২৪ ঘণ্টায় ভর্তি ১০৯৬

ডেঙ্গু ছড়িয়ে পড়েছে ৫০ জেলায়

আরও ৫ জনের মৃত্যু, রোগীতে ঠাসা হাসপাতাল * স্বাস্থ্য অধিদফতরের সতর্কবার্তা তিন মাস আগেই * কার্যকর পদক্ষেপ না নেয়ায় ঢাকা উত্তরে ৫৮ ও দক্ষিণে ৭৮ ভাগ এলাকায় এডিস লার্ভার উপস্থিতি * আক্রান্ত ও মৃত্যুর সংখ্যা নিয়ে ধূম্রজাল

  রাশেদ রাব্বি ৩০ জুলাই ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

ঢামেক
ঢামেক। ছবি: যুগান্তর

রাজধানী ঢাকাসহ সারা দেশের ডেঙ্গু পরিস্থিতি আরও অবনতি হয়েছে। গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে আরও ২৭টি জেলায় ডেঙ্গুর বিস্তার ঘটেছে। এ নিয়ে ৫০ জেলায় ছড়িয়ে পড়েছে ডেঙ্গুজ্বর।

এ সময়ে দেশের বিভিন্ন হাসপাতালে ১ হাজার ৯৬ জন ডেঙ্গু রোগী ভর্তি হয়েছেন। অর্থাৎ প্রতি ঘণ্টায় হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন ৪৫ জনের বেশি। নতুন করে আরও পাঁচজন ডেঙ্গুতে মারা যাওয়ার খবর পাওয়া গেছে।

বিদ্যমান পরিস্থিতিতে সরকারি-বেসরকারি হাসপাতালগুলোতে রোগী সামাল দিতে হিমশিম খাচ্ছেন সংশ্লিষ্টরা। স্থান সংকুলান না হওয়ায় হাসপাতালের ফ্লোর, বারান্দাসহ বিভিন্ন খালি জায়গায় রোগীদের রেখে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। শুধু জুলাই মাসের ২৯ দিনে ভর্তি হয়েছেন ১১ হাজার ৪৫০ জন।

আর গত জানুয়ারি থেকে এ পর্যন্ত মোট ডেঙ্গু রোগী হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন ১৩ হাজার ৬৩৭ জন। সরকারি হিসাবে এ পর্যন্ত মোট মৃত্যু হয়েছে ৮ জনের। তবে বেসরকারি বিভিন্ন সূত্রমতে, মৃতের সংখ্যা কমপক্ষে ৫ গুণ এবং আক্রান্তের সংখ্যা ১০ গুণ বেশি।

তবে ডেঙ্গুতে আক্রান্ত রোগী ও মৃতের সংখ্যা নিয়ে ধূম্রজাল কাটছে না। রাজধানীর সরকারি-বেসরকারি কোনো হাসপাতালে রোগীদের তিল ধারণের অবস্থা না থাকলেও অধিদফতরের কন্ট্রোল রুমে তথ্য আসছে ১২টি সরকারিসহ ৩৫টি হাসপাতাল থেকে।

অথচ ঢাকায় স্বাস্থ্য অধিদফতরের নিবন্ধিত ও অপেক্ষমাণ বেসরকারি হাসপাতালের সংখ্যই প্রায় ৩শ’। সেই হিসাবে মাত্র ৭ ভাগ ডেঙ্গু রোগীর তথ্য পাওয়া যাচ্ছে। আর ৯৩ ভাগ তথ্যই অজানা থেকে যাচ্ছে বলে জানায় সংশ্লিষ্ট সূত্র।

এদিকে ঢাকায় ডেঙ্গু পরিস্থিতি নিয়ে অস্ট্রেলিয়ান ন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির পরিচালিত এক গবেষণায় দেখা গেছে, মাত্র ২ দশমিক ৮ ভাগ ডেঙ্গু আক্রান্ত রোগীর তথ্য প্রকাশ হয়। অর্থাৎ ৯৭ দশমিক ২ ভাগ রোগীর তথ্যই থেকে যায় অপ্রকাশিত। ইউনিভার্সিটির ন্যাশনাল সেন্টার ফর ইপিডেমিওলজি অ্যান্ড পপুলেশন হেলথ, রিসার্চ স্কুল অব পপুলেশন হেলথ এ গবেষণা পরিচালনা করে।

চলতি মৌসুমে রাজধানীতে ডেঙ্গুর বাহক এডিস মশার প্রাদুর্ভাব বাড়তে পারে- এমন শঙ্কার কথা জানিয়ে তিন মাস আগেই সিটি কর্পোরেশনসহ সরকারের সংশ্লিষ্টদের সতর্ক করেছিল স্বাস্থ্য অধিদফতর। শুধু তাই নয়, পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে কোন ধরনের ব্যবস্থা নিতে হবে- সে ব্যাপারেও দেয়া হয়েছিল প্রয়োজনীয় সুপারিশ।

কিন্তু এ ব্যাপারে কার্যকর পদক্ষেপ না নেয়ায় ঢাকা উত্তর সিটিতে ৫৮ ও দক্ষিণে ৭৮ শতাংশ এলাকায় এডিসের লার্ভার উপস্থিতি দেখা গেছে বলে স্বাস্থ্য অধিদফতরের এক জরিপে উঠে এসেছে।

যদিও দুই সিটির পক্ষ থেকে দাবি করা হয়েছে, এ জরিপের আগেই মশক নিধনে কার্যকর পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে। রাজধানীর মশা যে ওষুধ প্রতিরোধী হয়ে উঠেছে, সে বিষয়ে প্রায় এক বছর আগে সিটি কর্পোরেশনকে সতর্ক করেছিল আইসিডিডিআর,বি।

স্বাস্থ্য অধিদফতরের পরিচালক (রোগ নিয়ন্ত্রণ) অধ্যাপক ডা. সানিয়া তাহমিনা সোমবার এক সংবাদ সম্মেলনে বলেন, গত মার্চে রোগ নিয়ন্ত্রণ শাখার পক্ষ থেকে এডিস মশার ওপর একটি জরিপ চালানো হয়। তখনই আমরা এমন পরিস্থিতির বিষয়টি ধারণা করি এবং সিটি কর্পোরেশনসহ সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে জানাই।

এ ধরনের আশঙ্কা থেকেই আমরা চিকিৎসকদের বিষয়টি অবহিত করি এবং ডেঙ্গু গাইডলাইন আপডেট করি। ইতিমধ্যে ১০ হাজার গাইডলাইন চিকিৎসকদের হাতে পাঠানো হয়েছে।

ঢাকায় এডিস মশার লার্ভা আগের চেয়ে আরও বৃহৎ পরিসরে বেড়ে ওঠার প্রমাণ পেয়েছে স্বাস্থ্য অধিদফতর। রোগ নিয়ন্ত্রণ শাখার উদ্যোগে জুলাই মাসে ১০ দিন ধরে পরিচালিত এক জরিপের ফলাফলে এই ভয়াবহ চিত্র ফুটে উঠেছে। দুই সিটির ১০০টি এলাকায় পরিচালিত এ জরিপে সব কটি এলাকা ঝুঁকিপূর্ণ হিসেবে চিহ্নিত হয়েছে।

সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন, ডেঙ্গুর ভয়াবহতা পর্যবেক্ষণে চলতি মাসেই ঢাকা দক্ষিণ সিটির ৬৯টি এলাকায় এবং ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের ৪১টি এলাকায় জরিপ পরিচালনা করা হয়। এতে দেখা গেছে, রাজধানীর উত্তরা, গুলশান, বনানী, ধানমণ্ডি, মোহাম্মদপুর, গেণ্ডারিয়া, বনশ্রীর মতো এলাকাগুলোতে বাড়িঘর-অভিজাত স্থাপনায় এডিস মশার লার্ভা বেশি পাওয়া গেছে।

তবে দুই সিটির মধ্যে সবচেয়ে বেশি ঝুঁকিপূর্ণ পরিস্থিতি পাওয়া গেছে ১৯ নম্বর ওয়ার্ডে। স্বাস্থ্য অধিদফতরের কীটতত্ত্ববিদদের তত্ত্বাবধানে ১৮ থকে ২৭ জুলাই পর্যন্ত এ জরিপ পরিচালিত হয়।

সংশ্লিষ্টরা জানান, ঢাকা উত্তরের ৫৮ এবং দক্ষিণের ৭৮ শতাংশ এলাকায় বেশি মাত্রায় লার্ভার উপস্থিতি পাওয়া গেছে। এর মধ্যে আবার নির্মাণাধীন ভবনের অস্থায়ী চৌবাচ্চা, মেঝেতে জমিয়ে রাখা পানি এবং দোকান অধ্যুষিত এলাকায় ডাবের খোসা ও গ্যারেজের টায়ারের শতভাগেই লার্ভা মিলেছে। অন্যদিকে বড় মশার ক্ষেত্রে গত মার্চ মাসের চেয়ে এ দফার সার্ভেতে ১০ গুণ বেশি এডিস মশার অস্তিত্ব পাওয়া যায়।

এ প্রসঙ্গে স্বাস্থ্য অধিদফতরের নিয়ন্ত্রণ শাখার ডিপিএম (ডেঙ্গু) ডা. এমএম আক্তারুজ্জামান যুগান্তরকে বলেন, আমরা শুধু অভিজাত এলাকায় এডিস মশার কথা এতদিন ধরে বললেও এর সঙ্গে বর্জ্যরে মধ্যে লার্ভার অস্তিত্ব পেয়েছি।

বিশেষ করে রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় অপরিষ্কার বর্জ্যস্তূপে থাকা ডাবের খোসা, টায়ার, বিভিন্ন ধরনের পাত্রের (যার ভেতর পানি জমে থাকে) ভেতর এডিস মশার লার্ভা পাওয়া গেছে। তিনি বলেন, জরিপ বিশ্লেষণ করে ফলাফল পেতে আরও কিছুটা সময় লাগবে। তখন আরও বিস্তারিত বলা সম্ভব হবে।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য অধ্যাপক ডা. কামরুল হাসান খান যুগান্তরকে বলেন, গত বছর যখন সারা দেশে চিকুনগুনিয়ার প্রকোপ দেখা দিয়েছিল তখনই আমরা বুঝতে পেরেছিলাম এ বছরের বর্ষা মৌসুমে ডেঙ্গুর প্রাদুর্ভাব দেখা দেবে।

এমনকি স্বাস্থ্য অধিদফতর গত মার্চে জরিপ করে দুই সিটি কর্পোরেশনকে সতর্ক করে। দুই সিটির উচিত ছিল, স্বাস্থ্য অধিদফতরের সতর্কতাকে গুরুত্ব দিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া। বর্ষার শুরুতেই যদি তারা সঠিক পদক্ষেপ গ্রহণ করত তাহলে এ পরিস্থিতির সৃষ্টি হতো না।

বর্তমান পরিস্থিতিতে মশা নিয়ন্ত্রণের উপায় জানতে চাইলে স্বাস্থ্য অধিদফতরের কীটতত্ত্ববিদ মো. খলিলুর রহমান যুগান্তরকে বলেন, মার্চের জরিপেই আমরা দেখেছি ঢাকার কোন কোন এলাকায় এডিস মশার ঘনত্ব বেশি। বিশেষ করে যেসব এলাকায় নির্মাণাধীন ভবনের সংখ্যা বেশি, সেসব এলাকায় যদি মার্চ বা এপ্রিলে লার্ভিসাইট (এডিস মশার প্রজননস্থল) ধ্বংস করা হতো তাহলে পরিস্থিতি এত প্রকট আকার ধারণ করত না।

তিনি বলেন, জুলাই মাসে স্বাস্থ্য অধিদফতর পরিচালিত জরিপের ফলাফল দেখেও যদি দুই সিটি কর্তৃপক্ষ লার্ভিসাইট এবং অ্যাডাল্ট (প্রাপ্তবয়স্ক) মশা ধ্বংস করতে পারত তাহলে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনা সম্ভব হতো।

স্বাস্থ্য অধিদফতর মার্চে ডেঙ্গু প্রকোপের ব্যাপারে সতর্ক করার পরও ঢাকার দুই সিটি কর্পোরেশনের মশক নিধনের ব্যাপারে দৃশ্যমান তৎপরতা লক্ষ করা যায়নি কেন- এমন প্রশ্নের জবাবে ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের মেয়র মোহাম্মদ সাঈদ খোকন যুগান্তরকে বলেন, ‘স্বাস্থ্য অধিদফতর সতর্ক করার আগ থেকে দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশন মশক নিধন কাজের ব্যাপারে সতর্ক ছিল এবং রুটিন কাজগুলো যথাযথভাবে সম্পন্ন করেছে।

এসব কার্যক্রম গণমাধ্যমে প্রচারিত বা প্রকাশিত হয়েছে।’ তিনি বলেন, ‘এখন এডিস মশার প্রজনন মৌসুম। এ কারণে কিছুটা বেশি আক্রান্ত হচ্ছে মানুষ। তবে এশিয়ার দেশগুলোর দিকে তাকালে আমরা বেশ ভালো আছি, এটা বলা যায়। আমরা আমাদের সর্বোচ্চ সক্ষমতা দিয়ে চেষ্টা করছি। আশা করি, দ্রুততম সময়ের মধ্যে ডেঙ্গু বা এডিস মশা নিয়ন্ত্রণ করতে সক্ষম হব।’

একই বিষয়ে ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের মেয়র মো. আতিকুল ইসলাম যুগান্তরকে বলেন, ‘স্বাস্থ্য অধিদফতর সতর্ক করার আগ থেকেই সিটি কর্পোরেশন রুটিন মশক নিধন কার্যক্রমগুলো পরিচালনা করে আসছিল। এখন এডিস মশার প্রজনন মৌসুম হওয়ায় একটু বেশি কাজ করতে হচ্ছে।’

তিনি বলেন, ‘আমি মার্চে দায়িত্ব গ্রহণ করে দেখেছি মশক নিধন কাজগুলো ভালোভাবে চলছিল। আমার নেতৃত্বে এ কাজগুলো আরও বেগবান হয়েছে। ভবিষ্যতে এসব কার্যক্রম আরও পরিকল্পিতভাবে করার প্রচেষ্টা থাকবে।’

পাঁচজনের মৃত্যু : সোমবার রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে নতুন করে ৫ জনের মৃত্যুর সংবাদ পাওয়া গেছে। এর মধ্যে সবচেয়ে মর্মস্পর্শী মৃত্যু হয়েছে নাজমুল আলম সোহেলের। রোববার তার একটি ফুটফুটে কন্যাসন্তান জন্ম নিলেও তার মুখটি দেখে যেতে পারেননি নাজমুল।

শনিবার ডেঙ্গু নিয়ে রাজধানীর কাকরাইলস্থ ইসলামী ব্যাংক হাসপাতালে ভর্তি হয়ে ২৯ জুলাই মারা যান তিনি। হাসপাতালে ডেথ রেফারেন্সে মৃত্যুর কারণ হিসেবে ডেঙ্গু শক সিনড্রোম এবং মাল্টি অর্গান ফেইলিউরের কথা উল্লেখ করা হয়েছে। একই দিন সকালে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মোছা. রিতা (২৮) নামে এক রোগীর মৃত্যু হয়।

তিনি টঙ্গীর বিসিক এলাকার সুমি গার্মেন্টে কাজ করতেন। তার দুলাভাই সোহেল মিয়া জানান, ২৬ জুলাই জ্বর নিয়ে কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতেল ভর্তি হলে সেখানেই তার ডেঙ্গু ধরা পড়ে। পরদিন অবস্থার অবনতি হলে তাকে ঢাকা মেডিকেলে স্থানান্তর করা হয়। সেখানে আইসিইউতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়।

গাজীপুরের কাপাসিয়ায় ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে আবদুল করিম সরকার (৬০) নামে একজনের মৃত্যু হয়েছে। রোববার রাতে রাজধানীর সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে তার মৃত্যু হয়। স্থানীয় ওয়ার্ড মেম্বার আবদুর রউফ এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লায় শান্ত (১৮) নামে এক যুবক ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে মারা যান।

রোববার সন্ধ্যায় ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়। নিহত শান্ত ফতুল্লার বক্তাবলী ইউনিয়নের ছমিরনগর এলাকার জসিম উদ্দিনের ছেলে। এদিকে সাভার এনাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় জুয়েল মাহমুদ নামে (৩০) এক ডেঙ্গু রোগীর মৃত্যু হয়েছে। তিনি ধামরাই উপজেলার কুল্লা গ্রামের জালিল উদ্দিনের ছেলে।

হাসপাতালে নৈরাজ্য : এদিকে ডেঙ্গু রোগের চিকিৎসায় রাজধানীর কয়েকটি সরকারি-বেসরকারি হাসপাতালে রক্ত পরীক্ষা নিয়ে বিশৃঙ্খা চলছে। এসব হাসপাতালে ডেঙ্গুর প্রধান তিনটি পরীক্ষার মধ্যে দুটি পরীক্ষার ক্ষেত্রে অনিয়মের অভিযোগ রয়েছে। একটি ‘এনএস১’, ‘সিবিসি’ (কমপ্লিট ব্লাড কাউন্ট) পরীক্ষা।

এর মধ্যে ‘এনএস১’ পরীক্ষা করা হয় ডিভাইসের মাধ্যমে আইসিটি পদ্ধতিতে ও সিবিসি ‘অটো সেল কাউন্টার মেশিন’ দিয়ে। হাসপাতালগুলো হল- ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, ঢাকা শিশু হাসপাতাল ও স্যার সলিমুল্লাহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল।

এমন বিশৃঙ্খলার কথা স্বীকার করেছেন চার হাসপাতালের চিকিৎসকরা। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এসব চিকিৎসক বলেন, ডেঙ্গু রোগীর চাপকে কাজে লাগিয়ে একশ্রেণির চিকিৎসক, টেকনোলজিস্ট ও কর্মচারীরা পরীক্ষা বাণিজ্য শুরু করছে।

শনিবার সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের তিন কর্মচারী ৪০ হাজারের বেশি টাকা এ প্রক্রিয়ায় হাতিয়ে নিয়েছে। রোববার এ ধরনের অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে দুর্নীতি দমন কমিশনের এনফোর্সমেন্ট টিম সোহরাওয়ার্দী ও শিশু হাসপাতালে অভিযান চালিয়ে মেশিন নষ্ট পেয়েছে।

এই দুই হাসপাতালে রক্তের ‘সিবিসি’ পরীক্ষায় ব্যবহৃত মেশিন কাজ করছে না। ফলে রোগীদের পরীক্ষার জন্য বাইরে পাঠানো হচ্ছে এবং পরীক্ষার রিপোর্ট পেতে দেরি হচ্ছে। এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পরিচালক অধ্যাপক ডা. উত্তম কুমার বড়–য়া যুগান্তরকে বলেন, মেশিন নষ্ট থাকায় রোগীদের পরীক্ষা-নিরীক্ষা ব্যাহত হয়েছে।

দুদকের টিম আসার বিষয়টিও তিনি শিকার করেন। তবে তিনজন টেকনোলজিস্ট রোগীদের কাছ থেকে টাকা আত্মসাৎ করার বিষয়টি তিনি জানেন না বলে জানান। ঢামেক হাসপাতালে পরীক্ষা করাতে যাওয়া বেশির ভাগ রোগীকে মেশিন নষ্ট বলে ফিরিয়ে দেয়া হচ্ছে।

জানতে চাইলে প্যাথলজি বিভাগে এক টেকনোলজিস্ট যুগান্তরকে বলেন, মেশিন নষ্ট না। তবে রোগীর চাপ সামলাতে না পেরে কাউকে কাউকে এ কথা বলা হচ্ছে। তিনি বলেন, এখানে সিবিসি পরীক্ষার জন্য পাঁচটি মেশিন আছে। এর মধ্যে দুটি মেশিন ঠিকমতো কাজ করছে না।

ফলে রোগীদের বাইরে থেকে পরীক্ষা করিয়ে আনতে বলা হচ্ছে। এ বিষয়ে জানতে হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল একেএম নাসিরউদ্দিনকে ফোন করা হলে তিনি রিসিভ করেননি। স্যার সলিমুল্লাহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে দুপুর ১টার পর কোনো ডেঙ্গু রোগীর পরীক্ষা করা হচ্ছে না এবং রিপোর্টও দেয়া হচ্ছে না।

এমনকি ‘সিবিসি’ ও ‘এনএস১’ পরীক্ষার জন্য গেলে অধিকাংশ রোগীকেই ‘মেশিন নষ্ট’ বলে বাইরে যেতে বলা হচ্ছে বলে অভিযোগ রোগীদের। তবে হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল ব্রায়ান বিঙ্কম হালদার জানান, এনএস১’ পরীক্ষার জন্য রি-এজেন্ট দরকার। এ বিষয়ে স্বাস্থ্য অধিদফতরকে চিঠি দেয়া হয়েছে।

ডেঙ্গু পরীক্ষার মূল্য তদারকির নির্দেশ : বেসরকারি হাসপাতাল ও ক্লিনিকে ডেঙ্গু রোগে আক্রান্ত রোগীদের পরীক্ষায় সরকারের নির্ধারিত মূল্য ৫শ’ টাকার বেশি আদায় করছে কি না, তা তদারকির নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট। একই সঙ্গে রোগীদের পর্যাপ্ত স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত হচ্ছে কি না, তা-ও দেখতে বলেছেন আদালত।

এছাড়া সরকারি হাসপাতালের পাশাপাশি বেসরকারি হাসপাতালেও প্যারাসিটামল ও ডেঙ্গু রোগীর স্যালাইন সরবরাহ করার পরামর্শ দিয়েছেন আদালত।

আইনজীবী মোস্তাক আহমেদ চৌধুরী আদালতে এ সংক্রান্ত প্রতিবেদন উপস্থাপনের পর সোমবার বিচারপতি এফআরএম নাজমুল আহাসান ও কেএম কামরুল কাদেরের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ স্বতঃপ্রণোদিত হয়ে এ আদেশ দেন। স্বাস্থ্য অধিদফতরের মহাপরিচালককে এই আদেশ পালন করে ১ আগস্ট প্রতিবেদন দাখিল করার নির্দেশ দিয়েছেন আদালত।

ডেঙ্গু পরিস্থিতি উদ্বেগজনক : ডেঙ্গুর বিষয়ে রাজধানী থেকে ইউনিয়ন পর্যন্ত সারা দেশে তিন দিনের কর্মসূচি ঘোষণা করেছে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ। একই সঙ্গে বর্তমান ডেঙ্গু পরিস্থিতি উদ্বেগজনক বলেও মন্তব্য করেছেন দলটির সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের।

সোমবার ধানমণ্ডিতে আওয়ামী লীগ সভাপতির রাজনৈতিক কার্যালয়ে দলটির সম্পাদকমণ্ডলীর বেঠক শেষে এক সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা বলেন তিনি। কাদের বলেন, ডেঙ্গু পরিস্থিতি উদ্বেগজনক। ২১টি জেলায় ডেঙ্গু ছড়িয়ে পড়েছে।

জনসচেতনতার লক্ষ্যে আওয়ামী লীগ সারা দেশে রাজধানী থেকে ইউনিয়ন পর্যন্ত তিন দিন (৩১ জুলাই, ২ ও ৩ আগস্ট) কর্মসূচি পালন করবে। ওই তিন দিন বেলা ১১টা থেকে দুপুর ১২টা পর্যন্ত দলের নেতাকর্মীরা পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা অভিযান পরিচালনা করবে।

ঔষধ প্রশাসনের উদ্যোগ : ডেঙ্গু আক্রান্ত রোগীর চিকিৎসার জন্য প্রয়োজনীয় প্যারাসিটামল জাতীয় ওষুধ, আইভি ফ্লুইড, ওআরএস, ডেঙ্গু শনাক্তকরণের কীটের পর্যাপ্ত সরবরাহ নিশ্চিত করতে এবং নির্ধারিত মূল্যের অতিরিক্ত মূল্যে বিক্রি না করতে সংশ্লিষ্টদের অনুরোধ জানিয়েছে ঔষধ প্রশাসন অধিদফতর।

সোমবার ঔষধ শিল্প সমিতি, বাংলাদেশ কেমিস্ট অ্যান্ড ড্রাগিস্ট সমিতি এবং ডায়াগনস্টিক রিয়েজেন্ট ও ইকুইপমেন্ট ইম্পোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশনের নেতাদের সঙ্গে আয়োজিত সভায় তিনি এ অনুরোধ করেন। সভায় উল্লিখিত ওষুধের উৎপাদন, আমদানি এবং সরবরাহের প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করার নিশ্চয়তা প্রদান করেন সংশ্লিষ্টরা।

ঢামেকে পরীক্ষা করানো ৮০ ভাগই ঢাবি শিক্ষার্থী : ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে ডেঙ্গু সন্দেহে রক্ত পরীক্ষা করতে যাওয়া রোগীর ৮০ ভাগই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) শিক্ষার্থী। এমনটি জানিয়েছেন ঢাকা মেডিকেল কলেজের ভাইরোলজি বিভাগের শিক্ষক মো. আনিসুর রহমান।

তিনি জানান, বর্তমানে ঢামেক ভাইরোলজি বিভাগের ল্যাবরেটরিতে প্রতিদিন ৯০ থেকে ১০০ জন জ্বরের রোগী ডেঙ্গু পরীক্ষা করান। এসব রোগীর ৮০ শতাংশই ঢাবির শিক্ষার্থী। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বিশাল ক্যাম্পাস ও আবাসিক হলগুলোতে যত্রতত্র এডিস মশার প্রজননের সহায়ক উপাদান রয়েছে উল্লেখ করে তিনি ক্যাম্পাস ও হলগুলোতে এডিস মশার প্রজননস্থল ধ্বংস করার প্রয়োজনীয়তা উল্লেখ করেন।

বিএসএমএমইউর ডেঙ্গু শয্যা সংখ্যা ১৫০-এ উন্নীত : ডেঙ্গুজ্বরে আক্রান্ত রোগীদের প্রয়োজনীয় চিকিৎসাসেবা নিশ্চিত করতে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) ডেঙ্গু চিকিৎসাসেবা সেলের শয্যা সংখ্যা ৪০ থেকে ১৫০-এ উন্নীত করা হয়েছে। বর্তমানে বিশ্ববিদ্যালয়ের মেডিসিন ওয়ার্ড, শিশু মেডিসিন ওয়ার্ড, ডেঙ্গু চিকিৎসা সেল, কেবিন এবং আইসিইউতে ৭৬ ডেঙ্গু রোগী ভর্তি আছেন।

বিশ্ববিদ্যালয়ের কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক ডা. মোহাম্মদ আতিকুর রহমান জানান, ডেঙ্গু রোগীদের চিকিৎসাসেবা কার্যক্রম নিশ্চিত করতে অত্যন্ত দ্রুততার সঙ্গে ৬০টি নতুন শয্যা ক্রয় করা হয়েছে। প্রয়োজনে শয্যা সংখ্যা আরও বৃদ্ধি করা হবে।

মেডিসিন বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ডা. হাসান ইমাম জানান, বিশ্ববিদ্যালয়ের বহির্বিভাগে প্রতিদিন প্রায় ৪০০ জন জ্বর নিয়ে আসেন। এসব রোগীর অধিকাংশই ডেঙ্গুজ্বরে আক্রান্ত। তবে বেশিরভাগ রোগীরই ভর্তির প্রয়োজন পড়ে না।

ঢাকার বাইরের পরিস্থিতি : স্বাস্থ্য অধিদফতরের হেলথ ইমার্জেন্সি অপারেশন সেন্টার অ্যান্ড কন্ট্রোল রুমের তথ্য অনুযায়ী, ঢাকার বাইরে বিভিন্ন জেলায় উল্লেখযোগ্য সংখ্যক ডেঙ্গু রোগী ভর্তি হয়েছেন। ঢাকা জেলায় ১৩৬, এর মধ্যে গাজীপুরে ৯১ জন, গোপালগঞ্জে ৫, মাদারীপুরে ১৪, মানিকগঞ্জে ১৬, নরসিংদীতে ২, রাজবাড়ীতে ৯, শরীয়তপুরে ৭, টাঙ্গাইলে ৮, মুন্সীগঞ্জে ৮, কিশোরগঞ্জে ৫৬, নারায়ণগঞ্জে ১৮ জন। চট্টগ্রামে ১৪৮, ফেনীতে ৫৯, কুমিল্লায় ৪৮, চাঁদপুরে ৭৫, ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ১৪, লক্ষ্মীপুরে ১২ এবং নেয়াখালীতে ২৩ ও কক্সবাজারে ৭ জন। খাগড়াছড়িতে ৪, রাঙ্গামাটিতে ১ জন। খুলনায় ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে চিকিৎসাধীন রয়েছেন ৯৬, কুষ্টিয়ায় ৩৩, যশোরে ৪৪, ঝিনাইদহে ১৪, বাগেরহাটে ৪, সাতক্ষীরা ৮, চুয়াডাঙ্গা ৪, রাজশহীতে ৫৩, বগুড়ায় ৬০, পাবনায় ৩৮, সিরাজগঞ্জে ৮, নওগাঁয় ২, চাঁপাইনবাগঞ্জ ৯, নাটোর ১ জন। রংপুর ৪৫, লালমনিরহাট ১, কুড়িগ্রাম ৩, গাইবান্ধা ৩, নীলফামারী ২, দিনাজপুর ১, পঞ্চগড় ১, ঠাকুরগাঁও ৪। বরিশালে ৪২ জন, পটুয়াখালী ৬, ভোলা ৬, পিরোজপুর ২, ঝালকাঠি ১ এবং সিলেটে ৩০ জন।

যুগান্তরের বিভিন্ন ব্যুরো ও প্রতিনিধিদের পাঠানো তথ্যে দেখা গেছে, সারা দেশে ডেঙ্গু পরিস্থিতির আরও অবনতি হয়েছে। এর মধ্যে নারায়ণগঞ্জে ১ জন এবং সাভারে ১ জনের মৃত্যু হয়েছে। নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লায় শান্ত (১৮) নামে এক যুবক ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণ করেছেন।

রোববার সন্ধ্যায় ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়। নিহত শান্ত ফতুল্লার বক্তাবলী ইউনিয়নের ছমিরনগর এলাকার জসিম উদ্দিনের ছেলে। এদিকে সাভার এনাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় জুয়েল মাহমুদ নামে (৩০) এক ডেঙ্গু রোগীর মৃত্যু হয়েছে। তিনি ধামরাই উপজেলার কুল্লা গ্রামের জালিল উদ্দিনের ছেলে।

চট্টগ্রাম ব্যুরো জানিয়েছে, সেখানে ১ দিনে নতুন ৪১ ডেঙ্গু রোগী শনাক্ত হয়েছে। পরিস্থিতি সামাল দিতে পরিচ্ছন্নতা বিভাগে দায়িত্বরত সব কর্মকর্তা-কর্মচারীর ছুটি বাতিলের সিদ্ধান্ত নিয়েছে চসিক। চলমান ডেঙ্গু পরিস্থিতি ছাড়াও পবিত্র ঈদুল আজহা সামনে রেখে এ সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়েছে।

চট্টগ্রামের সিভিল সার্জন ডা. আজিজুর রহমান সিদ্দিকী জানিয়েছেন, নগরীর সরকারি ও বিভিন্ন বেসরকারি হাসপাতালে নতুন ২৬ ডেঙ্গু রোগী শনাক্ত হয়। চমেক হাসপাতাল উপ-পরিচালক ডা. আখতারুল ইসলাম জানান, সোমবার সকাল ১০টা পর্যন্ত পূর্ববর্তী ২৪ ঘণ্টায় নতুন ১৫ রোগী ভর্তি হয়েছেন হাসপাতালে। এ পর্যন্ত ৭৭ ডেঙ্গু রোগী ভর্তি হন।

রাজশাহী ব্যুরো জানায়, রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালে ডেঙ্গু আক্রান্ত রোগীদের জন্য আলাদা ওয়ার্ড করা হয়েছে। হাসপাতালের পক্ষ থেকেই রোগীদের সরবরাহ করা হয়েছে মশারি।

সোমবার পর্যন্ত সেখানে ৫৩ রোগী ভর্তি হয়েছেন। রামেক হাসপাতালের উপপরিচালক সাইফুল ফেরদৌস বলেন, ভর্তি হওয়ার পরপরই আমরা হাসপাতালের পক্ষ থেকে ডেঙ্গু আক্রান্ত সব রোগীকে মশারি সরবরাহ করেছি।

খুলনা ব্যুরো জানায়, খুলনায় দিনে দিনে বাড়ছে ডেঙ্গু রোগীর সংখ্যা। সোমবার বিকাল পর্যন্ত ৭৩ রোগী ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়েছেন। এর মধ্যে ভর্তি রয়েছেন ৩৭ রোগী। অতিরিক্ত রক্তক্ষরণের কারণে ২ রোগীকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকায় পাঠানো হয়েছে।

খুলনা সিভিল সার্জনের পক্ষ থেকে ডেঙ্গু মোকাবেলায় ১১৬টি মেডিকেল টিম গঠন করা হয়েছে। খুলনা সিভিল সার্জন ডা. এএসএম আবদুর রাজ্জাক যুগান্তরকে বলেন, সেখানে ডেঙ্গু প্রতিরোধে ১১৬টি মেডিকেল টিম কাজ করছে।

ঘটনাপ্রবাহ : ভয়ংকর ডেঙ্গু

আরও
আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×