ময়নাতদন্তে ধর্ষণের আলামত, পাঁচজন রিমান্ডে

  কিশোরগঞ্জ ব্যুরো ও কটিয়াদী প্রতিনিধি ০৯ মে ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

চলন্ত বাসে তানিয়াকে ধর্ষণ ও হত্যাকারীদের ফাঁসির দাবিতে বুধবার রাজধানীর কল্যাণপুরে সহপাঠীদের মানববন্ধন। ছবি-যুগান্তর
চলন্ত বাসে তানিয়াকে ধর্ষণ ও হত্যাকারীদের ফাঁসির দাবিতে বুধবার রাজধানীর কল্যাণপুরে সহপাঠীদের মানববন্ধন। ছবি-যুগান্তর

কিশোরগঞ্জে চলন্ত বাসে নার্স তানিয়া ধর্ষণ ও হত্যা মামলায় এজাহারভুক্ত দুই আসামিসহ পাঁচজনকে ৮ দিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত। বুধবার বিকালে পাঁচজনকে হাজির করে পুলিশ রিমান্ড আবেদন করলে শুনানি শেষে আদালত রিমান্ড মঞ্জুর করেন। তানিয়ার লাশের ময়নাতদন্তে ধর্ষণের পর হত্যার আলামত পাওয়া গেছে।

এদিকে, তানিয়া হত্যার প্রতিবাদে ঢাকা ও কিশোরগঞ্জসহ বিভিন্ন স্থানে মানববন্ধনসহ নানা কর্মসূচি পালিত হয়েছে। সোমবার রাত ১০টার দিকে চলন্ত বাসে নার্স শাহীনুর আক্তার তানিয়া ধর্ষণের শিকার হন। তাকে ধর্ষণের পর হত্যা করে লাশ বাস থেকে ফেলে দেয়া হয়।

কিশোরগঞ্জের সিভিল সার্জন ডা. মো. হাবিবুর রহমান জানান, তানিয়ার লাশের ময়নাতদন্তে তাকে গণধর্ষণের পর হত্যার প্রাথমিক প্রমাণ পাওয়া গেছে। এর আগে মঙ্গলবার দুপুরে কটিয়াদী থানার আবাসিক মেডিকেল অফিসার (আরএমও) ডা. তাজরীন তৈয়ব জানিয়েছিলেন হাসপাতালে অজ্ঞাত রোগী হিসেবে ভর্তির সময় তানিয়ার ঠোঁট, মুখসহ শরীরের বিভিন্ন স্পর্শকাতর স্থানে নির্যাতনের চিহ্ন পাওয়া গেছে।

কিশোরগঞ্জ অতিরিক্ত চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে বাজিতপুর থানা পুলিশ তানিয়া ধর্ষণ ও হত্যা মামলার এজাহারভুক্ত প্রধান আসামি স্বর্ণলতা পরিবহনের বাসচালক নুরুজ্জামান ও হেলপার লালন এবং সন্দেহভাজন হিসেবে আটক রফিক, বকুল ও খোকনকে হাজির করে প্রত্যেকের ১০ দিনের রিমান্ড আবেদন করেন। শুনানি শেষে আদালত প্রত্যেকের ৮ দিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

তানিয়া ধর্ষণ ও হত্যার প্রতিবাদে কিশোরগঞ্জ শহর, পাকুন্দিয়া উপজেলা, কটিয়াদীর মানিকখালি রেল স্টেশন ও বাজিতপুরের পিরিজপুরে মানববন্ধন কর্মসূচি পালিত হয়েছে। এতে জড়িত অন্যদের গ্রেফতার ও হত্যাকারীদের বিচার দাবি করা হয়।

একই দাবিতে জেলা নার্সেস অ্যাসোসিয়েশনের ডাকে বুধবার দুপুর থেকে জেলার হাসপাতাল ও ক্লিনিকের নার্সরা কালো ব্যাজ ধারণ কর্মসূচি পালন শুরু করেছেন। আজ বেলা ১১টায় তারা মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করবেন। দ্রুত বিচার আইনের আওতায় তানিয়া হত্যা মামলার বিচার দাবি করেছে জেলা মহিলা পরিষদ।

সংগঠনটির সভাপতি অ্যাডভোকেট মায়া রানি ভৌমিকের নেতৃত্বে নেতারা তানিয়ার গ্রামের বাড়ি পরিদর্শন করেন। এরপর তারা বাজিতপুর থানায় গিয়ে এ দাবি জানান।

কিশোরগঞ্জের পুলিশ সুপার মাশরুকুর রহমান খালেদ (বিপিএম) জানান, এ ঘটনায় বাজিতপুর থানায় চারজনকে আসামি করে মামলা হয়েছে। প্রধান দুই আসামি বাসচালক নুরুজ্জামান, হেলপার লালনকে ঘটনার পরপরই পুলিশ আটক করে। তবে এজাহারভুক্ত আসামিদের মধ্যে আল-আমিন ও আবদুল্লাহ আল মামুন নামে দু’জন পলাতক রয়েছে। তাদের গ্রেফতারে অভিযান অব্যাহত আছে।

কোর্ট ইন্সপেক্টর তফিকুল ইসলাম তৌফিক জানান, সাড়ে ৩টার দিকে বাজিতপুর থানা পুলিশ আসামিদের আদালতে সোপর্দ করে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য প্রত্যেকের ১০ দিন করে রিমান্ড আবেদন করলে আদালতের বিজ্ঞ বিচারক কিশোরগঞ্জের অতিরিক্ত চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আল্-মামুন শুনানি শেষে প্রত্যেকের ৮ দিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

তানিয়ার স্বজনদের অভিযোগ, এ ঘটনায় ধর্ষণ ও হত্যা মামলা না নিয়ে তানিয়া বাস থেকে লাফিয়ে পড়ে আত্মহত্যা করেছেন বলে অভিযোগ দিয়ে মামলা করার জন্য পুলিশ চাপ দিয়েছিল। আর এমন অভিযোগের তীর ছিল তানিয়ার লাশের সুরতহাল রিপোর্টকারী কর্মকর্তা উপ-পুলিশ পরিদর্শক পার্থ শেখর রায়ের বিরুদ্ধে।

অবশ্য, এ অভিযোগ সম্পূর্ণ বানোয়াট ও ভিত্তিহীন বলে উড়িয়ে দিয়েছেন পার্থ শেখর রায়। আসামিদের গ্রেফতারে তারই কৃতিত্ব রয়েছে বলে তিনি যুগান্তরের কাছে দাবি করেন।

এদিকে, মঙ্গলবার বিকালে ময়নাতদন্ত শেষে তানিয়ার লাশ স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করা হয়। সন্ধ্যায় গ্রামের বাড়ি কটিয়াদীর লোহাজুরী ইউনিয়নের বাহেরচর গ্রামে তানিয়ার লাশ নিয়ে গেলে এক হৃদয়বিদারক দৃশ্যের অবতারণা হয়।

রাত ১১টার দিকে বাহেরচর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে জানাজা শেষে পারিবারিক গোরস্থানে মায়ের কবরের পাশে তানিয়ার মরদেহ দাফন করা হয়। জানাজায় শত শত মানুষ অংশ নেন।

ঢাকার কল্যাণপুরে সহপাঠীদের মানববন্ধন : তানিয়াকে ধর্ষণের পর হত্যার প্রতিবাদে ঢাকার কল্যাণপুরে মানববন্ধন করা হয়েছে। কল্যাণপুরের ইবনে সিনা হাসপাতালের সামনে বুধবার ইবনে সিনা নার্সিংয়ের ৫ শতাধিক শিক্ষার্থী প্রায় ১ ঘণ্টা ধরে মানববন্ধন করেন।

বিভিন্ন প্ল্যাকার্ড হাতে নিয়ে তারা তানিয়ার হত্যাকারীদের বিচার দাবি করেন। ইবনে সিনা নার্সিংয়ের পঞ্চম ব্যাচের শিক্ষার্থী ছিলেন তানিয়া। ২০১৭ সালে পাস করে তিনি ইবনে সিনা হাসপাতালেই নার্স হিসেবে যোগদান করেন।

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×