সাবেক তিন অধিনায়কের প্রতিক্রিয়া

বিশ্বকাপ ঘিরে এখন বড় স্বপ্ন বাংলাদেশের

  স্পোর্টস রিপোর্টার ১৯ মে ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

বাংলাদেশ

ফাইনাল নামের মানসিক বাধার দেয়াল অবশেষে গুঁড়িয়ে দিতে পেরেছে বাংলাদেশ। আগে ছয়বার ফাইনাল খেললেও শিরোপা ছোঁয়া হয়নি বাংলাদেশের। শুক্রবার ডাবলিনে ত্রিদেশীয় সিরিজের ফাইনালে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে পাঁচ উইকেটে হারিয়ে সেই গেরো খুলেছে বাংলাদেশ। জাতীয় দলের তিন সাবেক অধিনায়ক শফিকুল হক হীরা, গাজী আশরাফ হোসেন লিপু ও হাবিবুল বাশার সুমন মনে করছেন, এই শিরোপা জয় বাংলাদেশকে বাড়তি আত্মবিশ্বাস দেবে। যেটা বিশ্বকাপে টনিক হিসেবে কাজ করবে। সাবেকদের মতে, এ জয় পরশ বুলিয়ে দেয়ার মতো-

শফিকুল হক হীরা : যে কোনো টুর্নামেন্টের ফাইনাল জেতাই বড় ব্যাপার। আমাদের তো আগে কোনো ফাইনাল জেতার স্মৃতিই ছিল না। ফাইনালে উঠে বারবার হেরেছি। দলের মধ্যেও একটা চাপ তৈরি হয়ে গিয়েছিল। সেই চাপটা সরানোর খুবই দরকার ছিল। বিশ্বকাপের আগে মনোবল তুঙ্গে রাখার জন্য এই শিরোপা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে।

পুরো টুর্নামেন্টে বাংলাদেশ দাপটের সঙ্গে খেলেছে। বিশেষ করে রান তাড়া করে জেতার একটা দারুণ অভ্যাস তৈরি হয়েছে। ইংল্যান্ড বিশ্বকাপে সাড়ে তিনশ’র বেশি রান তাড়া করে জিততে হবে। আয়ারল্যান্ড ও ইংল্যান্ডের কন্ডিশন এবং উইকেট প্রায় একই ধরনের। ভালো একটা অভিজ্ঞতাও হল ছেলেদের। বিশেষ করে ব্যাটসম্যানরা ফর্মে থাকায় আরও ভালো হয়েছে দলের জন্য।

ফাইনাল নিয়ে যে মানসিক বাধা ছিল, সেটা কেটে গেছে। ফাইনালের গেরো খোলায় বিশ্বকাপ আসরেও এখন আমরা বড় স্বপ্ন দেখতে পারি। টপ অর্ডারে বড় স্কোর করা খুবই জরুরি। সেটা করতে পেরেছে তামিম-সৌম্যরা। মিডল অর্ডারে যারা আছে, তারাও দায়িত্ব নিচ্ছে। এখন ভয় বোলিং নিয়ে। তাদের আরও বেশি ধারাবাহিক হতে হবে। দায়িত্ব নিতে হবে। বুদ্ধি দিয়ে বোলিং করতে হবে। ইংল্যান্ডের উইকেটে ব্যাটসম্যানদের আউট করা সহজ হবে না। ব্যাটসম্যান যেন ভুল করে, সেভাবেই টোপ দিতে হবে। ত্রিদেশীয় সিরিজের বাংলাদেশ ফেভারিট ছিল। ফেভারিটের মতোই খেলেছে। আত্মবিশ্বাস তুঙ্গে রেখেই বিশ্বকাপ মিশন শুরু করতে পারবে বাংলাদেশ।

গাজী আশরাফ হোসেন লিপু : এই জয়টা আমাদের জন্য ইতিবাচক হিসেবে দেখতেই হবে। ফাইনাল জেতা খুবই গুরুত্বপূর্ণ ছিল। তার আগে আমাদের লক্ষ্য ছিল কন্ডিশনের সঙ্গে মানিয়ে নেয়া। ইংল্যান্ড বিশ্বকাপকে সামনে রেখে ওই কন্ডিশনের সঙ্গে অভ্যস্ত হওয়া খুবই দরকার ছিল। সেটা আমরা করতে পেরেছি। বিশ্বকাপের আগে এমন একটা সিরিজ জয় অবশ্যই বাংলাদেশকে আত্মবিশ্বাস দেবে।

আমরা যতই বলি না কেন বাংলাদেশে খুব ভালো মানের ব্যাটসম্যান বা বোলার নেই। বোলিংটা একটু বেশি দুর্বল। মোস্তাফিজের সিরিজটা খুব বেশি ভালো যায়নি। তবুও পেস বোলিংয়ে কয়েকজন ব্যাকআপ আছে। আবু জায়েদ সুযোগ পেয়ে পাঁচ উইকেট পেয়েছে। সাকিব আল হাসান ছাড়া বাঁ-হাতি কোনো স্পিনার নেই। এটা খুবই ভয়ের কারণ। ডান-হাতি অফ-স্পিনার মেহেদী হাসান মিরাজের বিকল্প হয়তো আছে। সাকিব ইনজুরিতে পড়ায় কিছুটা ভয় থাকছে। ব্যাটিংয়ে গুরুত্বপূর্ণ দিক হল সবাই ভালো করছে। মিডল অর্ডারেও যারা আছে, তারা দায়িত্ব নিচ্ছে। মোসাদ্দেক যেভাবে ব্যাট করেছে তাতে সাত নম্বর জায়গায় একজন আস্থা রাখার মতো ব্যাটসম্যান পাওয়া গেছে। সর্বোপরি এই জয়টা আমাদের পরশ বুলিয়ে দেয়ার মতো হয়েছে। সব মিলিয়ে বিশ্বকাপের আগে প্রস্তুতিটা হল দারুণ।

বিশ্বকাপের আগে এখানে হেরে গেলে সেটা দলের জন্য ভালো হতো না। আর বিশ্বকাপের এখনও ১১ দিন বাকি রয়েছে। আশা করছি, এই শিরোপা জয়ের অভিজ্ঞতা বিশ্বকাপেও অনেক কাজে দেবে।

হাবিবুল বাশার সুমন : আমরা আগে বেশি কয়েকটি ফাইনালে হেরেছি। এবার অন্তত সেটা এড়াতে পেরেছি। ফাইনালে এমন একটি জয় খুবই দরকার ছিল। এই ম্যাচটি জিততে না পারলে পরবর্তী সময়ে আবার ফাইনালে গেলে হারগুলো মনে পড়ত। বিভিন্ন নেতিবাচক কথা উঠত। এই ম্যাচের আগেও আমাদের পেছনের হারগুলো বারবার মনে পড়েছে। সবমিলে আমাদের জন্য একটা আদর্শ ফাইনাল হয়েছে। বিশ্বকাপের আগে বাংলাদেশের জন্যও একটি আদর্শ টুর্নামেন্ট হয়েছে। আমরা যেমনটা চেয়েছি, এই সিরিজটা ঠিক তেমনই হয়েছে। সব বিভাগেই সমানতালে পারফর্ম করেছে ছেলেরা। যদিও বোলিং নিয়ে কিছুটা প্রশ্ন থাকছে। তবে আমরা কোনো নেতিবাচক দিকে যেতে চাই না এখন।

বিশ্বকাপের দল নিয়ে আমাদের আগেও কোনো সংশয় ছিল না। আর ত্রিদেশীয় সিরিজে সবাই ভালো করায় বিশ্বাসটা বেড়েছে। আশপাশে অনেকেই নেতিবাচক কথা বলার চেষ্টা করেছেন। কিন্তু আমরা ওসব কথায় কান দিতে চাই না। আর মানুষ বললে সেটা আটকানো যাবে না। আমাদের কাজ ইতিবাচক থাকা। সবচেয়ে যে বিষয়টা গুরুত্বপূর্ণ ছিল সেটা হল নিজেদের সামর্থ্য দেখানো। এই সিরিজে সেটা দেখাতে পেরেছে বাংলাদেশ। আয়ারল্যান্ড ও ওয়েস্ট ইন্ডিজ মোটেও দুর্বল দল ছিল না। এই আয়ারল্যান্ডই সিরিজের আগে ইংল্যান্ডকে হারাতে বসেছিল। আবার ওয়েস্ট ইন্ডিজ এমন দলই খেলে থাকে। দু-একজন হয়তো এবার ছিল; কিন্তু তারা থাকলেও আমাদের খুব বেশি সমস্যা হতো না। এখন সময় সামনে এগিয়ে যাওয়ার। বিশ্বাস আছে, এই দলটা বিশ্বকাপেও ভালো করবে।

ঘটনাপ্রবাহ : ত্রিদেশীয় সিরিজ আয়ারল্যান্ড-২০১৯

আরও
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×