চ্যালেঞ্জিং মিশনে সাহসিকতার পুরস্কার

  যুগান্তর ডেস্ক    ১০ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

চ্যালেঞ্জিং মিশনে সাহসিকতার পুরস্কার
মৌসুমী মণ্ডল (বামে) ও খন্দকার শামিমা ইয়াছমিন (ডানে)

আন্তর্জাতিক নারী দিবস উপলক্ষে এ বছরও বাংলাদেশ উইমেন পুলিশ অ্যাওয়ার্ড ২০১৮ পেয়েছেন ২০ নারী পুলিশ সদস্য। তাদের মধ্যে অ্যাওয়ার্ড পেয়েছেন বাংলাদেশ পুলিশ হেড কোয়ার্টার্র্সের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (কমিউনিটি পুলিশিং) খন্দকার শামিমা

ইয়াছমিন পিসকিপিং মিশন ক্যাটাগরি ও অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ট্রেনিং-২) মৌসুমী মণ্ডল এক্সেলিনেন্স ইন সার্ভিস ক্যাটাগরিতে। তাদের সঙ্গে কথা বলে লিখেছেন- রীতা ভৌমিক

কাজের স্বীকৃতি পেতে ভালো লাগে : মৌসুমী মণ্ডল

যে কোনো কাজের স্বীকৃতি পেতে ভালো লাগে। ‘এক্সেলিনেন্স ইন সার্ভিস’ অ্যাওয়ার্ড প্রাপ্তিতে কাজের প্রতি আমার কর্মস্পৃহা, উৎসাহ বেড়ে গেল। সব সময় কাজের স্বীকৃতি মিলবে তাও কিন্তু নয়। এরপরও নিষ্ঠার সঙ্গে কাজ করতে হবে।

শামীমা বেগম স্যার আমাকে কাজে খুবই উৎসাহ দিয়েছিলেন। স্যারের অনুপ্রেরণায় মনে হয়েছে সত্যিই তো আমি মানুষের জন্য কাজ করতে পারি বললেন বাংলাদেশ পুলিশ হেডকোয়ার্টার্সের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ট্রেনিং-২) মৌসুমী মণ্ডল।

শিক্ষকতা থেকে পুলিশে আসবেন এমনটা স্বপ্নেও ভাবেননি খুলনার ডুমুরিয়ার মেয়ে মৌসুমী মণ্ডল। তার স্বামী ছিলেন ম্যাজিস্ট্রেট, পোস্টিং ছিল যশোর জেলা অফিসে। আর তিনি ঢাকার উত্তরার মাইলস্টোন স্কুল অ্যান্ড কলেজের ইংরেজির প্রভাষক হিসেবে কর্মরত ছিলেন। তার স্বামী চাইতেন না তিনি বিসিএস পরীক্ষায় অংশ নেন।

কিন্তু তিনি গোপনে বিসিএস প্রিলিমিনারি পরীক্ষার প্রস্তুতি নিতে থাকেন। তার বাবা অ্যাডভোকেট রবীন্দ্রনাথ মণ্ডল চাইতেন মেয়ে এডমিন ক্যাডারে চাকরি করবে। তার বাবাও মেয়ের বিসিএস প্রিলিমিনারি পরীক্ষার প্রস্তুতির খবর না জানলেও মা ও বোন বিষয়টি অবগত ছিলেন। তার পছন্দের তালিকায় পুলিশ ক্যাডার ছিল চার নম্বরে।

প্রিলিমিনারি পাস করার খবর তিনি তার স্বামীকে জানান। সেবার পরীক্ষা খুব কঠিন হয়। স্ত্রীর বিসিএস প্রিলিমিনারি পাসের খবর শুনে বর তো মহাখুশি। লিখিত পরীক্ষায় বসার অনুমতি মিলল তার। বিসিএস লিখিত পরীক্ষার ফলাফল বের হলে তার স্বামী অন্য ক্যাডার তালিকায় রোল নাম্বার খুঁজলেও পুলিশ ক্যাডারে খোঁজেননি। ধরেই নেন তিনি পাস করেননি।

তার ছোট বোন এক পুরুষ সহকর্মীকে নাম্বারটা দেন বোনের ফলাফলটা দেখার জন্য। ছোট বোনের ওই সহকর্মী ফোন করে সুখবরটা জানান। তিনি বলেন, পুরুষ হলে তো অনেক বড় দান মেরেছে। মেয়ে হলে একটু অসুবিধা।

বোন সঙ্গে সঙ্গে মৌসুমী মণ্ডলকে ফোন দিয়ে জানায়, তার পুলিশ ক্যাডারে হয়েছে। সারদা পুলিশ একাডেমিতে এক বছর প্রশিক্ষণ নেন। তার স্বামী ভেবেই নেন তিনি ট্রেনিংটা সম্পন্ন করতে পারবেন না। মৌসুমীর মা-বাবাকে জানায়। তার বাবা-মা ভয় পেয়ে যান, মেয়ে কি চাকরি পেল! তিনি নিজেও ভয়ে চারদিন গুটিয়ে ছিলেন।

আসলে তার স্বামীর আশংকা ছিল তাদের পোস্টিং একই জেলায় হবে না। এরপর আবার কলেজে যাওয়া শুরু করেন। কিন্তু তার স্বামীর সহকর্মী কাজী নিশাত রসুল ও সেলিনা বেগম তাকে সাহস জোগান। উৎসাহ দেন।

তারা বলেন, ‘তুমি শুনেছ কেউ ট্রেনিং সম্পন্ন না করে ফিরে এসেছে?’ তাদের কথায় মৌসুমী মনে জোর পান। এদিকে বাবা-মাও তাকে উৎসাহ দেন। কারণ এবার তাদের স্বপ্ন পূরণ হবে। আত্মীয়-স্বজনরা তাকে ডাক্তারি পড়ার পরামর্শ দিয়েছিলেন। আর তার বাবা চেয়েছিলেন মেয়ে ইংরেজি সাহিত্যে পড়ে বিসিএস এডমিনিস্ট্রেশনে যোগ দিবে।

সারদা পুলিশ একাডেমিতে প্রশিক্ষণকালীন কোনো সমস্যা হয়েছিল কি না জানতে চাইলে মৌসুমী মণ্ডল বলেন, ২০১০ সালের ১ ডিসেম্বর যোগদান করি। প্রশিক্ষণ ছিল খুবই কঠিন। আমার ওজন বেশি ছিল।

ওজন না কমিয়ে ট্রেনিং করা সম্ভব ছিল না। প্রথম মাসে ট্রেনিং করে আট কেজি ওজন কমাই। দু’মাসে আরও তিন কেজি ওজন কমে যায়। হাঁটতে কষ্ট হতো। পুরুষদের সঙ্গে সমান তালে প্যারেড, শারীরিক কসরতগুলো করতে মাসদুয়েক কষ্ট হয়েছে।

এরপর ভালো করতে থাকি। ঘোড়ায় চড়া, লাফ দিয়ে ওয়াটার ডিস পার হওয়া, পাঁচ ফুট কাঠের দেয়াল টপকানো ইত্যাদি প্রশিক্ষণে ছিল। ২০১১ সালের ডিসেম্বরে ট্রেনিং শেষে আমি ছয় মাসের প্রবেশনার পিরিয়ডে যোগদান করি মানিকগঞ্জ জেলায়।

এরপর পোস্টিং হয় ২০১২ সালের জুলাইতে ঢাকা মেট্রোপলিটন সহকারী কমিশনার (স্পোর্টস অ্যান্ড কালচার) পদে। এখন স্বামীও তাকে সহযোগিতা করছেন।

বাংলাদেশ পুলিশ মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘরের দায়িত্ব পালন করেন তিনি। প্রত্যন্ত এলাকার শহিদ পুলিশ মুক্তিযোদ্ধাদের পরিবারের কাছ থেকে স্মৃতিস্মারক, বিভিন্ন দলিলপত্র, তথ্য সংগ্রহ করেন। লোক প্রশাসন প্রশিক্ষণ কেন্দ্র থেকে চার মাসের বুনিয়াদি প্রশিক্ষণ নেন।

বুনিয়াদি প্রশিক্ষণের পর ২০১৩ সালে তিনি ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের উইমেন সাপোর্ট অ্যান্ড ইনভেস্টিগেশন ডিভিশনের ভিকটিম সাপোর্ট সেন্টারে এসি পদে যোগদান করেন। ২০১৪-এর এপ্রিল থেকে ২০১৫ সালের এপ্রিল পর্যন্ত এক বছর জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা মিশন কঙ্গোতে এফপিইউ মিশনে নারী পুলিশ কন্টিনজেন্টের অপারেশন্স অফিসার হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।

এ প্রসঙ্গে মৌসুমী মণ্ডল বলেন, প্রতিদিন বাংলাদেশের নারী পুলিশরা বিভিন্ন রকম দায়িত্ব পালন করতেন। এ সব দায়িত্বের মধ্যে গার্ড ডিউটি, স্ট্যাটিক ডিউটি, পেট্রোল ডিউটি ও বিভিন্ন ডেলিগেট ডিউটিও করেছেন তারা।

ইউএনএ’র অপারেশনাল মেন্ডেল পূর্ণ করেছি। রেডিও ওকাপি ডিউটিতে গভীর রাতে সাংবাদিকদের বাড়িতে পৌঁছে দেয়া হয়েছে। দায়িত্বরত এই নারী পুলিশ সদস্যদের মনিটরিং কাউন্সিলিং সুপারভিশন এবং গুরুত্বপূর্ণ ডিউটিতে ওদের সঙ্গে যোগ দিতাম। এভাবে কাজ করতে খুবই ভালো লেগেছে।

দেশে ফিরে এপ্রিল মাসে তিনি পুলিশ হেডকোয়ার্টাসে সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার (প্ল্যানিং অ্যান্ড রিসার্চ)-এর দায়িত্ব পান। এখানে দায়িত্ব পালনকালে বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে স্বাক্ষরিত এক্সট্যাড্রিশন ট্রিটি (২০১৩)-এর অনুচ্ছেদ ১০(৩)-এর উপর বন্দি বিনিময় সহজীকরণের লক্ষ্যে ভারত কর্তৃক উপস্থাপিত সংশোধনী প্রস্তাব বিষয়ে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় হতে বাংলাদেশ পুলিশের মতামত চাওয়া হলে তিনি উক্ত চুক্তির সামগ্রিক বিষয়াবলী পর্যালোচনামূলক মতামত প্রস্তুত করেন। এই মতামত কোনো পরিমার্জন ছাড়াই স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় কর্তৃক গৃহীত হয়।

কাজের প্রতি আগ্রহও অনেক বেড়ে যায় : খন্দকার শামিমা ইয়াছমিন

পেশাগত দায়িত্ব পালনে কাজের স্বীকৃতি পাওয়া অনেক আনন্দের। কাজের মূল্যায়নে কাজের প্রতি আগ্রহ আরও বেড়ে যায় বললেন বাংলাদেশ পুলিশ হেড কোয়ার্টার্সের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (কমিউনিটি পুলিশিং) খন্দকার শামিমা ইয়াছমিন।

বাংলাদেশ পুলিশ হেড কোয়ার্টার্সের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (কমিউনিটি পুলিশিং) খন্দকার শামিমা ইয়াছমিন সহকারী পুলিশ সুপার হিসেবে যোগদান করেন ২০০৫ সালের ২ জুলাই। বাংলাদেশ থেকে ২০১০-১১ সালে প্রথম নারী পুলিশ সদস্য হিসেবে হাইতি শান্তিরক্ষা মিশনে ফিমেল এফপিইউ পার্সোনেল অফিসার হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।

প্রথমবার হাইতিতে যাওয়া, দক্ষতা এবং নিষ্ঠার সঙ্গে কাজ করা ছিল তার জন্য চ্যালেঞ্জিং। চ্যালেঞ্জে এবং দক্ষতার সঙ্গে তিনি এক বছর কাজ করেন। ভূমিকম্পে বিধ্বস্ত হাইতিতে তাঁবু তৈরিসহ সব স্থাপনা তৈরি, অস্ত্র, গোলা-বারুদ, যানবাহন, জেনাটেরসহ সব রকমের সহযোগিতা করেন। তিনি মিশনের সদস্যদের বেতন-ভাতা, ছুটি, কল্যাণ, ক্যাম্প নিরাপত্তাসহ সব ধরনের প্রশাসনিক কাজ এবং পেট্রোল ডিউটি, ভিআইপি স্কট, নির্বাচন ডিউটি নিষ্ঠার সঙ্গে পালন করেন।

দ্বিতীয়বারও তিনি ২০১৬-১৭ সালে পার্সোনেল ম্যানেজমেন্ট সেকশন এ পার্সোনেল অ্যান্ড এডমিন অফিসার হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। মিনুস্টাহে নিয়োজিত সাতটি দেশের এগারোটি এফপিইউ এবং একটি স্কোয়াড টিমের সদস্যদের বেতন-ভাতাদি, ছুটি, ডিএ, আরএ, এমপ্লয়মেন্ট সার্টিফিকেটসহ সব ধরনের প্রশাসনিক কার্যক্রম পরিচালনা করেন।

এ প্রসঙ্গে খন্দকার শামিমা ইয়াছমিন জানান, দৈনন্দিন, সাপ্তাহিক ও মাসিক কাজের প্রতিবেদন নিয়মিত জাতিসংঘ সদর দফতরে প্রেরণ করতাম। এ ছাড়া বিভিন্ন দেশের কন্টিনজেন্টের সঙ্গে সমন্বয় করে জাতিসংঘের ম্যান্ডেট অনুযায়ী শৃঙ্খলা ও কার্যক্রম এবং নতুন নির্দেশ তাদের অবগত করতেন।

রোটেশন ও এফপিইউ-এর সদস্যগণের প্রশাসনিক রুলস-রেগুলেশন এবং এফপিইউ সংক্রান্ত কার্যক্রম বিষয়ে প্রশিক্ষণ কর্মসূচি পরিচালনা করেন। ইউএনপিওএল ওমেন নেটওয়ার্কের সদস্য হিসেবে হাইতির এতিমখানায় রিলিফ বণ্টন, শিশু ও নারীদের কল্যাণমূলক কাজসহ নানাবিধ সামাজিক কর্মকাণ্ডে অংশগ্রহণ করেন। ২০১৬ সালে পোর্ট অব প্রিন্স এবং ২০১৭ সালে লাকাই জাতীয় নির্বাচন ডিউটিও পালন করেন অত্যন্ত সফলতার সঙ্গে।

নরসিংদী সরকারি কলেজ থেকে ১৯৯২ সালে বি এ পাস করেন। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ১৯৯৪ সালে ইংরেজি সাহিত্যে এমএ করেন। স্বামীর অনুপ্রেরণায় তিনি বিসিএস পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করেন।

বিসিএস ক্যাডার তালিকায় তার প্রথম পছন্দ ছিল পুলিশ। কারণ তার বাবা খোন্দকার আবদুল হালিম ছিলেন একজন পুলিশ কর্মকর্তা। তার বাবাও তাকে পুলিশে চাকরিতে উৎসাহ দিতেন।

পাঁচ ভাই ও দুই বোনের মধ্যে তিনি ষষ্ঠ। সারদা পুলিশ একাডেমিতে প্রশিক্ষণ শেষে ২০০৬ সালে সহকারী পুলিশ কমিশনার হিসেবে তার প্রথম নিয়োগ হয় ঢাকা মেট্রোপলিটনের অর্থ বিভাগে।

পুলিশে কাজ করতে কেমন লাগছে জানতে চাইলে খন্দকার শামিমা ইয়াছমিন বলেন, সারদা পুলিশ একাডেমিতে এক বছরের প্রশিক্ষণ আনন্দের সঙ্গে করেছি। সহকারী পুলিশ কমিশনার হিসেবে ২০০৬ থেকে ২০১২ সাল পর্যন্ত ডিএমপিতে অর্থ, প্রশাসন, শৃঙ্খলা ইউনিটে পর্যায়ক্রমে দায়িত্ব পালন করি। ২০১১ সালে সেরা কাজের স্বীকৃতিস্বরূপ আইজিপি ব্যাজ পেয়েছি।

এ ছাড়া প্রশাসনে সেরা কাজের স্বীকৃতিস্বরূপ আইজিপি গুড সার্ভিস, এক্সামপ্লারি ব্যাজ পেয়েছি। ২০১৩ সালে দ্বিতীয়বারও প্রশাসনে সেরা কাজের স্বীকৃতিস্বরূপ আইজিপি গুড সার্ভিস, এক্সামপ্লারি ব্যাজ পেয়েছি।

২০১২ সালের জুন মাসে পুলিশ হেডকোয়ার্টারে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার হিসেবে পদোন্নতি পেয়ে র‌্যাবে যোগদান করি। ২০১২-১৫ সাল পর্যন্ত র‌্যাব-৩এ সিপিএসসি (ক্রাইম প্রিভেনশন স্পেশালাইস্ট কোম্পানি)তে কোম্পানি কমান্ডার হিসেবে প্রায় তিন বছর দায়িত্ব পালন করেছি। এখানে দায়িত্ব পালনকালে সেরা কাজের জন্য বেসবট কোম্পানি কমান্ডার এবং সিপিএইচসি কোম্পানি চ্যাম্পিয়ন পুরস্কার পাই। ২০১৫ সালের মে মাসে বদলি হয়ে পুলিশ হেডকোয়ার্টারে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন) হিসেবে যোগদান করি।

 

 

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter