্ত বিস্তৃত। বিশ্বসেরা চিন্তাবিদের তালিকায় এর আগেও ছিলেন তিনি। এবারও তিনি তালিকায় রয়েছেন। বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়া শেষ করার পরে ম্যানটেল গেরিয়্যাটিক হাসপাতালে সমাজকর্ম বিভাগে কাজ করেন। এরপর তিনি একটি ডিপার্টমেন্টাল স্টোরে বিক্রয় সহকারী হিসেবেও কাজ করেন। ১৯৭৪ সালে তিনি ফরাসি বিপ্লব নিয়ে একটি উপন্যাস লেখা শুরু করেন, যা পরবর্তী সময়ে ‘এ প্লেস অব গ্রেটার সেফটি’ নামে প্রকাশিত হয়। ইংল্যান্ড এবং যুক্তরাষ্ট্রে তিনি বেশ কিছু পত্রিকা ম্যাগাজিনে সমালোচক হিসেবেও কাজ করছেন। সমাজের নানা বিষয় উঠে এসেছে তার লেখায়।

সারাহ গিলবার্ট

বিজ্ঞানী

বিজ্ঞানী সারাহ গিলবার্ট। কোভিড-১৯-এর মহামারীকালীন সময়ে জোর দিয়ে বিশ্বকে জানিয়েছিলেন, ‘সুখবর’ দেবেনই। এখন তার জয়ের হাসিটুকু দেখার অপেক্ষায় মুখিয়ে গোটা বিশ্ব। কারণ কোভিড-১৯ নিরসনের ভ্যাকসিনের খোঁজে পৃথিবী যখন তোলপাড় তখন সর্বপ্রথম ‘সুখবর’ দেন এই সারাহ গিলবার্টই। তিনি বলেছিলেন, সেপ্টেম্বরের মধ্যেই কোভিড-১৯-এর ভ্যাকসিন আনবেন। লন্ডনের জেনার ইন্সটিটিউট ও অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের যৌথ উদ্যোগে তৈরি করা হচ্ছে নভেল করোনাভাইরাসের ভ্যাকসিন। এ গবেষণার পুরোভাগে রয়েছেন সারাহ গিলবার্ট। এর আগেও ইনফ্লুয়েঞ্জাসহ একাধিক ভাইরাল প্যাথোজেনের প্রতিষেধক তৈরির কাজ করেছেন তিনি। ইবোলার ভ্যাকসিন তৈরিতেও নেতৃত্ব দিয়েছেন তিনি। স্বাভাবিকভাবে এবারও তার সাফল্যের আশায় পুরো বিশ্ব। ১৯৯৪ সাল থেকে তিনি কাজ করছেন অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ে। তবে ভ্যাকসিনোলজিস্ট হওয়ার কোনো পরিকল্পনা ছিল না। বিশ্বসেরা চিন্তাবিদের তালিকায় তিনি জায়গা করে নিয়েছেন।

গ্রিটা গারউইগ

চলচ্চিত্র নির্মাতা

বহুমুখী প্রতিভার অধিকারী গ্রিটা গারউইগ। পুরো নাম গ্রেটা সেলেস্ট গারউইগ। বিশ্বসেরা চিন্তাবিদদের তালিকায় রয়েছেন তিনিও। তিনি একজন মার্কিন অভিনেত্রী, লেখক, পরিচালক ও চিত্রনাট্যকার। জীবনের প্রতিটি ক্ষেত্রেই সফল তিনি। কর্মজীবনের শুরুতে স্বল্প বাজেটের কয়েকটি চলচ্চিত্রে কাজ করে পরিচিতি লাভ করেন। ২০০৬ থেকে ২০০৯ সালের মধ্যে তিনি জো সোয়ানবার্গের কয়েকটি চলচ্চিত্রে কাজ করেন। কয়েকটিতে তিনি সহ-রচনা ও সহ-পরিচালনা করেন। ২০১৭ সালে ‘লেডি বার্ড’ চলচ্চিত্র দিয়ে গ্রিটা গারউইগের একক পরিচালক হিসেবে অভিষেক হয়। ছবিটি সমাদৃত হয়। ৭৫তম গোল্ডেন গ্লোব পুরস্কারে সেরা সঙ্গীতধর্মী বা হাস্যরসাত্মক চলচ্চিত্র বিভাগে পুরস্কার লাভ করে। ‘লেডি বার্ড’ ছবিতে শ্রেষ্ঠ চিত্রনাট্যের জন্য তিনি গোল্ডেন গ্লোব পুরস্কারের মনোনয়ন লাভ করেন। অর্জন করেন একাডেমি অ্যাওয়ার্ডও। গারউইগ অস্কারের ইতিহাসে শ্রেষ্ঠ পরিচালনা বিভাগে মনোনীত পঞ্চম নারী।

এস্তের ডুফলো

অর্থনীতিবিদ

ফরাসি অর্থনীতিবিদ এস্তের ডুফলো ২০১৯ সালে অর্থনীতিতে নোবেল পেয়েছেন। নোবেল পুরস্কারের ইতিহাসে তিনি সর্বকনিষ্ঠ অর্থনীতিবিদ। তার স্বামী ভারতীয় বংশোদ্ভূত মার্কিন অর্থনীতিবিদ অভিজিৎ বন্দ্যোপাধ্যায় যৌথভাবে নোবেল পুরস্কার অর্জন করেন। পুরস্কার ঘোষণার পর তিনি বলেছেন, দরিদ্র মানুষের জীবনমান উন্নয়নে দারিদ্র্যের বিরুদ্ধে তার লড়াইয়ের শব্দের তীব্রতা আরও বহুগুণ বাড়িয়ে দেবে। এ বছর তিনি বিশ্বসেরা চিন্তাবিদের তালিকায় রয়েছেন। তিনি ম্যাসাচুসেটস ইন্সটিটিউট অব টেকনোলজিতে দারিদ্র্য বিমোচন ও উন্নয়ন অর্থনীতির অধ্যাপক।

বিশ্বসেরা সাত নারী চিন্তাবিদ

ব্রিটেনের সাময়িকী প্রসপেক্টাস ৫০ বিশ্বসেরা চিন্তাবিদের তালিকা প্রকাশ করেছে। লিখেছেন-
 রীতা ভৌমিক 
২১ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ
হিলারি ম্যানটেল, এস্তের ডুফলো, সারাহ গিলবার্ট
হিলারি ম্যানটেল, এস্তের ডুফলো, সারাহ গিলবার্ট (বাঁ থেকে)

কে কে সাইলাজা

কেরালা স্বাস্থ্যমন্ত্রী

বিশ্বের সেরা ১০ চিন্তাবিদের মধ্যে শীর্ষস্থানে রয়েছেন ভারতের কেরালার স্বাস্থ্যমন্ত্রী কে কে সাইলাজা। তিনি সাইলাজা টিচার হিসেবে বেশি পরিচিত। ভারতের গণ্ডি পেরিয়ে তিনি আন্তর্জাতিকভাবেও ব্যাপক প্রশংসিত। করোনা মোকাবেলায় ভারতের কেরালা এখন বিশ্বে মডেল হিসেবে পরিণত হয়েছে। জানুয়ারির শুরুতে কেরালায় তিন ছাত্রের করোনাভাইরাস সংক্রমণ চিহ্নিত হয়। ওই তিন ছাত্রই চীনের হুবেই প্রদেশের উহানে পড়াশোনা করতে গিয়েছিলেন। সঙ্গে সঙ্গেই চীন থেকে আগত ব্যক্তিদের বাধ্যতামূলক কোয়ারেন্টিনে নিয়ে যাওয়ার ব্যবস্থা করেন তিনি। কেন্দ্রীয় সরকারের আগেই সাইলাজার নেতৃত্বে করোনা মোকাবেলায় সাফল্য অর্জন করেছে কেরালা রাজ্য। এর আগে নিপা এবং জিকা ভাইরাসকেও সফলভাবে আটকাতে পেরেছিল কেরালা সরকার। প্রচুর পরিমাণে পরীক্ষা, সংক্রমিত এবং তার যোগাযোগের ব্যক্তিদের খুঁজে বের করা, দীর্ঘ কোয়ারেন্টিন এবং পরিযায়ী শ্রমিকদের জন্য অস্থায়ী বাসস্থান ইত্যাদি পদক্ষেপ সঠিক সময়ে সঠিকভাবে করেছে রাজ্যটি। যার পেছনে রয়েছে কেরালার স্বাস্থ্যমন্ত্রী কে কে সাইলাজা।

জাসিন্ডা আরডার্ন

প্রধানমন্ত্রী, নিউজিল্যান্ড

বিশ্বের সেরা ১০ চিন্তাবিদের মধ্যে জাসিন্ডা আরর্ডান দ্বিতীয়। পুরো নাম জাসিন্ডা কেট লরেল আরডার্ন। নিউজিল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী থেকে তিনি এখন পরিণত হয়েছেন বিশ্বকে শান্তির পথে নেতৃত্ব দেয়ার দূত হিসেবে। মসজিদে সন্ত্রাসী হামলার পর যে মানুষটি সবচেয়ে বেশি আলোচনায় এসেছেন তিনি নিউজিল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী জাসিন্ডা আরডার্ন। গোটা বিশ্বে শান্তির পথে নেতৃত্ব দেয়ার দূত হিসেবে আলোচিত হচ্ছেন জাসিন্ডা অরডার্ন। জাসিন্ডা ২০১৭ সালের ২৬ অক্টোবর থেকে নিউজিল্যান্ডের ৪০তম এবং প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করছেন। এ ছাড়াও তিনি ২০১৭ সালের ১ আগস্ট থেকে নিউজিল্যান্ড লেবার পার্টির সভাপতির দায়িত্বও পালন করছেন। ২০০১ সালে ওয়াইকাটো বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতক সম্পন্ন করে আরডার্ন তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী হেলেন ক্লার্কের দফতরে গবেষক হিসেবে যোগদান করেন। তিনি পরবর্তীকালে যুক্তরাজ্যে ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী টনি ব্লেয়ারের নীতিনির্ধারণী উপদেষ্টা হিসেবেও কাজ করেছেন।

মেরিনা তাবাসসুম

স্থপতি

বিশ্বের সেরা ১০ চিন্তাবিদের মধ্যে মেরিনা তাবাসসুম তৃতীয়। তিনি বাংলাদেশের প্রাকৃতিক পরিবেশের সঙ্গে মিল রেখে ভবন নির্মাণ এবং পরিবেশের দ্বারা উদ্ভূত চ্যালেঞ্জগুলো গ্রহণ করে নকশা তৈরিতে অবদান রেখেছেন। তার নকশা করা স্থানীয় উপকরণের হালকা ওজনের বাড়িগুলো স্টিলের ওপর দাঁড়িয়ে থাকতে সক্ষম এবং পানির মাত্রা বেড়ে গেলে সেগুলো সরান যায়। বিষয়গুলো আন্তর্জাতিকভাবে ভূয়সী প্রশংসা কুড়িয়েছে। টেরাকোটা ইট দিয়ে নির্মিত রাজধানীর বায়তুর রউফ মসজিদের নকশা করেছেন মেরিনা। মসজিদটির নকশা করে ২০১৬ সালে স্থাপত্যে আগা খান পুরস্কারও পেয়েছেন এ স্থপতি। কাজের স্বীকৃতিস্বরূপ ব্রিটিশ সাময়িকী প্রসপেক্টাসের বিশ্বসেরা ৫০ চিন্তাবিদের তালিকায় স্থান করে নিয়েছেন বাংলাদেশি স্থপতি মেরিনা তাবাসসুম।

হিলারি ম্যানটেল

ঔপন্যাসিক

সাহিত্যিক হিলারি ম্যানটেলের লেখা বই ‘উল্ফ হল’ ২০০৯ সালে প্রকাশিত হয়। এ বইয়ের জন্য তিনি ম্যান বুকার পুরস্কার লাভ করেন। সাহিত্যিক হিলারি মারি ম্যানটেল সেলসম্যান হিসেবে কর্মজীবন শুরু করেন। তিনি একাধারে ঔপন্যাসিক, ছোট গল্প লেখিকা, প্রাবন্ধিক ও সাহিত্য সমালোচক হিসেবে পরিচিত। তার সাহিত্যকর্মগুলো ব্যক্তিগত স্মৃতিচারণমূলক গ্রন্থ থেকে শুরু করে ঐতিহাসিক উপন্যাস পর্যন্ত বিস্তৃত। বিশ্বসেরা চিন্তাবিদের তালিকায় এর আগেও ছিলেন তিনি। এবারও তিনি তালিকায় রয়েছেন। বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়া শেষ করার পরে ম্যানটেল গেরিয়্যাটিক হাসপাতালে সমাজকর্ম বিভাগে কাজ করেন। এরপর তিনি একটি ডিপার্টমেন্টাল স্টোরে বিক্রয় সহকারী হিসেবেও কাজ করেন। ১৯৭৪ সালে তিনি ফরাসি বিপ্লব নিয়ে একটি উপন্যাস লেখা শুরু করেন, যা পরবর্তী সময়ে ‘এ প্লেস অব গ্রেটার সেফটি’ নামে প্রকাশিত হয়। ইংল্যান্ড এবং যুক্তরাষ্ট্রে তিনি বেশ কিছু পত্রিকা ম্যাগাজিনে সমালোচক হিসেবেও কাজ করছেন। সমাজের নানা বিষয় উঠে এসেছে তার লেখায়।

সারাহ গিলবার্ট

বিজ্ঞানী

বিজ্ঞানী সারাহ গিলবার্ট। কোভিড-১৯-এর মহামারীকালীন সময়ে জোর দিয়ে বিশ্বকে জানিয়েছিলেন, ‘সুখবর’ দেবেনই। এখন তার জয়ের হাসিটুকু দেখার অপেক্ষায় মুখিয়ে গোটা বিশ্ব। কারণ কোভিড-১৯ নিরসনের ভ্যাকসিনের খোঁজে পৃথিবী যখন তোলপাড় তখন সর্বপ্রথম ‘সুখবর’ দেন এই সারাহ গিলবার্টই। তিনি বলেছিলেন, সেপ্টেম্বরের মধ্যেই কোভিড-১৯-এর ভ্যাকসিন আনবেন। লন্ডনের জেনার ইন্সটিটিউট ও অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের যৌথ উদ্যোগে তৈরি করা হচ্ছে নভেল করোনাভাইরাসের ভ্যাকসিন। এ গবেষণার পুরোভাগে রয়েছেন সারাহ গিলবার্ট। এর আগেও ইনফ্লুয়েঞ্জাসহ একাধিক ভাইরাল প্যাথোজেনের প্রতিষেধক তৈরির কাজ করেছেন তিনি। ইবোলার ভ্যাকসিন তৈরিতেও নেতৃত্ব দিয়েছেন তিনি। স্বাভাবিকভাবে এবারও তার সাফল্যের আশায় পুরো বিশ্ব। ১৯৯৪ সাল থেকে তিনি কাজ করছেন অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ে। তবে ভ্যাকসিনোলজিস্ট হওয়ার কোনো পরিকল্পনা ছিল না। বিশ্বসেরা চিন্তাবিদের তালিকায় তিনি জায়গা করে নিয়েছেন।

 

গ্রিটা গারউইগ

চলচ্চিত্র নির্মাতা

বহুমুখী প্রতিভার অধিকারী গ্রিটা গারউইগ। পুরো নাম গ্রেটা সেলেস্ট গারউইগ। বিশ্বসেরা চিন্তাবিদদের তালিকায় রয়েছেন তিনিও। তিনি একজন মার্কিন অভিনেত্রী, লেখক, পরিচালক ও চিত্রনাট্যকার। জীবনের প্রতিটি ক্ষেত্রেই সফল তিনি। কর্মজীবনের শুরুতে স্বল্প বাজেটের কয়েকটি চলচ্চিত্রে কাজ করে পরিচিতি লাভ করেন। ২০০৬ থেকে ২০০৯ সালের মধ্যে তিনি জো সোয়ানবার্গের কয়েকটি চলচ্চিত্রে কাজ করেন। কয়েকটিতে তিনি সহ-রচনা ও সহ-পরিচালনা করেন। ২০১৭ সালে ‘লেডি বার্ড’ চলচ্চিত্র দিয়ে গ্রিটা গারউইগের একক পরিচালক হিসেবে অভিষেক হয়। ছবিটি সমাদৃত হয়। ৭৫তম গোল্ডেন গ্লোব পুরস্কারে সেরা সঙ্গীতধর্মী বা হাস্যরসাত্মক চলচ্চিত্র বিভাগে পুরস্কার লাভ করে। ‘লেডি বার্ড’ ছবিতে শ্রেষ্ঠ চিত্রনাট্যের জন্য তিনি গোল্ডেন গ্লোব পুরস্কারের মনোনয়ন লাভ করেন। অর্জন করেন একাডেমি অ্যাওয়ার্ডও। গারউইগ অস্কারের ইতিহাসে শ্রেষ্ঠ পরিচালনা বিভাগে মনোনীত পঞ্চম নারী।

 

এস্তের ডুফলো

অর্থনীতিবিদ

ফরাসি অর্থনীতিবিদ এস্তের ডুফলো ২০১৯ সালে অর্থনীতিতে নোবেল পেয়েছেন। নোবেল পুরস্কারের ইতিহাসে তিনি সর্বকনিষ্ঠ অর্থনীতিবিদ। তার স্বামী ভারতীয় বংশোদ্ভূত মার্কিন অর্থনীতিবিদ অভিজিৎ বন্দ্যোপাধ্যায় যৌথভাবে নোবেল পুরস্কার অর্জন করেন। পুরস্কার ঘোষণার পর তিনি বলেছেন, দরিদ্র মানুষের জীবনমান উন্নয়নে দারিদ্র্যের বিরুদ্ধে তার লড়াইয়ের শব্দের তীব্রতা আরও বহুগুণ বাড়িয়ে দেবে। এ বছর তিনি বিশ্বসেরা চিন্তাবিদের তালিকায় রয়েছেন। তিনি ম্যাসাচুসেটস ইন্সটিটিউট অব টেকনোলজিতে দারিদ্র্য বিমোচন ও উন্নয়ন অর্থনীতির অধ্যাপক।