ক্রমেই ফুরিয়ে যাচ্ছে মাহীর দিন!
jugantor
ক্রমেই ফুরিয়ে যাচ্ছে মাহীর দিন!

  তারা ঝিলমিল প্রতিবেদক  

১৬ জুন ২০২২, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

ঢালিউডে যে কজন চিত্রনায়িকা অল্প বয়স এবং অল্প সময়ই সফলতার মুখ দেখেছিলেন তাদের মধ্যে অন্যতম একজন মাহিয়া মাহী। তার অভিষেক হয় রাজকীয়ভাবেই। ২০১২ সালে আলোচিত একটি প্রযোজনা সংস্থার সিনেমা ‘ভালোবাসার রঙ’-এর মাধ্যমে বড় পর্দায় আবির্ভাব হয় তার।

প্রথম সিনেমাটি ব্যবসাসফল না হলেও অত্যধিক প্রচারণার কারণে দর্শকের কাছে পরিচিতি পান মাহী। তবে ২০১৩ সালে মাহীর পরপর তিনটি সিনেমা সাফলতা পায়। যার কারণে তখন থেকেই জনপ্রিয়তার কাতারে নাম লেখান এ নায়িকা। শুধু ঢালিউডেই সীমাবদ্ধ থাকেননি তিনি। ভারতের কলকাতায়ও বিস্তৃত হয় তার অভিনয় প্রতিভা। ২০১৫ সালে ‘রোমিও বনাম জুলিয়েট’ সিনেমার মাধ্যমে টলিউডেও অভিষেক ঘটে তার। ২০১৬ সালে হুমায়ূন আহমেদের বিখ্যাত উপন্যাস কৃষ্ণপক্ষের ‘অরু’ চরিত্রে অভিনয় করে বেশ প্রশংসিত হয়। অবশ্য এসব কাজের মধ্যেই বিভিন্ন বিতর্কে জড়িয়েছেন মাহী। করেছেন বিয়েও।

তবে গত বছরের শেষ প্রান্তে এসে প্রথম সংসারে বিচ্ছেদ এবং দ্বিতীয় বিয়ে করে আলোচনায় থাকলেও অভিনয়ের অঙ্গন থেকে ক্রমেই পিছিয়ে যেতে থাকেন এ নায়িকা। অভিনয়ের ব্যস্ততা না থাকলেও নতুন স্বামীকে নিয়ে ঘোরাফেরা এবং নিজের ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠান নিয়ে প্রচারণাতেই মনোযোগ বেশি এ অভিনেত্রীর। তবে কী মাহীর দিন ফুরিয়ে যাচ্ছে? এমন প্রশ্ন উঠেছে সিনেপাড়ায়। সিনেমা বিশ্লেষকদের অনেকেই বলছেন, যেখানে অনেক নায়িকাই সম্ভাবনা জাগিয়েও টিকতে পারছেন না সেখানে মাহী সুসংহত অবস্থানে থেকেও নিজেকে নিয়ে সিরিয়াস নন। তবে মাহী বলছেন ভিন্ন কথা।

তিনি বলেন, ‘২০২০ সাল থেকে অনেকদিন করোনার কারণে পুরো ইন্ডাস্ট্রিই স্থবির হয়ে ছিল। শুটিং বন্ধ ছিল। প্রেক্ষাগৃহ বন্ধ ছিল। তাই আমাকেও বসে থাকতে হয়েছে। এখন পরিস্থিতি ভালোর দিকে যাওয়ায় আমিও শুটিং শুরু করেছি। আশা করছি হাতে থাকা সিনেমাগুলো মুক্তি পেলে দর্শক আবারও আমার অভিনয় রসায়ন দেখতে পাবেন।’ এদিকে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে এখনো মাহী অভিনীত পাঁচটি সিনেমা মুক্তির অপেক্ষায় আছে। এগুলো হলো, ‘প্রেমের বাঁধন’, ‘গোলাপতলীর কাজল’, ‘আনন্দ অশ্রু’, ‘মন দেব মন নেব’ এবং ‘আশীর্বাদ’। হাতে থাকা সিনেমাগুলো দিয়েই ক্যারিয়ারে নতুন মাত্রা যোগ করবেন-এমন প্রত্যাশা তার।

ক্রমেই ফুরিয়ে যাচ্ছে মাহীর দিন!

 তারা ঝিলমিল প্রতিবেদক 
১৬ জুন ২০২২, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

ঢালিউডে যে কজন চিত্রনায়িকা অল্প বয়স এবং অল্প সময়ই সফলতার মুখ দেখেছিলেন তাদের মধ্যে অন্যতম একজন মাহিয়া মাহী। তার অভিষেক হয় রাজকীয়ভাবেই। ২০১২ সালে আলোচিত একটি প্রযোজনা সংস্থার সিনেমা ‘ভালোবাসার রঙ’-এর মাধ্যমে বড় পর্দায় আবির্ভাব হয় তার।

প্রথম সিনেমাটি ব্যবসাসফল না হলেও অত্যধিক প্রচারণার কারণে দর্শকের কাছে পরিচিতি পান মাহী। তবে ২০১৩ সালে মাহীর পরপর তিনটি সিনেমা সাফলতা পায়। যার কারণে তখন থেকেই জনপ্রিয়তার কাতারে নাম লেখান এ নায়িকা। শুধু ঢালিউডেই সীমাবদ্ধ থাকেননি তিনি। ভারতের কলকাতায়ও বিস্তৃত হয় তার অভিনয় প্রতিভা। ২০১৫ সালে ‘রোমিও বনাম জুলিয়েট’ সিনেমার মাধ্যমে টলিউডেও অভিষেক ঘটে তার। ২০১৬ সালে হুমায়ূন আহমেদের বিখ্যাত উপন্যাস কৃষ্ণপক্ষের ‘অরু’ চরিত্রে অভিনয় করে বেশ প্রশংসিত হয়। অবশ্য এসব কাজের মধ্যেই বিভিন্ন বিতর্কে জড়িয়েছেন মাহী। করেছেন বিয়েও।

তবে গত বছরের শেষ প্রান্তে এসে প্রথম সংসারে বিচ্ছেদ এবং দ্বিতীয় বিয়ে করে আলোচনায় থাকলেও অভিনয়ের অঙ্গন থেকে ক্রমেই পিছিয়ে যেতে থাকেন এ নায়িকা। অভিনয়ের ব্যস্ততা না থাকলেও নতুন স্বামীকে নিয়ে ঘোরাফেরা এবং নিজের ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠান নিয়ে প্রচারণাতেই মনোযোগ বেশি এ অভিনেত্রীর। তবে কী মাহীর দিন ফুরিয়ে যাচ্ছে? এমন প্রশ্ন উঠেছে সিনেপাড়ায়। সিনেমা বিশ্লেষকদের অনেকেই বলছেন, যেখানে অনেক নায়িকাই সম্ভাবনা জাগিয়েও টিকতে পারছেন না সেখানে মাহী সুসংহত অবস্থানে থেকেও নিজেকে নিয়ে সিরিয়াস নন। তবে মাহী বলছেন ভিন্ন কথা।

তিনি বলেন, ‘২০২০ সাল থেকে অনেকদিন করোনার কারণে পুরো ইন্ডাস্ট্রিই স্থবির হয়ে ছিল। শুটিং বন্ধ ছিল। প্রেক্ষাগৃহ বন্ধ ছিল। তাই আমাকেও বসে থাকতে হয়েছে। এখন পরিস্থিতি ভালোর দিকে যাওয়ায় আমিও শুটিং শুরু করেছি। আশা করছি হাতে থাকা সিনেমাগুলো মুক্তি পেলে দর্শক আবারও আমার অভিনয় রসায়ন দেখতে পাবেন।’ এদিকে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে এখনো মাহী অভিনীত পাঁচটি সিনেমা মুক্তির অপেক্ষায় আছে। এগুলো হলো, ‘প্রেমের বাঁধন’, ‘গোলাপতলীর কাজল’, ‘আনন্দ অশ্রু’, ‘মন দেব মন নেব’ এবং ‘আশীর্বাদ’। হাতে থাকা সিনেমাগুলো দিয়েই ক্যারিয়ারে নতুন মাত্রা যোগ করবেন-এমন প্রত্যাশা তার।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন