আবরারকে চাপা দেয়া বাস চালাচ্ছিল কন্ডাকটর
jugantor
আবরারকে চাপা দেয়া বাস চালাচ্ছিল কন্ডাকটর
ঘাতক ইয়াসিন ও সহকারী ইব্রাহিম রিমান্ডে

  যুগান্তর রিপোর্ট  

২৮ মার্চ ২০১৯, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

গ্রেফতার বাসচালক, কন্ডাকটর ও হেলপার। ছবি: সংগৃহীত
গ্রেফতার বাসচালক, কন্ডাকটর ও হেলপার। ছবি: সংগৃহীত

বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটি অব প্রফেশনালসের (বিইউপি) ছাত্র আবরার আহমেদকে চাপা দেয়া সুপ্রভাত পরিবহনের বাসটি চালাচ্ছিল ওই বাসের কন্ডাকটর ইয়াসিন আরাফাত।

১৯ মার্চ সকাল পৌনে ৬টার দিকে বাসটি সদরঘাটের ভিক্টোরিয়া পার্কের সামনে থেকে যাত্রা করে শাহজাদপুরের বাঁশতলায় এক ছাত্রীকে চাপা দিলে চালক সিরাজুল ইসলামকে (২৪) গ্রেফতার করা হয়।

এ সময় বাসটি রাস্তার পাশে দাঁড় করিয়ে রাখা হয়। বাসের কন্ডাকটর ইয়াসিন বাস মালিকের সঙ্গে যোগাযোগ করে। বাস মালিক জ্বালিয়ে দেয়ার ভয়ে ইয়াসিনকে বাসটি চালিয়ে নিরাপদে সরিয়ে নেয়ার নির্দেশ দেন।

পরে ইয়াসিন স্টিয়ারিংয়ে বসে বাসটি বেপরোয়া গতিতে চালিয়ে নেয়ার সময় নদ্দায় আবরারকে চাপা দিয়ে সামনে এগিয়ে যায়। আবরার ঘটনাস্থলেই নিহত হন। ইয়াসিন পালিয়ে যায়।

বাসচালক সিরাজুলের হালকা যান চালানোর লাইসেন্স থাকলেও ইয়াসিনের কোনো লাইসেন্সই ছিল না। মঙ্গল ও বুধবার ইয়াসিন ও বাসচালকের সহকারী ইব্রাহিমকে গ্রেফতার করে গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি)।

মিন্টু রোডে ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) মিডিয়া সেন্টারে বুধবার সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানান ডিএমপির অতিরিক্ত কমিশনার (ডিবি) আবদুল বাতেন।

দুর্ঘটনার প্রতিবাদে গত ১৯ মার্চ থেকে টানা দু’দিন ঢাকার বিভিন্ন সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ দেখান বিইউপিসহ বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা। পরে ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশন মেয়রের আশ্বাসে ৭ দিনের জন্য কর্মসূচি স্থগিত কর হয়।

বাঁশতলায় আহত মিরপুর আইডিয়াল গার্লস ল্যাবরেটরি কলেজের প্রথম বর্ষের ছাত্রী সিনথিয়া সুলতানা মুক্তা এখন কিছুটা সুস্থ। গ্রেফতার ইয়াসিন আরাফাত এবং ইব্রাহিমকে ৭ দিনের রিমান্ডে নিয়েছে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি)। আগেই গ্রেফতার সিরাজুল স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেয়ায় আদালত তাকে জেলে পাঠিয়েছেন।

মঙ্গলবার চাঁদপুরের শাহরাস্তি থানার একটি ইটভাটা থেকে ইয়াসিন আরাফাতকে, পরে তার দেয়া তথ্যের ভিত্তিতে বুধবার সকালে রাজধানীর মধ্য বাড্ডা থেকে ইব্রাহিম হোসেনকে গ্রেফতার করা হয়।

ডিবির যুগ্ম কমিশনার আবদুল বাতেন বলেন, সিনথিয়াকে চাপা দেয়ার পর সুপ্রভাত বাসের যাত্রীরাই চালক সিরাজুলকে আটক করে পুলিশের কাছে দেন। ইয়াসিন ওই সময় বাসের মালিক ননী গোপালকে ঘটনা জানান। ইয়াসিন মালিককে বলেন, উত্তেজিত জনতা বাসটি জ্বালিয়ে দিতে পারে। ফোনে এ কথা শোনার পর ননী গোপাল ইয়াসিনকে দ্রুত বাসটি নিয়ে পালিয়ে যাওয়ার কথা বলেন।

সংবাদ সম্মেলনে বাতেন বলেন, সিরাজুলকে ধরা হয় বাঁশতলার দুর্ঘটনায়। আবরারের দুর্ঘটনার কথা সে জানত না। ফলে তার বক্তব্যে মিল খুঁজে পাওয়া যাচ্ছিল না। ইয়াসিন ও ইব্রাহিমকে গ্রেফতারের পর বিষয়টি স্পষ্ট হয়।

মামলার অপর আসামি বাসমালিক ননী গোপালকে গ্রেফতার করা হবে কি না, জানতে চাইলে বাতেন বলেন, গ্রেফতার দু’জনের জবানবন্দি নেয়ার পর পুলিশ পরবর্তী পদক্ষেপে যাবে।

আবরার নিহতের ঘটনায় দণ্ডবিধির ৩০৪ ধারায় মামলা হয়েছে জানিয়ে অতিরিক্ত কমিশনার বলেন, সিনথিয়ার আহত হওয়ার ঘটনায়ও মামলা হবে।

ডিবি উত্তরের উপ-কমিশনার মশিউর রহমান যুগান্তরকে বলেন, ইয়াসিন এবং ইব্রাহিমকে বুধবার আদালতে হাজির করে ১০ দিনের রিমান্ড চাওয়া হলে ঢাকা মহানগর হাকিম তাদের ৭ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন। এক মাসের কম সময়ের মধ্যেই মামলার চার্জশিট দেয়া সম্ভব।

১৯ মার্চ সকালে রাজধানীর প্রগতি সরণির নদ্দায় বিইউপির ছাত্র আবরার আহমেদ চৌধুরীকে চাপা দেয়ার ঘটনা সিসি ক্যামেরায় ধরা পড়ে। ঘটনার দিন রাতেই আবরারের বাবা বাদী হয়ে গুলশান থানায় মামলা করেন। দুর্ঘটনার পরপরই সুপ্রভাত পরিবহনের ওই বাসের রুট পারমিট বাতিল করে বিআরটিএ। ঢাকায় ওই পরিবহনের সব বাস চলাচলে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়।

আবরারকে চাপা দেয়া বাস চালাচ্ছিল কন্ডাকটর

ঘাতক ইয়াসিন ও সহকারী ইব্রাহিম রিমান্ডে
 যুগান্তর রিপোর্ট 
২৮ মার্চ ২০১৯, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ
গ্রেফতার বাসচালক, কন্ডাকটর ও হেলপার। ছবি: সংগৃহীত
গ্রেফতার বাসচালক, কন্ডাকটর ও হেলপার। ছবি: সংগৃহীত

বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটি অব প্রফেশনালসের (বিইউপি) ছাত্র আবরার আহমেদকে চাপা দেয়া সুপ্রভাত পরিবহনের বাসটি চালাচ্ছিল ওই বাসের কন্ডাকটর ইয়াসিন আরাফাত।

১৯ মার্চ সকাল পৌনে ৬টার দিকে বাসটি সদরঘাটের ভিক্টোরিয়া পার্কের সামনে থেকে যাত্রা করে শাহজাদপুরের বাঁশতলায় এক ছাত্রীকে চাপা দিলে চালক সিরাজুল ইসলামকে (২৪) গ্রেফতার করা হয়।

এ সময় বাসটি রাস্তার পাশে দাঁড় করিয়ে রাখা হয়। বাসের কন্ডাকটর ইয়াসিন বাস মালিকের সঙ্গে যোগাযোগ করে। বাস মালিক জ্বালিয়ে দেয়ার ভয়ে ইয়াসিনকে বাসটি চালিয়ে নিরাপদে সরিয়ে নেয়ার নির্দেশ দেন।

পরে ইয়াসিন স্টিয়ারিংয়ে বসে বাসটি বেপরোয়া গতিতে চালিয়ে নেয়ার সময় নদ্দায় আবরারকে চাপা দিয়ে সামনে এগিয়ে যায়। আবরার ঘটনাস্থলেই নিহত হন। ইয়াসিন পালিয়ে যায়।

বাসচালক সিরাজুলের হালকা যান চালানোর লাইসেন্স থাকলেও ইয়াসিনের কোনো লাইসেন্সই ছিল না। মঙ্গল ও বুধবার ইয়াসিন ও বাসচালকের সহকারী ইব্রাহিমকে গ্রেফতার করে গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি)।

মিন্টু রোডে ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) মিডিয়া সেন্টারে বুধবার সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানান ডিএমপির অতিরিক্ত কমিশনার (ডিবি) আবদুল বাতেন।

দুর্ঘটনার প্রতিবাদে গত ১৯ মার্চ থেকে টানা দু’দিন ঢাকার বিভিন্ন সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ দেখান বিইউপিসহ বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা। পরে ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশন মেয়রের আশ্বাসে ৭ দিনের জন্য কর্মসূচি স্থগিত কর হয়।

বাঁশতলায় আহত মিরপুর আইডিয়াল গার্লস ল্যাবরেটরি কলেজের প্রথম বর্ষের ছাত্রী সিনথিয়া সুলতানা মুক্তা এখন কিছুটা সুস্থ। গ্রেফতার ইয়াসিন আরাফাত এবং ইব্রাহিমকে ৭ দিনের রিমান্ডে নিয়েছে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি)। আগেই গ্রেফতার সিরাজুল স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেয়ায় আদালত তাকে জেলে পাঠিয়েছেন।

মঙ্গলবার চাঁদপুরের শাহরাস্তি থানার একটি ইটভাটা থেকে ইয়াসিন আরাফাতকে, পরে তার দেয়া তথ্যের ভিত্তিতে বুধবার সকালে রাজধানীর মধ্য বাড্ডা থেকে ইব্রাহিম হোসেনকে গ্রেফতার করা হয়।

ডিবির যুগ্ম কমিশনার আবদুল বাতেন বলেন, সিনথিয়াকে চাপা দেয়ার পর সুপ্রভাত বাসের যাত্রীরাই চালক সিরাজুলকে আটক করে পুলিশের কাছে দেন। ইয়াসিন ওই সময় বাসের মালিক ননী গোপালকে ঘটনা জানান। ইয়াসিন মালিককে বলেন, উত্তেজিত জনতা বাসটি জ্বালিয়ে দিতে পারে। ফোনে এ কথা শোনার পর ননী গোপাল ইয়াসিনকে দ্রুত বাসটি নিয়ে পালিয়ে যাওয়ার কথা বলেন।

সংবাদ সম্মেলনে বাতেন বলেন, সিরাজুলকে ধরা হয় বাঁশতলার দুর্ঘটনায়। আবরারের দুর্ঘটনার কথা সে জানত না। ফলে তার বক্তব্যে মিল খুঁজে পাওয়া যাচ্ছিল না। ইয়াসিন ও ইব্রাহিমকে গ্রেফতারের পর বিষয়টি স্পষ্ট হয়।

মামলার অপর আসামি বাসমালিক ননী গোপালকে গ্রেফতার করা হবে কি না, জানতে চাইলে বাতেন বলেন, গ্রেফতার দু’জনের জবানবন্দি নেয়ার পর পুলিশ পরবর্তী পদক্ষেপে যাবে।

আবরার নিহতের ঘটনায় দণ্ডবিধির ৩০৪ ধারায় মামলা হয়েছে জানিয়ে অতিরিক্ত কমিশনার বলেন, সিনথিয়ার আহত হওয়ার ঘটনায়ও মামলা হবে।

ডিবি উত্তরের উপ-কমিশনার মশিউর রহমান যুগান্তরকে বলেন, ইয়াসিন এবং ইব্রাহিমকে বুধবার আদালতে হাজির করে ১০ দিনের রিমান্ড চাওয়া হলে ঢাকা মহানগর হাকিম তাদের ৭ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন। এক মাসের কম সময়ের মধ্যেই মামলার চার্জশিট দেয়া সম্ভব।

১৯ মার্চ সকালে রাজধানীর প্রগতি সরণির নদ্দায় বিইউপির ছাত্র আবরার আহমেদ চৌধুরীকে চাপা দেয়ার ঘটনা সিসি ক্যামেরায় ধরা পড়ে। ঘটনার দিন রাতেই আবরারের বাবা বাদী হয়ে গুলশান থানায় মামলা করেন। দুর্ঘটনার পরপরই সুপ্রভাত পরিবহনের ওই বাসের রুট পারমিট বাতিল করে বিআরটিএ। ঢাকায় ওই পরিবহনের সব বাস চলাচলে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়।