হত্যার আলামত মুছতে স্ত্রীর লাশে আগুন

গ্রেফতার ঘাতক স্বামী

  যুগান্তর রিপোর্ট ১৮ এপ্রিল ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

হত্যার আলামত মুছতে স্ত্রীর লাশে আগুন

রাজধানীর দক্ষিণ মুগদায় স্ত্রীকে গলাটিপে হত্যার পর আলামত মুছতে শরীরে কেরোসিন ঢেলে আগুন দিয়েছে এক পাষণ্ড স্বামী।

বুধবার সকালে হাসি বেগম (২৫) নামে ওই গৃহবধূর লাশ উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে পাঠায় পুলিশ।

এ ঘটনায় নিহতের বাবা বাদী হয়ে মুগদা থানায় হত্যা মামলা করলে পুলিশ ঘাতক স্বামী কমল হোসেনকে গ্রেফতার করেছে। পুলিশের ধারণা, পারিবারিক কলহের জেরে এ হত্যাকাণ্ড ঘটেছে।

হাসির বাড়ি দিনাজপুর জেলায়। ৮ মাস আগে হাসি ও কমলের বিয়ে হয়। তারা দক্ষিণ মুগদা ব্যাংক কলোনি এলাকায় ভাড়া বাসায় থাকতেন। তিন বোন, এক ভাইয়ের মধ্যে হাসি ছিলেন দ্বিতীয়। সন্তানের হত্যায় পাগলপ্রায় তার বাবা-মা।

তারা জানান, সকাল ৭টার দিকে হাসিকে হত্যার পর গায়ে কেরোসিন ঢেলে আগুন লাগিয়ে দেয় কমল। মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা মাসুদুর রহমান আসামির বরাত দিয়ে যুগান্তরকে বলেন, স্বামী-স্ত্রী উভয়ের দ্বিতীয় বিয়ে ছিল। উভয়ের আগের ঘরের বাচ্চা রয়েছে।

তিনি বলেন, হাসি বেগমের আগের শ্বশুর বাড়ির লোকজন তাদের বাসায় যাতায়াত করত। এটা তার স্বামী কমল হাসান মেনে নিতে পারত না। বিষয়টি নিয়ে তাদের মধ্যে প্রায়ই ঝগড়াঝাটি হতো। মঙ্গলবার ভোরে তাদের মধ্যে কথাকাটাকাটি হয়। একপর্যায়ে হাসি বেগমকে হত্যা করে তার স্বামী। পরে ঘটনাটি ভিন্ন খাতে প্রবাহিত করতে লাশে আগুন লাগিয়ে দেয়।

তিনি আরও বলেন, এ ঘটনায় নিহতের বাবা বাদী হয়ে একটি হত্যা মামলা করেছেন। মামলা নং ৩৯। নিহত হাসির বোনের স্বামী আসিফ জানান, হাসির জিহ্বা বের হয়ে গেছে। শরীরের বিভন্ন স্থানে আঘাতের চিহ্ন পাওয়া গেছে। তাতে বোঝা যায়, তাকে নির্যাতন করে গলাটিপে হত্যা করা হয়েছে। তিনি আরও জানান, পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে কমল গলাটিপে হত্যার বিষয়টি স্বীকার করেছে।

জানতে চাইলে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ফরেনসিক বিভাগের প্রধান সোহেল মাহমুদ জানান, আমরা তার সব শরীর পোড়া পেয়েছি। গলা থেকে টিস্যু নেয়া হয়েছে। পরীক্ষার পর মৃত্যুর প্রকৃত কারণ জানানো সম্ভব হবে।

মুগদা থানার ওসি (তদন্ত) আবুল খায়ের যুগান্তরকে বলেন, হত্যার আলামত নষ্ট করতে ঘাতক স্বামী লাশের শরীরে আগুন ধরিয়ে দেয়। তিনি আরও জানান, আগুন দিয়ে তার স্বামী চিৎকার করলে লোকজন এগিয়ে আসেন। তখন তিনি জানান, তার স্ত্রী শরীরে আগুন দিয়ে আত্মহত্যা করেছে। মুগদা থানার ওসি প্রণয় কুমার সাহা যুগান্তরকে বলেন, প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে আসামি কমল হাসান গলাটিপে হত্যার কথা স্বীকার করেছে।

মাঝে মাঝে হাসি বেগম তার আগের স্বামীর কাছে ফোন দিয়ে বাচ্চার খোঁজখবর নিতেন। যা তার বর্তমান স্বামীর অপছন্দ ছিল।

হাসির আত্মীয়রা জানান, তাদের মধ্যে সম্পর্কের ঘটতি ছিল এটা আমাদের নজরে কখনও আসেনি। বুধবার সকালে ঝগড়ার বিষয়টি তারা আঁচ করতে পেরেছিলেন। এর কিছু পরে তার স্বামী এসে বলে হাসি শরীরে আগুন দিয়ে আত্মহত্যা করেছে। এ বলে কমল মোটরসাইকেল নিয়ে পালানোর চেষ্টা করলে পুলিশ তাকে আটক করে।

এদিকে ময়নাতদন্ত শেষে বুধবার সন্ধ্যায় হাসির লাশ নেয়া হয় মুগদা ব্যাংক কলোনির ভাড়া বাসায়। সেখানে এক হৃদয়বিদারক পরিবেশের সৃষ্টি হয়। হাসিকে এক নজর দেখতে এসে কান্নায় ভেঙে পড়েন আত্মীয়স্বজন এবং স্থানীয়রা। তারা এ খুনের সঙ্গে জড়িত ঘাতক কমল হোসেনের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানান।

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×