রিজার্ভ ডের জন্য হাহাকার

  স্পোর্টস রিপোর্টার ১৩ জুন ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

রিজার্ভ ডের জন্য হাহাকার

বিশ্বকাপে ‘ভিলেনের’ ভূমিকায় বৃষ্টি। কাঠগড়ায় আইসিসি। গ্রুপপর্বে রিজার্ভ ডে না রাখার সিদ্ধান্ত সমালোচনার জন্ম দিয়েছে। ক্রিকেটবোদ্ধারা রীতিমতো ক্ষোভে ফুঁসছেন। বিশেষ করে বাংলাদেশ-শ্রীলংকা ম্যাচ মঙ্গলবার ব্রিস্টলে বৃষ্টি ভাসিয়ে দেয়ার পর আঙুল উঠছে আইসিসির দিকে।

বাংলাদেশ এই ম্যাচ থেকে পুরো দুই পয়েন্ট পাওয়ার ব্যাপারে আত্মপ্রত্যয়ী ছিল। বৃষ্টির বাগড়ায় এক পয়েন্ট পাওয়ায় মাশরাফিদের সেমি-স্বপ্ন ধাক্কা খেল। ক্ষুব্ধ বাংলাদেশ কোচ স্টিভ রোডস এরপরই মোক্ষম তীর ছুড়েছেন ক্রিকেটের বিশ্ব নিয়ন্ত্রক সংস্থার দিকে, ‘চাঁদে লোক পাঠাচ্ছি আমরা।

আর বিশ্বকাপে রিজার্ভ ডে রাখতে পারি না।’ তার এহেন তির্যক মন্তব্যের পর আত্মপক্ষ সমর্থনে নিজেদের অবস্থান ব্যাখ্যা করেছে আইসিসি। তারা দায়ী করেছে ‘অমৌসুমি আবহাওয়া’কে। সব মিলিয়ে বিশ্বকাপের টপিকস এখন বৃষ্টি।

বিশ্বকাপের বড় একটা অংশজুড়ে ইংল্যান্ডে বৃষ্টি হওয়ার পূর্বাভাস আগেই জেনেছিল আইসিসি। টুর্নামেন্ট অনেক লম্বা। তাই আইসিসি কোনো রিজার্ভ ডে রাখেনি। পরিবর্তন আনেনি সূচিতেও। বুধবার পর্যন্ত তিনটি ম্যাচ পরিত্যক্ত হওয়ায় এরই মধ্যে রেকর্ড করে ফেলেছে এবারের বিশ্বকাপ।

তিন ম্যাচের মধ্যে মঙ্গলবার শ্রীলংকার বিপক্ষে পরিত্যক্ত হওয়া বাংলাদেশের ম্যাচটিও রয়েছে। পাকিস্তান ও বাংলাদেশের বিপক্ষে দুটি ম্যাচ পরিত্যক্ত হওয়ায় র‌্যাংকিংয়ে পিছিয়ে থাকা শ্রীলংকার পোয়াবারো। বড় ক্ষতি হয়েছে বাংলাদেশের।

নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে জয়ের কাছে গিয়ে হারের যন্ত্রণার পর লংকানদের সঙ্গে পয়েন্ট ভাগাভাগি করে হতাশ মাশরাফিরা। কেন রিজার্ভ ডে রাখা হয়নি? এ নিয়ে ক্ষুব্ধ সমর্থকরা।

২০১৫ বিশ্বকাপ কোয়ার্টার ফাইনাল ও ২০১৭ আইসিসি চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির সেমিফাইনালে বাংলাদেশের খেলার পেছনে বৃষ্টির সহায়তা ছিল। এবার সেই বৃষ্টিই বাংলাদেশের জন্য কাঁটা হয়ে দাঁড়াল।

সাবেক অধিনায়ক গাজী আশরাফ হোসেন লিপু এই প্রসঙ্গে বলেন, ‘বাংলাদেশের জয়ের সম্ভাবনা শ্রীলংকার বিপক্ষে ছিল সবচেয়ে বেশি। সবার এই বিশ্বাস ছিল যে, বাংলাদেশ জিতবে। বৃষ্টির কারণে তা হয়নি। প্রকৃতির ওপর মানুষের হাত নেই। তবে আইসিসি রিজার্ভ ডে রাখতে পারত। হয়তো কয়েকটা ম্যাচ রির্জার্ভ ডেতে যেত। ততে খুব একটা ঝামেলা হতো না।’

আরেক সাবেক অধিনায়ক মোহাম্মদ আশরাফুল বলেন, ‘শ্রীলংকার বিপক্ষে ম্যাচ পরিত্যক্ত হওয়া আমাদের জন্য দুর্ভাগ্য। এটা মানতে হবে। এখন সেমিফাইনাল খেলা আমাদের জন্য একটু কঠিন হয়ে গেল। সামনের পাঁচ ম্যাচের চারটিতে জিততে হবে। কঠিন তবে অসম্ভব নয়।’

তিনি বলেন, ‘জুন-জুলাইয়ে ইংল্যান্ডে আবহাওয়া ভালো থাকে। এবার একটু বেশি বৃষ্টি হচ্ছে। সামনে আর যেন না হয়, সেই আশা করব। তবে অস্ট্রেলিয়ার মতো বড় দলের বিপক্ষে ম্যাচের দিন বৃষ্টি হলে আমাদের জন্য ভালো হবে। বড় টুর্নামেন্টে ভালো খেলার সঙ্গে ভাগ্যেরও সহায়তা লাগে।’

গত বছর জুনে ইংল্যান্ডে বৃষ্টি হয়েছে মাত্র ২ মিলিমিটার। সেখানে সবশেষ ৪৮ ঘণ্টায় ১০০ মিলিমিটারেরও বেশি বৃষ্টি হয়েছে। সামনে আরও বৃষ্টির পূর্বাভাস রয়েছে। সোমবার ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে বাংলাদেশের ম্যাচেও বাদ সাধতে পারে বৃষ্টি।

১৭ জুন পর্যন্ত ভারি বৃষ্টির আশঙ্কা রয়েছে। এরপর ২৪ জুন পর্যন্ত হালকা বৃষ্টি হতে পারে। আবহাওয়াবিদরা আশা করছেন তাতে খেলায় বাধা সৃষ্টি হবে না। ১৭ জুন বাংলাদেশের প্রতিপক্ষ ওয়েস্ট ইন্ডিজ।

বৃষ্টির প্রভাব নিয়ে শাহরিয়ার নাফীস বলেন, ‘ইংল্যান্ডে বিশ্বকাপের জন্য সঠিক সময়টাই বেছে নেয়া হয়েছে। কিন্তু বৃষ্টিতে আটকানোর ক্ষমতা নেই কারোর। রিজার্ভ ডে থাকলে এই আফসোস হতো না। এখন যে অবস্থা দাঁড়িয়েছে তাতে সবাই রিজার্ভ ডে আশা করছেন।’

ইংল্যান্ডে খেলা দেখতে যাওয়া বিসিবির পরিচালক আহমেদ সাজ্জাদুল আলম ববিও খেলা না হওয়ায় হতাশ। তিনি বলেন, ‘ব্রিস্টলে প্রবাসী বাংলাদেশিরা জয় উপভোগ করতে চেয়েছিল। তারা জয়ের ব্যাপারে আত্মবিশ্বসী ছিল। বৃষ্টি সব মাটি করে দিল। আইসিসিরও কিছু বাধ্যবাধকতা আছে। সময়ের ব্যাপার আছে। অধিকাংশ দিন একটি করে খেলা। তাই রিজার্ভ ডে রাখা কঠিন।’

বিশ্বকাপে প্রথম চার ম্যাচ শেষে বাংলাদেশের পয়েন্ট তিন। সেমিফাইনালে খেলতে হলে কঠিন হিসাব মেলাতে হবে বাংলাদেশকে। মাশরাফির আফসোস নিউজিল্যান্ডের কাছে ম্যাচ হারায়। প্রথম তিন ম্যাচে একটি জয়ের প্রত্যাশা ছিল। সেটি কিউইদের বিপক্ষে। কোচ স্টিভ রোডসও হতাশ রিজার্ভ ডে না থাকায়।

মঙ্গলবার ম্যাচ পরিত্যক্ত হলে তিনি বলেন, ‘আমরা চাঁদে লোক পাঠাতে পারি, কেন রিজার্ভ ডে রাখতে পারি না, যখন টুর্নামেন্টটা এত লম্বা।’ প্রবল সমালোচনার মুখে আইসিসি প্রধান নির্বাহী ডেভ রিচার্ডসন জানিয়েছেন কেন তারা রিজার্ভ ডে রাখতে পারেননি।

তিনি বলেন, ‘একটা ম্যাচ আয়োজনের সঙ্গে প্রায় এক হাজার ২০০ মানুষ যুক্ত থাকেন। তাদের বিভিন্ন ভেন্যুতে যাতায়াত করতে হয়। রিজার্ভ ডে মানে আরও বেশি মানুষের প্রয়োজন। নকআউট পর্বে রিজার্ভ ডে রাখা হয়েছে। আশা করছি গ্রুপপর্বের অধিকাংশ ম্যাচেই ফলাফল হবে।’

ঘটনাপ্রবাহ : আইসিসি বিশ্বকাপ-২০১৯

আরও
আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×