দেশের মাটিতে মাশরাফির শেষের শুরু!

আজ প্রথম ওয়ানডে

  জ্যোতির্ময় মণ্ডল ০৯ ডিসেম্বর ২০১৮, ০৩:৫৪ | প্রিন্ট সংস্করণ

মাশরাফি বিন মর্তুজা। ছবি: উইকিমিডিয়া
মাশরাফি বিন মর্তুজা। ছবি: উইকিমিডিয়া

উৎসবের আবহের মাঝেই বাজছে বিদায়ের সুর। যা সব সময়ই করুণ। কেউ-ই সে সুর শুনতে চায় না। আড়াল করতে চাইলেন মাশরাফি মুর্তজাও। ঘরের মাটিতে এটাই কি মাশরাফির শেষ ওয়ানডে সিরিজ? ২০১৯ ওয়ানডে বিশ্বকাপের আগে দেশের মাটিতে আর কোনো ওয়ানডে সিরিজ না থাকায় ধরে নেয়া হচ্ছে আপনালয়ে এটাই মাশরাফির শেষের শুরু।

ক্যারিয়ারের ঠিক ২০০তম ওয়ানডে ম্যাচে মাঠে নামার আগে অনেকবারই প্রশ্নটা শুনতে হল বাংলাদেশ অধিনায়ককে। মাশরাফি অবশ্য কৌশলে এড়িয়ে গেলেন উত্তরটা, ‘ভবিষ্যতের কথা এখনই বলা যায় না। মানসিকভাবে এখনও কিছু ঠিক করিনি।’

২০১৫ সাল থেকে মাশরাফির হাত ধরেই ওয়ানডেতে বাংলাদেশের স্বপ্নের উত্থান। ধারাটা এখনও অব্যাহত। বছরের শুরুতে শ্রীলংকার বিপক্ষে দুটি ম্যাচ হারলেও বাকি সময়ের অর্জনে সেটা ঢাকা পড়েছে। সেপ্টেম্বরে সংযুক্ত আরব আমিরাতে ইনজুরির মিছিলে থাকা খর্বশক্তির দল নিয়েও এশিয়া কাপের ফাইনাল খেলেছে বাংলাদেশ।

তার আগে ওয়েস্ট ইন্ডিজের মাটিতে সিরিজ জয়, সর্বশেষ জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে সিরিজে সাকিব, তামিম ও রুবেলকে ছাড়াই দাপুটে জয় পেয়েছে মাশরাফিরা। বছরের শেষ ওয়ানডে সিরিজে পুরো শক্তির বাংলাদেশ ভেতরে ভেতরে হয়তো ক্যারিবীয়দের হোয়াইটওয়াশ করারই মন্ত্র জঁপছে।

তিন ম্যাচের সিরিজটা জয় দিয়ে রাঙাতে চাইবেন দেশের মাটিতে নিজের সম্ভাব্য শেষ সিরিজে নামা মাশরাফিও। মিরপুর শেরেবাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে আজ বেলা ১টায় শুরু হবে প্রথম ওয়ানডে।

ইনডোর থেকে অনুশীলন করে ফেরার পথে কাল রুবেল হোসেন মূল স্টেডিয়ামের মাঠে কেমার রোচের সঙ্গে হাইফাইভ করে নিলেন! রোচ তখন বোলিংয়ে জন্য প্রস্তুত হচ্ছেন। দু’দলের দুই সেরা পেসারের সম্পর্কটা যে আগে থেকেই মধুর।

নিয়মিত আন্তর্জাতিক ম্যাচ ছাড়াও বিপিএলে খেলার সুবাদে দু’দলের ক্রিকেটারদের সম্পর্ক বেশ ভালো। বিপিএলের কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সের হয়ে খেলা মারলন স্যামুয়েলস ও ইমরুল কায়েস যেমন খুনসুটি করলেন অনেকক্ষণ ধরেই।

মাহমুদউল্লাহর বন্ধুত্ব আবার শিমরন হেটমায়ারের সঙ্গে। তবে আজ সব বন্ধুত্ব ভুলেই মাঠে নামবেন তারা। ২০১৪ সালের পর ১৬টি ওয়ানডে সিরিজ খেলে একটিতেও না জেতা ওয়েস্ট ইন্ডিজ ক্ষুধার্ত বাঘের মতো শিকার ধরার অপেক্ষায়।

টেস্ট সিরিজে বাংলাদেশের ঘূর্ণি-বিষে নীল হয়ে হোয়াইটওয়াশ হয়েছে ক্যারিবীয়রা। তবে ফরম্যাট যত ছোট হয়, ওয়েস্ট ইন্ডিজ ততই ভয়ংকর। সর্বশেষ ওয়ানডে সিরিজে ভারতের বিপক্ষেও তারা দারুণ লড়াই করেছে। নতুন অধিনায়ক রোভম্যান পাওয়েলের চাওয়া ঘুরে দাঁড়ানোর শুরুটা বাংলাদেশের বিপক্ষেই হোক।

সিরিজটা রাঙাতে প্রস্তুত বাংলাদেশও। সাকিব টেস্ট সিরিজ দিয়ে ইনজুরি থেকে ফিরেছেন। সিরিজসেরা হয়ে ছন্দে ফেরার আভাস দিয়ে রেখেছেন। তামিম তো ইনজুরি থেকে ফিরে আরও ভালো করেছেন। প্রস্তুতি ম্যাচে ক্যারিবীয়দের বিপক্ষে ৭৩ বলে ১০৭ রানের বিধ্বংসী ইনিংস খেলেছেন।

এ বছর ওয়ানডেতে তামিমের গড় ৯০.১৬। দুই সেঞ্চুরির সঙ্গে রয়েছে চারটি হাফ সেঞ্চুরিও। এই বাঁ-হাতি ফেরায় ওপেনিং নিয়ে এখন মধুর সমস্যায় স্বাগতিকরা। সর্বশেষ জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ওয়ানডে সিরিজে দুই সেঞ্চুরি ও এক হাফ সেঞ্চুরিতে ৩৪৯ রান করে রেকর্ড গড়েছেন ইমরুল কায়েস।

সৌম্য সরকারও ভালো ছন্দে আছেন। রানের মধ্যে আছেন লিটনও। তবে চারজনের মধ্যে একজনকে একাদশের বাইরে থাকতেই হচ্ছে। তিনি হতে পারেন লিটন দাস। সেক্ষেত্রে সৌম্যকে ওয়ানডাউনে খেলানো হবে। সাকিব ও রুবেল হোসেনকে জায়গা দিতে বাইরে থাকতে হবে সাইফউদ্দিনকেও।

টেস্টে সফরকারীদের স্পিনে নাস্তানাবুদ করলেও ওয়ানডে ফরম্যাটে তিন পেসারই মাশরাফির ভরসা। টাইগার অধিনায়ক বলেন, ‘বছরটা আমাদের ভালো গেছে, শুধু দুটি ফাইনাল বাদ দিলে। এশিয়া কাপ জিততে পারলে বিশেষ কিছু হতো।

এখন শেষটা ভালো করতে পারলে এ বছরটা আমাদের খুবই ভালো যাবে।’ দারুণ এক মাইলফলকের সামনে দাঁড়িয়ে মাশরাফি। বাংলাদেশের প্রথম ক্রিকেটার হিসেবে ২০০তম ওয়ানডে খেলতে যাচ্ছেন আজ। এরমধ্যে অবশ্য ১৯৮টি দেশের হয়ে।

শেষ পাঁচ ওয়ানডেতে বাংলাদেশের জয় চারটিতে। অন্যদিকে উইন্ডিজ শেষ পাঁচ ম্যাচের মাত্র একটিতে জিতেছে। তবে ক্যারিবীয় পেসার ওশান থমাসের দুরন্ত গতি চিন্তায় রেখেছে স্বাগতিকদের। সঙ্গে রয়েছেন কেমার রোচও।

দলে রয়েছেন মারলন স্যামুয়েলস ও ড্যারেন ব্রাভোর মতো অভিজ্ঞ ব্যাটসম্যানরা। ওয়ানডে ক্রিকেটে এক হাজার রান থেকে মাত্র পাঁচ রান দূরে রয়েছেন কিয়েরন পাওয়েল। সব মিলিয়ে অধিনায়ক রোভম্যান পাওয়েল জয়ের ব্যাপারে আশাবাদী। তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশকে হারানোর যথেষ্ট শক্তি আমাদের আছে। তারা পূর্ণ শক্তি পেয়েছে কিন্তু আমরাও পূর্ণ শক্তির কাছাকাছি আছি। রোমাঞ্চকর একটি সিরিজ হবে।’

ঘটনাপ্রবাহ : বাংলাদেশ-ওয়েস্ট ইন্ডিজ সিরিজ-২০১৮ ঢাকা

আরও
আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×