সঙ্গীতজ্ঞদের চোখে-

যেমন ছিল ঈদের গান

  তারা ঝিলমিল প্রতিবেদক ১৩ জুন ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

ঈদ উপলক্ষে সঙ্গীতাঙ্গনেও ছিল বর্ণিল আয়োজন। এবারের ঈদে সিনিয়র-জুনিয়র অনেক শিল্পীই নতুন গান নিয়ে হাজির হয়েছেন শ্রোতাদের সামনে। কিন্তু কেমন ছিল এবারের ঈদের গান? বিগত বছরগুলোয় ঈদের সময় প্রকাশিত গান তেমন শ্রোতাপ্রিয় হতে পারেনি বলেও অনেকের অভিযোগ রয়েছে। গত কয়েক বছর ধরে গান যেহেতু শুধু অনলাইনে প্রকাশ হয়, সে জন্য সবার কাছে গান পৌঁছে কিনা, এ নিয়েও প্রশ্ন রয়েছে। সব মিলিয়ে এবারের ঈদ আয়োজনে গান কেমন হয়েছে, কতটা প্রত্যাশিত হয়েছে এবং শ্রোতাদের বিনোদিত করেছে- এমন প্রশ্নের জবাবে সঙ্গীতবোদ্ধারা প্রকাশ করেছেন মিশ্র প্রতিক্রিয়া।

ঈদে নন্দিত গীতিকার গাজী মাজহারুল আনোয়ারের লেখা কয়েকটি গান প্রকাশিত হয়েছে। এবারের ঈদ আয়োজনে গানের অবস্থা কেমন ছিল জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘বর্তমানে গানের অবস্থা খুব একটা ভালো নয়। তবু অনেকে চেষ্টা করেছেন ঈদ উপলক্ষে ভালো কিছু উপহার দেয়ার। তবে আমার মনে হচ্ছে তরুণদের আরও যত্নবান হওয়া দরকার। গানের কথার প্রতি আরও মনোযোগী হওয়া দরকার বলে আমি মনে করি।’ এ গীতিকবি টেলিভিশনের সঙ্গীত অনুষ্ঠান নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, ‘ঈদ এলে আমাদের দেশের সব টেলিভিশন চ্যানেলগুলো বিভিন্ন ধরনের গানের অনুষ্ঠান পরিবেশন করে থাকেন। আমাদের সময়কার গানগুলোই তারা নতুন শিল্পী দিয়ে গাওয়ান। কিন্তু তারা আসলে কেন গাওয়ান এটা বুঝতে পারছি না। অনুষ্ঠানগুলো দেখলে মনে হয়, এ গানের সুরটা কি এমন ছিল? এ গান তো আমি লিখেছিলাম কিন্তু এটা এভাবে কেন শিল্পীরা গাইছে? আমি অবাক হই ঈদে গানের এসব অনুষ্ঠান দেখে। সত্যিকারার্থে টিভি অনুষ্ঠানে প্রচারিত বর্তমান গানের সঙ্গে অরিজিনাল গান মিলাতে গেলে অনেক পার্থক্য লক্ষ করা যায়। এ জন্য গানের অনুষ্ঠানগুলো দেখলে মনটা খারাপ হয়ে যায়। যারা টেলিভিশনে গানের অনুষ্ঠান প্রচার করছেন তাদের আরও দক্ষ ও যত্নবান হওয়া দরকার।’

বাংলা গানের জীবন্ত কিংবদন্তি সৈয়দ আবদুল হাদী বলেন, ‘ঈদ এলে সবাই চেষ্টা করেন ভালো কিছু শ্রোতাদের উপহার দেয়ার। নতুন প্রজন্ম সেটা চেষ্টাও করছে। তবে তারা যেন নিজেদের মৌলিকতা না হারায় আমি সে দিকে নজর দিতে বলব। এ প্রজন্মের অনেকের গানই আমি শোনার চেষ্টা করি। ঈদ উপলক্ষে কিছু গান আমি শুনেছি। অনেকেই ভালো করার চেষ্টা করছে। আরও চেষ্টা করতে হবে। সবাইকে একটি কথা বলতে চাই, গানের ভিডিও নয় বরং কথা ও সুরের প্রতি আরও গুরুত্ব দিতে হবে। কথা-ই গান বাঁচিয়ে রাখে। ভিডিও কখনই গানকে বাঁচিয়ে রাখতে পারে না। এ বিষয়ে সবার নজর দিতে হবে।’

জনপ্রিয় সঙ্গীতশিল্পীর কুমার বিশ্বজিতের ঈদে কয়েকটি গান প্রকাশিত হয়েছে। ঈদের গান কেমন ছিল জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘মৌলিক যেসব গান প্রকাশ হয়েছে তার অনেকগুলো আমার শোনা হয়েছে। অনেকেই ভালো করার চেষ্টা করেছেন। কিন্তু গান সবার কাছে পৌঁছেছে কিনা এ নিয়ে প্রশ্ন রয়েছে। এবার অনলাইনে বিশেষ করে ইউটিউবে টেকনিক্যালি কিছু সমস্যা হয়েছে। সে জন্য ভিউয়ার্সের সংখ্যা কম হয়েছে। আবার এবারের ঈদে একটি বিষয় লক্ষ করে আমার মনটা খারাপ হয়ে গেল, টেলিভিশনে নতুন শিল্পীরা আমাদের সময়কার গানগুলো কভার করেছে। এখানে দুটি বিষয়- এক, অনেকেই অরিজিনাল শিল্পীদের নাম বলেনি। এটা খুবই দুঃখজনক। দুই, তারা শুধু পুরনো গান কভার করে গেছে। নিজেদের মৌলিক গান তো দেখলাম না। মৌলিক গান না থাকলে সিনিয়র শিল্পীদের গান কভার করে কোনো লাভ হবে বলে মনে হচ্ছে না। সব মিলিয়ে এবারের ঈদ আয়োজনে গান তেমন সাড়া ফেলতে পারেনি। তবে আমি আশাবাদী সামনে সবাই ভালো করবে।’

এবারের ঈদে সবচেয়ে বেশি গান প্রকাশ হয়েছে বাংলাগানের যুবরাজখ্যাত আসিফ আকবরের। তার নিজস্ব সঙ্গীত প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান ছাড়াও একাধিক প্রতিষ্ঠানে তার গান প্রকাশিত হয়েছে। এর মধ্যে বেশ কয়েকটি গান শ্রোতামহলে বেশ সাড়া ফেলেছে। ঈদের গানের আয়োজন প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘আমি মূলত কোনো উৎসব উপলক্ষে গান করি না। গান আমার পেশা। আমি প্রতি সপ্তাহ নতুন গান করি। তবে এবারের ঈদে আমার অনেকগুলো গান প্রকাশ হয়েছে। শ্রোতাদের বেশ সাড়া পাচ্ছি। অন্যরাও ভালো করার চেষ্টা করেছে। অল্প কয়েকদিনে তো আর বলা যাবে না যে গান কেমন হয়েছে। মানুষ শুনতে শুনতে গান গেয়েও উঠবে। ঈদ আয়োজনের গানগুলো প্রকাশ হল মাত্র কয়েকদিন। আর কয়েকদিন যাক তবে সবার গানই আরও সাড়া ফেলবে আমার বিশ্বাস।’

এবারে ঈদের জনপ্রিয় সঙ্গীত পরিচালক ও সঙ্গীতশিল্পী হাবিব ওয়াহিদের ‘মনের কিনারায়’ নামে একটি গান প্রকাশ হয়েছে। এ গান তার নিজস্ব ইউটিউব চ্যানেলে প্রকাশ করা হয়। তিনি এখন আগের মতো সংখ্যায় অধিক গান না করলেও গান নিয়েই ব্যস্ত থাকেন। ঈদের আয়োজনে গান কতটা সাড়া ফেলেছে জানতে চাইলে হাবিব ওয়াহিদ বলেন, ‘ঈদে সবাই চেষ্টা করেছেন ভালো কিছু গান উপহার দিতে। আমিও একটি গান প্রকাশ করেছি। এখন ভালো লাগা আর না লাগা শ্রোতারা বিচার করবেন। আমার গানটি প্রকাশ করার পর দর্শকদের আগ্রহ ভালোই দেখছি। এখন মানুষ শুধু গান শোনে না, গানের গল্পও দেখতে চায়। সে জন্য অডিও-ভিডিও দুটি একসঙ্গে তৈরিতে একটু সময় লেগে যায়। কেউ কেউ হয়তো সময় নিয়ে কাজ করছেন না বলে শ্রোতাদের মধ্যে তাদের গান সাড়া ফেলছে না। এবারের ঈদেও এমন হয়েছে। তবে কিছু কিছু গান অনলাইনে সাড়া ফেলেছে। তবে ঈদের আয়োজনে গান যতটা সাড়া ফেলার কথা ততটা ফেলেছে বলে আমার মনে হচ্ছে না।’

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×