শুটিং স্পট

সাফার বাড়ি গিয়ে অপূর্বর বিয়ের প্রস্তাব

  এসএম শাফায়েত ০২ এপ্রিল ২০২০, ০০:০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

দিনের আলো নিভিয়ে অস্তগামী সূর্যটা সবে ঘরে ঢুকেছে। উত্তরার ১৩ নম্বর সেক্টরের ব্রিজ পার হয়ে সারি সারি দাঁড়িয়ে আছে কয়েকজন ফুচকা, চটপটি আর ডাব বিক্রেতা। দূর থেকে অস্থায়ী দোকানগুলোর দিকে তাকাতেই চক্ষু স্থির হল এ সময়ের জনপ্রিয় অভিনয়শিল্পী জিয়াউল ফারুক অপূর্ব ও সাফা কবিরের ওপর। অপূর্বর সঙ্গে সারা দিন বাইকে ঘুরে এখানে এসে ফুচকা আর ডাব খাচ্ছেন সাফা। একটু দেরিতে পৌঁছানোর কারণে সেখানে আর বেশিক্ষণ দেখা গেল না তাদের। পিছু নিতেই দেখা গেল তারা গিয়ে উঠলেন উত্তরার একটি বাড়িতে। এটি সাফা কবিরের বাড়ি। সেখানে গিয়ে মুখোমুখি আরেকটি অবাক করা দৃশ্যের। এখানে আগে থেকেই উপস্থিত অপূর্বর দলবল। সাফার বিয়ের প্রস্তুাব নিয়ে এসেছেন তিনি। মূলত, বেশ কিছুদিন দু’জনের স্নায়ু প্রেম চলছিল। তাই এবার মন দেয়া নেয়াটাও সেরে নিল তারা।

এরপর এল মাহেন্দ্রক্ষণ। পর্দা সরিয়ে বেরিয়ে এলেন সাফার ‘মা’। কোনো কিছু বুঝে ওঠার আগেই এবার মায়ের হাত ধরে অপূর্ব বললেন, ‘আন্টি, আমি কী আপনাকে মা ডাকতে পারি।’ প্রতি উত্তরে তিনি একটু আবেগাপ্লুত হয়ে বলেন, ‘হ্যাঁ, অবশ্যই’। পাশে থাকা সবাই হাততালি দিয়ে আনন্দ উল্লাস শুরু করল। অন্ধকার থেকে ‘কাট’ শব্দ কানে আসতেই গোটা দৃশ্যপট বদলে গেল। বোঝা গেল বাইকে চড়ে ঘুরে বেড়ানো, রাস্তায় দাঁড়িয়ে ফুচকা, ডাব খাওয়া আর এ বিয়ের প্রস্তাব দেয়ার অভিনব কৌশল সবই একটি নাটকের দৃশ্যের। শুট শেষ করে প্রাণবন্ত সবাই যখন একে অপরকে নিয়ে কথা বলছে, ইয়ার্কির ছলে ধাক্কাধাক্কি করছে, তখন সবাইকে থামিয়ে দিয়ে অপূর্ব বলে ওঠেন, ‘করোনা...করোনা...করোনা, এখন আর কাছাকাছি ঘেঁষা যাবে না। সাফা, তুমি কিন্তু দূরত্ব বজায় রাখ, করোনাভাইরাস হয়ে যেতে পারে।’

অবশ্য এ কথা তিনি মজার ছলে বললেও তা সবার জন্য সতর্কতার বাণী ছিল বলা চলে। এরপর অন্য একটি কাজের অজুহাতে বের হলেন সাফা কবির, অপূর্ব গেলেন মেকআপ রুমে। সেট পরিবর্তনের কিছু সময় দেয়া হল। এরই মধ্যে কথা হল নাটকের পরিচালক পনির খানের সঙ্গে। তিনি জানান, ঈদুল ফিতরের জন্য নির্মিত বিশেষ নাটক এটি। নাম ‘পারফেক্ট ওয়ান’। নাটকটি লিখেছেন পনির খান ও ইমতিয়াজ তানজিম। নাটকে জিয়াউল ফারুক অপূর্বকে দেখা যাবে রায়ান নামে ভার্সিটির বড় ভাইয়ের চরিত্রে। তার বিপরীতে রিয়া চরিত্রে অভিনয় করছেন সাফা কবির। রায়ান বেশ উচ্ছৃঙ্খল, আপাতত ছোট ভাইদের নিয়ে নেতাগিরিই তার কাজ। তবে তিনি প্রতিবাদী। আর রিয়া আলোকচিত্রী হিসেবে স্বপ্নের পথে এগোচ্ছে। এই পথে বড় বাধা হয়ে দাঁড়ায় এক এজেন্সি অফিসের বস। তার কুপ্রস্তাব ও রিয়ার আকস্মিক নীরবতা রায়ানকে বিচলিত করে তোলে। তাৎক্ষণিক রিয়া ও তার মায়ের সঙ্গে কথা বলে জানতে চান, ‘এত কিছু হয়ে গেল আর আমাকে কেউ কিছু জানানোর প্রয়োজন মনে করল না?’ যেমন কথা তেমন কাজ। সঙ্গী-সাথীদের নিয়ে প্রতিবাদী রায়ান ছুটে গেলেন সেই এজেন্সি অফিসে। এরপর অফিস ভাংচুর আর বসকে ধরে মারধর শেষে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সচেতনতামূলক বার্তা ছড়িয়ে গল্পের ইতি টানা হয়েছে।’

করোনাভাইরাস ইস্যুতে শুটিং বন্ধের ঘোষণা আসার আগ মুহূর্তে টানা দু’দিনে রাজধানীর বিভিন্ন লোকেশনে কাজ শেষ করা হয়েছে নাটকটির। এটি আগামী ঈদে একটি বেসরকারি টিভিতে প্রচার করা হবে।

আরও খবর

সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত