মৃত্যুর দুয়ার থেকে ফিরলেন তামিমরা

  স্পোর্টস ডেস্ক ১৬ মার্চ ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

হামলা থেকে অল্পের জন্য প্রাণে বেঁচে যান টাইগাররা
হামলা থেকে অল্পের জন্য প্রাণে বেঁচে যান টাইগাররা।ছবি : সংগৃহীত

জীবন যেখানে বিপন্ন, ক্রিকেট সেখানে তুচ্ছ। ক্রীড়া ইতিহাসের সম্ভাব্য সবচেয়ে বড় ট্র্যাজেডি থেকে অল্পের জন্য রক্ষা পেয়েছে বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দল।

শুক্রবার নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চে দুটি মসজিদে জুমার নামাজের সময় নৃশংস সন্ত্রাসী হামলায় অন্তত ৪৯ জন নিহত হওয়ার ঘটনার জেরে বাতিল করা হয়েছে বাংলাদেশ-নিউজিল্যান্ড তৃতীয় ও শেষ টেস্ট।

ক্রাইস্টচার্চের হ্যাগলি ওভালে আজ শুরু হওয়ার কথা ছিল সিরিজের তৃতীয় ও শেষ টেস্ট। কিন্তু মসজিদে ভয়াবহ সন্ত্রাসী হামলার পর গোটা সফরসূচিই বাতিল করা হয়েছে। আজ নিউজিল্যান্ড থেকে দেশে ফিরবে দল।

কাল জুমার নামাজ পড়তে মসজিদে পৌঁছতে একটু দেরি হওয়ায় প্রাণে বেঁচে গেছেন বাংলাদেশের ক্রিকেটাররা। পাঁচ মিনিট এদিক-ওদিক হলে গোটা দলই হয়তো নিশ্চিহ্ন হয়ে যেত।

অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহর সংবাদ সম্মেলন শেষ হতে নয় মিনিট দেরি না হলে ভয়ানক কিছু ঘটে যেতে পারত। নিশ্চিত মৃত্যুর মুখ থেকে ফেরার পর প্রচণ্ড আতঙ্কিত বাংলাদেশ দলের ক্রিকেটাররা। যত দ্রুত সম্ভব নিউজিল্যান্ড থেকে দেশে ফিরতে উদ্গ্রীব তামিম, মুশফিকরা।

এমন পরিস্থিতিতে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) সঙ্গে দ্রুত আলোচনা করে ম্যাচ বাতিলের ঘোষণা দেয় নিউজিল্যান্ড ক্রিকেট বোর্ড (এনজেডসি)।

নিউজিল্যান্ড ক্রিকেট বোর্ডের প্রধান নির্বাহী ডেভিড হোয়াইট জানিয়েছেন, ‘এনজেডসি ও বিসিবির যৌথ সিদ্ধান্তে ক্রাইস্টচার্চ টেস্ট বাতিল করা হয়েছে। দু’দলের খেলোয়াড়, কর্মকর্তা ও কোচিং স্টাফদের সবাই নিরাপদে আছেন। আমরা একমত যে বর্তমান অবস্থা ক্রিকেট খেলার অনুপযোগী। অবিশ্বাস্য এই নৃশংসতায় আমরা স্তম্ভিত।’

টেস্টের পাশাপাশি নিউজিল্যান্ড ডেভেলপমেন্ট দল ও অস্ট্রেলিয়া অনূর্ধ্ব-১৯ নারী দলের দুটি ম্যাচও বাতিল করা হয়েছে।

হামলায় হতাহতদের প্রতি সহানুভূতি জানিয়ে এক বিজ্ঞপ্তিতে আইসিসি জানিয়েছে, টেস্ট বাতিলের সিদ্ধান্তে তাদের পূর্ণ সমর্থন রয়েছে। এদিকে বিসিবি জানিয়েছে, বাংলাদেশ দলের সব সদস্য নিরাপদে হোটেলে ফিরেছেন। খেলোয়াড় ও টিম ম্যানেজমেন্টের সঙ্গে যোগাযোগ রেখে যত দ্রুত সম্ভব তাদের দেশে ফিরিয়ে আনার উদ্যোগ নেয় বোর্ড।

হ্যাগলি ওভাল মাঠের কাছে অবস্থিত আল নূর নামের যে মসজিদে কাল জুমার নামাজ পড়তে যাচ্ছিলেন বাংলাদেশের ক্রিকেটাররা, সেখানেই প্রথম হামলা চালায় এক বন্দুকধারী। গোলাগুলির সময় বাংলাদেশ দলের টিম বাস ছিল মসজিদের ঠিক সামনে। ক্রিকেটাররা বাস থেকে নেমে যখন মসজিদে ঢুকবেন, ঠিক তখনই স্থানীয় একজন তাদের মসজিদে ঢুকতে নিষেধ করেন।

গুলির শব্দে আতঙ্কিত ক্রিকেটাররা বাসের ভেতর থেকেই দেখতে পান, রক্তাক্ত শরীরে মসজিদ থেকে বেরিয়ে আসছেন অনেকে। চোখের সামনে এমন বিভীষিকা দেখে মানসিকভাবে ভেঙে পড়েন ক্রিকেটাররা। মিনিটদশেক বাসে অবরুদ্ধ থাকার পর ক্রিকেটাররা নিজেরাই সিদ্ধান্ত নিয়ে দৌড়ে হ্যাগলি ওভালে ফিরে যান।

এ সময় ভয়ে, আতঙ্কে কাঁদছিলেন অনেকে। হ্যাগলি ওভালের ড্রেসিংরুমে দুই ঘণ্টা কাটানোর পর পুলিশি নিরাপত্তায় টিম হোটেলে নিয়ে যাওয়া হয় দলকে।

অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহর ম্যাচ-পূর্ব সংবাদ সম্মেলন একটু দেরিতে শেষ হওয়ায় বেঁচে গেছেন তামিমরা। সংবাদ সম্মেলন নির্ধারিত সময়ে শেষ হলে হামলার সময় মসজিদের ভেতরই থাকতেন ক্রিকেটাররা। সেক্ষেত্রে সবাইকে হয়তো লাশ হয়ে ফিরতে হতো। সম্ভাব্য ভয়ংকর সেই পরিণতির কথা ভেবে কাল বারবার আঁতকে উঠেছেন তামিম, মুশফিকরা।

ঘটনার পর বাংলাদেশ দলের ওপেনার তামিম ইকবাল টুইট করেন, ‘সক্রিয় বন্দুকধারীর গুলি থেকে বেঁচে গেছে গোটা দল। ভীতিকর অভিজ্ঞতা। আমাদের জন্য প্রার্থনা করুন।’

দলের আরেক ব্যাটিং স্তম্ভ মুশফিকুর রহিমও মৃত্যুর মুখ থেকে ফেরার অভিজ্ঞতা জানিয়েছেন টুইটারে, ‘আলহামদুলিল্লাহ, ক্রাইস্টচার্চের মসজিদে গুলি থেকে আল্লাহ আমাদের বাঁচিয়েছেন আজ। আমরা ভীষণ ভাগ্যবান। আর কখনও এমন কিছু দেখতে চাই না। আমাদের জন্য দোয়া করুন।’

ম্যানেজার খালেদ মাসুদ জানালে হামলার শিকার হওয়ার কতটা কাছাকাছি ছিলেন তারা, ‘আমরা খুবই সৌভাগ্যবান। বাসে ১৭ জনের মতো ছিলাম। দু’জন ক্রিকেটার শুধু হোটেলে ছিল। বাকি সবাই নামাজ পড়তে যাচ্ছিলাম। আমরা তখন মসজিদ থেকে খুব বেশি হলে ৫০ গজের মতো দূরে ছিলাম। তিন-চার মিনিট আগে চলে এলেও হয়তো মসজিদের ভেতরে থাকতাম। সেক্ষেত্রে ভয়ানক ঘটনা ঘটে যেতে পারত।’

ঘটনাপ্রবাহ : নিউজিল্যান্ডে মসজিদে এলোপাতাড়ি গুলি

আরও
আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×