সেই শামীম ফের তিন দিনের রিমান্ডে

সন্দেহভাজন শাকিল গ্রেফতার * ৫ দিনের রিমান্ড শেষে রুহুল আমিন কারাগারে * ময়নাতদন্ত প্রতিবেদন প্রস্তুত

প্রকাশ : ২৬ এপ্রিল ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

  যুগান্তর রিপোর্ট ও ফেনী প্রতিনিধি

মাদ্রাসাছাত্রী নুসরাত জাহান রাফিকে পুড়িয়ে হত্যার ঘটনার অন্যতম পরিকল্পনাকারী শাহাদাত হোসেন শামীমকে বৃহস্পতিবার ৩ দিনের রিমান্ডে নিয়েছে পুলিশ।

১৪ এপ্রিল সে রাফি হত্যার দায় স্বীকার করে ফৌজদারি কার্যবিধির ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছিল। তদন্ত সংস্থা পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই) মনে করছে, জবানবন্দিতে সে সব তথ্য প্রকাশ করেনি।

এ কারণে শামীমকে আদালতে হাজির করে ৫ দিনের রিমান্ড চায় পিবিআই। ফেনীর সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মো. জাহির হোসাইন শুনানি শেষে ৩ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

এদিকে রাফি হত্যার ঘটনায় জড়িত সোনাগাজী ইসলামিয়া সিনিয়র ফাজিল মাদ্রাসার শিক্ষার্থী মহিউদ্দিন শাকিলকে গ্রেফতার করেছে পিবিআই। বৃহস্পতিবার বিকালে ফেনীর উকিলপাড়া এলাকা থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। এ ঘটনায় ২২ জনকে গ্রেফতার করল পিবিআই। একই দিন বিকালে সোনাগাজী উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি রুহুল আমিনকে ৫ দিনের রিমান্ড শেষে কারাগারে প্রেরণ করেছেন ফেনীর আদালত।

মাদ্রাসাছাত্রী নুসরাত জাহান রাফির যৌন হয়রানির অভিযোগ সোনাগাজীর তৎকালীন ওসি মোয়াজ্জেম হোসেন ভিডিওতে ধারণ করেছিলেন কিনা এ বিষয়ে তদন্ত করছে পিবিআই।

এরই মধ্যে ওসিকে পিবিআই সদর দফতরে ডেকে জিজ্ঞাসাবাদ করার পাশাপাশি তার (মোয়াজ্জেম) দুটি মোবাইল ফোন জব্দ করা হয়েছে। আদালতের নির্দেশে ওই মামলার তদন্ত করছে সংস্থাটি। বুধবার ফেনীর সোনাগাজীতে সরেজমিন অনুসন্ধানে যায় পিবিআইর একটি টিম।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে পিবিআই প্রধান ডিআইজি বনজ কুমার মজুমদার যুগান্তরকে বলেন, ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে করা মামলার তদন্ত চলছে। আদালতের নির্দেশনা অনুযায়ী তদন্ত শেষ করে প্রতিবেদন জমা দেয়া হবে।

এদিকে রাফি হত্যার ঘটনায় গ্রেফতার উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও মাদ্রাসা পরিচালনা কমিটির সাবেক সহসভাপতি রুহুল আমিনকে রিমান্ড শেষে কারাগারে প্রেরণের নির্দেশ দিয়েছেন আদালত। পাঁচ দিনের রিমান্ড শেষে বৃহস্পতিবার বিকালে সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মো. জাকির হোসাইন তাকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন। এর আগে ১৯ এপ্রিল সোনাগাজীর তাকিয়া রোড এলাকার নিজ বাসভবন থেকে রুহুল আমিনকে গ্রেফতার করে পিবিআই। এদিকে নুসরাত জাহান রাফির লাশের ময়নাতদন্ত প্রতিবেদন প্রস্তুত করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ফরেনসিক বিভাগের প্রধান ডা. সোহেল মাহমুদ। বৃহস্পতিবার বিকালে তিনি জানান, ময়নাতদন্ত প্রতিবেদন প্রস্তুত করা হয়েছে। এখন পুলিশের সংশ্লিষ্ট ইউনিট যোগাযোগ করলে তাদের হাতে প্রতিবেদন তুলে দেয়া হবে।

ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল সূত্র জানায়, ময়নাতদন্ত প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে, অগ্নিদগ্ধ হয়ে রাফির মৃত্যু হয়েছে। দাহ্য পদার্থের (কেরোসিন) মাধ্যমে দেয়া আগুনেই রাফির মৃত্যু হয়েছে। এছাড়া আর কোনো আলামত পাওয়া যায়নি।

৬ এপ্রিল সকালে আলিম পরীক্ষা দিতে সোনাগাজী ইসলামিয়া সিনিয়র ফাজিল মাদ্রাসায় যান নুসরাত জাহান রাফি। কয়েকজন তাকে কৌশলে ছাদে ডেকে নিয়ে অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে করা শ্লীলতাহানির মামলা তুলে নিতে চাপ দেয়।

এতে অস্বীকৃতি জানালে তার গায়ে কেরোসিন ঢেলে আগুন ধরিয়ে দেয়া হয়। এ ঘটনায় অধ্যক্ষ সিরাজ উদ্দৌলা, পৌর কাউন্সিলর মাকসুদ আলমসহ আটজনের নাম উল্লেখ করে সোনাগাজী মডেল থানায় মামলা করেন রাফির বড় ভাই মাহমুদুল হাসান নোমান। ১০ এপ্রিল রাতে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে মারা যান অগ্নিদগ্ধ রাফি। এর আগে ২৭ মার্চ ওই ছাত্রীকে নিজ কক্ষে নিয়ে যৌন নিপীড়নের অভিযোগে অধ্যক্ষ সিরাজ উদ্দৌলাকে গ্রেফতার করে পুলিশ। ওই ঘটনার পর থেকে তিনি কারাগারে আছেন।