ঈদের সিনেমার সাফল্য সোশ্যাল মিডিয়ায় সীমাবদ্ধ
jugantor
ঈদের সিনেমার সাফল্য সোশ্যাল মিডিয়ায় সীমাবদ্ধ

  তারা ঝিলমিল প্রতিবেদক  

১২ মে ২০২২, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

করোনাভীতি কাটিয়ে দুবছর ঈদ উপলক্ষ্যে আবারও সরগরম হয়ে উঠেছে দেশের সিনেমা অঙ্গন। ঈদের সিনেমা প্রদর্শনের জন্য দীর্ঘদিন বন্ধ থাকা কিছু সিনেমাহলও চলতিগুলোর সঙ্গে যুক্ত হয়েছে। প্রায় দেড় শতাধিক সিনেমাহল নিয়ে উৎসবে যোগ দিয়েছে চারটি সিনেমা। এগুলো হলো শাহীন সুমন পরিচালিত ‘বিদ্রোহী’, এসএ হক অলীকের ‘গলুই’, এম রাহিমের ‘শান’ ও জুয়েল ফারসির ‘বড্ড ভালোবাসি’। এর মধ্যে ‘বিদ্রোহী’ সিনেমায় বুবলীকে নিয়ে ও ‘গলুই’ সিনেমায় পূজা চেরীকে নিয়ে মাঠে লড়ছেন শাকিব খান। অন্যদিকে পূজা চেরিকে নিয়ে ‘শান’ সিনেমা নিয়ে মাঠে রয়েছেন সিয়াম। আলোচনার বাইরে রয়ে গেছে ‘বড্ড ভালোবাসি’।

ঈদের সিনেমা দিয়ে দেশের সিনেমাশিল্প আবারও চাঙা হয়ে উঠেছে। সোশ্যাল মিডিয়া তো বটে, অনেক গণমাধ্যমও এ ধরনের প্রতিবেদন ছাপাতে ব্যস্ত। অথচ বাস্তব চিত্র ভিন্ন। রাজধানীকেন্দ্রিক কিছু সিনেপ্লেক্স ছাড়া দেশের অন্য কোথাও ঈদের সিনেমা নিয়ে কোনো আওয়াজ নেই। এসএ হক অলীক নিজ জেলা জামালপুরে শুটিং করায় সেখানকার কিছু মানুষের উচ্ছ্বাস ও জেলা প্রশাসক কর্তৃক শিল্পকলাসহ অন্যান্য অডিটরিয়ামে ‘গলুই’ সিনেমার প্রদর্শন বন্ধ করে দেওয়ার আলোচনাকে কেন্দ্র করে দেশি সিনেমার বিপ্লব ঘটিয়ে ফেলছেন অনেকেই। আদপে বাণিজ্যিক হিসাবে ঈদের সিনেমাগুলো হিট তো দূরের কথা, অ্যাভারেজের তালিকায়ও এখনো পৌঁছাতে পারেনি। ঈদের ছুটির দিনগুলোতে কিছুসংখ্যক প্রেক্ষাগৃহে দর্শকদের আনাগোনা দেখা গেলেও ছুটি শেষে পুরোনো অবস্থায় ফিরে গেছে দৃশ্যায়ন।

মূলত সোশ্যাল মিডিয়া বিশেষ করে ফেসবুকে আলোচনার হাইপ তুলে ঈদের সিনেমা দিয়ে সিনেমাশিল্প ঘুরিয়ে দেওয়ার পরিকল্পনা করেছেন কেউ কেউ। বিষয়টি মন্দ নয়। কিন্তু তাদের বুঝতে হবে, ফেসবুকে সচেতনতা আগের চেয়ে এখনো অনেক বৃদ্ধি পেয়েছে। দু-একটি সিনেমা হলের একটি শোয়ের হাউজফুল দৃশ্য আপলোড করে দেশের সার্বিক অবস্থার মূল্যায়ন করা কখনো সম্ভব নয়। ফলে দর্শকশূন্য সিনেমা হলের চিত্রও দেখতে হয়েছে। বাণিজ্যিক হিসাব না করলে কোনো সিনেমারই সাফল্য বর্ণনা করা একেবারেই কঠিন, অথবা উচিতও নয়। সে হিসাবে বলা যায়, এবারের ঈদের সিনেমার সফলতা কেবল সোশ্যাল মিডিয়াতেই সীমাবদ্ধ ছিল, সিনেমা হলে নয়।

ঈদের সিনেমার সাফল্য সোশ্যাল মিডিয়ায় সীমাবদ্ধ

 তারা ঝিলমিল প্রতিবেদক 
১২ মে ২০২২, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

করোনাভীতি কাটিয়ে দুবছর ঈদ উপলক্ষ্যে আবারও সরগরম হয়ে উঠেছে দেশের সিনেমা অঙ্গন। ঈদের সিনেমা প্রদর্শনের জন্য দীর্ঘদিন বন্ধ থাকা কিছু সিনেমাহলও চলতিগুলোর সঙ্গে যুক্ত হয়েছে। প্রায় দেড় শতাধিক সিনেমাহল নিয়ে উৎসবে যোগ দিয়েছে চারটি সিনেমা। এগুলো হলো শাহীন সুমন পরিচালিত ‘বিদ্রোহী’, এসএ হক অলীকের ‘গলুই’, এম রাহিমের ‘শান’ ও জুয়েল ফারসির ‘বড্ড ভালোবাসি’। এর মধ্যে ‘বিদ্রোহী’ সিনেমায় বুবলীকে নিয়ে ও ‘গলুই’ সিনেমায় পূজা চেরীকে নিয়ে মাঠে লড়ছেন শাকিব খান। অন্যদিকে পূজা চেরিকে নিয়ে ‘শান’ সিনেমা নিয়ে মাঠে রয়েছেন সিয়াম। আলোচনার বাইরে রয়ে গেছে ‘বড্ড ভালোবাসি’।

ঈদের সিনেমা দিয়ে দেশের সিনেমাশিল্প আবারও চাঙা হয়ে উঠেছে। সোশ্যাল মিডিয়া তো বটে, অনেক গণমাধ্যমও এ ধরনের প্রতিবেদন ছাপাতে ব্যস্ত। অথচ বাস্তব চিত্র ভিন্ন। রাজধানীকেন্দ্রিক কিছু সিনেপ্লেক্স ছাড়া দেশের অন্য কোথাও ঈদের সিনেমা নিয়ে কোনো আওয়াজ নেই। এসএ হক অলীক নিজ জেলা জামালপুরে শুটিং করায় সেখানকার কিছু মানুষের উচ্ছ্বাস ও জেলা প্রশাসক কর্তৃক শিল্পকলাসহ অন্যান্য অডিটরিয়ামে ‘গলুই’ সিনেমার প্রদর্শন বন্ধ করে দেওয়ার আলোচনাকে কেন্দ্র করে দেশি সিনেমার বিপ্লব ঘটিয়ে ফেলছেন অনেকেই। আদপে বাণিজ্যিক হিসাবে ঈদের সিনেমাগুলো হিট তো দূরের কথা, অ্যাভারেজের তালিকায়ও এখনো পৌঁছাতে পারেনি। ঈদের ছুটির দিনগুলোতে কিছুসংখ্যক প্রেক্ষাগৃহে দর্শকদের আনাগোনা দেখা গেলেও ছুটি শেষে পুরোনো অবস্থায় ফিরে গেছে দৃশ্যায়ন।

মূলত সোশ্যাল মিডিয়া বিশেষ করে ফেসবুকে আলোচনার হাইপ তুলে ঈদের সিনেমা দিয়ে সিনেমাশিল্প ঘুরিয়ে দেওয়ার পরিকল্পনা করেছেন কেউ কেউ। বিষয়টি মন্দ নয়। কিন্তু তাদের বুঝতে হবে, ফেসবুকে সচেতনতা আগের চেয়ে এখনো অনেক বৃদ্ধি পেয়েছে। দু-একটি সিনেমা হলের একটি শোয়ের হাউজফুল দৃশ্য আপলোড করে দেশের সার্বিক অবস্থার মূল্যায়ন করা কখনো সম্ভব নয়। ফলে দর্শকশূন্য সিনেমা হলের চিত্রও দেখতে হয়েছে। বাণিজ্যিক হিসাব না করলে কোনো সিনেমারই সাফল্য বর্ণনা করা একেবারেই কঠিন, অথবা উচিতও নয়। সে হিসাবে বলা যায়, এবারের ঈদের সিনেমার সফলতা কেবল সোশ্যাল মিডিয়াতেই সীমাবদ্ধ ছিল, সিনেমা হলে নয়।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন