বিএনপির মনোনয়ন প্রত্যাশীদের সাক্ষাৎকার

যোগ্যদের মনোনয়ন দেয়ার আশ্বাস হাইকমান্ডের

  যুগান্তর রিপোর্ট ২০ নভেম্বর ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

বিএনপির মনোনয়ন প্রত্যাশীদের সাক্ষাৎকার
বিএনপির মনোনয়ন প্রত্যাশীদের সাক্ষাৎকার। ছবি: যুগান্তর

দল থেকে যাকেই মনোনয়ন দেওয়া হবে তার পক্ষে সবাইকে ঐক্যবদ্ধভাবে নির্বাচন করার কঠোর নির্দেশনা দিয়েছে বিএনপি। দলের চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার মুক্তি ও দেশের গণতন্ত্রকে মুক্ত করার জন্য নেতাকর্মীদের এই নির্দেশনা দেয়া হয়। একই সঙ্গে তাদের এখন থেকেই নির্বাচনী কার্যক্রম শুরু করতে বলা হয়েছে।

সোমবার গুলশানে বিএনপি চেয়ারপারসনের রাজনৈতিক কার্যালয়ে জাতীয় নির্বাচনে মনোনয়নপ্রত্যাশীদের সাক্ষাৎকারের দ্বিতীয় দিনে দলের হাইকমান্ড এসব নির্দেশনা দেন। সেখানে মনোনয়নপ্রত্যাশীদের ইতিবাচক মতামতও গ্রহণ করছেন দলটির নীতিনির্ধারকরা। এদিনও স্কাইপে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে সাক্ষাৎকার প্রক্রিয়ায় অংশ নেন দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান। তিনি মনোনয়নপ্রত্যাশীদের বিভিন্ন দিকনির্দেশনা দেন।

সকাল সাড়ে ৯টা থেকে বরিশাল বিভাগের সাক্ষাৎকার শুরু হয়। প্রথমে জেলার তিনটি আসনের মনোনয়নপ্রত্যাশীদের একসঙ্গে ডাকেন পার্লামেন্টারি বোর্ড। বেলা দেড়টা পর্যন্ত বরিশাল বিভাগের ৬টি জেলার ২১টি সংসদীয় আসনে ১৮৪ জনের সাক্ষাৎকার নেয়া হয়। দুপুরের বিরতির পর শুরু হয় খুলনা বিভাগের সাক্ষাৎকার। এ বিভাগের ১০ জেলার ৩৬টি আসনে ২৯০ জন প্রার্থীর সাক্ষাৎকার নেয়া হয়। রোববার রংপুর ও রাজশাহী বিভাগের মনোনয়নপ্রত্যাশীদের সাক্ষাৎকারের মধ্য দিয়ে এ প্রক্রিয়া শুরু হয়। আজ তৃতীয় দিনে সকাল ৯টা থেকে দেড়টা পর্যন্ত চট্টগ্রাম বিভাগ, দুপুর আড়াইটা থেকে কুমিল্লা ও সিলেট বিভাগের সাক্ষাৎকার হবে। পার্লামেন্টারি বোর্ডে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ, ব্যারিস্টার জমিরউদ্দিন সরকার, লে. জে. (অব.) মাহবুবুর রহমান, ব্যারিস্টার রফিকুল ইসলাম মিয়া, মির্জা আব্বাস, গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, ড. আবদুল মঈন খান, নজরুল ইসলাম খান ও আমীর খসরু মামুদ চৌধুরী উপস্থিত ছিলেন। সাক্ষাৎকালে মনোনয়নপ্রত্যাশী ছাড়াও সংশ্লিষ্ট জেলা ও মহানগর কমিটির সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক এবং বিভাগীয় সাংগঠনিক ও সহসাংগঠনিক সম্পাদকরা উপস্থিত ছিলেন।

সকাল সাড়ে নয়টায় গুলশান কার্যালয়ে সাক্ষাৎ করতে আসা দলের সংস্কারপন্থী হিসেবে পরিচিত শহীদুল হক জামালকে নেতাকর্মীরা লাঞ্ছিত করেন। তিনি বরিশাল-২ আসনের মনোনয়নপ্রত্যাশী। কয়েকদিন আগে তাকে দলে সক্রিয় করা হয়। এ সময় নেতাকর্মীরা তার অতীত ভুল রাজনীতি নিয়ে কটাক্ষ করেন। সাক্ষাৎকার শেষে বের হয়ে যাওয়ার সময় শহীদুল হক জামাল পেছনের ভুল স্বীকার করলে নেতাকর্মীরা তার পথ ছেড়ে দাঁড়ায়। একইভাবে ঝালকাাঠি জেলার সাবেক সংসদ সদস্য ইসরাত সুলতানা ইলেন ভুট্টো ও বরিশালের সাবেক এমপি অধ্যক্ষ রশিদ হাওলাদারের বিরুদ্ধেও নেতাকর্মীরা স্লোগান দিতে থাকেন।

সাক্ষাৎ শেষে বেশ কয়েকজন নেতার সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, সোমবারও দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান ভিডিও কনফারেন্সে কথা বলেছেন। তিনি সব প্রার্থীর কাছে জানতে চান- দল থেকে যাকেই মনোনয়ন দেয়া হবে তারা তার পক্ষে কাজ করবেন কিনা? এ সময় সব মনোনয়নপ্রত্যাশী ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করার অঙ্গীকার করেন। তবে ব্যতিক্রম ঘটনায় বরিশাল-৫ আসনে বরিশাল মহানগর বিএনপির সভাপতি ও সাবেক মেয়র মজিবর রহমান সরোয়ার চুপ করে থাকেন। এ সময় তারেক রহমান তাকে উদ্দেশ করে বলেন- মজিবর রহমান সাহেব কোনো কথা বলছেন না। পরে এর উত্তরে সরোয়ার ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করার অঙ্গীকার করেন।

ভোলা-১ আসনের মনোনয়নপ্রত্যাশী ব্যারিস্টার আক্তার হোসেন বলেছেন, ভোলার ৪টি আসনের সব মনোনয়নপ্রত্যাশীকে একসঙ্গে ডাকা হয়। এই প্রথম খালেদা জিয়াকে বাদ দিয়ে এ ধরনের মনোনয়ন বোর্ড কাজ করছে। তাই প্রত্যেক মনোনয়নপ্রত্যাশীই মানসিকভাবে দুর্বল ছিল। তবে তারেক রহমানের বক্তব্যের পর সবার মধ্যেই আলাদা মানসিকতা তৈরি হয়। তিনি প্রায় দশ মিনিট বক্তব্য রাখেন। মনোনয়ন বোর্ডে প্রবেশের পর দলের মহাসচিব ভূমিকা বক্তব্য রাখেন। এরপরই তারেক রহমান স্কাইপে সবার উদ্দেশে বক্তব্য রাখেন। এ সময় তিনি বলেন, তাদের দলের মনোনয়ন বোর্ড সব থেকে যোগ্য প্রার্থীদেরই মনোনয়ন দেবেন। সেই প্রার্থীকে বিজয়ী করতে তাদের ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করার জন্য প্রতিশ্র“তি দিতে হবে। এ সময় সবাই তার সঙ্গে একমত পোষণ করে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করার অঙ্গীকার করেন।

পটুয়াখালী-২ আসনের মনোনয়নপ্রত্যাশী দলের সহদফতর সম্পাদক মুনির হোসেন বলেছেন, তাদের জেলার ৪টি আসনের মনোনয়নপ্রত্যাশীদের একসঙ্গে ডাকা হয়েছে। মনোনয়ন বোর্ডে তাদের তেমন কিছু জিজ্ঞাসা করা হয়নি। শুধু তারেক রহমান বলেছেন, বাঁচতে হলে ধানের শীষকে বিজয়ী করতে হবে। এর মাধ্যমে খালেদা জিয়ার মুক্তি মিলবে, দেশের জনগণের মুক্তি মিলবে, গণতন্ত্রের মুক্তি মিলবে। তাই সবাইকে ঐক্যবদ্ধভাবে এই নির্বাচনযুদ্ধে অবতীর্ণ হতে হবে।

পার্লামেন্টারি বোর্ডের সদস্যরা মনোনয়নপ্রত্যাশীদের উদ্দেশে বলেছেন, এবার একটা ভিন্ন পরিস্থিতিতে ভোট হচ্ছে। তাই সবাই কৌশলগত এই নির্বাচনে সর্বাÍক সহযোগিতা করবেন। সব সময় রাজপথের কর্মসূচি দিয়ে আন্দোলন হয় না। বিভিন্ন কৌশল অবলম্বন করতে হয়। তাই এবারের জাতীয় নির্বাচন তাদের কাছে আন্দোলনের কৌশল। এখানে ক্ষমতাসীনদের সঙ্গে টিকে থাকতে হবে। ভোটের মাঠে ছেড়ে দেয়া যাবে না। তাই যারা নিজ নিজ এলাকায় বিরূপ পরিবেশের সঙ্গে লড়াই করে ভোটের মাঠে থাকতে পারবেন, ভোটারদের সঙ্গে থাকতে পারবেন, তাদেরই মনোনয়ন পাওয়ার সম্ভাবনা বেশি। প্রার্থীদের মনোবল কতটা শক্ত, প্রার্থীর জন্য স্থানীয় নেতাকর্মীরা কতটা ত্যাগ স্বীকার করতে পারবেন সেটা দেখা হচ্ছে।

দুপুরের পর খুলনা বিভাগের বাগেরহাট জেলার মনোনয়ন নেয়ার সময় এই জেলার নেতাকর্মীরা গুলশান কার্যালয়ের বাইরে দলের বিভিন্ন নেতাদের বিরুদ্ধে ক্ষোভ প্রকাশ করেন। তারা বলেন, বাগেরহাট জেলার-৩ আসন রামপাল উপজেলা বিএনপির সভাপতি হাফিজুর রহমান তুহিন স্থানীয় আওয়ামী লীগ এমপির সহায়তায় ব্যবসা-বাণিজ্য করছেন। এখন তার টাকায় তুহিন ভুয়া মনোনয়নপ্রত্যাশী হয়েছেন নৌকাকে বিজয়ী করার জন্য। শেখ মোহাম্মদ মাসুম নামের একজন কর্মী জানান, সরকারের ষড়যন্ত্রে পা দিয়ে বিএনপির নেতা তুহিন ছাড়া জুলফিকার ধানের শীষে নির্বাচন করতে চাচ্ছেন। দলের নেতাকর্মীদের সঙ্গে তাদের কোনো সম্পর্ক না থাকলেও জেলা বিএনপির সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের পকেট কমিটিতে তারা দলের বিরুদ্ধে কাজ করছেন। তারা এ বিষয়টি কেন্দ্রকে জানানোর জন্য এসেছেন। খুলনা-৫ আসনের প্রার্থী ড. মামুন রহমান এফসিএ বলেন, তাদের সাক্ষাৎকালে তারেক রহমানের বক্তব্যের পর দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান দিকনির্দেশনামূলক বক্তব্য রাখেন। এছাড়া দলের মহাসচিব তাদের সবার সঙ্গে নির্বাচন ও আন্দোলন নিয়ে কথা বলেন।

ঘটনাপ্রবাহ : একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter
×