পুনরায় নির্বাচনের সুযোগ নেই: সিইসি

  যুগান্তর রিপোর্ট ০১ জানুয়ারি ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

সিইসি কেএম নুরুল হদা
সিইসি কেএম নুরুল হদা। ছবি: যুগান্তর

একাদশ জাতীয় সংসদের পুনরায় নির্বাচনের সুযোগ নেই বলে সরাসরি জানিয়ে দিয়েছেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কেএম নুরুল হদা। তিনি বলেন, জনগণ যেভাবে ভোট দিয়েছে, সেভাবেই ফল এসেছে।

ভোটের আগের রাতে ব্যালটে সিল মারার যে অভিযোগ উঠেছে, তা সম্পূর্ণ অসত্য। আর নির্বাচনের বিষয়ে পুরো কমিশন সন্তুষ্ট বলেও মন্তব্য করেন তিনি। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ভোট গ্রহণের পরদিন সোমবার নির্বাচন-পরবর্তী সংবাদ সম্মেলনে এক প্রশ্নের জবাবে সিইসি এসব কথা বলেন।

এ সময় তিনি জানান, নির্বাচনে প্রায় ৮০ শতাংশ ভোট পড়েছে। নির্বাচনে সহযোগিতা করায় রাজনৈতিক দল, প্রার্থী, পর্যবেক্ষক, সাংবাদিক, আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের ধন্যবাদ জানান সিইসি।

নির্বাচনে নজিরবিহীন কারচুপির অভিযোগ তুলে রোববার রাতে এক সংবাদ সম্মেলনে তা বাতিলের দাবি জানিয়েছেন জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের শীর্ষ নেতা ও গণফোরাম সভাপতি ড. কামাল হোসেন। পাশাপাশি নির্দলীয় নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নতুন নির্বাচনের দাবিও জানান তিনি।

এ প্রসঙ্গে সিইসি বলেন, ‘আমরা আর নতুন করে নির্বাচন করব না। যে নির্বাচন করেছি, সেই নির্বাচন নতুন করে করার কোনো সুযোগ নেই।’ প্রধান দুই দলের ভোটের ব্যবধান বেশি হওয়ার প্রসঙ্গে তিনি বলেন, এটা তো আমাদের দেখার কিছু নাই, বিশ্লেষণেরও কিছু নাই। ভোট তো আমরা দেইনি। জনগণই ভোট দিয়েছে।’

বিএনপি কিংবা ঐক্যফ্রন্ট লিখিত অভিযোগ করলে নবনির্বাচিতদের গেজেট প্রকাশে দেরি হবে কি না, এমন প্রশ্নের জবাবে নুরুল হুদা বলেন, না, যে কেউ অভিযোগ করলে করতে পারে। তবে গেজেট প্রকাশ হবে। অভিযোগের কারণে গেজেট প্রকাশে প্রতিবন্ধকতা হবে না। রিটার্নিং কর্মকর্তাদের মাধ্যমে ফলাফল আসতে আরও ৪-৫ দিন সময় লাগবে। তারপরই আমরা গেজেট প্রকাশ করব। অপর এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, আমরা অতৃপ্ত না, তৃপ্ত।

নির্বাচনে যেসব অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে, সে ব্যাপারে আপনি লজ্জিত কি না, জানতে চাইলে সিইসি বলেন, না, আমরা মোটেও লজ্জিত নই। দু-একটা কেন্দ্রে বিচ্ছিন্ন ঘটনা ঘটে থাকলে, সেটা আমরা তদন্ত করে দেখব। পুরো কমিশন সন্তুষ্ট কি না, জানতে চাইলে সিইসি বলেন, হ্যাঁ, অবশ্যই পুরো কমিশন সন্তুষ্ট। কেউ তো আমাকে অসন্তুষ্টির কথা বলেননি।

নির্বাচনে কোনো অনিয়মের অভিযোগ পাননি জানিয়ে সিইসি বলেন, সারা দিন আপনাদের মাধ্যমেই, দেশি-বিদেশি টেলিভিশনের মাধ্যমে নির্বাচনের অবস্থা দেখেছি। ব্যাপকভাবে অনিয়ম হয়েছে- এমন কিছু আমরা পাইনি। তবে আমরা যেখানে অনিয়ম পেয়েছি, সেখানে নির্বাচনই বন্ধ করে দিয়েছি। দেশি-বিদেশি কোনো গণমাধ্যমে অনিয়ম দেখতে পাইনি। এ সময় সিইসি জানান, এ নির্বাচন নিয়ে তিনি কোনো লিখিত অভিযোগ পাননি।

রাজধানীর অনেক ভোট কেন্দ্রে মধ্যাহ্ন বিরতি দেয়ার অভিযোগ প্রসঙ্গে সিইসি বলেন, এটা দেখতে হবে। এমনটা হওয়ার কথা না। বিরতিহীনভাবেই ভোট হওয়ার নিয়ম। এ ধরনের অভিযোগ পেলে আমরা তদন্ত করে দেখব।

এর আগে লিখিত বক্তব্যে তিনি বলেন, ব্যাপক উৎসাহ, উদ্দীপনা ও শান্তিপূর্ণ পরিবেশে বিপুল ভোটারের ভোট দেয়ার মধ্য দিয়ে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে। মূলত পুরো জাতি ৩০ ডিসেম্বর ভোট উৎসবের মাধ্যমে নতুন একটি সরকার গঠনের সুযোগ করে দিয়েছে। ভোট গ্রহণের প্রস্তুতির বিষয় তুলে ধরে তিনি বলেন, সুষ্ঠু, অবাধ ও নিরপেক্ষ পরিবেশে নির্বাচন অনুষ্ঠানের লক্ষ্যে ব্যাপক প্রস্তুতি গ্রহণ করেছিলাম।

কোনো প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীর যাতে কোনো শঙ্কা না থাকে, প্রতিটি ভোটার যাতে নির্ভয়ে নির্বিঘ্নে আনন্দচিত্তে ভোট কেন্দ্রে এসে স্বাচ্ছন্দ্যে তার পছন্দের প্রার্থীকে ভোট দিয়ে তার ভোটাধিকার প্রয়োগ করতে পারে, সে জন্য সারা দেশে নিশ্ছিদ্র নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়। নির্বাচন সুষ্ঠু, অবাধ ও শান্তিপূর্ণভাবে অনুষ্ঠানে সবার জন্য সমান সুযোগ নিশ্চিত করার লক্ষ্যে প্রয়োজনীয় সব ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়।

নির্বাচনে সহায়তা করায় সেনাবাহিনী পুলিশ, র‌্যাব, কোস্টগার্ড, আনসার বাহিনীর প্রধান ও তাদের সদস্যদের ধন্যবাদ জানান সিইসি।

সংবাদ সম্মেলনে নির্বাচন কমিশনার মাহবুব তালুকদার, মো. রফিকুল ইসলাম, কবিতা খানম ও ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব.) শাহাদাত হোসেন চৌধুরী এবং ইসি সচিব হেলালুদ্দীন আহমদ উপস্থিত ছিলেন।

ঘটনাপ্রবাহ : একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন

আরও
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×