অসংখ্য নাটকের ভিড়ে দর্শকের নজর কেড়েছে ঈদের ম্যাগাজিন

  হাসান সাইদুল ৩০ আগস্ট ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

ঈদ উপলক্ষে অনুষ্ঠাননির্ভর টিভি চ্যানেলগুলো নাটক-সিনেমা প্রচারের পাশাপাশি নানা ঢংয়ের ম্যাগাজিন অনুষ্ঠানও প্রচার করে থাকে। এবারের ঈদে টেলিভিশন ম্যাগাজিনগুলো ভিন্নরূপে দর্শকদের সামনে এসেছে। রাষ্ট্রীয় টিভি চ্যানেল বাংলাদেশ টেলিভিশন এবারের ঈদ উপলক্ষে দুটি ম্যাগাজিন অনুষ্ঠান নির্মাণ করেছে। এর মধ্যে একটি ‘আনন্দমেলা’। এ অনুষ্ঠানটি শুধু ঈদেই নির্মাণ করা হয়। অন্যটি ‘পরিবর্তন’। এটি অবশ্য বিটিভির নিয়মিত ম্যাগাজিন অনুষ্ঠান। গত রোজার ঈদে না থাকলেও কোরবানির ঈদে বর্ণাঢ্য আয়োজনে পরিবর্তন সাজানো হয়েছে। আনজাম মাসুদের গ্রন্থনা, পরিকল্পনা, নির্দেশনা ও উপস্থাপনায় এবারের পরিবর্তনে চিরসবুজ গায়ক কুমার বিশ্বজিৎ তার তিন শিষ্য সঙ্গীতশিল্পী কিশোর, মাহাদী ও রাজীবকে নিয়ে গেয়েছেন তার গাওয়া জনপ্রিয় ৩টি গানের অংশবিশেষ। এ পরিবেশনার মাধ্যমে কম্পোজিশন ও গায়কীতে নতুনত্বের স্বাদ পেয়েছেন দর্শকরা। এছাড়াও জাহিদ বাশার পংকজের নতুন সঙ্গীতায়োজনে জনপ্রিয় দুই লালন কন্যা বিউটি ও সালমা তাদের গুরু বাউল শফি মণ্ডলের সঙ্গে গেয়েছেন লালন সাঁইজির বহুল শ্রোতাপ্রিয় গান ‘মানুষ ছাড়া খ্যাপা রে তুই মানুষ হবি’। এ গানটিও শ্রুতিমধুর ছিল। প্রচলিত গান ‘আমার মনও না চায়, এ ঘর বাঁধিল কিশোরী’ গানটিতে সুজন আরিফের নতুন সঙ্গীতায়োজনে কর্ণিয়া, ঝিলিক, সিথি সাহা, বেলাল, এফএ সুমন ও সুজন আরিফের পরিবেশনাও দর্শকদের কাছে গ্রহণযোগ্যতা পেয়েছে। অন্যদিকে হারানো দিনের বাংলা চলচ্চিত্রের ৩টি জনপ্রিয় গানের অংশবিশেষের সমন্বয়ে করা কম্পোজিশনে লিখন-নাদিয়ার নৃত্য পরিবেশনাও ছিল বেশ। অভিনেত্রী চাঁদনীর নাচের সেগমেন্টও দর্শক মন জুড়িয়েছে। এ ছাড়া নিয়মিত নাট্যাংশগুলোতে নতুনত্ব ছিল। নাট্যাংশগুলোতে অভিনেতা-অভিনেত্রীরাও নিজেদের সেরাটা দেয়ার চেষ্টা করেছেন বলে মনে হয়েছে। তবে কিছু কিছু জায়গায় মনে হয়েছে বেশ তাড়াহুড়া করা হয়েছে। এর কারণ হতে পারে সময় এবং বাজেট স্বল্পতা। বাজেটের পরিমাণ আরও একটু বাড়ালে নির্মাতা আনজাম মাসুদ বোধহয় আরও একটু ভালো অনুষ্ঠান উপহার দিতে পারতেন।

অন্যদিকে ‘আনন্দমেলা’ ছিল গতানুগতিক। চোখে পড়ার মতো বিশেষ কিছু ছিল না তাতে। বরং মনে হয়েছে গত ঈদের সেগুমেন্টগুলো ঘষেমেজে চকচক করে সাজিয়ে দেয়া হয়েছে। এ অনুষ্ঠানটির দিকে কর্তৃপক্ষের আরও একটু নজর দেয়া উচিত। অনুষ্ঠানজুড়ে শওকত আলী ইমনের নতুন কম্পোজিশনে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের ‘আনন্দলোকে মঙ্গলালোকে বিরাজ সত্য সুন্দর’ গানটিতে বাপ্পা মজুমদার, আঁখি আলমগীর, শওকত আলী ইমন, বালাম, কণা ও কোনালের উপস্থিতি ছিল লক্ষণীয়। পাশাপাশি ফেরদৌস ও পূর্ণিমার উপস্থাপনা দিয়ে চমক দেয়ার চেষ্টা ছিল।

বাংলাদেশ কৃষি প্রধান দেশ। এ দেশের বেশিরভাগ মানুষ কৃষির সঙ্গে জড়িত। বৃহৎ এই জনগোষ্ঠী প্রত্যন্ত অঞ্চলে বসবাস করে। তাদের নিয়ে প্রতি ঈদে চ্যানেল আই আয়োজন করে ‘কৃষকের ঈদ আনন্দ’ নামের একটি অনুষ্ঠান। বেশ জনপ্রিয়তা পাওয়া এই অনুষ্ঠানটি বাংলাদেশ ছাড়াও দেখেন বিশ্বের কোটি মানুষ। ঈদ সামনে রেখে ‘কৃষকের ঈদ আনন্দ’র এবার চিত্রধারণ করা হয়েছিল কুড়িগ্রাম জেলার ধরলা নদীর পাড়ে। শাইখ সিরাজের পরিকল্পনা, উপস্থাপনা ও পরিচালনায় ‘কৃষকের ঈদ আনন্দ’ বরাবরের মতো মজাদার ছিল। এবারের অনুষ্ঠানে কুড়িগ্রামের চিলমারী এলাকার কৃষকদের অবস্থা, মাছ চাষ, আর্থসামাজিক, জীবনযাত্রার মান তুলে ধরা হয়েছিল। শুধু তাই নয়, কৃষকের ঈদ আনন্দের মধ্যে ছিল কৃষকদের অংশগ্রহণে চার পালোয়ানের কাপড় টানা লড়াই, পানিতে নেমে কৃষক দম্পতিদের অংশগ্রহণে চোখ বাঁধা খেলা, শিশুদের বল খেলা, কৃষকের বালিশ লড়াই, তৈলাক্ত কলাগাছে ওঠার মতো বিচিত্র সব খেলা ছিল এবারের আয়োজনে। সব খেলাই ছিল উপভোগ্য। আরও ছিল বিদেশের নানা প্রতিবেদন। এবারের ঈদ আয়োজনে বেসরকারি টিভি চ্যানেলগুলোর ম্যাগাজিন অনুষ্ঠানের মধ্যে ‘কৃষকের ঈদ আনন্দ’ ছিল দর্শকনন্দিত।

ঈদুল আজহা উপলক্ষে এটিএন বাংলায় প্রচারিত বিশেষ ম্যাগাজিন অনুষ্ঠান ‘পাঁচফোড়ন’ ব্যাপক প্রশংসিত হয়েছে। নানা ব্যতিক্রমী আয়োজন পরিবেশনের মাধ্যমে অনুষ্ঠান সাজানো হয়েছিল। এ অনুষ্ঠানটি ফাগুন অডিও ভিশনের ব্যানারে নির্মাণ করেছেন নন্দিত নির্মাতা ও উপস্থাপক হানিফ সংকেত। অনুষ্ঠানে আসিফ আকবর, প্রতীক হাসান ও ঐশীর গাওয়া গানগুলো শ্রুতিমধুর ছিল। দুই বন্ধুর ভূমিকায় রম্যগল্পে মীর সাব্বির ও সাজু খাদেমের অভিনয় দর্শকের মন কেড়েছে। এ ছাড়া বিভিন্ন স্থানে চিত্রায়িত একটি ভিন্নধর্মী ব্যঙ্গাত্মক গানের সঙ্গে একদল নৃত্যশিল্পীর নৃত্য পরিবেশনাও ছিল দর্শনীয়। কোরবানি ঈদ ও অন্যান্য বিষয়ে বিভিন্ন শিল্পীদের অংশগ্রহণে নির্মিত নাট্যাংশ বেশ প্রশংসিত হয়েছে দর্শক মহলে। এ ছাড়া এটিএন বাংলায় ‘ঈদের বাজনা বাজেরে’ নামে আরও একটি নিয়মিত ঈদ ম্যাগাজিন প্রচার হয়েছে। খন্দকার ইসমাইলের উপস্থাপনা ও পরিচালনায় ব্যতিক্রমী আয়োজন নিয়ে পরিবেশনার চেষ্টা করা হয়েছিল অনুষ্ঠানটি। এতে পরিবেশিত গান ও হাস্যরসাত্মক নাট্যাংশগুলো দর্শকদের বিনোদন দিয়েছে। অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করেছেন ব্যান্ড দল এলআরবি। আরও দুটি বিশেষ গানে অংশ নিয়েছেন সিথি সাহা, কিশোর, রাফাত, পূজা, আয়েশা মৌসুমী, বৃষ্টি ও সুজন আরিফ। এ অনুষ্ঠানের মাধ্যমে উপস্থাপক ও অনুষ্ঠান নির্মাতা দর্শকদের বিনোদন দেয়ার চেষ্টা করেছেন বটে, কিন্তু বেশিরভাগই গতানুগতিক মনে হয়েছে। তবে অনেক নাটকের চেয়ে এ ধরনের ম্যাগাজিন অনুষ্ঠানগুলোর দিকে দর্শকদের নজর ছিল লক্ষণীয়।

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter