সংসদে আইন পাস

মাদক কেনাবেচায় সর্বোচ্চ শাস্তি মৃত্যুদণ্ড

  সংসদ রিপোর্টার ২৮ অক্টোবর ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

সংসদে আইন পাস
ফাইল ছবি

ইয়াবা (অ্যামফিটামিন), কোকেন, হেরোইন পরিবহন, কেনাবেচা, ব্যবসা, সংরক্ষণ, উৎপাদন, প্রক্রিয়াজাতকরণ, হস্তান্তর, সরবরাহ ইত্যাদি অপরাধের জন্য সর্বোচ্চ শাস্তি মৃত্যুদণ্ড বা যাবজ্জীবনের বিধান রেখে জাতীয় সংসদে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ বিল-২০১৮ পাস করা হয়েছে।

অবশ্য বহনের পরিমাণ অনুযায়ী সাজা কম-বেশি হতে পারে। কোনো ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠান এ আইনের অধীন অপরাধ সংঘটনে অর্থ বিনিয়োগ, সরবরাহ, মদদ ও পৃষ্ঠপোষকতা দিলেও একই ধরনের শাস্তির বিধান রাখা হয়েছে।

শনিবার বিলটি পাসের প্রস্তাব উত্থাপন করেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল। যদিও বিরোধীদলীয় কয়েকজন সংসদ সদস্য বিলটিতে সংশোধনী এনে সর্বোচ্চ শাস্তি মৃত্যুদণ্ডের বিরোধিতা করেন। বিরোধী দলের সদস্যদের প্রস্তাবের জবাবে মন্ত্রী বলেন, মাদক একটি ভয়াবহ ব্যাধি।

এখানে শাস্তি নিশ্চিত করতে না পারলে আমরা পথ হারিয়ে ফেলব। সেজন্য আমরা আইনে অর্থলগ্নি, পৃষ্ঠপোষকতা, মদদদাতা সবাইকে শাস্তির আওতায় নিয়ে আসছি। মাদক নির্মূল করতে না পারলে আমরা রূপকল্প-২০৪১ বা ২০২১- যাই বলি কিছুই অর্জিত হবে না।

এরপর বিলটি পাসের প্রস্তাব কণ্ঠভোটে দিলে তা সর্বাধিক সমর্থন নিয়ে পাস করা হয়। এর আগে ২২ অক্টোবর বিলটি সংসদে উত্থাপন করেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী। বিলটি ৮ অক্টোবর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত মন্ত্রিসভার বৈঠকে অনুমোদন পায়।

বিলে মাদক চাষাবাদ, উৎপাদন বা প্রক্রিয়াজাতকরণের ক্ষেত্রে ২৫ গ্রামের বেশি হলে সর্বোচ্চ শাস্তি মৃত্যুদণ্ড বা যাবজ্জীবন দণ্ডের বিধান রাখা হয়েছে। আর ২৫ গ্রামের নিচে হলে কমপক্ষে দু’বছর ও সর্বোচ্চ ১০ বছরের কারাদণ্ডের বিধান আছে। ইয়াবা বহনের ক্ষেত্রে ২০০ গ্রামের বেশি হলে সর্বোচ্চ শাস্তি মৃত্যু অথবা যাবজ্জীবন কারাদণ্ড এবং অর্থদণ্ড। তবে ১০০ গ্রাম বা মিলিলিটার হলে সর্বনিু ৫ বছর এবং সর্বোচ্চ ১০ বছরের কারাদণ্ডের বিধান রাখা হয়েছে।

কেউ যদি সজ্ঞানে কোনো মাদকদ্রব্য অপরাধ সংঘটনের জন্য তার মালিকানাধীন অথবা দখলি কোনো বাড়িঘর, জায়গা-জমি, যানবাহন, যন্ত্রপাতি অথবা সাজ-সরঞ্জাম কিংবা অর্থ-সম্পদ ব্যবহারের অনুমতি দেন তাহলে সেটা অপরাধ বলে গণ্য হবে। এ অপরাধের শাস্তি সর্বোচ্চ পাঁচ বছরের কারাদণ্ড ও অর্থদণ্ড।

এছাড়া লাইসেন্সপ্রাপ্ত না এমন কোনো ব্যক্তির কাছে অথবা তার জায়গায় যদি মাদকদ্রব্য উৎপাদনে ব্যবহারযোগ্য কোনো যন্ত্রপাতি ওয়াশ অথবা অন্য উপকরণ পাওয়া যায় সেটাও অপরাধ বলে গণ্য হবে। এর শাস্তি ন্যূনতম দুই বছরের কারাদণ্ড, সর্বোচ্চ ১০ বছরের কারাদণ্ড।

বিলে আরও বলা হয়েছে, অনুমতি ছাড়া কোনো ব্যক্তি অ্যালকোহল পান করতে পারবে না এবং চিকিৎসার প্রয়োজনে সিভিল সার্জন অথবা সরকারি মেডিকেল কলেজের কোনো সহযোগী অধ্যাপকের লিখিত ব্যবস্থাপত্র ছাড়া কোনো মুসলমানকে অ্যালকোহল পান করার অনুমোদন দেয়া যাবে না। প্রস্তাবিত আইনানুযায়ী, মাদকাসক্ত ব্যক্তির ডোপ টেস্টে ইতিবাচক ফল পাওয়া গেলে কমপক্ষে ৬ মাস ও সর্বোচ্চ ৫ বছর কারাদণ্ড দেয়া হবে।

বাংলাদেশ লোক প্রশাসন প্রশিক্ষণ কেন্দ্র বিল-২০১৮ : এছাড়া শনিবার দেশের ঊর্ধ্বতন সরকারি ও বেসরকারি নির্বাহীদের গতিশীল ও উন্নয়নমুখী সমাজ গঠনে নেতৃত্ব দেয়ার উপযোগী করে গড়ে তোলার লক্ষ্যে তাদের বুনিয়াদী ও কর্মকালীন শিক্ষা দেয়ার নিমিত্তে বাংলাদেশ লোক প্রশাসন প্রশিক্ষণ কেন্দ্র বিল-২০১৮ সংসদে পাস হয়েছে। জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ইসমত আরা সাদের বিলটি উত্থাপন করলে বিরোধী দলের সদস্যদের কিছু সংশোধনী ও বিরোধিতা সত্ত্বেও সংসদে কণ্ঠভোটে তা পাস হয়ে যায়।

বাংলাদেশ সংবাদ সংস্থা বিল-২০১৮ : এর বাইরে বাংলাদেশ সংবাদ সংস্থা বিল-২০১৮ পাস হয়েছে। বাংলাদেশ সংবাদ সংস্থার কার্যক্রম সঠিকভাবে প্রতিপালনের উদ্দেশে বিলটি আনা হয়েছে বলে জানান উত্থাপনকারী তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু। এতেও বিরোধী দলের কয়েকজন সংসদ সদস্য বিরোধিতা করেন এবং কিছু সংশোধনী দিয়ে তা পুনরায় স্থায়ী কমিটিতে পাঠানোর প্রস্তাব দিলেও তা কণ্ঠভোটে নাকচ হয়ে যায়। পরে সংসদে ধ্বনী ভোটে বিলটি পাস হয়ে যায়।

ঘটনাপ্রবাহ : মাদকবিরোধী অভিযান ২০১৮

আরও
আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×