মালিবাগে বোমা বিস্ফোরণে নারী এএসআইসহ আহত ৩

  যুগান্তর রিপোর্ট ২৭ মে ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

গাজীপুরের টঙ্গীতে অস্ত্র সহ দৃইজন আটক পুলিশের ফাঁকা গুলি আহত তিন গাজীপুরের টঙ্গী পাগার এলাকা থেকে ঢাকা ডিবি পুলিশের একটি টিম সেলিম ও আশিক নামের দুইজনকে অস্ত্র সহ আটক করে। তাদের গাড়িতে তুলে নেয়ার সময় সাহারা সুপার মার্কেট এলাকায় রাস্তায় কিছু সংখক লোক তাদের বাধা দেয়। এ সময় পুলিশ রাস্তা ফাকা করতে কয়েক রাউন্ড ফাঁকা গুলি চালায়, এতে করে কয়েকজন আহত হয়। এলাকাবাসী আহতদের শহীদ আহসানউল্লাহ মাস্টার জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করে। এদের মধ্যে দুইজনকে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে ছেড়ে দেয় এবং অপর একজনকে ভর্তি করে। রাত ৯টার দিকে এই ঘটনা ঘটে।  টঙ্গী পূর্ব থানা পুলিশ জানায়, রোববার রাত ৯টার দিকে ঢাকার ডিবি পুলিশ টঙ্গীর পাগার এলাকা থেকে  সেলিম ও আশিক নামের দুইজনকে অস্ত্র সহ আটক করে নিয়ে যাওয়ার সময় এলাকাবাসী বাধা দিলে পুলিশ কয়েক রাউন্ড ফাঁকা গুলি চালায়। এসময় ২/৩ জন আহত হয়
ছবি: সংগৃহীত

রাজধানীর মালিবাগ মোড়ে পুলিশের গাড়িতে শক্তিশালী বোমা বিস্ফোরণে এক নারী এএসআইসহ তিনজন আহত হয়েছেন। রোববার রাত ৯টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। আহত এএসআইর নাম রাশেদা আক্তার। আহত অন্য দুইজন রিকশাচালক। একজনের নাম লাল মিয়া। আরেকজনের পরিচয় পাওয়া যায়নি।

জানা যায়, বিকট শব্দে বিস্ফোরণের পর পুলিশের একটি পিকআপ ভ্যানের পেছনের অংশে আগুন ধরে যায়। এ সময় মালিবাগ মোড় এবং আশপাশের এলাকায় আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে।

ঘটনাস্থলের আশপাশে থাকা মানুষজন ভয়ে এদিক-ওদিক ছোটাছুটি শুরু করে। এর আগে ২৯ এপ্রিল গুলিস্তানে শক্তিশালী ইমপ্রোভাইস এক্সপ্লোসিভ (আইইডি) বিস্ফোরণে তিনজন পুলিশ সদস্য আহত হয়েছিলেন।

পুলিশ জানায়, এএসআই রাশেদা ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) ট্রাফিক পূর্ব বিভাগে কর্মরত। ঘটনার সময় তিনি গাড়ির পাশেই পেশাগত দায়িত্ব পালন করছিলেন। তার বাম পায়ে স্প্লিন্টার বিদ্ধ হয়েছে।

দুই রিকশাচালককে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। রাত পৌনে ১২টার দিকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে আহত রাশেদাকে দেখতে যান ডিএমপির ট্রাফিক বিভাগের যুগ্ম-কমিশনার মফিজ উদ্দিন আহম্মেদ।

তিনি সাংবাদিকদের বলেন, যে গাড়িতে বিস্ফোরণ ঘটেছে সেটি পুলিশের বিশেষ শাখার (এসবি) সদস্যদের খাবার আনা-নেয়ার গাড়ি। গাড়ির নিচে কে বা কারা আইইডি ডিভাইস রেখেছিল। সেটির বিস্ফোরণে এক নারী পুলিশ সদস্যসহ তিনজন আহত হয়েছেন।

এদিকে ঘটনাস্থল পরিদর্শনে এসে পুলিশের সিটিটিসি ইউনিটের প্রধান মনিরুল ইসলাম সাংবাদিকদের বলেন, ‘ঘটনাটি নাশকতার চেষ্টা, নাকি অন্যকিছু- বিষয়টি তদন্তের পর বেরিয়ে আসবে।’

সিটিটিসির কর্মকর্তারা জানান, বিস্ফোরিত বোমাটি কেউ আগে থেকেই পিকআপ ভ্যানের নিচে রেখেছিল নাকি কেউ নিক্ষেপ করেছিল বিষয়টি তদন্ত করে দেখা হচ্ছে। প্রত্যক্ষদর্শীদের কেউ কেউ বলছেন, বোমাটি ফ্লাইওভারের ওপর থেকে নিক্ষেপ করেছে।

আবার কেউ কেউ বলছে বোমাটি আগে থেকেই ভ্যানের নিচে রাখা ছিল। ঘটনাস্থলের আশপাশে অনেক ক্লোজ সার্কিট ক্যামেরা রয়েছে। বিশেষ করে ঘটনাস্থলের পাশেই পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি) ও পুলিশের বিশেষ শাখার (এসবি) সদর দফতরের সিসি ক্যামেরা রয়েছে। এগুলোর ফুটেজ সংগ্রহ করে বিশ্লেষণ করা হবে।

ঘটনার সময় পাশেই দায়িত্ব পালন করছিলেন পুলিশের পল্টন থানার এসআই সৈয়দ আলী। রাত সাড়ে ১১টার দিকে তিনি যুগান্তরকে বলেন, বিকট শব্দে বিস্ফোরণ ঘটে। এ সময় পুলিশের একটি পিকআপ ভ্যানের পেছনের অংশে আগুন ধরে যায়। আমার কাছে মনে হয়েছে ককটেল জাতীয় কিছুর বিস্ফোরণ হয়েছে।

ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল সূত্র জানায়, আহত পুলিশ সদস্য রাশেদার আঘাত গুরুতর নয়। তার বাম পায়ে স্লিন্টার বিদ্ধ হয়েছে। রাশেদা ঘটনার সময় পিকআপ ভ্যানের পাশেই দায়িত্ব পালন করছিলেন। রিকশাচালক লাল মিয়ার মাথায় আঘাত লাগলেও তার অবস্থা গুরুতর নয়।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×