পায়রা বিদ্যুৎ কেন্দ্রে সংঘর্ষে চীনা নাগরিক নিহত

  বরিশাল ব্যুরো ও কলাপাড়া (পটুয়াখালী) প্রতিনিধি ২০ জুন ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

চীনা নাগরিক

পটুয়াখালীর কলাপাড়ায় পায়রা তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্রে বাংলাদেশি ও চীনা শ্রমিকদের সংঘর্ষে এক চীনা নাগরিকের মৃত্যু হয়েছে।

মঙ্গলবার সকালে বিদ্যুৎ কেন্দ্রের বয়লারের ওপর থেকে পড়ে গিয়ে সাবিন্দ্র দাস নামে এক বাংলাদেশি শ্রমিকের মৃত্যু হয়।

এর জের ধরে চীনা ও বাঙালি শ্রমিকরা বিকালে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়েন। বিকাল তিনটা থেকে বিদ্যুৎ প্ল্যান্ট এলাকা রণক্ষেত্রে পরিণত হয়।

প্রায় মধ্যরাত পর্যন্ত চলা এ সংঘাতে বেশ কয়েকজন চীনা ও বাংলাদেশি শ্রমিক আহত হয়েছেন।

নিহত চীনা নাগরিকের নাম ঝাং ইয়াং ফাং (২৬)। তিনি চায়নার বাসিন্দা চাংয়ের ছেলে এবং তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্রের প্রজেক্টে ইলেকট্রিশিয়ান পদে কর্মরত ছিলেন।

বুধবার সকালে বরিশাল শেরেবাংলা মেডিকেল কলেজ (শেবাচিম) হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়।

বিষয়টি নিশ্চিত করে শেবাচিম হাসপাতালের পরিচালক ডা. মো. বাকির হোসেন বলেন, কলাপাড়া থেকে মঙ্গলবার মধ্যরাতে সেখানে কর্মরত ৬ চীনা নাগরিক ও ২ বাংলাদেশি শ্রমিককে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এর মধ্যে মাথায় অতিরিক্ত রক্তক্ষরণে ঝাং ইয়াং ফাংয়ের মৃত্যু হয়েছে। বাকি পাঁচ চীনা নাগরিককে বুধবার সকালে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকায় পাঠানো হয়েছে।

বরিশালের বিভাগীয় কমিশনার রাম চন্দ্র দাস বলেন, নিশানবাড়িয়ায় ১৩২০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ কেন্দ্রে দুর্ঘটনায় সাবিন্দ্র দাস নামে এক বাংলাদেশি শ্রমিক মারা যান। এ নিয়েই পরে শ্রমিকদের মধ্যে একটি অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটে।

বিষয়টি নিয়ে পটুয়াখালী জেলা প্রশাসক মো. মতিউল ইসলাম চৌধুরী, পুলিশ সুপার মোহাম্মদ মইনুল হাসান, উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. মুনিবুর রহমানসহ বিসিপিসিএলের কর্মকর্তারা কয়েক দফা জরুরি বৈঠক করেছেন। বুধবার দুপুরে বিদ্যুৎ জ্বালানি প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বিপু বিদ্যুৎ প্ল্যান্ট এলাকা পরিদর্শনে আসেন। তিনি প্ল্যান্টের বাংলা ক্যান্টিন এলাকা পরিদর্শন করেন। প্রশাসন ও বিসিপিসিএলের কর্মকর্তাদের সঙ্গে কথা বলেন।

স্থানীয়রা জানান, এক চীনা কর্মী সাবিন্দ্রকে লাথি দিয়ে নিচে ফেলে দিয়েছিল বলে অভিযোগ উঠলে বাঙালি শ্রমিকদের মধ্যে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। তবে চীনা কর্মীরা দাবি করেন, অসাবধানতায় নিচে পড়ে গিয়েছিলেন সাবিন্দ্র। এ নিয়ে উত্তেজনার মধ্যে বিদ্যুৎ কেন্দ্রের ভেতরে সাবিন্দ্রের লাশ নিয়ে বিক্ষোভ মিছিল করেন বাঙালি শ্রমিকরা। খবর পেয়ে পুলিশ তার লাশ উদ্ধার করে মর্গে পাঠায়।

দিনভর চরম উত্তেজনার পর বিকালে বাঙালি শ্রমিকদের সঙ্গে চীনাদের সংঘর্ষ হয়। পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করতে গেলে তিন পক্ষের মধ্যে দফায় দফায় ধাওয়া-পাল্টাধাওয়া চলে। এ সময় বিদ্যুৎ কেন্দ্রের ভেতরে ভাংচুরও করা হয়।

একটি সূত্র জানায়, হঠাৎ করে বয়লার থেকে নিচে পড়ে শ্রমিকের মৃত্যুতে প্রতিবাদ ক্ষোভ থাকতেই পারে। কিন্তু পুলিশের ওপর হামলা, নির্মাণাধীন বিদ্যুৎ প্ল্যান্টের অফিস ক্যাম্পাসে হামলা-ভাংচুর, অফিসের ল্যাপটপসহ মালামাল লুটের মতো ঘটনা রহস্যের সৃষ্টি করেছে। এতে বহিরাগত কেউ জড়িত কি না, তা প্রশাসনের একাধিক সংস্থা খতিয়ে দেখছে।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×