সংবাদ সম্মেলনে ওবায়দুল কাদের

মনোনয়ন নিয়ে গণমাধ্যমে প্রকাশিত তালিকা মনগড়া

  যুগান্তর রিপোর্ট ২০ নভেম্বর ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

সংবাদ সম্মেলনে ওবায়দুল কাদের
সংবাদ সম্মেলনে ওবায়দুল কাদের। ছবি: যুগান্তর

আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনয়ন নিয়ে গণমাধ্যমে যে খবর প্রকাশিত হয়েছে, সেগুলোর কোনো ভিত্তি নেই বলে দাবি করেছেন দলটির সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

তিনি বলেন, ‘মনোনয়নের তালিকা যার যার মনগড়া। এসব তালিকার কোনো বাস্তবতা নেই। কাউকেই মনোনয়নের নিশ্চয়তা দেয়া হয়নি। যতক্ষণ পর্যন্ত আমরা অফিসিয়ালি ঘোষণা না করছি, ততক্ষণ পর্যন্ত কেউ জোটের মনোনীত প্রার্থী- এটা দাবি করতে পারবে না।’

সোমবার বিকালে আওয়ামী লীগ সভাপতির ধানমণ্ডির রাজনৈতিক কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন। ওবায়দুল কাদের বলেন, সবার সঙ্গে আলাপ-আলোচনা করে আমাদের নেত্রী (আওয়ামী লীগ সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা) সিদ্ধান্ত জানিয়েছেন। ১৪ দল, জাতীয় পার্টি, যুক্তফ্রন্ট- সবার অনুরোধের পরিপেক্ষিতে সিদ্ধান্ত হয়েছে, জোটগতভাবে মনোনয়নের তালিকা প্রকাশ করা হবে। কবে নাগাদ প্রার্থীদের নাম ঘোষণা হতে পারে- এমন প্রশ্নে তিনি বলেন, ২৭ তারিখ পার করব না। এর আগে এটা প্রস্তুত করতে হবে। আপনারা একটু ধৈর্য ধরেন। উপস্থিত গণমাধ্যম কর্র্মীদের উদ্দেশ করে তিনি বলেন, আমরা তালিকা দেয়ার আগেই আপনারা তালিকা প্রকাশ করে দিচ্ছেন। আমার মনোনয়ন চূড়ান্ত করার আগেই আপনারা দিয়ে দিচ্ছেন। আমাদের পক্ষ থেকে কাউকেই মনোনয়নের নিশ্চয়তাও দেয়া হয়নি।

ঐক্যফ্রন্টের ব্যানারে একটি দল নির্বাচন বানচালের পাঁয়তারা করছে অভিযোগ করে ওবায়দুল কাদের বলেন, সারাদেশে শান্তিপূর্ণ নির্বাচনের পরিবেশ বিরাজ করছিল। আমরা উদ্বেগের সঙ্গে লক্ষ্য করছি সিডিউল ঘোষণার পর মনোনয়ন প্রদান পর্যায়ে তারা পরিকল্পিতভাবে মনোনয়নপত্র সংগ্রহের নামে সারাদেশ থেকে তাদের নেতাকর্মীর পাশাপাশি সন্ত্রাসীদের জড়ো করে পুলিশের ওপর হামলা করেছে। পুলিশের গাড়ি পুড়িয়েছে, ভাংচুর করেছে। যেখানে ২০ জনের মতো পুলিশ গুরুতর আহত হয়ে হাসপাতালে।

আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন, এতদিন যারা পরিবেশ পরিবেশ বলে চিৎকার করছিল, সিডিউল ঘোষণার পর তারাই নির্বাচনী পরিবেশ বিনষ্ট করছে। তিনি বলেন, আমাদের চার হাজার মনোনয়ন ফরম বিক্রি হয়েছে। এখন তারা তার চেয়ে বেশি বিক্রি দেখাতে চায়। আর এজন্য তারা চিহ্নিত দাগী সন্ত্রাসীদের জড়ো করে ফরম বিক্রি দেখাচ্ছে। তারা দেশে অরাজকতা সৃষ্টি করতে চায়। আমি চ্যালেঞ্জ করে বলছি- তারা মনোনয়ন ফরম বিক্রির ভুয়া সংখ্যাতত্ত্ব দিচ্ছে। তাদের মনোনয়নপত্র বিক্রি কত হতে পরে, এটা দেশের মানুষ ভালো করেই জানে।

বিএনপির প্রার্থী বাছাই প্রসঙ্গে ওবায়দুল কাদের বলেন, সাক্ষাৎকার হচ্ছে বাংলাদেশে, আর সাক্ষাৎকার নিচ্ছে টেমস নদীর পাড় থেকে, লন্ডন থেকে। এর রহস্য কী? কে সাক্ষাৎকার নিচ্ছে? হাইকোর্টের নিষেধাজ্ঞা আছে ২০১৫ সালের। কোনো প্রচার প্রচারণায় অংশ নিতে পারবে না তারেক রহমান। সেই তারেক রহমান তখন অভিযুক্ত ছিল। এখন দণ্ডিত। এমন একটি লোককে দলের ভাইস চেয়ারম্যান থেকে ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান করার জন্য গঠনতন্ত্র থেকে বিএনপি ৭ ধারা বাদ দিয়েছে। সেখানে ছিল কোনো দণ্ডিত ব্যক্তি নেতা হতে পারবেন না। কোনো দুর্নীতিবাজ সামাজিকভাবে কুখ্যাত কোনো ব্যক্তি বিএনপির নেতা হতে পারবে না। বেগম জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলার রায়ের এক সপ্তাহ আগে রাতের অন্ধকারে দলের গঠনতন্ত্র থেকে ৭ ধারা বাদ দেয় এবং সেই ৭ ধারা বাদ দিয়ে আÍস্বীকৃত, দণ্ডিত দুর্নীতিবাজ, সন্ত্রাসী দল হিসেবে চিহ্নিত হয়েছে।

তিনি বলেন, আমি রোববারও বলেছি আজও বলছি, আমাদের প্রশ্ন নির্বাচন কমিশনের কাছে- কী করে একজন দণ্ডিত, পলাতক নেতা লন্ডনে বসে বাংলাদেশের একটা দলের নির্বাচনী কাজে অংশ নিতে পারে? এটা কি আরপিও এর সুস্পষ্ট লঙ্ঘন নয়? আমি আজকেও দেখলাম একই ঘটনার পুনরাবৃত্তি হচ্ছে। ইন্টারভিউ নিয়েছে লন্ডন থেকে। নির্বাচন কমিশনের কাছে আমরা এ বিষয়ে আশু ব্যবস্থা গ্রহণের অনুরোধ জানাচ্ছি। এটা সুস্পষ্টভাবে নির্বাচনী আইন ও নির্বাচনী আচরণবিধি লঙ্ঘন। কাজেই এ বিষয়ে ইসি যথাযথ ব্যবস্থা নেবে- এটাই আমরা আবারও দৃঢ়ভাবে আশা করি। ‘তারেক রহমানের বিরুদ্ধে এই মুহূর্তে কিছুই করার নেই’ নির্বাচন কমিশন সচিবের এমন বক্তব্যের বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, নির্বাচন কমিশন কী বলেছে তা আনুষ্ঠানিকভাবে জানি না। তাই কমিশন সচিবের বক্তব্য নিয়ে কোনো মন্তব্য করব না।

‘বিএনপির প্রার্থীদের গ্রেফতার ও হয়রানি করা হচ্ছে’- দলটির এমন অভিযোগের জবাবে সেতুমন্ত্রী বলেন, আমি চ্যালেঞ্জ করছি- যাদের ধরা হচ্ছে তারা অপরাধী। কোনো না কোনো অপরাধ করেছে। কে ধোয়া তুলসী পাতা প্রমাণ করুন। এ সময় বিএনপির বেশির ভাগ নেতাকর্মী অপরাধী বলে দাবি করে তিনি বলেন, সেই আগুন-সন্ত্রাস থেকে শুরু করে বোমাবাজি। পেট্রোল বোমা, ককটেল, এসব অপরাধের সঙ্গে তারা কেউ না কেউ জড়িত। বিশেষ করে সেই আগুন-সন্ত্রাস, আগুনে পুড়িয়ে মানুষ হত্যা, বাস পোড়ানো, ট্রেনে ফিশপ্লেট উড়িয়ে দেয়া, রাস্তা কাটা, গাছ কাটা, ভূমি অফিসে আগুন, নির্বাচন অফিসে আগুন, শত শত প্রাইমারি স্কুল পুড়িয়ে দেয়া। এগুলো কাদের কাজ? এর সঙ্গে তো তারা জড়িত। এখন তাদের বিরুদ্ধে মামলা হলে সরকারের বিরুদ্ধে বিষোদগার করে বিএনপি। সংবাদ সম্মেলনে আরও উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুবউল আলম হানিফ, সাংগঠনিক সম্পাদক খালিদ মাহমুদ চৌধুরী, আবু সাইদ আল মাহমুদ স্বপন, এনামুল হক শামীম, মুহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল, ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ সম্পাদক সুজিত নন্দী, দফতর সম্পাদক আবদুস সোবহান গোলাপ, বন ও পরিবেশ সম্পাদক দেলোয়ার হোসেন, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি সম্পাদক প্রকৌশলী আবদুস সবুর, উপ-দফতর সম্পাদক ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়া, কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য মারুফা আক্তার পপি, ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি সাইফুর রহমান সোহাগ প্রমুখ।

ঘটনাপ্রবাহ : একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter
×