পাঁচে চার অস্ট্রেলিয়া

অস্ট্রেলিয়া ৩৩৪/৭, ৫০ ওভারে * শ্রীলংকা ২৪৭/১০, ৪৫.৫ ওভারে * ফল : অস্ট্রেলিয়া ৮৭ রানে জয়ী

  স্পোর্টস ডেস্ক ১৬ জুন ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

রানের পাহাড়

পাকিস্তানের বিপক্ষে আগের ম্যাচে দাপুটে সেঞ্চুরিতে অস্ট্রেলিয়ার জয়ের ভিত গড়ে দিয়েছিলেন ডেভিড ওয়ার্নার। দারুণ এক ফিফটির পরও সেদিন ওয়ার্নারের আলোয় ঢাকা পড়েছিলেন অ্যারন ফিঞ্চ।

এবার সামনে থেকে দলকে পথ দেখিয়ে ম্যাচসেরা হলেন অস্ট্রেলিয়া অধিনায়ক। বিস্ফোরক ব্যাটিংয়ে তুলে নিলেন এবারের বিশ্বকাপে নিজের প্রথম সেঞ্চুরি (১৫৩)। ঝড়ো ফিফটিতে ফিঞ্চকে দারুণ সঙ্গ দিলেন স্টিভেন স্মিথ (৭৩)।

বর্তমান ও সাবেক অধিনায়কের চওড়া ব্যাটে শ্রীলংকার বিপক্ষে সাত উইকেটে ৩৩৪ রানের পাহাড় গড়ে অস্ট্রেলিয়া জিতল ৮৭ রানে। শনিবার লন্ডনের দ্য ওভালে বিশাল লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে স্বপ্নময় শুরুর পরও মিচেল স্টার্কের তোপের মুখে ৪৫.৫ ওভারে ২৪৭ রানে গুটিয়ে যায় শ্রীলংকা।

মাত্র তিন রানের জন্য সেঞ্চুরি মিস করা দিমুথ করুনারত্নে ফিরতেই বেরিয়ে আসে লংকান ব্যাটিংয়ের কঙ্কাল। ৫৫ রানে চার উইকেট নেন স্টার্ক। এ ছাড়া কেন রিচার্ডসন তিনটি ও প্যাট কামিন্স নেন দুই উইকেট।

পাঁচ ম্যাচে চতুর্থ জয়ে অস্ট্রেলিয়া উঠে এলো পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষে। ভারতের কাছে একমাত্র হারের পর চেনা চেহারায় ফেরা অস্ট্রেলিয়ার দাপট এখন সবখানেই। পাঁচ ম্যাচে ৩৪৩ রান নিয়ে আসরের সর্বোচ্চ রান সংগ্রাহক এখন ফিঞ্চ।

২৮১ রান নিয়ে দ্বিতীয় স্থানে আছেন তার ওপেনিং সঙ্গী ওয়ার্নার। ওদিকে সর্বোচ্চ ১৩ উইকেট স্টার্কের। ১১ উইকেট নিয়ে দ্বিতীয় স্থানে কামিন্স। ব্যাটে-বলে এমন দাপুটে পথচলায় সেমিফাইনালের পথে অনেকটাই এগিয়ে গেল বর্তমান চ্যাম্পিয়নরা। অন্যদিকে পাঁচ ম্যাচে চার পয়েন্ট নিয়ে শ্রীলংকা আছে পাঁচে।

আগের দুই ম্যাচে বৃষ্টির সৌজন্যে দুই পয়েন্ট পাওয়া শ্রীলংকা কাল রান তাড়ার শুরুতে কাঁপিয়ে দিয়েছিল অস্ট্রেলিয়াকে। ঝড়ো ব্যাটিংয়ে মাত্র ১৫.২ ওভারে ১১৫ রানের উদ্বোধনী জুটি গড়েন অধিনায়ক করুনারত্নে ও কুশাল পেরেরা।

৩৬ বলে ৫২ রান করা কুশাল পেরেরাকে ফিরিয়ে এ জুটি ভাঙেন স্টার্ক। করুনারত্নে ক্রিজে থাকায় তখনও আশা ছিল শ্রীলংকার। কিন্তু ২৩ ওভারে এক উইকেটে দেড়শ’ ছাড়িয়ে যাওয়া লংকানরা শেষ পর্যন্ত হারার অনেক আগেই হেরে বসে।

১০৮ বলে ৯৭ রান করে করুনারত্নে ফিরতেই ধসের শুরু। আগুনে এক স্পেলে ছয় বলের মধ্যে তিন উইকেট তুলে নিয়ে শ্রীলংকার কোমর ভেঙে দেন স্টার্ক। এরপর ধুঁকতে ধুঁকতে ২৪৭ রানে থামে তারা।

এর আগে টস হেরে ব্যাটিংয়ে নেমে শুরুতে দেখেশুনেই খেলে পাঁচবারের বিশ্বচ্যাম্পিয়নরা। ওয়ার্নার নিজেকে একদম গুটিয়ে রেখেছিলেন। তার মন্থর ব্যাটিংয়ের জন্য রানের চাকা সচল রাখার পুরো দায়িত্ব নিজের কাঁধে তুলে নিতে হয় ফিঞ্চকে।

১৭তম ওভারে ওয়ার্নারের বিদায়ে ভাঙে ৮০ রানের উদ্বোধনী জুটি। যেখানে ওয়ার্নারের অবদান ৪৮ বলে ২৬ রান। তিনে নামা উসমান খাজাও খেলেন ২০ বলে ১০ রানের আরেকটি ধীরগতির ইনিংস।

ওয়ার্নারের পর তাকেও ফেরান স্পিনার ধনঞ্জয়া ডি সিলভা। ১০০ রানে দুই উইকেট হারানোর পর স্মিথ ক্রিজে আসতেই গতি পায় অস্ট্রেলিয়ার ইনিংস। স্মিথের সঙ্গে জুটি বেঁধে এরপর রীতিমতো তাণ্ডব চালিয়েছেন ফিঞ্চ।

এক জুটিতেই আসে ১৭৩ রান। ৯৭ বলে ক্যারিয়ারের ১৪তম ওয়ানডে শতক পূর্ণ করা ফিঞ্চ দেড়শ’ স্পর্শ করেন মাত্র ১২৮ বলে। শেষ পর্যন্ত ইসুরু উদানার শিকার হয়ে যখন সাজঘরে ফিরেছেন, তখন তার নামের পাশে ১৫৩ রান।

১৩২ বলের ইনিংসে ১৫টি চারের সঙ্গে রয়েছে পাঁচটি ছক্কা। ওয়ানডেতে নিজের সর্বোচ্চ ইনিংসের রেকর্ড স্পর্শ করে ফিঞ্চের বিদায়ের পর স্মিথও টেকেননি বেশিক্ষণ। ৫৯ বলে ৭৩ রান করা স্মিথকে ফেরান লাসিথ মালিঙ্গা।

এরপর নিয়মিত বিরতিতে উইকেট পড়লেও গ্লেন ম্যাক্সওয়েলের টর্নেডো ব্যাটিংয়ে ৩৩৪ রানের বড়সড় সংগ্রহ পেয়ে যায় অস্ট্রেলিয়া। ২৫ বলে ৪৬ রানে অপরাজিত থাকেন ম্যাক্সওয়েল। শ্রীলংকার পক্ষে ধনঞ্জয়া ও উদানা নেন দুটি করে উইকেট। লংকানদের সাফল্য বলতে শেষ পাঁচ ওভারে মাত্র ৩২ রান দিয়েছে তারা।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×