উপজেলায় নৌকার বিরোধিতা: তদন্তের পর শোকজ করবে আ’লীগ

প্রকাশ : ০৮ এপ্রিল ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

  রেজাউল করিম প্লাবন

উপজেলায় নৌকার বিরোধিতা: তদন্তের পর শোকজ করবে আ’লীগ। প্রতীকী ছবি

উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষভাবে নৌকার বিরোধিতাকারী মন্ত্রী, এমপি ও নেতাদের বিরুদ্ধে তদন্ত শুরু করেছে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ। কেন্দ্রে জমা পড়া তৃণমূলের অভিযোগের ভিত্তিতে দলের আটটি টিম তদন্ত করছে। দলটির শীর্ষ পর্যায়ের কয়েকজন নেতা যুগান্তরকে এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

নেতারা জানান, ঢালাওভাবে আমরা কাউকে শোকজ করছি না। তদন্তে যাদের বিরুদ্ধে অভিযোগের সত্যতা মিলবে শুধু তাদের শোকজ করা হবে। এটা সময়সাপেক্ষ ব্যাপার। তড়িঘড়ি করে কিছু করা হবে না।

শুক্রবার আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী সংসদের সভায় উপজেলা নির্বাচনে নৌকার বিরোধিতাকারী মন্ত্রী, এমপি ও নেতাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে দলটির সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নির্দেশ দেন। একই সঙ্গে বিরোধিতাকারীরা যাতে কোনোদিন নৌকা প্রতীক না পায় সেদিকেও কেন্দ্রীয় নেতাদের সতর্ক থাকার আহ্বান জানান তিনি। এ নির্দেশের পর শোকজ নিয়ে কাজ শুরু করেছেন সংশ্লিষ্ট কেন্দ্রীয় নেতারা।

আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক মাহবুবউল আলম হানিফের নেতৃত্বে ইতিমধ্যে দুটি বৈঠকও অনুষ্ঠিত হয়েছে। কেন্দ্রে জমা পড়া তৃণমূলের অভিযোগের ভিত্তিতে তদন্ত করার সিদ্ধান্ত হয়। এর ভিত্তিতে আট বিভাগীয় কমিটি তদন্ত শুরু করেছে বলে সংশ্লিষ্ট দায়িত্বশীল কয়েকজন নেতা যুগান্তরকে নিশ্চিত করেছেন।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক মাহবুবউল আলম হানিফ রোববার যুগান্তরকে বলেন, তৃণমূলের অভিযোগ খতিয়ে দেখা হচ্ছে। ইতিমধ্যে আটটি টিম কাজ শুরু করেছে। যার বিরুদ্ধে নৌকার বিপক্ষে কাজ করার অভিযোগের সত্যতা পাওয়া যাবে শুধু তাকেই শোকজ করা হবে। আর এটি নির্ধারণে কিছুটা সময় লাগবে।

আওয়ামী লীগ সভাপতির ধানমণ্ডির রাজনৈতিক কার্যালয় সূত্রে জানা যায়, উপজেলা পরিষদ নির্বাচন নিয়ে তৃণমূল থেকে কয়েক হাজার অভিযোগ জমা পড়েছে। অভিযোগে অনেক মন্ত্রী, এমপি ও প্রভাবশালী নেতার নাম রয়েছে। এগুলোর বিভাগওয়ারি সংক্ষিপ্ত তালিকা তৈরি করা হয়েছে। এসব তালিকা ধরে দায়িত্বশীলরা তদন্ত করছেন।

সূত্রটি আরও জানায়, তৃণমূলের অভিযোগে এমন কিছু প্রভাবশালী নেতা ও মন্ত্রীর নাম এসেছে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে দলীয় প্রধানের হস্তক্ষেপ লাগবে। যদিও যাদের কর্মকাণ্ড নিয়ে আওয়ামী লীগ বিব্রত হয়েছে। একটি নির্ভরযোগ্য সূত্রে জানা যায়, প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশের পর রোববার একটি খসড়া শোকজ লেটার তৈরি করেছে আওয়ামী লীগ। সেখানে ৭ দিনের সময় দিয়ে নৌকার বিরুদ্ধে অবস্থানের কারণ জানতে চাওয়া হয়েছে।