যুগান্তরের সাংবাদিক গ্রেফতার

সারা দেশে তীব্র ক্ষোভ প্রতিবাদ মামলা প্রত্যাহার ও মুক্তি দাবি

সংশ্লিষ্ট ওসির দুর্নীতির তদন্ত দাবি

  যুগান্তর ডেস্ক ২২ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

দৈনিক যুগান্তরের কেরানীগঞ্জ প্রতিনিধি আবু জাফর।
দৈনিক যুগান্তরের কেরানীগঞ্জ প্রতিনিধি আবু জাফর। ফাইল ছবি

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে গ্রেফতার যুগান্তরের কেরানীগঞ্জ প্রতিনিধি আবু জাফরকে কারাগারে প্রেরণ ও চার সাংবাদিকের বিরুদ্ধে মামলায় তীব্র ক্ষোভ, নিন্দা ও প্রতিবাদের ঝড় উঠেছে। দেশের বিভিন্ন স্থানে বৃহস্পতিবার সাংবাদিকরা সভা ও বিবৃতি দিয়ে এ মামলা প্রত্যাহার এবং আবু জাফরকে মুক্তি দেয়ার দাবি জানিয়েছেন।

বিবৃতি ও প্রতিবাদ সভায় সাংবাদিক নেতারা বলেন, ৫৭ ধারার বিকল্প হিসেবে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন প্রণয়ন করার পর সাংবাদিকদের সব সংগঠন এ আইনের বিরুদ্ধে সোচ্চার হয় এবং প্রতিবাদ জানায়। সাংবাদিক নেতারা আশঙ্কা প্রকাশ করেছিলেন, ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের ফলে অনুসন্ধানী সাংবাদিকতার পথ রুদ্ধ হয়ে যাবে।

অনিয়ম, দুর্নীতি ও ক্ষমতার অপব্যবহারের বিরুদ্ধে লেখার সুযোগ থাকবে না। গণমাধ্যমের স্বাভাবিক গতি ভূলুণ্ঠিত হবে। তবে আইনটি পাস করার সময় সংসদের ভেতর ও বাইরে সরকারের নীতিনির্ধারক মহলের পক্ষ থেকে বলা হয়েছিল, আইনটি কোনোভাবেই সাংবাদিকদের বিরুদ্ধে ব্যবহার করা হবে না।

সাংবাদিকরা অন্যায়-দুর্নীতির বিরুদ্ধে সংবাদ প্রকাশ করতে পারবেন। কিন্তু কিছুদিন না যেতেই আসল চেহারা উন্মোচিত হয়েছে। সাংবাদিক নেতাদের সেই আশঙ্কাই সত্যি প্রমাণিত হয়েছে। সরকার তার প্রতিশ্রুতি থেকে সরে এসেছে। একের পর এক ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের অপব্যবহার করা হচ্ছে।

সাংবাদিক নেতারা আরও বলেন, যেভাবে এবং যে ঘটনায় যুগান্তরের কেরানীগঞ্জ প্রতিনিধি আবু জাফরকে ত্বরিত গ্রেফতার ও ১৬৪ ধারায় জাবানবন্দি আদায় করে কারাগারে পাঠানো হয়েছে, তা নজিরবিহীন। কোনো দাগি অপরাধীর ক্ষেত্রেও এমনটা দেখা যায় না।

ঢাকার নবাবগঞ্জের ওসি মোস্তফা কামালের আয়ের সঙ্গে সঙ্গতিহীন বিপুল পরিমাণ সম্পদের তথ্য তুলে ধরে বস্তুনিষ্ঠ প্রতিবেদন প্রকাশ করে যুগান্তর। এ ঘটনায় ওসির দুর্নীতির বিরুদ্ধে তদন্ত না করে উল্টো ওসির আজ্ঞাবহ একজন চিহ্নিত মাদক ব্যবসায়ীকে দিয়ে যুগান্তরের কেরানীগঞ্জ প্রতিনিধি আবু জাফর, স্টাফ রিপোর্টার (নবাবগঞ্জ) আজহারুল হক, গোপালগঞ্জ প্রতিনিধি এসএম হুমায়ুন কবীর, ঢাকার আশুলিয়া প্রতিনিধি মেহেদী হাসান ও ধামরাই প্রতিনিধি শামীম খানের বিরুদ্ধে মামলা করা হয়েছে।

অথচ ওই প্রতিবেদনে তাদের কারও নাম নেই। এ মামলার ঘটনাও নজিরবিহীন। এর আগে ১ জানুয়ারি ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন বাংলা ট্রিবিউনের খুলনা প্রতিনিধি হেদায়েত হোসেন মোল্লাকে গ্রেফতার করা হয়।

বিবৃতিতে সাংবাদিক নেতারা বলেন, এখানে উচিত ছিল স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের নির্দেশে সংশ্লিষ্ট ওসির বিরুদ্ধে তদন্ত করা। তদন্তে অপরাধ প্রমাণিত হলে নবাবগঞ্জ থানার ওসির বিরুদ্ধে বিভাগীয় ও ফৌজদারি ব্যবস্থা নেয়াই কাম্য ছিল। আর যদি তদন্তে রিপোর্টের সত্যতা প্রমাণিত না হতো, সেক্ষেত্রে এ সংবাদ প্রকাশের বিরুদ্ধে যথাযথ আইনি ব্যবস্থা নিতে পারত।

কিন্তু এসবের কিছুই করা হয়নি। উল্টো সাংবাদিকদের বিরদ্ধে মামলা করার মধ্য দিয়ে প্রকারান্তরে দুর্নীতিগ্রস্ত ওসির বিরুদ্ধে সাফাই গাওয়ার অপচেষ্টা করা হয়েছে। একটি বার্তা দেয়া হয়েছে, পুলিশের অনিয়ম-দুর্নীতির বিরুদ্ধে সংবাদ প্রকাশ করা যাবে না। তা হলে সরকার বলে দিক, পুলিশের বিরুদ্ধে কোনো কিছু লেখা যাবে না।

সাংবাদিক নেতারা বলেন, প্রকাশিত কোনো সংবাদ নিয়ে কারও আপত্তি থাকলে প্রতিবাদ দেয়া যায়। প্রেস কাউন্সিলের দ্বারস্থ হওয়ার সুযোগ রয়েছে। তা না করে কথায় কথায় গণমাধ্যমকর্মীদের বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা ও গ্রেফতার ভালো লক্ষণ নয়। আইনটির অপব্যবহার হতে থাকলে সাংবাদিকদের পেশাগত দায়িত্ব পালন ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে উঠবে, যা কাম্য হতে পারে না। যুগান্তর ব্যুরো, স্টাফ রিপোর্টার ও প্রতিনিধিদের পাঠানো খবর-

রাজশাহী : বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের (বিএফইউজে) কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য আনু মোস্তফা, রাজশাহী সাংবাদিক ইউনিয়নের (আরইউজে) সাধারণ সম্পাদক তানজিমুল হক, নির্বাহী সদস্য মিজানুর রহমান টুকু, রাজশাহী টেলিভিশন জার্নালিস্ট অ্যাসোসিয়েশনের (আরটিজেএ) সভাপতি আহসান হাবিব অপু, সাধারণ সম্পাদক মেহেদী হাসান শ্যামল এবং রাজশাহী মেট্রোপলিটন প্রেস ক্লাবের সভাপতি মোমিনুল ইসলাম বাবু ও সাধারণ সম্পাদক আজিজুল ইসলাম এক বিবৃতিতে গভীর উদ্বেগ, নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন।

চট্টগ্রাম : তীব্র নিন্দা জানিয়েছেন চট্টগ্রাম সাংবাদিক ইউনিয়নের (সিইউজে) সভাপতি নাজিমুদ্দীন শ্যামল। সিইউজে সভাপতি অবিলম্বে মামলাটি প্রত্যাহার এবং গ্রেফতার হওয়া সাংবাদিকের মুক্তির দাবি জানান।

বরিশাল : শহীদ আবদুর রব সেরনিয়াবাত বরিশাল প্রেস ক্লাবের সভাপতি কাজী নাসির উদ্দিন বাবুল ও সাধারণ সম্পাদক এসএম জাকির হোসেন, ন্যাশনাল ডেইলি ব্যুরো চিফ অ্যাসোসিয়েশন বরিশালের সভাপতি পুলক চ্যাটার্জি ও সাধারণ সম্পাদক আকতার ফারুক শাহিন বরিশাল রিপোর্টার্স ইউনিটির সভাপতি নজরুল বিশ্বাস ও সাধারণ সম্পাদক বাপ্পী মজুমদার, বরিশাল টেলিভিশন মিডিয়া অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি হুমায়ন কবির ও সাধারণ সম্পাদক আকতার ফারুক শাহিন, নিউজ এডিটরস কাউন্সিল বরিশালের সভাপতি সৈয়দ মেহেদী হাসান ও সাধারণ সম্পাদক খন্দোকার রাকিব, সাংবাদিক ইউনিয়ন বরিশালের আহ্বায়ক গোপাল সরকার ও সদস্য সচিব জাকির হোসেন এবং বাংলাদেশ অনলাইন সাংবাদিক কল্যাণ ইউনিয়ন বরিশাল বিভাগীয় কমিটির সভাপতি সাঈদ পান্থ, সম্পাদক এম সুহাদ পৃথক বিবৃতিতে নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে গ্রেফতার সাংবাদিক আবু জাফরের মুক্তি ও মামলা প্রত্যাহারের দাবি জানিয়েছেন।

রংপুর : বিবৃতিতে রংপুর প্রেস ক্লাবের সভাপতি সদরুল আলম দুলু, সাধারণ সম্পাদক রশীদ বাবু, রিপোর্টার্স ক্লাবের সভাপতি হালিম আনছারী ও সাধারণ সম্পাদক শাহ বায়েজীদসহ টেলিভিশন সাংবাদিক ফোরাম, ফটো জার্নালিস্ট, ভিডিও জার্নালিস্ট ও রিপোর্টার্স ইউনিটির নেতারা নিন্দা ও ক্ষোভ জানিয়েছেন।

খুলনা : খুলনা সাংবাদিক ইউনিয়নের (কেইউজে) পক্ষে সভাপতি মুন্সি মাহবুবুল আলম সোহাগ এক বিবৃতিতে বলেন, সংবাদ প্রকাশের কারণে সাংবাদিকদের বিরুদ্ধে মামলা স্বাধীন সাংবাদিকতার জন্য হুমকিস্বরূপ। পুলিশের এক ওসি অবৈধভাবে সম্পদের পাহাড় গড়ে তুলবে আর সেটি নিয়ে সংবাদ প্রকাশ হলেই মামলা ও হয়রানির শিকার হতে হবে, এটি দেশের বাকস্বাধীনতার ওপর হস্তক্ষেপ ছাড়া আর কিছুই নয়।

যশোর ও অভয়নগর : পৃথক বিবৃতিতে মামলা প্রত্যাহার ও গ্রেফতার সাংবাদিকের মুক্তি দাবি করেছেন প্রেস ক্লাব যশোরের সভাপতি জাহিদ হাসান টুকুন, সম্পাদক এসএম তৌহিদুর রহমান, যশোর সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি সাজেদ রহমান বকুল, সাধারণ সম্পাদক হাবিবুর রহমান মিলন, সাংবাদিক ইউনিয়ন যশোরের সভাপতি শহীদ জয়, সাধারণ সম্পাদক আকরামুজ্জামান। নওয়াপাড়া প্রেস ক্লাব ও নওয়াপাড়া সাংবাদিক কল্যাণ সমিতির কর্মকর্তা ও সদস্যরা উদ্বেগ প্রকাশ করে নিন্দা জানিয়েছেন।

বিবৃতিদাতারা হলেন- নওয়াপাড়া প্রেস ক্লাবের সভাপতি আসলাম হোসেন, সিনিয়র সহসভাপতি মোস্তফা ফারুক আহমেদ, সহসভাপতি এসএম মুজিবর রহমান, সাধারণ সম্পাদক নজরুল ইসলাম মল্লিক, মোজাফফার আহমেদ, কামরুল হাসান, শাহীন আহমেদ, মফিজুর রহমান দফতরী, এমএম আলাউদ্দিন, সৈয়দ মাসুদ তাজ, নওয়াপাড়া সাংবাদিক কল্যাণ সমিতির সভাপতি সুনীল কুমার দাস, সহসভাপতি হারুন অর রশিদ, সাধারণ সম্পাদক এসএম ফারুক আহমেদ, আশরাফুল ইসলাম মাসুম, মল্লিক খলিলুর রহমান, ডা. বদরুজ্জামান, শেখ আতিয়ার রহমান, গাজী রেজাউল করিম, কামরুল ইসলাম, তারিম আহমেদ ইমন, সাকিব জিকো, জাকির হোসেন হৃদয়, রিপানুর ইসলাম রিপন ও সুমন হোসেন।

গোপালগঞ্জ : পৃথক বিবৃতিতে প্রেস ক্লাব গোপালগঞ্জের সভাপতি ফরিদ আহমেদ দাড়িয়া, সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ মিরাজুল ইসলাম, রিপোর্টার্স ফোরামের সভাপতি খন্দকার এহিয়া খালেদ সাদী, সাধারণ সম্পাদক নজরুল ইসলাম, গোপালগঞ্জ সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি সৈয়দ মুরাদুল ইসলাম, সাধারণ সম্পাদক আবুল ফাত্তাহ সজু, প্রেস ক্লাব, টুঙ্গিপাড়ার সভাপতি বিএম গোলাম কাদের, সাধারণ সম্পাদক মেহেদী হাসান, প্রেস ক্লাব কোটালীপাড়ার সভাপতি মিজানুর রহমান বুলু, সাধারণ সম্পাদক মেহেদী হাসানাত, প্রেস ক্লাব কাশিয়ানীর ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মো. ফায়েকুজ্জামান, সাধারণ সম্পাদক নিজামুল আলম মোরাদ, কাশিয়ানী উপজেলা প্রেস ক্লাবের সভাপতি সহিদুল আলম মুন্না, সাধারণ সম্পাক লিয়াকত হোসেন লিংকন, যমুনা টিভির স্টাফ রিপোর্টার মোজাম্মেল হোসেন মুন্না, প্রবীণ সাংবাদিক ও কবি রবীন্দ্রনাথ অধিকারী ও বিএসএস’র জেলা প্রতিনিধি হায়দার হোসেন নিন্দা, প্রতিবাদ ও মামলা প্রত্যাহারের দাবি জানিয়েছেন।

কুমিল্লা : কুমিল্লা প্রেস ক্লাব মিলনায়তনে প্রতিবাদ সভা করেছেন কুমিল্লার সাংবাদিকরা। যুগান্তরের কুমিল্লা ব্যুরো রিপোর্টার আবুল খায়েরের সভাপতিত্বে প্রতিবাদ সভায় বক্তব্য দেন কুমিল্লা রিপোর্টার্স ইউনিটির সভাপতি সাদিক হোসেন মামুন, কুমিল্লা ফটো সাংবাদিক ফোরামের সভাপতি ওমর ফারুকী তাপস, টেলিভিশন জার্নালিস্ট অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি হুমায়ুন কবীর রনি, রিপোর্টার্স ইউনিটির সাধারণ সম্পাদক দেলোয়ার হোসেন জাকির, এসএ টিভির প্রতিনিধি আবু মুসা, এশিয়ান টিভির প্রতিনিধি আজিজুল হক, ব্রাহ্মণপাড়া প্রেস ক্লাবের সভাপতি সৈয়দ আহাম্মদ লাভলু, দৈনিক ডাক প্রতিদিন পত্রিকার নির্বাহী সম্পাদক হাবিব আল জালাল প্রমুখ।

টাঙ্গাইল : টাঙ্গাইল প্রেস ক্লাবে প্রতিবাদ সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। টাঙ্গাইল প্রেস ক্লাবের সভাপতি ও যুগান্তরের টাঙ্গাইল প্রতিনিধি জাফর আহমেদের সভাপতিত্বে প্রতিবাদ সভায় বক্তব্য দেন প্রেস ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক কাজী জাকেরুল মওলা, প্রথম আলোর টাঙ্গাইল প্রতিনিধি কামনাশীষ শেখর, বাংলাদেশ প্রতিদিন ও এটিএন বাংলার প্রতিনিধি মো. নাসির উদ্দিন, এনটিভির টাঙ্গাইল প্রতিনিধি মহব্বত হোসেন, একুশে টেলিভিশনের কাজী তাজউদ্দিন রিপন প্রমুখ।

সাটুরিয়া (মানিকগঞ্জ) : সাটুরিয়া উপজেলা প্রেস ক্লাবের সাবেক সাধারণ সম্পাদক যুগান্তর প্রতিনিধি সাজাহান সরকারের সভাপতিত্বে গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করে বক্তব্য দেন ক্লাবের আহ্বায়ক মো. জাহাঙ্গীর আলম, যুগ্ম আহ্বায়ক মো. সোহেল রানা, বাংলাদেশ সাংবাদিক সমিতি সাটুরিয়া শাখার সভাপতি মো. আপেল মাহমুদ চৌধুরী, সম্পাদক মো. মতিউর রহমান, সাংবাদিক মো. শহীদুল ইসলাম খোকন, মো. লুৎফর রহমান, বাবু অলোক রায় প্রমুখ।

নড়াইল : নড়াইল রিপোর্টার্স ইউনিটির সভাপতি হুমায়ুন কবির রিন্টুর সভাপতিত্বে রিপোর্টার্স ইউনিটিতে জরুরি সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় বক্তব্য দেন সাধারণ সম্পাদক মো. মাসুমার রহমান মাসুম, যুগান্তরের জেলা প্রতিনিধি মো. শাহীদুল ইসলাম শাহী, সাংবাদিক মশিউল হক মিটু, শরীফ নাসির মাহমুদ, শেখ ফসিয়ার রহমান, মো. কামরুজ্জামান কামাল, আলমগীর হোসেন, কৃপা বিশ্বাস, মুজিবুর রহমান মোল্যা প্রমুখ।

চুয়াডাঙ্গা : চুয়াডাঙ্গা প্রেস ক্লাবের সভাপতি সরদার আল আমিন, সাধারণ সম্পাদক রাজীব হাসান কচি, আলমডাঙ্গা প্রেস ক্লাবের সভাপতি খন্দকার শাহ আলম মন্টু, সাধারণ সম্পাদক খন্দকার হামিদুল ইসলাম আজম, দামুড়হুদা প্রেস ক্লাবের সভাপতি হাবিবুর রহমান, সাধারণ সম্পাদক বখতিয়ার হোসেন বকুল এবং জীবননগর প্রেস ক্লাবের সভাপতি আনেয়ারুল কবীর ও সাধারণ সম্পাদক মুন্সী মাহবুবুর রহমান বাবু নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×