মহামারির বিরুদ্ধে লড়াইয়ে সামনের সারিতে নারী
jugantor
মহামারির বিরুদ্ধে লড়াইয়ে সামনের সারিতে নারী

  শিল্পী নাগ  

০১ নভেম্বর ২০২১, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

নারী রাজনৈতিক-অর্থনৈতিক-সামাজিক-শিক্ষা বিভিন্ন ক্ষেত্রে অবদান রাখছেন। নারী তার শ্রমের মাধ্যমে অর্থনীতির বিভিন্ন ক্ষেত্রে অবদান রাখছেন। অর্থাৎ অর্থনৈতিক উন্নয়নে সহায়তা করছেন। বিশেষ করে পোশাকশিল্পের বিকাশে নারী পোশাক শ্রমিকদের অবদান অনস্বীকার্য। তবে পোশাকশিল্প ছাড়াও কৃষি কিংবা সেবা খাত, খামারবহির্ভূত কৃষি কিংবা ক্ষুদ্র ও কুটিরশিল্পের বিকাশে নারী শ্রমিকদের গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রয়েছে। অর্থনীতিতে নারীর ভূমিকার অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ উপাদান হচ্ছে গৃহস্থালি কাজের ক্ষেত্রে নারীর অবদান। যা কিনা অর্থনীতি কিংবা সামাজিক মানদণ্ডের বিচারেও অস্বীকৃত ও অপ্রদর্শিত। সাম্প্রতিক সময়ে গৃহস্থালি ও সেবাকাজে নারীর অবদানের বিষয়টিকে জাতীয় পর্যায়ে স্বীকৃতি দেওয়ার বিষয়টি আলোচনায় এসেছে। বাংলাদেশের আর্থসামাজিক প্রেক্ষাপটে এ জাতীয় কাজকে গুরুত্বহীন ও অর্থনৈতিকভাবে অর্থবহ হিসাবে কখনোই বিবেচনা করা হয়নি।

বাংলাদেশে নারীর ক্ষমতায়নের ওপর জোর দেওয়া হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী নিউইয়র্কে জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের সভাপতির আহ্বানে নারী নেতাদের এক উচ্চ পর্যায়ের বৈঠকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, নারীর রাজনৈতিক ক্ষমতায়নে বাংলাদেশ বিশ্বে ৭ম অবস্থানে আছে। বর্ধিত সংখ্যক নারী কর্মীবাহিনীতে যোগ দিচ্ছে। স্বাস্থ্যসেবা কর্মীদের প্রায় ৭০ শতাংশ নারী এবং তারা মহামারির বিরুদ্ধে লড়াইয়ে সামনের সারিতে রয়েছে। তৈরি পোশাককর্মীদের ৮০ শতাংশের বেশি নারী। অনানুষ্ঠানিক অর্থনীতিতে নারীরা সংখ্যাগরিষ্ঠ। তাদের অনেকে চাকরি ও আয় হারিয়েছেন।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা লিঙ্গ সমতা নিশ্চিত করতে নারী নেতাদের একটি নেটওয়ার্ক গঠনের ওপর বিশেষ গুরুত্ব আরোপ করেন। এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, এটি নারীর ক্ষমতায়নে ব্যাপক ভূমিকা রাখবে। আমরা নারী নেতাদের একটি নেটওয়ার্ক প্রতিষ্ঠা করতে পারি। যা আমাদের শুধু একক বৈঠকের জন্য একত্রিত করবে না, বরং লিঙ্গ সমতা অর্জনে বাস্তব পদক্ষেপ নিশ্চিত করতে একটি শক্তি হিসাবে কাজ করবে। লিঙ্গ সমতা নিশ্চিতে একটি চালিকাশক্তি হিসাবেও কাজ করবে।

মহামারির বিরুদ্ধে লড়াইয়ে সামনের সারিতে নারী

 শিল্পী নাগ 
০১ নভেম্বর ২০২১, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

নারী রাজনৈতিক-অর্থনৈতিক-সামাজিক-শিক্ষা বিভিন্ন ক্ষেত্রে অবদান রাখছেন। নারী তার শ্রমের মাধ্যমে অর্থনীতির বিভিন্ন ক্ষেত্রে অবদান রাখছেন। অর্থাৎ অর্থনৈতিক উন্নয়নে সহায়তা করছেন। বিশেষ করে পোশাকশিল্পের বিকাশে নারী পোশাক শ্রমিকদের অবদান অনস্বীকার্য। তবে পোশাকশিল্প ছাড়াও কৃষি কিংবা সেবা খাত, খামারবহির্ভূত কৃষি কিংবা ক্ষুদ্র ও কুটিরশিল্পের বিকাশে নারী শ্রমিকদের গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রয়েছে। অর্থনীতিতে নারীর ভূমিকার অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ উপাদান হচ্ছে গৃহস্থালি কাজের ক্ষেত্রে নারীর অবদান। যা কিনা অর্থনীতি কিংবা সামাজিক মানদণ্ডের বিচারেও অস্বীকৃত ও অপ্রদর্শিত। সাম্প্রতিক সময়ে গৃহস্থালি ও সেবাকাজে নারীর অবদানের বিষয়টিকে জাতীয় পর্যায়ে স্বীকৃতি দেওয়ার বিষয়টি আলোচনায় এসেছে। বাংলাদেশের আর্থসামাজিক প্রেক্ষাপটে এ জাতীয় কাজকে গুরুত্বহীন ও অর্থনৈতিকভাবে অর্থবহ হিসাবে কখনোই বিবেচনা করা হয়নি।

বাংলাদেশে নারীর ক্ষমতায়নের ওপর জোর দেওয়া হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী নিউইয়র্কে জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের সভাপতির আহ্বানে নারী নেতাদের এক উচ্চ পর্যায়ের বৈঠকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, নারীর রাজনৈতিক ক্ষমতায়নে বাংলাদেশ বিশ্বে ৭ম অবস্থানে আছে। বর্ধিত সংখ্যক নারী কর্মীবাহিনীতে যোগ দিচ্ছে। স্বাস্থ্যসেবা কর্মীদের প্রায় ৭০ শতাংশ নারী এবং তারা মহামারির বিরুদ্ধে লড়াইয়ে সামনের সারিতে রয়েছে। তৈরি পোশাককর্মীদের ৮০ শতাংশের বেশি নারী। অনানুষ্ঠানিক অর্থনীতিতে নারীরা সংখ্যাগরিষ্ঠ। তাদের অনেকে চাকরি ও আয় হারিয়েছেন।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা লিঙ্গ সমতা নিশ্চিত করতে নারী নেতাদের একটি নেটওয়ার্ক গঠনের ওপর বিশেষ গুরুত্ব আরোপ করেন। এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, এটি নারীর ক্ষমতায়নে ব্যাপক ভূমিকা রাখবে। আমরা নারী নেতাদের একটি নেটওয়ার্ক প্রতিষ্ঠা করতে পারি। যা আমাদের শুধু একক বৈঠকের জন্য একত্রিত করবে না, বরং লিঙ্গ সমতা অর্জনে বাস্তব পদক্ষেপ নিশ্চিত করতে একটি শক্তি হিসাবে কাজ করবে। লিঙ্গ সমতা নিশ্চিতে একটি চালিকাশক্তি হিসাবেও কাজ করবে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন