স্মিথ-ওয়ার্নারের ম্যাচে নায়ক আফ্রিদি

রংপুরের প্রথম জয়

  স্পোর্টস রিপোর্টার ০৭ জানুয়ারি ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

স্মিথ-ওয়ার্নারের ম্যাচে নায়ক আফ্রিদি
ছবি: ইন্ডিয়া টুডে

কাগজে-কলমে ম্যাচটা ছিল কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স ও সিলেট সিক্সার্সের। কিন্তু বিপিএলের সীমানা ছাড়িয়ে দুই দলের লড়াইয়ের মোড়কে দ্বৈরথটি যেন হয়ে উঠেছিল দুই অস্ট্রেলিয়ানের। স্টিভেন স্মিথ বনাম ডেভিড ওয়ার্নার।

বল টেম্পারিং-কাণ্ডে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে এক বছরের জন্য নিষিদ্ধ হওয়া অস্ট্রেলিয়ার দুই তারকা ব্যাটসম্যান বিপিএলের ষষ্ঠ আসরে এবার নেতৃত্ব দিচ্ছেন দুই দলকে। কুমিল্লার অধিনায়ক স্মিথ আর সিলেটের ওয়ার্নার। বিপিএল মঞ্চে দুই সহযোদ্ধার প্রথম দেখায় শেষ হাসি হাসলেন স্মিথ।

রোববার মিরপুর শেরেবাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে আসরের দ্বিতীয়দিনের প্রথম ম্যাচে ওয়ার্নারের সিলেটকে (১২৭/৮) চার উইকেটে হারিয়ে শুভসূচনা করেছে স্মিথের কুমিল্লা (১৩০/৬)। তবে লো স্কোরিং ম্যাচে দুই অস্ট্রেলিয়ানকে ছাপিয়ে ব্যবধান গড়ে দিয়েছেন পাকিস্তানি অলরাউন্ডার শহীদ আফ্রিদি।

যৌবনে যিনি ছিলেন মারকাটারি ব্যাটিংয়ের সমার্থক। আন্তর্জাতিক ক্রিকেটকে বিদায় জানালেও আফ্রিদি কাল দেখালেন ক্যারিয়ারের পড়ন্ত বেলায়ও তার ব্যাটের ধার অবশিষ্ট আছে কিছু। ২৫ বলে অপরাজিত ৩৯ রানের ঝড়ো ইনিংস খেলে এক বল বাকি থাকতে আফ্রিদিই জয়ের ঠিকানায় পৌঁছে দেন কুমিল্লাকে।

দিনের দ্বিতীয় ম্যাচটি ছড়িয়েছে দারুণ রোমাঞ্চ। হার দিয়ে শিরোপা ধরে রাখার অভিযান শুরু করা বর্তমান চ্যাম্পিয়ন রংপুর রাইডার্স (১৬৯/৩) নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচে খুলনা টাইটানসকে (১৬১/৫) আট রানে হারিয়ে ঘুরে দাঁড়িয়েছে দারুণভাবে।

দক্ষিণ আফ্রিকান ব্যাটসম্যান রাইলি রুশোর ঝড়ো ফিফটিতে তিন উইকেটে ১৬৯ রানের চ্যালেঞ্জিং স্কোর গড়েছিল মাশরাফি মুর্তজার রংপুর। ৫২ বলে অপরাজিত ৭৬ রান করেন রুশো। এছাড়া ২৯ বলে ৪০ রান করেন রবি বোপারা।

অবিচ্ছিন্ন চতুর্থ উইকেটে মাত্র ৬১ বলে ১০৪ রানের জুটি গড়েন তারা। জবাবে ৯০ রানের উদ্বোধনী জুটির পরও পাঁচ উইকেটে ১৬১ রানে থেমে যায় মাহমুদউল্লাহর খুলনা। দুই ওপেনার পল স্টার্লিং ৪৬ বলে ৬১ ও জুনায়েদ সিদ্দিকী ৩০ বলে করেন ৩৩ রান। তাদের বিদায়ের পর অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ ১৭ বলে ২৪ করলেও অন্যরা মেটাতে পারেননি সময়ের দাবি।

আগেরদিনও প্রথম ম্যাচটা ছিল ঘুমপাড়ানি। দ্বিতীয় ম্যাচে দেখা গিয়েছিল চার-ছক্কার বিজ্ঞাপন। কালও সেই ধারায় ছেদ পড়েনি। প্রথম ম্যাচে শুধু নিকোলাস পুরান ও আফ্রিদির ব্যাটেই ছিল যা একটু বিনোদনের রসদ। টস হেরে ব্যাটিংয়ে নামা সিলেট শুরুতে ধুঁকলেও পুরানের সৌজন্যে শেষ পর্যন্ত আট উইকেটে ১২৭ রান তুলতে পেরেছিল।

তৃতীয় আম্পায়ারের ভুল সিদ্ধান্তে রানআউটে কাটা পড়ার আগে ১৩ বলে মাত্র ১৪ রান করতে পারেন অধিনায়ক ওয়ার্নার। ২৬ বলে পুরানের ৪১ রানের ইনিংসটিই মূলত লড়াইয়ের পুঁজি এনে দেয় সিলেটকে। কুমিল্লার পক্ষে মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন, মোহাম্মদ শহীদ ও মেহেদী হাসান নেন দুটি করে উইকেট।

আফ্রিদির ঝুলিতে যায় এক উইকেট। মিরপুরের মন্থর উইকেটে ১২৮ রানের লক্ষ্য তাড়ায় কুমিল্লার শুরুটাও ছিল নড়বড়ে। এভিন লুইস (৫), স্টিভেন স্মিথ (১৬) ও শোয়েব মালিকের (১৩) মতো তিন ভরসার নাম দলকে দিতে পারেনি নির্ভরতা। মন্থর ব্যাটিংয়ে একপ্রান্তে আগলে রাখা তামিম ইকবাল ৩৪ বলে ৩৫ রান করে আফ্রিদির সঙ্গে ভুল বোঝাবুঝিতে রানআউট হয়ে গেলে ভীষণ চাপে পড়ে যায় কুমিল্লা। এমন পরিস্থিতিতে অনেকবারই অতি আগ্রাসী হয়ে উইকেট হারিয়ে এসেছেন আফ্রিদি।

কিন্তু এবার দায়িত্ব নিয়ে টিকে থাকলেনও শেষ পর্যন্ত। শেষ ওভারের পঞ্চম বলে অলক কাপালীকে চার মেরে জেতালেন দলকে। ২৫ বলের ঝড়ো কিন্তু দায়িত্বশীল ইনিংসে পাঁচটি চারের সঙ্গে দুটি ছক্কা হাঁকিয়েছেন ম্যাচসেরা আফ্রিদি। সিলেটের নেপালি স্পিনার সন্দীপ লামিছান চার ওভারে মাত্র ১৬ রানে নেন দুই উইকেট।

ঘটনাপ্রবাহ : কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স: বিপিএল ২০১৯

আরও
আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter
×