করোনার কারণে থমকে যাওয়া ছবি

ঢাকাই সিনেমার সোনালি সময় এখন শুধুই ইতিহাসের নির্মম এক অধ্যায়। ২০১২ সাল থেকে সিনেমার সাম্প্রতিক চেহারা বদলে গেলেও বদলায়নি দুর্দশার চিত্র। গত এক দশকে মুক্তি পেয়েছে অনেক ছবি, কিন্তু এর মধ্যে বেশিরভাগই ছিল মুখ থুবড়ে পড়া গল্প, দুর্বল চিত্রনাট্য এবং ব্যবসায়িক চৌকাঠ না পাড়ানো ছবি। এর মধ্যে বছরে দু-একটি আলোচিত ও ব্যবসাসফল ছবিও ছিল অবশ্য। অপরদিকে চিত্রপাড়া এবং হলের বেহাল দশা তা তো আছেই। এর উত্তরণের পথ খুঁজে চলছে সবাই। তবে সিনেমাপাড়ার অবস্থা বদলে দিতে এ বছরই মুক্তির অপেক্ষায় রয়েছে কয়েকটি ছবি। কিন্তু এখানে বাদ সাধছে করোনাভাইরাস! যদিও আমরা আশাবাদী। এসব ছবি সঠিক সময়ে মুক্তি এবং মার্কেটিং যথাযথভাবে পূর্ণ হলে ঘুচবে চিত্রপাড়ার দুঃখ- এমনটিই মনে করছেন চলচ্চিত্র সংশ্লিষ্ট সবাই। বিস্তারিত লিখেছেন-

  অরণ্য শোয়েব ০২ এপ্রিল ২০২০, ০০:০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

সিনেমাপাড়ার এখন অবস্থা খুব নড়বড়ে। তার মধ্যে আবার দেশে ছড়িয়েছে করোনাভাইরাস। এর জন্য মঞ্চ, নাটক, সিনেমা ও গানপাড়ার অবস্থা বেগতিক। দেশব্যাপী হল বন্ধ। শুটিং বন্ধ। করোনার ছোবলে পিছিয়ে গেছে সিনেমার শুটিং থেকে শুরু করে মুক্তির তারিখও। অথচ ২০২০ সালটি হতে পারত সিনেমার জন্য এক ‘সুখের বছর’। কেননা, এ বছরই মুক্তির তালিকায় রয়েছে সব বড় বাজেটের সিনেমাগুলো। এর মধ্যে সবচেয়ে আলোচনায় আছে- ‘মিশন এক্সট্রিম’, ‘অপারেশন সুন্দরবন’, ‘দিন : দ্য ডে’, ‘ঢাকা-২০৪০’ ও ‘শান’। এ ছাড়াও ‘পরান’, ‘বিউটি সার্কাস’, ‘ক্যাসিনো’ ও ‘ইত্তেফাক’ ছবিগুলোও ছিল আলোচনার টেবিলে। কিন্তু করোনা সবকিছু স্থবির করে দিয়েছে। আরও ভেঙে দিয়েছে ভঙুর ইন্ডাস্ট্রির পা।

এমনিতেই ২০১৯ সাল হতাশার বছর ছিল। তাই চলতি বছরটিই ছিল ভরসার বছর। মুক্তির অপেক্ষায় যেসব ছবি আছে সেগুলো হয়তো সিনেমার ব্যবসার গতি বাড়িয়ে দিতে পারত। এখন করোনাভাইরাসের জন্য হয়তো ওলট-পালট হতে পারে পুরো বছরটি। ছবি মুক্তি নিয়ে শঙ্কায় আছেন এখন অনেক নির্মাতাই। কোরবানি ঈদে মুক্তি পাওয়ার কথা রয়েছে দীপঙ্কর দীপন পরিচালিত ‘অপারেশন সুন্দরবন’। একই নির্মাতার হাতে রয়েছে ঢাকা-২০৪০ শিরোনামের ছবি। তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশের এ অবস্থা যদি আরও বিরাজ থাকে তাহলে আমরা কোরবানি ঈদেও ছবি মুক্তি দিতে পারব না। যদিও এখনও পজেটিভ আছি। আশা করছি, সব কিছুই ঠিক হয়ে যাবে। এ ছাড়া ঢাকা-২০৪০-এর অর্ধেক শুটিং শেষ। ভাইরাস সংকট কেটে গেলে এটিও আবার শুরু করব।’

অন্যদিকে ঈদুল ফিতরে মুক্তির কথা আছে ‘ঢাকা এক্সট্রিম’ ছবির। কিন্তু করোনা হামলায় এ তারিখটি ঠিক থাকবে কি না সেটা অনিশ্চিত। এ ছবির নির্মাতা সানি সানোয়ার বলেন, ‘একটি দেশ ভাইরাসে আক্রান্ত হলে কতদিন পর্যন্ত তার রেশ থেকে যায়- সেটি আমরা পর্যবেক্ষণ করছি। এ মাসের শেষের দিকে বোঝা যাবে, কতটুকু ইমপ্যাক্ট পড়বে করোনার। এরপর আমরা সিদ্ধান্তে যাব ঈদে সিনেমা মুক্তি দিতে পারব কিনা। আমাদের ছবি রেডি থাকবে মুক্তির জন্য। যদি পরিবর্তন না ঘটে তা হলে আমরা পিছিয়ে যাব এবং পরবর্তী তারিখ জানাব।’

চলতি বছরের আরও একটি বিগ বাজেটের ছবি ‘দিন : দ্য ডে’। চিত্রনায়ক-প্রযোজক অনন্ত জলিল এ ছবির মধ্য দিয়ে প্রায় তিন বছর পর পর্দায় ফেরার প্রস্তুতি নিয়েছেন। এ ছবিটিও কোরবানি ঈদে মুক্তি দেয়ার পরিকল্পনা ছিল। ইরানের সঙ্গে যৌথ প্রযোজনায় নির্মিতব্য এ ছবিটি পরিচালনা করছেন ইরানি পরিচালক মুস্তফা অতাশ জমজম। ইরান, আফগানিস্তান ও বাংলাদেশের বিভিন্ন লোকেশনে এরই মধ্যে ছবির ৮০ ভাগ শুটিংও শেষ করা হয়েছে। কিছু কাজ বাকি ছিল। সেটা তুরস্ক ও ইউরোপের কয়েকটি দেশে শুটিং করার কথা ছিল। শিডিউলও ঠিক করা ছিল। কিন্তু করোনাভাইরাসের আক্রমণের কারণে সবকিছু ভেস্তে গেছে। এ অবস্থায় বাকি শুটিং কবে নাগাদ করা হবে সেটা এখনই বলতে পারছেন না ছবির নায়ক ও প্রযোজক অনন্ত জলিল। তিনি বলেন, ‘জানুয়ারিতেই শুটিংয়ের শিডিউল ছিল। কিন্তু সেটা আর পারিনি। ব্যবসায়িক ব্যস্ততার মধ্যেও আমি দর্শকদের ভিন্ন কিছু দিতে চেয়েছিলাম। বাজেটের দিক থেকে এটা অনেক বড় ছবি। শুটিং লোকেশন, গল্প, নির্মাণ- সবকিছু মিলিয়ে দারুণ একটি প্রজেক্ট। কিন্তু ভাইরাস সবকিছু থামিয়ে দিয়েছে। এ সংকট কাটলে আমরা বাকি শুটিং শেষ করে মুক্তির তারিখ ঘোষণা করব। আগে মহান আল্লাহ আমাদের এ দুর্যোগ থেকে মুক্তি দান করুন। তারপর বাকি কাজ।’ এরই মধ্যে ছবিটির প্রাথমিক ট্রেলারও প্রকাশ হয়েছে। ট্রেলার দেখে অনেকেই এর প্রশংসা করেছেন। বলেছেন, ‘দিন : দ্য ডে’ হতে যাচ্ছে বছরের আলোচিত আরেকটি ছবি।

চিত্রানিয়কা বুবলী প্রথমবার শাকিব খানকে ছাড়া একটি ছবিতে অভিনয় করেছেন। নাম ‘ক্যাসিনো’। সঙ্গে রয়েছেন নিরব। শাকিব খানের ওপর ভর করে নায়িকা- এমন একটি কথা বুবলীকে নিয়ে প্রচলিত মিডিয়ায়। বুবলী ‘ক্যাসিনো’ দিয়ে সেই অপবাদ মুছে দিতে পারত চলতি বছর। কিন্তু করোনা হামলায় সেটাও ভেস্তে গেছে। যদিও সময় এখনও ফুরিয়ে যায়নি।

আরও কিছু ছবি আছে, যেগুলো চলতি বছরই নির্মাণের ঘোষণা দেয়া হয়েছিল। যেমন, অনন্য মামুন পরিচালিত ‘নবাব-এলএলবি’। শাকিব খান অভিনীত এ ছবিটি রোজার ঈদকে টার্গেট করে নির্মাণ করার কথা ছিল। গত ২৮ মার্চ থেকে শুটিং শুরুরও শিডিউল ঠিক করা ছিল। কিন্তু করোনার প্রভাবে পরিচালক শুটিং করা থেকে বিরত থাকেন। এ ছবির প্রযোজক শুটিংয়ের জন্য বরাদ্ধ অর্থ ডাক্তারদের জন্য পিপিই (পারসোনাল প্রটেকশন ইকুইপমেন্ট) তৈরির কাজে ব্যয় করেন। করোনা সংকট কেটে গেলে নতুন করে শিডিউল সাজিয়ে শুটিং করবেন বলে জানিয়েছে পরিচালক।

সিনে সংশ্লিষ্টরা বলছেন, যে ছবিগুলো এখন মুক্তির পথে আছে যদি ঠিকমতো প্রচার-প্রচারণা করে দর্শকদের মাঝে আগ্রহ সৃষ্টি করা যায় তাহলে বলা যায়, সেগুলো প্রেক্ষাগৃহে সাড়া ফেলবে। এ ছবিগুলোর মধ্য দিয়ে সিনেমাপাড়ায় স্বস্তির নিঃশ্বাস ও সাফল্য এবং পূর্বদিন ফিরবে বলেও তারা মনে করেন।

আরও খবর

সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত