মাতৃভাষার মর্যাদা প্রতিষ্ঠার বিকল্প নেই

  হেলাল হাফিজ ১৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

মাতৃভাষার মর্যাদা প্রতিষ্ঠার বিকল্প নেই
হেলাল হাফিজ। ছবি: সংগৃহীত

স্বাধীনতা অর্জনের পাঁচ দশক প্রায় পূর্ণ হওয়ার পথে। এই দীর্ঘ সময়েও বাংলা ভাষা, আমাদের মাতৃভাষা, আমাদের স্বাধীন মাতৃভূমির মানুষের জীবনে সর্বস্তরে প্রচলিত হয়নি। এই বাস্তব সত্য আমাদের জন্য লজ্জাজনক ও গ্লানিকর বিষয়।

ভাষার দাবিতে পরাধীন দেশে আমাদের তরুণেরা তাদের জীবন বিসর্জন দিয়েছিলেন। তারা রক্ত ঢেলে যে পথ রচনা করেছিলেন সে পথ বেয়েই আরও অজস্র শহীদের রক্ত সাগর উজিয়ে মুক্তিযুদ্ধের মধ্য দিয়ে আমরা যে দেশটি পেয়েছি- সেই দেশ তো বাঙালির। কিন্তু বাঙালির স্বাধীন দেশে বাংলা ভাষা যেন আজও এক পরবাসী সত্তা! কেন স্বাধীনতার সাতচল্লিশ বছরেও বাংলা ভাষা তার মর্যাদায় প্রতিষ্ঠিত হল না? এখন তো কোনো দেশ বৈরী বিদেশি শাসক নেই- তাহলে দোষ দেব কাকে? আর বাংলা ভাষার এই দুঃখের অমারজনী কাটবেইবা কিভাবে? এ ব্যাপারে তাহলে আমাদের করণীয় কি?

আমার মনে হয়, বাংলা ভাষাকে মায়ের ভাষার মর্যাদায় প্রতিষ্ঠার কাজে সবারই কিছু না কিছু করণীয় রয়েছে- এই চেতনায় উদ্বুদ্ধ হয়ে সবাইকে এগিয়ে আসতে হবে। এ কাজ শুধু সরকারের একার নয়। এ কাজ শুধু সরকারের করণীয় বলে ফেলে রাখলে চলবে না। ব্যক্তিগত অবস্থান থেকে প্রতিটি বাঙালিকে এ বিষয়ে সচেতন হতে হবে। বাংলা ভাষা চর্চার, প্রতিষ্ঠায় যার যেটুকু সামর্থ্য আছে, ক্ষমতা আছে, তার সেটা প্রয়োগ করার চেষ্টা করতে হবে। এই চেষ্টার পেছনে সরকারেরও সমর্থন প্রয়োজন। সরকারের আর্থিক এবং আত্মিক সহযোগিতার প্রয়োজন হবে।

বাংলা ভাষা ও সাহিত্যের চর্চা, লালন ও এর উৎকর্ষ সাধনের কাজে প্রতিষ্ঠান হিসেবে বাংলা একাডেমি, আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ইন্সটিটিউট- এসব প্রতিষ্ঠানের ভূমিকা রাখা প্রয়োজন। সর্বস্তরে বাংলা চালু না করার অজুহাত হিসেবে দেখানো হয় বাংলা পরিভাষার অভাবের বিষয়কে। বাংলা একাডেমি সে অভাব দূর করার জন্য এক সময় বিভিন্ন বিষয়ে পরিভাষা প্রণয়নের কাজ করেছিল- সেই কাজটি সচল রাখা প্রয়োজন এবং নতুন নতুন বিষয়ের পরিভাষা রচনার কাজও অব্যাহত রাখা দরকার।

আমাদের সাহিত্যের ধ্রুপদী মান আমরা পৃথিবীর অন্য ভাষীদের কাছে তুলে ধরতে পারিনি সাতচল্লিশ বছরেও। আমাদের অসংখ্য গল্প, উপন্যাস, প্রবন্ধ ও কবিতা বিশ্বমানের। সেগুলোর যথাযথ অনুবাদ হলে আন্তর্জাতিক অঙ্গনের পাঠকের কাছে পৌঁছলে সেগুলো যথাযথ মর্যাদা এবং মূল্যায়ন পাবে- তাতে কোনো সংশয় বা সন্দেহ নেই। আমি মনে করি, এ বিষয়ে রাষ্ট্র এবং সরকারের দায়িত্ব রয়েছে। অতীতে রাজা-বাদশারা সাহিত্য-সংস্কৃতি ভাষার অন্যতম পৃষ্ঠপোষক হিসেবে কাজ করতেন। বর্তমানেও উন্নত দেশগুলোর সরকার ও রাষ্ট্রের আনুকূল্য এক্ষেত্রে অনেক। সে তুলনায় আমরাই বোধ হয় পেছনে পড়ে আছি- বিদেশি ভাষায় প্রচারের জন্য, প্রকাশের জন্য আমাদের কোনো প্রকাশনালয় নেই। আমেরিকা, ব্রিটেন, রাশিয়া, চীন, ভারত, ইরান তাদের প্রচারের, প্রকাশের জন্য যেমন বাংলা ভাষায় বেতার সম্প্রচার করে তেমনই সেসব দেশের দূতাবাসগুলো বই-পত্রিকা প্রকাশ করে থাকে বাংলা ভাষায়। গত প্রায় পাঁচ দশকেও আমরা সে রকম কোনো উদ্যোগ নিতে পারিনি।

সোজা কথায়, পৃথিবীর অন্য কোনো ভাষাভাষীর জনগোষ্ঠীর সঙ্গেই মৈত্রীবন্ধন গড়ে তোলার জন্য সাংস্কৃতিক বিনিময়ের বিষয়ে কোনো উদ্যোগ, কোনো পরিকল্পনা আমরা নিতে পারিনি। অর্থাৎ, আমরা যেমন নিজেদের ঘরে নিজেদের ভাষাকে স্থান করে দিতে পরিনি মর্যাদার, তেমনই বহির্বিশ্বে নিজেদের ভাষা-সাহিত্যের মধ্য দিয়ে যেটুকু মর্যাদা অর্জন করা প্রয়োজন তার প্রায় কিছুই করিনি। অথচ পৃথিবীব্যাপী উদয়াস্ত শ্রম দিচ্ছেন আমাদের প্রায় কোটি ঊর্ধ্ব বাঙালি ভাইয়েরা।

পৃথিবীতে বোধ হয় সবচেয়ে সস্তা দরে শ্রম দিতে হয় বাঙালিদের। সবচেয়ে অধিকার বঞ্চিত, উপেক্ষা ও অবহেলা পেতে হয় বাঙালিদের। এই দুঃখজনক নিয়তি পাল্টাবার একটাই পথ, তা হল- আমাদের জাতির গৌরব ও গর্বের বিষয়গুলোকে বিশ্বসভায় তুলে ধরে নিজেদের গুরুত্ব তুলে ধরা। আমাদের মর্যাদাকে প্রতিষ্ঠা করার উদ্যোগ নেয়া। আমরা এ বিষয়ে অনেক পিছিয়ে আছি- তাই এ বিষয়ে অতি গুরুত্ব দিয়ে পদক্ষেপ নিতে হবে। অনুবাদের মধ্য দিয়ে এক ভাষা অন্য ভাষাকে সমৃদ্ধ করে। ভাষার ধারণ ক্ষমতা সম্প্রসারিত হয়। একুশ শতকে শুধু সাংস্কৃতিক নয়, অর্থনৈতিক উন্নতির জন্যেও অন্য ভাষাভাষীর মানুষের সঙ্গে মৈত্রী গড়ে তোলার কাজে মাতৃভাষার মর্যাদা প্রতিষ্ঠার কোনো বিকল্প নেই।

অনুলিখন : শুচি সৈয়দ

--
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×