জিপিএ-৫ ও পাসের হারে এগিয়ে মেয়েরা

প্রকাশ : ০৭ মে ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

  যুগান্তর রিপোর্ট

এবারের মাধ্যমিক স্কুল সার্টিফিকেট (এসএসসি) ও সমমানের পরীক্ষায় পাসের হার ও জিপিএ-৫ প্রাপ্তিতে ছেলেদের চেয়ে এগিয়ে রয়েছে মেয়েরা। তবে পরীক্ষায় অংশগ্রহণের ক্ষেত্রে এগিয়ে ছেলেরা। সোমবার রাজধানীর আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ইন্সটিটিউট মিলনায়তনে সংবাদ সম্মেলনে এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষার ফল প্রকাশ করেন শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনি।

ফলাফলে বলা হয়, এবার মাধ্যমিকে পাসের হার ৮২ দশমিক ২০ শতাংশ। আর মোট জিপিএ-৫ পেয়েছে এক লাখ ৫ হাজার ৫৯৪ জন। এর মধ্যে ছাত্রদের পাসের হার ৮১ দশমিক ১৩ শতাংশ ও ছাত্রীদের পাসের হার ৮৩ দশমিক ২৮ শতাংশ। ছাত্রীদের পাসের হার ২ দশমিক ১৫ শতাংশ বেশি। অন্যদিকে ছাত্রদের মধ্যে জিপিএ-৫ পেয়েছে ৫২ হাজার ১১০ জন। আর ছাত্রীদের মধ্যে ৫৩ হাজার ৪৮৪ জন জিপিএ-৫ পেয়েছে। অর্থাৎ ছাত্রদের তুলনায় জিপিএ-৫ বেশি পেয়েছে এক হাজার ৩৭৪ জন ছাত্রী।

এবার এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষায় ২১ লাখ ২৭ হাজার ৮১৫ শিক্ষার্থী অংশ নেয়। এর মধ্যে ছাত্র ১০ লাখ ৬৮ হাজার ৫২৭ জন ও ছাত্রী ১০ লাখ ৫৯ হাজার ২৮৮ জন। অংশগ্রহণের দিক থেকে ছাত্রসংখ্যা ৯ হাজার ২৩৯ জন বেশি। অংশগ্রহণকারীদের মধ্যে ৮ লাখ ২০ হাজার ৯৮০ জন, যার মধ্যে পাস করেছে ৬ লাখ ৭৩ হাজার ২৬২ জন। ছাত্রদের পাসের হার ৮২ দশমিক ০১ শতাংশ। অপরদিকে ৮ লাখ ৭৩ হাজার ৬৭২ জন ছাত্রী পরীক্ষায় অংশ নিয়ে পাস করেছে ৭ লাখ ২৯ হাজার ৮৯৫ জন। ছাত্রীদের পাসের হার ৮৩ দশমিক ৫৪ শতাংশ।

এবারের পরীক্ষায় আটটি সাধারণ বোর্ডে ছাত্রের চেয়ে ৫২ হাজার ৬৯২ জন বেশি ছাত্রী অংশ নেয়। তবে ৫৬ হাজার ৬৩৩ জন ছাত্রী বেশি পাস করেছে, যা ছেলেদের তুলনায় এক দশমিক ৫৩ শতাংশ বেশি। এই আট বোর্ডে জিপিএ-৫ প্রাপ্তির দিক থেকেও মেয়েরা এগিয়ে। ছাত্রদের মধ্যে ১৩ হাজার ৬৮১ জন ও ছাত্রীদের মধ্যে ১৬ হাজার ৬ জন জিপিএ-৫ পেয়েছে। অর্থাৎ জিপিএ-৫ পেয়েছে বেশি পেয়েছে ২ হাজার ৩২৫ জন মেয়ে।

অন্যদিকে মাদ্রাসা বোর্ডে ৩ লাখ ৬ হাজার ৭৮০ জন শিক্ষার্থী পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করে। এর মধ্যে ছাত্র এক লাখ ৫০ হাজার ১৮০ জন ও ছাত্রী এক লাখ ৫৬ হাজার ৬০০ জন। এই বোর্ডে মোট ৬ হাজার ৪৮০ জন ছাত্রী বেশি পরীক্ষা দেয়। পাসের হার ছেলেদের ৮২ দশমিক ৯৯ শতাংশ ও মেয়েদের ৮৩ দশমিক ০৭ শতাংশ। এই বোর্ডে ছাত্রদের তুলনায় ছাত্রীদের পাসের হার শূন্য দশমিক ০৪ শতাংশ বেশি।

কারিগরি বোর্ডে ছেলেদের পাসের হার ৭০ দশমিক ৯২ শতাংশ ও মেয়েদের ৭৬ দশমিক ৬৭ শতাংশ। এখানেও মেয়েদের পাসের হার ৫ দশমিক ৭৫ শতাংশ বেশি।